মেন্যু
১০০০ টাকার পণ্য কিনলে সারা দেশে ডেলিভারি একদম ফ্রি।

মা, মা, মা এবং বাবা

বিষয় : আদব, আখলাক

সম্পাদনা : আরিফ আজাদ
পৃষ্ঠা : ১৭৬

মা, মা, মা এবং বাবা’ বইটির ফ্ল্যাপ থেকেঃ

পিতা-মাতা এবং সন্তানের মধ্যকার সম্পর্কটাই পৃথিবীর সবচেয়ে মধুর এবং সবচেয়ে সুন্দর সম্পর্ক। এই সম্পর্কের কোথাও কোনো খাঁদ নেই। নেই স্বার্থ কিংবা স্বার্পরতার ছোঁয়া। মায়া, মমতা, আদর, যত্ন এবং নিখাঁদ ভালোবাসার এক অদ্ভুত চক্রে আবর্তিত এই সম্পর্কের প্রতিটি মুহূর্ত। আমাদের জন্ম, বেড়ে ওঠা, শৈশব এবং কৈশোরের গল্পে, আমাদের যুবক হয়ে ওঠার চিত্রপটে তারাই থাকেন মূল ভূমিকায়।
.
অথচ নিয়তির নির্মম পরিহাসে আমাদের জীবনের সেই মহানায়ক আর মহানায়িকা, যারা নিজেদের সবটুকু ঢেলে দিয়ে আমাদের আগলে রাখেন, আমাদের মানুষ করেন, তাদেরকে আমরা আস্তাকুড়ে ছুঁড়ে ফেলি। পরিত্যক্ত জঞ্জালের ন্যায় ভাগাড়ে নিক্ষেপ করি। এমনসব কঠিণপ্রাণ সন্তান, যারা দুনিয়ার লোভ আর মোহে পড়ে বাবা-মা’কে ভুলে যায়, ভুলে যায় তাদের অবদান, ত্যাগ আর তিতিক্ষার গল্প, কেমন হয় তাদের পরিণতি?
.
অথবা, এমনসব সৌভাগ্যবান সন্তান, যারা সবকিছুর বিনিময়ে বাবা-মা’কে আগলে রাখে, ভালোবাসে, যেভাবে শৈশবে তাদের আগলে রেখেছিল তাদের পিতা-মাতা, কেমন হয় সেসকল সন্তানদের যাপিত জীবনের গল্প? সেরকম একঝুঁড়ি গল্পের সমাহার নিয়ে রচিত মা, মা, মা এবং বাবা।

