মেন্যু
rater adhare provur sanniddhe

রাতের আধাঁরে প্রভুর সান্নিধ্যে

প্রকাশনী : আয়ান প্রকাশন
পৃষ্ঠা : 144, কভার : পেপার ব্যাক
অনুবাদ: আব্দুল আহাদ তাওহীদ সম্পাদনা: ফেরদাউস মিক্বদাদ "তারা কি দেখে না যে, আমি রাত্রি সৃষ্টি করেছি তাদের বিশ্রামের জন্য এবং দিনকে করেছি আলােকময়। নিশ্চয় এতে ঈমানদার সম্প্রদায়ের জন্যে নিদর্শনাবলী রয়েছে। প্রিয় পাঠক!... আরো পড়ুন
পরিমাণ

132  240 (45% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
- ১,৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

প্রসাধনী প্রসাধনী প্রসাধনী

48 রিভিউ এবং রেটিং - রাতের আধাঁরে প্রভুর সান্নিধ্যে

5.0
Based on 48 reviews
5 star
95%
4 star
4%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
Showing 46 of 48 reviews (5 star). See all 48 reviews
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    🍁 প্রারম্ভিক কথন :
    ______________

    ” তারা রাতে সল্পই ঘুমায় এবং রাতের শেষ প্রহরগুলিতে ক্ষমা প্রার্থনা করে । ” ( সূরা , আল – ফুরকান : ৬৪ )

    রাত্রিকালীন ইবাদত গুলোর মধ্যে তাহাজ্জুদ হলো অন্যতম ও ফযীলত পূর্ণ ইবাদত । রাতের শেষাংশে আল্লাহর ইবাদাত রত বান্দর দোয়া আল্লাহ্ কবুল করে নেন বান্দাকে খালি হাতে ফিরিয়ে দেন না । শেষ রাতের ইবাদত গুলোর গুরুত্ব ও তাৎপর্য , ফযীলত ইত্যাদি সকল বিষয় নিয়ে রচিত হয়েছে বক্ষ্যমাণ বইটি । ‘ রাতের আঁধারে প্রভুর সান্নিধ্যে ‘ বইটি মূলত রাত্রিকালীন ইবাদতের প্রতি একজন মুসলিমকে আগ্রহী করতে সহযোগিতা করবে ।

    🍁 সূচি কথন :
    __________

    বক্ষ্যমাণ বইটি তিনটি পরিচ্ছদে সজ্জিত । যথা :
    ✓ তাহাজ্জুদ ও রাত্রি জাগরণ ,
    ✓ তারাবি সালাত ,
    ✓ বিতরের সালাত ।

    বইটি মূলত প্রধান তিনটি পরিচ্ছদের মাধ্যমে যেসকল বিষয় গুলো বিশদভাবে আলোচনা করা হয়েছে :

    ✓ তাহাজ্জুদ সালাতের মহত্ব ও তাৎপর্য ,
    ✓ রাত্রি জাগরণের ফযীলত ,
    ✓ তা আদায় করার শ্রেষ্ঠ সময় ,
    ✓ রাকাত সংখ্যা ,
    ✓ রাত্রি জাগরণের আদব ও এর নির্দিষ্ট কারণসমূহ ,
    ✓ তারাবি সালাতের গুরুত্ব ,
    ✓ তার বিধিবিধান ,
    ✓ শ্রেষ্ঠত্ব ,
    ✓ রাকাত সংখ্যা ,
    ✓ তারাবি সালাত জামাতের আদায় করার বৈধতা
    ✓ বিরতের সালাত ,
    ✓ তার আহকাম ,
    ✓ গুরুত্ব ,
    ✓ প্রকারভেদ ,
    ✓ রাকাত সংখ্যা ,
    ✓ বিতরের সালাতে কেরাত পড়া ,
    ✓ দুআ কুনুত পড়া ।

    উপরোক্ত যাবতীয় বিষয় লেখক কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে বিস্তারিতভাবে পাঠকের সামনে তুলে ধরেছেন তার বইটিতে । পাঠকের জন্য বইটি কার্যকরী ভূমিকা পালন করবে । ইন শা আল্লাহ ।

