মেন্যু


সফলতার জন্য চাই উত্তম পরিকল্পনা

অনুবাদক ও সম্পাদক : আব্দুল্লাহ ইউসুফ
বইটির পৃষ্ঠা সংখ্যা : ৮০

সফলতা লাভের জন্য উত্তম পরিকল্পনার গুরুত্ব অত্যধিক। যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণের ফলে অনেক কঠিন কাজও আসান হয়ে যায়। পক্ষান্তরে পরিকল্পনা গ্রহণ না করার কারণে অনেক সহজ কাজও কঠিন ও বিশৃঙ্খল হয়ে পড়ে। এতে একদিকে মূল্যবান সময় বিনষ্ট হয়, অপরদিকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। কখনো পুরো কাজটিই ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। তাই একজন সচেতন মুমিনের ইহকালীন-পরকালীন প্রতিটি কাজই পরিকল্পনা-মাফিক শুরু করা উচিত। মানবজীবনে পরিকল্পনার গুরুত্ব, পরিকল্পনার নানান ধরন, উপযুক্ত পরিকল্পনা গ্রহণে নীতিমালা ও সতর্কতা এবং পরিকল্পনা ব্যর্থ হওয়ার কারণসমূহ ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা নিয়েই এবার শাইখ মুহাম্মাদ সালেহ আল-মুনাজ্জিদের অনবদ্য গ্রন্থ (مشروعك الذي يلائمك)-এর সরল অনুবাদ ‘সফলতার জন্য চাই উত্তম পরিকল্পনা’।

পরিমাণ

75  107 (30% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
জিলহজ্জ স্পেশাল গ্যাজেটস
- ১৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

4 রিভিউ এবং রেটিং - সফলতার জন্য চাই উত্তম পরিকল্পনা

5.0
Based on 4 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    ছোট্ট একটাবই। কিন্তু আত্মোন্নয়নের জন্য অসাধারণ একটা বই বলা চলে।
    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    বইয়ের নামঃ সফলতার জন্য চাই উত্তম পরিকল্পনা
    মূলঃ শাইখ সালেহ আল-মুনাজ্জিদ
    অনুবাদঃ আবদুল্লাহ ইউসুফ
    প্রকাশনীঃ রুহামা পাবলিকেশন
    মুদ্রিত মূল্যঃ ১০৭ টাকা
    পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ ৮০

    বইয়ের আকর্ষনীয় দিকগুলোঃ
    সবাই চায় সফল হতে কিন্তু এর পদ্ধতি ও টিপসগুলো সবার জানা থাকে না এজন্য পদে পদে হোঁচট খেতে হয়। অনেক মোটিভেশনাল লেখক, বক্তার আলোচনা হয়তো জানা যায় কিন্তু একজন সফল ইসলামি ব্যক্তিত্ব এর কাছ থেকে সফলতার নানা বিষয় জানাটা অধিক উপকারী। কারন সফল মুসলিম এই দুনিয়া ও আখিরাত উভয়কে ঘিরে সফলতা পেতে চায়। সফলতার প্রত্যাশী পাঠকদের জন্য এই বইটি অবশ্যপাঠ্য

    শুরুতেই আছে অনুবাদকের কথা। চুড়ান্ত সফলতা জান্নাতসহ দুনিয়ায় সফলতার বিষয়ে লেখা বইটি পড়ে সকলে উপকৃত হবে বলে মনে করেন অনুবাদক।

    লেখকের কথায় কীভাবে সঠিকভাবে পরিকল্পনা করতে হবে, প্রতিপালকের কাছে সফল হিসাবে গণ্য হওয়া যাবে তা এই বইয়ের মাধ্যমে জানা যাবে মর্মে তিনি উল্লেখ করেছেন।