পরিমাণ

170.00  235.00 (28% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

11 রিভিউ এবং রেটিং - মা, মা, মা এবং বাবা

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভাল_লাগা_জুন_২০২০
    ❀[[ বুক রিভিউ ]]❀
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    বইয়ের নামঃ মা, মা, মা এবং বাবা
    প্রকাশনীঃ সমকালীন প্রকাশন
    বিষয়ঃ আদব, আখলাক
    সম্পাদনাঃ আরিফ আজাদ
    পৃষ্ঠাঃ ১৭৬
    বিনিময়মূল্যঃ ১৮৮ টাকা (২০% ছাড়ে)
    ∎ বিসমিল্লাহির রহমানীর রাহীম
    বাবা-মা আমাদের জীবনে আল্লাহর দেওয়া সবচেয়ে বড় নিয়ামত। তাঁরা আমাদের অতি আপনজন। পিতামাতা এবং সন্তানের মধ্যকার স্বার্থহীন,মধুর সম্পর্ক পৃথিবীতে আর দুটি নেই।
    মায়ের গর্ভকালীন কষ্ট,প্রসবের পরে আমাদের লালন-পালনে নির্ঘুম রাত্রিযাপন, বাবার সকাল থেকে রাত পর্যন্ত অক্লান্ত পরিশ্রম এসবেই ঋণ কি আর একজীবনে শোধ করা সম্ভব?
    মা-বাবা শব্দটা খুবই ছোটো। কিন্তু আমাদের জীবন তাদের ছাড়া অর্থহীন। মা-বাবা নামক যে বটবৃক্ষের ছায়ায় আমার, আপনার অস্তিত্ব বেড়ে উঠেছে, আজ বড় হয়ে যখন নিজের পায়ে দাড়াই তখন তাদের আদেশ,উপদেশ,নিষেধ যেনো আমাদের কাছে বিরক্তিকর হয়ে ওঠে।চকচকে রঙিন এ দুনিয়ায় যেনো বাবা মা কে বড্ড সেকেলে মনে হয়,উটকো ঝামেলা ভাবতে শুরু করি। মনে করি ভাবি যে এদের হাত থেকে বাঁচতে পারলেই বুঝি শান্তি!
    ∎এটা সত্যি অনেক ক্ষেত্রেই তারা আমাদের থেকে যথাযথ মূল্যায়ন পায় না। তাই আরিফ আজাদের সম্পাদিত এই বইটির উদ্দেশ্যই হলো, বাবা মায়ের প্রতি ভালোবাসাকে আমাদের হৃদয়ে নতুন করে জাগিয়ে তোলা।শুধুমাত্র পৃথিবীর সকল বাব-মা কে নিয়েই বইটি লেখা।
    ♦বিশ্লেষনঃ
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    ∎বইটি শেষ করার পর থেকেই বইয়ের বিষয়বস্তুগুলো মাথার ভেতর ঘোরপার পাচ্ছে।
    এমন বইয়ের রিভিউ করা খুবই কঠিন,সে অনুভূতি লিখে ব্যক্ত করা সম্ভব না।
    ∎ কিছু টুকরো টুকরো গল্প দিয়ে সাজানো হয়েছে বইটি। মোট ৪৪ টা গল্প আছে বইটিতে। প্রতিটি গল্পই আমাদের চারপাশে মা-বাবাকে নিয়ে ঘটে যাওয়া ঘটনার নিদর্শন রয়েছে।কয়েকটা গল্পের স্বল্প ধারনা দেওয়ার চেষ্টা করছি-
    ♦মায়ের চিঠিঃ এই গল্পটা পড়ে চোখে পানি এসে গিয়েছিলো নিজের অজান্তেই। এখানে এক মা তার সন্তানকে বৃদ্ধাশ্রম থেকে চিঠি লিখে ছেলেকে কতোটা মিস করে সেটা জানায়।গর্ভকালীন কষ্ট,প্রসব যন্ত্রনা, লালনপালন সহ সন্তানের সাথে মায়ের সকল স্মৃতি মা তুলে ধরেন।হৃদয় বিদারক এক গল্প।
    ♦সালেমঃ
    প্রতিবন্ধী ছেলে(সালেম) জন্মানোর ফলে বাবা ছেলের মুখ অবদিও দেখেন না। কিন্তু মা খুব যত্নে ছেলেকে বড় করতে থাকেন। একদিন এই সালেম তার বাবার ভুল চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেন।