    🍁 প্রিভিউ কথন :
    _____________

    ‘ রাতের আঁধারে প্রভুর সান্নিধ্যে ‘ —- বইটি শর্ট পিডিএফ পাঠকালীন মনে হয়েছে বইটি পাঠকের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় একটি বই । কেননা , আমাদের রাত্রিকালীন ইবাদতের ক্ষেত্রে যে অনাগ্রহ ও উদাসীনতা রয়েছে তার প্রতি আগ্রহ , উৎসাহ প্রদানকারী কার্যকরী ভূমিকা রাখতে বইটি আমাদের সহযোগিতা করবে । তাই বিলম্ব করে বইটি সংগ্রহ করে ফেলুন । পাঠক সূচিপত্রে দিকে চোখ বুলালেই বইটি সম্পর্কে সম্যক ধারণা পাবেন । বইটিতে আলোচিত যাবতীয় বিষয় একজন পাঠকের মনে প্রভাব ফেলবে ।

    🍁 যাদের জন্য বইটি 📚 :
    ________________

    শর্ট পিডিএফ পড়ে বলতে পারি বইটি সকল মুসলিমের জন্য প্রয়োজনীয় একটি বই । যা তাদের রাত্রিকালীন ইবাদতের প্রতি আগ্রহ বৃদ্ধি করবে । ইন শা আল্লাহ ।

    📚 এক নজরে বইটি 📚 :
    __________________________________________________________

    📚বই : রাতের আঁধারে প্রভুর সান্নিধ্যে ।
    🖊️লেখক : শাইখ সাঈদ ইবনে আলী আল কাহতানী
    📚 ভাষান্তর : আব্দুল আহাদ তাওহীদ
    📚 সম্পাদক : ফেরদাউস মিকদাদ
    📚 পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৪৪
    📚 প্রথম প্রকাশ : মার্চ ২০২১
    📚 মুদ্রিত মূল্য : ২৪০ টাকা ।
    📚 প্রকাশনায় : আয়ান প্রকাশনী ।

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    ______________________________________________

    রজনীর চাদর জড়ানো ছায়া মায়ায় অথবা ডিসেম্বরের কনকনে শীতের গভীর নিশীথে কিংবা শ্রাবণের তিমির আচ্ছাদিত রাতে যখন মেঘমল্লারের সুরে সিক্ত স্নাত হয় পরিবেশ…তখন তুলতুলে আরামের বিছানা ত্যাগ করে প্রিয় ঘুমকে উপেক্ষা করে তাহাজ্জুদে…মহান রবের সামনে দন্ডায়মান হওয়া এক ভীষণ বড়ো নিয়ামত। আল্লাহ রব্বুল আলামিনের গুটিকয়েক বান্দাই এই সৌভাগ্যের অধিকারী হন। এই সফলতা অর্জনের লক্ষ্যে শাইখ সাঈদ ইবনে আলী আল কাহতানী রচনা করেছেন ‘কিয়ামুল লাইল’ নামক একটি কিতাব। বাংলা ভাষায় বইটির প্রাঞ্জল অনুবাদ করেছেন আব্দুল আহাদ তাওহিদ। বইটি আয়ান প্রকাশন থেকে প্রকাশিত হয়েছে।

    ▪️ #বইটির_বিষয়বস্তু :-
    আলোচ্য বইটি তে তাহাজ্জুদ নামাজের মাহাত্ম্য ও তাৎপর্য, রাত্রি জাগরণের ফজিলত, তারাবি সালাত ও বিতর সালাত ইত্যাদি বিষয়ে সুস্পষ্ট ধারণা দেওয়া হয়েছে। সমগ্র বইটি তিন টি পর্বে বিভক্ত। প্রতিটি পর্ব আবার কতগুলো অধ্যায়ে বিভক্ত। নিম্নে পর্ব তিনটির বিষয়বস্তু সংক্ষেপে আলচিত হল।

    ◑➤ #প্রথম_পর্ব : তাহাজ্জুদ ও রাত্রি জাগরণ :- এই পর্বে তাহাজ্জুদ নামাজের গুরুত্ব, রাত্রি জাগরণের ফজিলত, রাত্রি জাগরণের আদব সমূহ, রাত্রি জাগরণের কারন, তাহাজ্জুদ নামাজের রাকাত সংখ্যা ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত মনোগ্রাহী আলোচনা করা হয়েছে।