    বইয়ের সারমর্মঃ

    প্রথমেই পরিকল্পনার গুরুত্ব তুলে ধরা হয়েছে। এটি সফলতা পাবার একটি পূর্বশর্ত। পরিকলনা গ্রহনের নানা উপায়, উপকরন, উদাহরন এর মাধ্যমে বিষয়টিকে সহজবোধ্য করে তোলা হয়েছে এই অধ্যায়ে। সব যুবকেরই সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকা চাই এবং এই বিষয়ে মোটিভেশন চালানো হয়েছে এর পরে। নিজের যোগ্যতা, প্রতিভা বিকাশে নানা পরামর্শ এর মাধ্যমে আধুনিক এই যুগে নিজের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে সফল হবার জন্য জোর প্রচেষ্টা চালানোর স্পৃহা জাগবে এই অধ্যায়টি পড়ে।

    কীভাবে, কখন পরিকল্পনা শুরু করতে হবে, এর সতর্কতা, নীতিমালা, ব্যর্থতার আশংকা ইত্যাদি বর্নিত হয়েছে বেশ সাবলীলভাবে। শুধু পরিকল্পনা করেই সফল হওয়া যায় না। প্রয়োজন নানা বাস্তব অভিজ্ঞতা, উপদেশ ও কঠিন দৃড় মনোবল। কারা ইতিহাসে এমন ছিলেন, কীভাবে তারা সফল হয়েছেন এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা আছে পরের অধ্যায়গুলোতে। এক কথায় পরিকল্পনা দিয়ে শুরু এবং এর বিভিন্ন পর্যায়ের কার্যক্রমগুলো সম্পন্ন করে, নানা দিক বিবেচনা করে সফল হবার একটা গাইড লাইন এই বইতে দেয়া হয়েছে যা বাস্তব, এটেইনেবল ও স্থায়ী ইনশা আল্লাহ।

    পরিশিষ্টতে ক্ষনস্থায়ী এই পৃথিবীতে সময় দ্রুত চলে যায়। এর মধ্যেই পরিকল্পনা করে কাজ না করলে সফল হওয়া যাবে না। তাই লেখক দ্রুত পরিকল্পনা করে কাজে নেমে পড়ার আহবান জানিয়েছেন, কল্যান কামনা করে দোয়া করেছেন।

    নিজের উপলব্ধিঃ এতবড় একজন ইসলামী স্কলারের মোটিভেশনমূলক লেখা পড়ে খুবই উপকৃত হয়েছি। বইয়ের প্রচ্ছদ, বাইন্ডিং খুব ভালো। ছাপা ও কাগজের মানও দারুন।

    রেটিংঃ ৮/১০

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    :

    অসাধারণ বই। সবার পড়া উচিৎ।
    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    :

    সফলতার তৃষ্ণা দ্বীনি-বেদ্বীনি সবারই আছে। তবে দ্বীনের বুঝহীন লোকেরা সফলতা বলতে শুধু দুনিয়াতে অর্থ-সম্পদ-ক্ষমতা আহরণকেই বুঝে। আর দ্বীনের বুঝওয়ালা মানুষজন সফলতা বলতে বুঝে দুনিয়া ও আখিরাতে সফল হওয়া। আখিরাতের সফল হওয়াটাই আসল সফলতা, চাই এজন্য দুনিয়াবি মাপকাঠিতে বিফলই হয়ে যাই না কেন। সফলতা লাভের উপায় হিসেবে সেলফ হেলপ অনেক বই বাজারে পাওয়া যায়। তবে এ বইটি একটু আলাদা একারণে যে বইটি দুনিয়া ও আখিরাতে সফল হওয়ার উপায় নিয়ে রচিত।

    বইটি অনুবাদ করেছেন আব্দুল্লাহ ইউসুফ ভাই। উনার অন্যান্য বইয়ের মতই এ বইর অনুবাদও বেশ প্রাঞ্জল হয়েছে। বইয়ের শুরুতে সুন্দর একটি ভূমিকাও লিখে দিয়েছেন।

    বইটির লেখক প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন শাইখ সালিহ আল মুনাজ্জিদ। লেখকের কারণেই বইটি কেনা। কেননা, শাইখের বইগুলোতে হৃদয়ের খোরাক থাকে, বক্তব্য সংক্ষিপ্ত ও পয়েন্ট আকারে লেখা থাকে, পর্যাপ্ত রেফারেন্স থাকে। তাই শাইখ সালিহ আল মুনাজ্জিদের বইগুলোর প্রতি আমার আলাদা আকর্ষণ আছে।