    ♦বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসুনঃ এই গল্পে ছেলে মায়ের হাতে একটি চিঠি দিয়ে মাকে সাগর পারে রেখে যান। চিঠিতে লেখা ছিলো, আমার মাকে কেউ যদি পারেন বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসবেন।
    ♦মায়ের চোখে দুনিয়াঃ মা একচোখ অন্ধ তাই ছেলে মাকে বোঝা মনে করতো। অথচ পরে জানতে পারে ছোটোবেলায় ওই একটা চোখ মা তার ছেলেকেই দান করেছিলেন।
    ♦ত্যাগ ও বিনিময়ঃ সেরা গল্পগুলোর একটি। আগুন থেকে অসুস্থ মাকে বাঁচাতে গিয়ে নিজের দুধের শিশুকে আগুনের মাঝেই রেখে আসেন এক যুবতী মা।বিনিময়ে আল্লাহ তা’আলা ছোটো শিশুটিকেও সুরক্ষিত রাখেন আগুন থেকে।
    ♦মাকে পাওয়ার মামলাঃ এক মায়ের দুই ছেলে। তারা দুজনেই মাকে ভীষন ভালোবাসেন, মায়ের সেবা করতে চান। শেষে মামলা করেন মাকে পাওয়ার জন্য।
    ♦ উপলব্ধির গল্পঃ আর কি পাবো তারে-ঃ
    বৃদ্ধ বাবা ছেলের সাথে থাকেন। পুত্রবধূ তাকে খুবই ছোটো এবং ময়লাযুক্ত ঘরে থাকতে দেন,প্লাস্টিকের প্লেটে ভাত খেতে দেন। একদিন ছেলের সামনে ছোট্ট নাতি বলেন, সে বড় হয়ে এই প্লাস্টিকের প্লেটেই তার বাবাকে ক্ষেতে দেবেন। বৃদ্ধের ছেলে অনুশোচনায় ভুগতে থাকেন।
    ♦ধনীলোকের মানহানিঃ এক লোক কুয়েত গিয়ে বেশ টাকা কামিয়েছেন। গ্রামে প্রাসাদের মতো বাড়ি,গাড়ি আছে। কিন্তু মা বাবা অসহায়,তাদের খোজ নেন না, ঘৃনা করে বাবা মা কে। পরবর্তীতে তার সংসারে অশান্তি শুরু হয়, ছেলে-মেয়ের সংসারিক জীবন নষ্ট হয়,তার স্ত্রী পাগল হয়ে যান। তার সবকিছুই শেষ হয়ে যায়।
    ♦ সেতুবন্ধনঃ এই গল্পে এক পুত্রবধূ তার স্বামী এবং শ্বশুরের মধ্যকার দীর্ঘদিনের মনমালিন্য মিটিয়ে দিতে সক্ষম হন। অত্যন্ত শিক্ষনীয়।
    ♦ইবরাহীম(আঃ) এর নম্রতাঃ তার বাবাকে তিনি ইসলামের দাওয়াত দেন, উত্তরে তার বাবা তাকে হত্যা করার হুমকী দেন। তিনি কোনোপ্রকার খারাপ ব্যবহার না করে-বাবাকে সালাম দিয়ে নম্রভাবে চলে আসেন।
    ♦ বাবা-মায়ের দুআঃ সন্তান শত্রুদের হাতে আটকা পড়েন। বাবা মায়ের দুআতে তিনি মুক্ত হন এবং উপহার হিসেবে উটও উপহার লাভ করেন।
    ♦ পাঠ প্রতিক্রিয়াঃ
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    ∎ বইটি কেউ একবার পড়ার পর,তার বাবা মা যদি বেঁচে থাকে,তাঁদের প্রতি এমন অনুগত হবে যা সে কল্পনাও করতে পারবে না।
    এই বই পড়ে বুকের মধ্যে হাহাকার করবে না, কাঁদবে না,
    মনে মনে মাফ চাইবে না, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না।এটা শুধু বই নয়,বইয়ের চেয়েও বেশি কিছু।
    ∎আলহামদুলিল্লাহ আমার মাঝেও অনেক পরিবর্তন এসেছে।
    ♦ ভালোলাগা, মন্দলাগাঃ
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    বই এর যেই বিষয়গুলো আমাকে বেশি মুগ্ধ করেছে-
    ∎বইটির প্রচ্ছদঃ