    ◑➤ #দ্বিতীয়_পর্ব : তারাবির সালাত :- তারাবি সালাতের তাৎপর্য ও নামকরণ, তার বিধিবিধান, শ্রেষ্ঠ সময় ও রাকাআত সংখ্যা, এবং জামায়াতে তারাবির সালাত আদায় করা নিয়ে সুস্পষ্ট আলোচনা করা হয়েছে।

    ◑➤ #তৃতীয়_পর্ব : বিতিরের সালাত :- বিতিরের সালাত ও তার ফজিলত, বিতির সালাতের সময়, আহকাম, বিতির সালাতের রাকাত সংখ্যা নিয়ে ভ্রান্তি নিরসন, বিতির সালাতের কেরাত পড়া, দোয়া কুনুত পড়া এবং বিতির সালাত ছুটে গেলে কা’যা কিভাবে আদায় করতে হয় এই নিয়ে বিস্তারিত আলোকপাত করা হয়েছে।

    ▪️ #বইটির_বিশেষত্ব :-
    ◑➤ আলোচ্য বইটিতে তাহাজ্জুদ, তারাবি ও বিতর সালাতের বিষয়ে সুস্পষ্ট ধারণা দেওয়া হয়েছে। প্রত্যেকটা পর্ব এত নিখুঁত ভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে তাতে পাঠক পড়ে তৃপ্তি পাবেন।
    ◑➤ আলোচ্য বইটিতে প্রত্যেকটা বিষয় কুরআন ও সহি হাদিসের উদ্ধৃতির আলোকে বিশ্লেষিত হয়েছে। তাই বইটির গ্রহণযোগ্যতা ও বিশ্বাসযোগ্যতা অধিক।
    ◑➤ আলোচ্য বইটিতে যেমন রাত্রিতে ইবাদত করার প্রতি উৎসাহিত করা হয়েছে, অপরদিকে তেমন ইবাদত করার সমস্ত নিয়মকানুন এবং কোন ইবাদতের জন্য কোন সময় বরাদ্দ তার পরিস্কার উল্লেখ রয়েছে।
    ◑➤ আলোচ্য বইটি মনোরম ভাষায় বিশ্লেষিত হয়েছে। পাশাপাশি সহজ সরল অনুবাদ। শব্দশৈলী ও বাক্যবিন্যাস বইটি কে মৌলিক বই হিসাবে মান্যতা প্রদান করেছে।
    ◑➤ রমাদান মাসে অনেক মুমিন বান্দা ‘লাইলাতুল কদর’ অন্বেষণে উদগ্রীব থাকেন। এই বইটি তাদের এক বিশেষ প্রজ্ঞা প্রদান করবে যা রমাদান মাসের শেষ দশ দিনের আমল গুলি সমন্ধে উৎসাহিত করবে।
    ◑➤ বইটির প্রধান বিশেষত্ব হল ভ্রান্তি নিরসন। তারাবি সালাতের রাকাত সংখ্যা, বিতির নামাজের রাকাত সংখ্যা ও পদ্ধতি, দুয়া কুনুত প্রসঙ্গ ও ইত্যাদি নানা বিষয়ে সাধারণ মানুষের মনে যে বিভ্রান্তি রয়েছে এই বইটি পাঠ করলে ইন শা আল্লাহ তা নিরসন হবে। লেখক অত্যন্ত দক্ষতার সাথে প্রত্যেক টা বিষয় কে বিশ্লেষিত করেছেন।

    ▪️ #বইটি_কেন_পাঠ_করবেন :-
    রাত্রির শেষ তৃতীয়াংশে আল্লাহ রব্বুল আলামীন তার প্রিয় বান্দাদের উদ্দেশ্যে সপ্তম আসমানে নেমে আসেন তাদের আর্জি শোনার জন্য। অধিকাংশ বান্দা তখন গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন থাকে। এরই মধ্যে গুটিকয়েক বান্দা আল্লাহর রব্বুল আলামিনের কাছে অশ্রুসজল আঁখিতে…দুহাত তুলে তাদের সমস্ত ফরিয়াদ জানায়। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা সন্তষ্ট চিত্তে সেই সকল সৌভাগ্যবান বান্দাদের মনোবাসনা পূর্ণ করেন। আলহামদুলিল্লাহ। যদি আপনি সেই সৌভাগ্যবান বান্দাদের অন্তর্ভুক্ত হতে চান তবে বইটি আপনার জন্য অবশ্য পাঠ্য।