    ছোট্ট এ বইটিকে ৪টি অংশে ভাগ করা যায়। প্রথম অংশে পরিকল্পনা গ্রহণ করা, পরিকল্পনার ধরন, বড় স্বপ্ন দেখা ও সালাফদের কিছু বিস্ময়কর কাহিনী আলোচিত হয়েছে।
    দ্বিতীয় ভাগে পরিকল্পনা গ্রহণে যেসব সতর্কতা অবলম্বন আবশ্যক সেসব বিষয় পয়েন্ট আকারে আলোচিত হয়েছে। এখানে লেখক ১৩-১৪টি পয়েন্টে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করেছেন। যেকোন পরিকল্পনা গ্রহণের সাথে যেন আমরা ইবাদাতের বিষয়টি ভুলে না যাই। পরিকল্পনাটি যেন হালাল ও উত্তম হয়, শারঈভাবে বৈধ হয়, সেই কাজের মাধ্যমে যাতে আমাদের দ্বীনি কাজেরও কিছু ফায়দা হয়। এছাড়া নিজের সক্ষমতা, ব্যক্তিত্ব ও পরিকল্পনা বাস্তবায়নের উপযোগী সময় ও সম্ভাব্যতা বিবেচনা করে নেয়াও আবশ্যক।

    অনেকে রকমারি পরিকল্পনা নিয়ে কিছুই বাস্তবায়ন করতে পারেনা। আবার অনেকের পরিকল্পনাটা অস্পস্ট থাকে। সে নিজেই জানেনা সে যা করছে তার বিনিময়ে সে কি চাচ্ছে, তার মূল লক্ষ্য কী। তাই পরিকল্পনা গ্রহণের আগে তা সুনির্ধারিত হওয়া জরুরি।

    এছাড়াও পরিকল্পনা বাস্তবায়নে বিলম্ব না করা, বাঁধা আসলে অবিচল থাকা, পরিকল্পনার রূপরেখা, ঊর্ধ্ব ও নিম্ন সীমা নির্ধারণ করা ও উপকরণ প্রস্তুত করা নিয়ে অসাধারণ ইলমি আলোচনা করা হয়েছে।

    ৩য় অংশে সেসব ক্যান্সারের কথা বলা হয়েছে যা আপনাকে পরিকল্পনা বাস্তবায়নে বাঁধা দিবে। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় ব্যাধি হল অলসতা। দীর্ঘসূত্রিতা নামক রোগের কথাও ভুলে যাবেন না। এরপরে এমন কিছু পয়েন্ট নিয়ে আলোচনা হয়েছে যেসব দোষ আমি নিজের মধ্যে দেখতে পাই। সেগুলো হচ্ছে হতাশা, একাধিক কাজে লিপ্ত হয়ে পড়া, সময় নস্ট করা, প্রায়োরিটি ঠিক করতে না পারা, তাড়াহুড়ো করা ইত্যাদি। লেখক এসব সমস্যার সমাধান তুলে ধরেছেন, সালাফদের জীবন থেকে উদাহারণ টেনেছেন।
    বইয়ের শেষ অংশে লেখক আমাদের অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন। যুলকারনাইন বাদশাহর ঘটনা কিংবা ইবনে আব্বাস (রা) সহ সাহাবা তাবেয়ীনদের ইলম অর্জনের বিস্ময়কর পরিকল্পনা ও তা বাস্তবায়নের জন্য লেগে থাকার গল্প নিঃসন্দেহে অনভিপ্রেত। এই অংশে লেখক কাফিরদের থেকেও উদাহারণ টেনেছেন। জাপানি এক প্রযুক্তিবিদের কাহিনী বা মিশনারীদের লক্ষ্য অর্জনে বরণ করা ত্যাগ থেকেও আপনি অনুপ্রাণিত হবেন যে বাতিলেরা যদি এত কষ্ট করতে পারে, আমরা কেন পারবো না?

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top