    বইটির প্রচ্ছদ(কভার পেইজ) অনেক সুন্দর হয়েছে। কভার পেইজের ছবিটার দিকে গভীর ভাবে তাকান, কিভাবে এই মানুষদুটো (মা-বাবা) আমাকে আপনাকে আগলে বড় করেছেন,কতোটা গুরুত্ব দিয়েছেন আমাদের প্রতি সেটা স্পষ্টভাবে বুঝতে পারবেন।
    ∎বই এর নামকরণঃ
    নবীজীকে একব্যক্তি জিজ্ঞেস করেছিলেন,”কে আমাদের সবচেয়ে উত্তম আচরন পাওয়ার হকদার? ”
    উত্তরে নবীজী প্রথম ৩ বার মায়ের কথা বলেন এবং ৪র্থ বার বাবার কথা বলেন। সেই হাদিস থেকেই বইটির নামকরন হয়েছে।
    ∎বইয়ে লেখার ভাষা অত্যন্ত সুন্দর এবং সাবলীল।
    আলহামদুলিল্লাহ বইটির কোনো নেতিবাচক দিক নেই।
    ♦ বইটি কাদের জন্য এবং কেন পড়বেনঃ
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    ∎যারা বাবা-মায়ের প্রতি উদাসীন,যার হৃদয় কঠিন,হৃদয়ে বাবা মায়ের জন্য ভালেবাসার ঘাটতি দেখা দিয়েছে – তাদের অনুর্বর মৃত আত্মাকে জালিয়ে তুলতে অন্যতম টনিকের কাজ করবে এই বইটি।
    ♦সম্পাদক পরিচিতিঃ
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    বইটির সম্পাদনা করেছেন আরিফ আজাদ। তিনি জন্মেছেন চট্টগ্রামে।ইসলামি সাহিত্য নিয়ে কাজ করতে পছন্দ করেন। বইটি সম্পাদনায় ৬ মাস লেগেছে তার।তার সম্পাদনায় প্রকাশ পেয়েছে- “আরজ আলী সমীপে,প্রত্যাবর্তন” এবং ৪টি মৌলিক বইও রয়েছে তার।
    ♦মন্তব্যঃ
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    ∎ জীবনে প্রথম যাদের হাত ধরে হেটেছি,ব্যাথা পেয়ে যাদের বুকে মুখ লুকিয়েছি। আজকে নিজের পায়ে দাড়িয়ে কিংবা নতুন সংসার শুরু করে তাদেরকেই ঝামেলা মনে করছি?
    আমরা কি ভুলে গেছি, “মায়ের পায়ের নিচে সন্তানের বেহেস্ত”। বৃদ্ধ বয়সে তারা সন্তান, নাতি,নাতনির সঙ্গ চান।অনেকেই কোনো অনুষ্ঠানে, রেস্টুরেন্টে বৃদ্ধা বাবা-মা কে নিয়ে যেতে লজ্জা পান- কই ছোটোবেলায় আমি আপনি যখন কেনো অনুষ্ঠানে গিয়ে বায়না ধরেছি,কারনে অকারনে কেঁদেছি,কোলে করে ঘুরেছি, মা-বাবার জামাকাপড় নষ্ট করেছি, কই তখন তো তারা লজ্জাবোধ করেন নি।
    একটা কথা চিরন্তন সত্যি,” আপনি আপনার বাবা মায়ের সাথে যেমন আচরন করবেন,আপনার বৃদ্ধবয়সে আপনার সন্তানও আপনার সাথে ঠিক তেমন আচরনই করবে।নিশ্চয়ই মহান রব আল্লাহ তা’আলা শ্রেষ্ঠ বিচারক!
    পরিশেষে, বইটি পড়ার পরে যাদের বাবা মা বেচে আছেন,তারা কখনোই তাদের মা বাবাকে বৃদ্ধাশ্রমে পাঠাবে না,পরম যত্ন করবে।আর যাদের মা বাবা মৃত তারা সালাতে কাঁদবে এবং দুআ করবে। আল্লাহ তা’আলা আমাদের সবার মা বাবাকে জান্নাতুল ফেরদৌস নসীব করুক! আমিন <3
    বইটি এখানে পাবেনঃ
    https://www.wafilife.com/shop/home-product/ma-ma-ma-ebong-baba/?ivrating=5#tab-reviews
    Was this review helpful to you?
  2. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভাল_লাগা_জুন_২০২০