    ▪️ #পাঠ্যানুভূতি :-
    শর্ট পিডিএফ হাতে পাওয়ার দরুন বইটি সম্পূর্ণভাবে পাঠ করতে পারিনি। যেটুকু অংশ পাঠ করার সুযোগ হয়েছে তাতে ভীষণ ভাবেই মুগ্ধ হয়েছি। একটি বইয়ের মধ্যে রাত্রির সমস্ত নামাজ ও তার নিয়মকানুন কে একত্রিত করা হয়েছে। তাছাড়া প্রত্যেকটি বিষয় কে পৃথক পৃথক পর্ব ও অধ্যায়ে বিন্যস্ত করা হয়েছে। ফলে পাঠক বইটি পড়ে তৃপ্তি পাবেন। এক মলাটে এমন একটি সুন্দর বই সকলেরই সংগ্রহে রাখা উচিত। যে সমস্ত মুমিন বান্দা আল্লাহর রহমতের ছায়াতলে আসতে চান, নিজের ভাগ্য কে পরিবর্তন করতে চান তাদের জন্য বইটি অবশ্য পাঠ্য।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    :

    রজনীর চাদর জড়ানো ছায়া মায়ায় অথবা ডিসেম্বরের কনকনে শীতের গভীর নিশীথে কিংবা শ্রাবণের তিমির আচ্ছাদিত রাতে যখন মেঘমল্লারের সুরে সিক্ত স্নাত হয় পরিবেশ…তখন তুলতুলে আরামের বিছানা ত্যাগ করে প্রিয় ঘুমকে উপেক্ষা করে তাহাজ্জুদে…মহান রবের সামনে দন্ডায়মান হওয়া এক ভীষণ বড়ো নিয়ামত। আল্লাহ রব্বুল আলামিনের গুটিকয়েক বান্দাই এই সৌভাগ্যের অধিকারী হন। এই সফলতা অর্জনের লক্ষ্যে শাইখ সাঈদ ইবনে আলী আল কাহতানী রচনা করেছেন ‘কিয়ামুল লাইল’ নামক একটি কিতাব। বাংলা ভাষায় বইটির প্রাঞ্জল অনুবাদ করেছেন আব্দুল আহাদ তাওহিদ। বইটি আয়ান প্রকাশন থেকে প্রকাশিত হয়েছে।

    ▪️ #বইটির_বিষয়বস্তু :-
    আলোচ্য বইটি তে তাহাজ্জুদ নামাজের মাহাত্ম্য ও তাৎপর্য, রাত্রি জাগরণের ফজিলত, তারাবি সালাত ও বিতর সালাত ইত্যাদি বিষয়ে সুস্পষ্ট ধারণা দেওয়া হয়েছে। সমগ্র বইটি তিন টি পর্বে বিভক্ত। প্রতিটি পর্ব আবার কতগুলো অধ্যায়ে বিভক্ত। নিম্নে পর্ব তিনটির বিষয়বস্তু সংক্ষেপে আলচিত হল।

    ◑➤ #প্রথম_পর্ব : তাহাজ্জুদ ও রাত্রি জাগরণ :- এই পর্বে তাহাজ্জুদ নামাজের গুরুত্ব, রাত্রি জাগরণের ফজিলত, রাত্রি জাগরণের আদব সমূহ, রাত্রি জাগরণের কারন, তাহাজ্জুদ নামাজের রাকাত সংখ্যা ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত মনোগ্রাহী আলোচনা করা হয়েছে।

    ◑➤ #দ্বিতীয়_পর্ব : তারাবির সালাত :- তারাবি সালাতের তাৎপর্য ও নামকরণ, তার বিধিবিধান, শ্রেষ্ঠ সময় ও রাকাআত সংখ্যা, এবং জামায়াতে তারাবির সালাত আদায় করা নিয়ে সুস্পষ্ট আলোচনা করা হয়েছে।

    ◑➤ #তৃতীয়_পর্ব : বিতিরের সালাত :- বিতিরের সালাত ও তার ফজিলত, বিতির সালাতের সময়, আহকাম, বিতির সালাতের রাকাত সংখ্যা নিয়ে ভ্রান্তি নিরসন, বিতির সালাতের কেরাত পড়া, দোয়া কুনুত পড়া এবং বিতির সালাত ছুটে গেলে কা’যা কিভাবে আদায় করতে হয় এই নিয়ে বিস্তারিত আলোকপাত করা হয়েছে।

    ▪️ #বইটির_বিশেষত্ব :-
    ◑➤ আলোচ্য বইটিতে তাহাজ্জুদ, তারাবি ও বিতর সালাতের বিষয়ে সুস্পষ্ট ধারণা দেওয়া হয়েছে। প্রত্যেকটা পর্ব এত নিখুঁত ভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে তাতে পাঠক পড়ে তৃপ্তি পাবেন।
    ◑➤ আলোচ্য বইটিতে প্রত্যেকটা বিষয় কুরআন ও সহি হাদিসের উদ্ধৃতির আলোকে বিশ্লেষিত হয়েছে। তাই বইটির গ্রহণযোগ্যতা ও বিশ্বাসযোগ্যতা অধিক।
    ◑➤ আলোচ্য বইটিতে যেমন রাত্রিতে ইবাদত করার প্রতি উৎসাহিত করা হয়েছে, অপরদিকে তেমন ইবাদত করার সমস্ত নিয়মকানুন এবং কোন ইবাদতের জন্য কোন সময় বরাদ্দ তার পরিস্কার উল্লেখ রয়েছে।
    ◑➤ আলোচ্য বইটি মনোরম ভাষায় বিশ্লেষিত হয়েছে। পাশাপাশি সহজ সরল অনুবাদ। শব্দশৈলী ও বাক্যবিন্যাস বইটি কে মৌলিক বই হিসাবে মান্যতা প্রদান করেছে।
    ◑➤ রমাদান মাসে অনেক মুমিন বান্দা ‘লাইলাতুল কদর’ অন্বেষণে উদগ্রীব থাকেন। এই বইটি তাদের এক বিশেষ প্রজ্ঞা প্রদান করবে যা রমাদান মাসের শেষ দশ দিনের আমল গুলি সমন্ধে উৎসাহিত করবে।
    ◑➤ বইটির প্রধান বিশেষত্ব হল ভ্রান্তি নিরসন। তারাবি সালাতের রাকাত সংখ্যা, বিতির নামাজের রাকাত সংখ্যা ও পদ্ধতি, দুয়া কুনুত প্রসঙ্গ ও ইত্যাদি নানা বিষয়ে সাধারণ মানুষের মনে যে বিভ্রান্তি রয়েছে এই বইটি পাঠ করলে ইন শা আল্লাহ তা নিরসন হবে। লেখক অত্যন্ত দক্ষতার সাথে প্রত্যেক টা বিষয় কে বিশ্লেষিত করেছেন।

    ▪️ #বইটি_কেন_পাঠ_করবেন :-
    রাত্রির শেষ তৃতীয়াংশে আল্লাহ রব্বুল আলামীন তার প্রিয় বান্দাদের উদ্দেশ্যে সপ্তম আসমানে নেমে আসেন তাদের আর্জি শোনার জন্য। অধিকাংশ বান্দা তখন গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন থাকে। এরই মধ্যে গুটিকয়েক বান্দা আল্লাহর রব্বুল আলামিনের কাছে অশ্রুসজল আঁখিতে…দুহাত তুলে তাদের সমস্ত ফরিয়াদ জানায়। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা সন্তষ্ট চিত্তে সেই সকল সৌভাগ্যবান বান্দাদের মনোবাসনা পূর্ণ করেন। আলহামদুলিল্লাহ। যদি আপনি সেই সৌভাগ্যবান বান্দাদের অন্তর্ভুক্ত হতে চান তবে বইটি আপনার জন্য অবশ্য পাঠ্য।