    বইঃ মা, মা, মা এবং বাবা,
    সম্পাদকঃ আরিফ আজাদ,

    #প্রথম_কথাঃ
    বর্তমান আধুনিকতার যুগে মা-বাবার প্রতি অবহেলা একটি চরম পর্যায়ের সামাজিক বিপর্যয়। প্রায়ই সংবাদপত্রে দেখা যায় মা-বাবাকে বিভিন্ন যায়গায় ফেলে রেখে চলে যায়। যা খুবই হৃদয়বিদারক। অাজকের সন্তানেরা জানেই না যে মা-বাবাকে কিভাবে সম্মান করতে হয়, তাদেরকে কীভাবে বৃদ্ধ বয়সে সাহায্য করতে হয়।

    আল্লাহ সুবনাহু ওয়া তায়ালা বলেন,

    তোমার রাব্ব নির্দেশ দিয়েছেন যে, তোমরা তিনি ছাড়া অন্য কারও ইবাদাত করবেনা এবং মাতা-পিতার প্রতি সদ্ব্যবহার করবে; তাদের একজন অথবা উভয়ে তোমার জীবদ্দশায় বার্ধক্যে উপনীত হলে তাদেরকে বিরক্তিসূচক কিছু বলনা এবং তাদেরকে ভৎর্সনা করনা; তাদের সাথে কথা বল সম্মানসূচক নম্রভাবে।
    (সূরা বানী-ইসরাঈল, আয়াতঃ ২৩)

    তাই সর্বদা তাদের সাথে সৎ ব্যবহার করতে হবে। বিশেষ করে বৃদ্ধ বয়সে উপনিত হলে। তারা আমাদের জন্য কত ত্যাগ স্বীকার করেন। আমাদের জ্বর হলে সারারাত জাগেন। কিন্তু সেই মা-বাবাকে ছেড়ে আমরা পারি দেই বিদেশে। আবার কেউ বিয়ে করে মা-বাবাকে ছেড়ে চলে যাই। বিষয়টা খুবই লজ্জাজনক।

    #বইটির_বিষয়বস্তুঃ
    বইটি মূলত একঝাঁক গল্পের সমন্বয়ে তৈরি। লেখক বইটি সম্পাদনার মাধ্যমে গল্পগুলোকে আকর্ষনীয় করে তুলেছেন। বইটি বর্তমান যুগের জন্য একটি উপযোগী বই।

    বাংলা ভাষায় মা-বাবার প্রতি সন্তানের দায়িত্বের অনেক বই আছে। কিন্তু এই বইটি অন্যসব বই থেকে আলাদা। বইটিতে ভিন্ন অাঙ্গিকে গল্পগুলো সাজানো।

    #আমার_অনুভূতিঃ
    আমি যতই গল্প গুলো পড়েছি ততই চোখ ভিজে যাচ্ছিল। সত্যিই গল্পগুলো এককথায় অসাধারণ। আমার কাছে অনেক ভালো লেগেছে।

    প্রত্যেক সন্তানের যাদের মা-বাবা এখনো জীবিত আছেন তাদের বইটি পড়া উচিত। যাতে তারা মা-বাবার প্রতি দায়িত্ব সম্পর্কে সঠিকভাবে জানতে পারে।

    আল্লাহ তাআলা আমাদের সবাইকে মা-বাবার সাথে উত্তম ব্যবহার করার তৌফিক দিন। আমিন।

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
  3. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    #ওয়াইফিলাই_পাঠকের_ভালোলাগা_জুন_২০২০

    বই : মা , মা , মা এবং বাবা
    সম্পাদনা : আরিফ আজাদ
    প্রকাশনী : সমকালীন প্রকাশন
    বিষয় : আদব,আখলাক
    পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৭৫
    মুদ্রিত মূল্য : ২৩৫

    ____________________________________

    পিতা-মাতা এবং সন্তানের মধ্যকার সম্পর্কটাই পৃথিবীর সবচে মধুর এবং সবচে সুন্দর সম্পর্ক ৷ এই সম্পর্কের কোনো খাদ নেই , নেই কোনো স্বার্থ কিংবা স্বার্থপরতার ছোঁয়া ৷