    ▪️ #পাঠ্যানুভূতি :-
    শর্ট পিডিএফ হাতে পাওয়ার দরুন বইটি সম্পূর্ণভাবে পাঠ করতে পারিনি। যেটুকু অংশ পাঠ করার সুযোগ হয়েছে তাতে ভীষণ ভাবেই মুগ্ধ হয়েছি। একটি বইয়ের মধ্যে রাত্রির সমস্ত নামাজ ও তার নিয়মকানুন কে একত্রিত করা হয়েছে। তাছাড়া প্রত্যেকটি বিষয় কে পৃথক পৃথক পর্ব ও অধ্যায়ে বিন্যস্ত করা হয়েছে। ফলে পাঠক বইটি পড়ে তৃপ্তি পাবেন। এক মলাটে এমন একটি সুন্দর বই সকলেরই সংগ্রহে রাখা উচিত। যে সমস্ত মুমিন বান্দা আল্লাহর রহমতের ছায়াতলে আসতে চান, নিজের ভাগ্য কে পরিবর্তন করতে চান তাদের জন্য বইটি অবশ্য পাঠ্য।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    :

    হযরত আবু হোরায়রা থেকে বর্ণিত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আল্লাহ প্রতি রাতেই নিকটবর্তী আসমানে অবতীর্ণ হন যখন রাতের শেষ তৃতীয় ভাগ অবশিষ্ট থাকে। তিনি তখন বলতে থাকেন- কে আছো যে আমায় ডাকবে, আর আমি তার ডাকে সাড়া দেবো? কে আছো যে আমার কাছে কিছু চাইবে, আর আমি তাকে তা দান করব? কে আছো যে আমার কাছে ক্ষমা চাইবে আর আমি তাকে ক্ষমা করব? (বুখারি ও মুসলিম)

    তাহাজ্জুদ মুমিনের জন্য অনেক উত্তম একটি মূহুর্ত। তাহাজ্জুদের মাধ্যমে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লার ক্ষমা, বরকত ও নৈতিকট্য লাভ করা যায়।

    রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘‘আল্লাহ তা‘আলা রাতের শেষভাগে বান্দার সবচেয়ে কাছে চলে আসেন। কাজেই যদি পারো, তবে তুমি ওই সময়ে আল্লাহর স্মরণকারীদের মধ্যে শামিল হয়ে যেও। কেননা ওই সময়ের নামাজে ফেরেশতাগণ সূর্যোদয় পর্যন্ত উপস্থিত থাকেন।’’

    আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা তার প্রিয় বান্দাদের সম্পর্কে বলেনঃ
    তারা রবের উদ্দেশ্য সিজদাবনত ও দাড়িয়ে রাত্রি যাপন করে। (সূরা ফূরকান, আয়াতঃ ৬৪)

    শর্ট পিডিএফে যা আছেঃ
    ➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖
    বইটিতে তিনটি পরিচ্ছেদে সাজানো হয়েছে।
    প্রতোক্যটা পরিচ্ছেদ অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ।

    —প্রথম পরিচ্ছেদে তাহাজ্জুদ ও রাত্রিজাগরণ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।
    রাত্রি জাগরণের ফজিলত, গুরুত্ব ইত্যাদি বিশদ ভাবে বর্ণনা করা হয়েছে।
    —দ্বিতীয় পরিচ্ছেদে তারাবীর আলোচনা করা হয়েছে। তারাবীর নামকরণ, তাৎপর্য, রাকাআত, গুরুত্ব ইত্যাদি বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।
    —তৃতীয় পরিচ্ছেদে বিতরের সালাত নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। বিতরের নিয়ম, রাকাআত, গুরুত্ব ফজিলত ইত্যাদি বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

    বইটির গুরুত্বঃ
    ➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖
    অনেকে তাহাজ্জুদের ব্যাপারে জেনেও অনেক ভুল ধারণা বশত এ সালাত থেকে দূরে থাকে। আবার সমাজে চলমান নানান বিষয় রাকাআত সংখ্যা নিয়ে মতামত থাকার কারণে দ্বিধায় ভোগেন। বইটাতে রাত্রি কালীন নামাজের সব দলীল সহ অত্যন্ত সুন্দর ভাবে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। যার মাধ্যমে রাত্রি কালীন নামাজের গুরুত্ব ফজিলত ভালো ভাবে জানা হবে।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 5 out of 5

    :

    রাতের নিকষ কালো আঁধার যখন পুরো পৃথিবীকে আচ্ছন্ন করে নেয়, যখন প্রহরে প্রহরে একদল বুনো পাখি দূরে কোথাও একসাথে ডেকে উঠে, শুকতারা যখন পূর্বাকাশের সাথে মোলাকাতে ব্যস্ত, ঠিক তখনই আরশে আযীমের মালিক আমাদের রব আমাদেরকে তাঁর দিকে আহ্বান করতে থাকেন। তিনি আমাদের ডেকে ডেকে বলতে থাকেন, আমাদের কার কী প্রয়োজন আছে, কার কী চাহিদা আছে, তাঁকে তা প্রাণভরে ব্যক্ত করার জন্য। তিনি আমাদের সেই প্রয়োজন, আশা, আকাঙ্খা তাঁর দয়ার পরশে পূর্ণ করবেন বলে।

    কিন্তু আমরা যে গাফেল মানব। আমরা কি আর মহামহিম রবের সেই ভালোবাসাময় ডাকে সাড়া দিই! সাড়া দেবই বা কী করে! আমরা যে তাঁর সে ডাকের মাহাত্ম্যই ভালোভাবে জানি না, উপলব্ধি করতে পারি না! আমরা তো তখন বেঘোর ঘুমে তলিয়ে থাকি। অথবা প্রজন্মের অবহেলাময় সময়ের ঢেউয়ে অবগাহন করে ভেসে বেড়াই ফেসবুকে। আর সেদিকে আমাদের রব ডেকে ডেকে ফিরে যান!

    তবে এবার এমন দৃশ্যপটকে বদলানোর সময় এসেছে। সময় এসেছে প্রিয় নবিজি সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর পূর্ণ অনুসরণের মাধ্যমে সালাফগণের মতো করে রাতের আঁধারে রবের ইবাদতে লিপ্ত হয়ে তাঁর সান্নিধ্য পাবার। আর এতে নিয়ামক হিসেবে কাজ করবে আয়ান প্রকাশনের “রাতের আঁধারে প্রভুর সান্নিধ্যে” বইটি ইনশাআল্লাহ। কেননা উম্মাহের কল্যানে তাদের এ বইটি এখন প্রকাশিত হওয়ার অপেক্ষায়।

    ★পাঠ সমাচার:
    বইটির শর্ট পিডিএফ পড়ে বুঝতে পেরেছি যে বইটি রাত্রীকালীন বিশেষ বিশেষ নামাযগুলো নিয়ে লেখা হয়েছে। বইটির লেখক শাইখ সাঈদ ইবনে আলী আল কাহতানী রহ. যিনি হিনসুল মুসলিমসহ ৮০ টি বই রচনা করে বিখ্যাত হয়ে আছেন, তিনি এ সম্পর্কে তাঁর জ্ঞানগর্ভকে এখানে উপস্থাপন করেছেন। কুরআন এবং হাদীসের আলোকে দলীল ভিত্ত্বিক আলোচনা করে তিনি রাসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর গুরুত্বপূর্ণ সুন্নাহ ইবাদত-

    ১.তাহাজ্জুদ,
    ২.রমাদান মাসের তারাবি এবং
    ৩.রাত্রিকালীন সর্বশেষ সালাত বিতির

    বিষয়ক প্রায় সকলকিছুকে তিনটি পরিচ্ছেদের মাধ্যমে তুলে ধরেছেন। শুধু তাই নয়, তাহাজ্জুদের সালাতের গুরুত্ব এবং তারাবির নামাজের রাকাত সংখ্যা ও বিতির নামাজ পড়ার বিভিন্ন শরয়ী পদ্ধতিকে উম্মাহের সুবিধার্থে তাঁর কলমের ডগায় প্রস্ফুটিত করেছেন।

    ★বইটির বিশেষত্ব :
    অনুবাদকের সহজ-সাবলীল অনুবাদশৈলী, ভাষার রূপরেখা বইটিকে পাঠকবোদ্ধাদের কাছে সহজ করে তুলবে। তাহাজ্জুদ সালাতের মহত্ত্ব ও তাৎপর্য, রাত্রী জাগরণের ফজিলত এবং এর আদব সম্পর্কিত আলোচনা পাঠককে সহজেই নিয়মিত তাহাজ্জুদ সালাত আদায়কারী হতে উদ্বুদ্ধ করবে। পিপাসা জাগাবে রবের সান্নিধ্য পাবার। এছাড়া তারাবির নামাজের রাকাত সংখ্যা এবং মাযহাব ভিত্তিক বিতির নামাজ আদায়ের বিভিন্ন পদ্ধতি নিয়ে জনসাধারণের মাঝে যে কাঁদা ছুড়াছুড়ির ব্যাপার আছে, এ বই পাঠের মাধ্যমে কুরআন সুন্নাহের আলোকে এর প্রকৃত অবস্থাকে তারা উন্মোচন করতে পারবে বলে আশা করা যায়।

    ★বইটির প্রচ্ছদ এবং নামকরণের সার্থকতা:
    আরবী ভাষায় রচিত মূল বই “কিয়ামুল লাইল” এর সাথে ভাষা এবং ভাবগত মিল রেখে ভাষান্তরিত এ বইটির নাম রাখা হয়েছে- “রাতের আঁধারে প্রভুর সান্নিধ্যে”। সেই সাথে নাম এবং বইয়ের বিষয়বস্তুর সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ দৃষ্টিনন্দন প্রচ্ছদ করা হয়েছে এতে। ফলে বইটিতে যুক্ত হয়েছে নতুন মাত্রা। মুহূর্তেই যেকোনো পাঠক এ বইয়ের প্রতি আকর্ষিত হতে বাধ্য। এজন্য বলা যায়, বইটির নামকরণ এবং প্রচ্ছদ সার্থক হয়েছে।

    ★বইটি কারা এবং কেন পড়বেন:
    তাহাজ্জুদ, তারাবি এবং বিতির সালাত সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে বইটি পড়বেন। রবের সান্নিধ্য লাভ করতে হলে ঠিক কিভাবে রাতের আঁধারে ইবাদত করতে হবে, সেটা অবগত হতে এ বই পড়া প্রয়োজন। এছাড়া ভিন্নভাবে যদি বলি, নবি সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর রাতের সালাত আদায়ের পদ্ধতি, সালফে-সলেহীনগণের এ ব্যাপারে মতামত কী ছিল, তাঁরা কিভাবে তাঁর অনুসরণ করে রবের সান্নিধ্য পেয়েছেন, এই ব্যাপারগুলো জানতে প্রতিটি মুসলিমের এ বইটি পড়া উচিত বলে আমি মনে করি।

    ★বইটি সম্পর্কে আমার পাঠ্যাভিমত:
    বইটির কিয়দংশ পড়ে আমার তৃষ্ণা যেন আরো বেড়ে গেছে। সম্পূর্ণ বইটি পড়ার জন্য মন খালি আকুপাকু করছে। এর চমৎকার শব্দচয়ন, রেফারেন্স ভিত্তিক আলোচনা আমাকে তাহাজ্জুদ সালাত নিয়মিত আদায় করার জন্য দারুণভাবে আলোড়িত করেছে। এছাড়াও জানতে পেরেছি অজানা কিছু বিষয়। তাই সবমিলিয়ে বইটি আমার কাছে ভীষণ ভালো লেগেছে। তবে বইটির একটি ব্যাপার আমার কাছে ভালো মনে হয়নি। সেটি হলো সূচিপত্রে পৃষ্ঠাসংখ্যা না থাকা। এতে পাঠক তার প্রয়োজনীয় পাঠ খুঁজে বের করতে গিয়ে বিপাকে পড়তে পারেন। তাই প্রকাশনের কাছে এ ব্যাপারে সুদৃষ্টি কামনা করছি। এই একটিমাত্র সূক্ষ্ম ত্রুটি ব্যতীত বইটির আর কোনো ত্রুটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়নি। তাই বলতেই পারি, আয়ান প্রকাশন পাঠক মহলকে চমৎকার একটি বই উপহার দিতে যাচ্ছে ইনশাআল্লাহ।

    ★শেষ কথা:
    পরিশেষে, বইটির উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করছি। মহান আল্লাহ বইটির লেখক, অনুবাদক, পাঠকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে এর উত্তম প্রতিদান দিন, আমিন।

    📚একনজরে বইটি:
    বইয়ের নাম : রাতের আঁধারে প্রভুর সান্নিধ্যে
    মূল লেখক : শাইখ সাঈদ ইবনে আলী আল কাহতানী রহ.
    অনুবাদক : আব্দুল আহাদ তাওহীদ
    প্রকাশনায় : আয়ান প্রকাশন
    মুদ্রিত মূল্য : ২৪০ টাকা
    পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৪৪
    বাইন্ডিং : পেপারব্যাক

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top