    ____________________________________

    [ বিষয়বস্তু ও রিভিউ ]
    যাদের ছায়ায় আমরা বাচঁতে শিখেছি , যাদের হাত ধরে আমরা হাঁটতে শিখেছি ৷একসময় আমরা যখন বড় হই তখন সেই হাত, সেই ছায়া ছেড়ে বাইরে বের হয়ে দুনিয়াকে দেখতে থাকি সাদা-কালো-রঙিন চশমার ফ্রেমে ৷ তখন সবকিছু রঙিন মনে হলেও বাবা-মাকে মনে হয় পুরোনো জরাজীর্ণ এক উটকো ঝামেলা যা আমাদের মাথার উপর চাঁপিয়ে দেয়া হয়েছে কোনোরকমে ওটাকে ভাগাড়ে নিক্ষেপ করতে পারলেই বাঁচি ৷ যার দরুণ শোনা যায় প্রায়ই সন্তানেরা বাবা-মাকে রাস্তায় ফেলে দিয়েছে নয়তো পাঠিয়ে দিয়েছে বৃদ্ধাশ্রমে ৷ কিন্তু আমরা একবারও কি ভাবি আমাদের সন্তানেরা আমাদের সাথে কি করবো ? ভাবি না , কারণ আমরা জানি আমাদের মাথার উপর একটি ছাদ আছে, জীবনকে উপভোগ করার মতো কারি কারি টাকা আছে ৷ কি হবে আমাদের ! কিচ্ছু হবে না ৷ এমন মনোভাবাপন্ন মানুষদের শেষ পরিণতি ঠিক কেমন হয় ? যার প্রতিফলন ঘটেছে মা,মা,বাবা বইটিতে ৷ আমাদের বাবা-মা আমি/আপনি নামক ছোট একটি চারাগাছকে কতই না আদর, যত্ন, ভালোবাসা, মায়া, মমতা এবং নিখাঁদ ভালোবোসা দিয়ে চারাগাছ থেকে রূপান্তর করেছেন একটি গাছে ৷ আমরা যখন বড় হই তখন এই গাছের ছায়া থেকে বাবা-মাকে দূরে সড়িয়ে সেখানে তৈরি করি আমাদের আপন ভূবন ৷ আমাদের তৈরি করা সেই আপন ভূবনের পরিণতি শেষ পর্যন্ত কি হয় ? জানতে হলে বইটি আপনাকে পড়তে হবে ৷ বইটি না পড়লে হয়তো অজানায় থেকে যেতো , আর আমি তৈরি করে যেতাম আমার আপন ভূবন যেখানে একসময় আলো, বাতাসের অভাবে দমবন্ধ হয়ে মরে যাওয়ার উপক্রম হতো নয়তোবা মরেই যেতাম ৷

    কিন্তু সবাই আমার বা আপনার মতো গাছের ছায়ায় আপন ভূবন তৈরি করে না ৷ কেউ কেউ সেই গাছের ছায়ায় বাবা-মাকে নিয়ে থাকে ৷ ছুড়ে ফেলে দেয় না ৷ আচ্ছা তাদের কি আলো-বাতাসের অভাব হয় ! না হয় না, কারণ তারা যে দুনিয়ার বুকে জান্নাতে থাকে ৷ জান্নাতে কোনো কিছুরই অভাব থাকে না ৷ তারা আমাদের মতো দুনিয়ার বুকে জান্নাত খোঁজে না, খোঁজার প্রয়োজন পড়ে না কারণ তারা তো দুনিয়া নামক জান্নাতে আছে ৷

    মা , মা , মা এবং বাবা বইটি সাজানো আমার- আপনার জীবনের টুকরো গল্প নিয়ে, যেসব ঘটনার জন্ম দিচ্ছি প্রতিনিয়ত আমরা নিজেরাই ৷

    ____________________________________

    [ পাঠ প্রতিক্রিয়া]
    খুব ছোট করে বলতে গেলে কিছু ঘটনা পড়ে মনে হয়েছে আরে এইতো সেদিন আমার আশেপাশে বা আমার সাথেই ঘটেছে ঘটনাগুলো ৷ যার জন্য দায়ী আমি নিজে আর কেউ তো নয় ৷

    ____________________________________

    [ বইটি কাদের জন্যঃ ]
    ১ ৷ বইটি প্রত্যেক বাবা-মা এবং সকল সন্তানের পড়া জরুরি মানে খুব জরুরি ৷ অত্যন্ত নিজের উপলব্ধির জন্য হলেও ৷

    ____________________________________

    [ ভালোলাগা ]
    বইটা ঠিক কেমন তা আমি বলে বা লিখে প্রকাশ করলেও তা অসম্পূর্ণ রয়ে যাবে ৷ বইটা পড়ে তা উপলদ্ধি করতে হবে , আমাদের উপলব্ধির উপর নির্ভর করছে আমাদের করা নিজেদের ভুল সংশোধন করার ৷

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
  4. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    দারুন একটা বই। পড়েছি আর কেঁদেছি
    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
  5. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভাল_লাগা_মার্চ_২০২০

    #মা_মা_মা_এবং_বাবা

    পৃথিবীর বুকে ভূমিষ্ঠ হওয়ার পরেই হয়তো মা এর ছোয়ার অনুভূতি পাই। তারপর বাবার। তারা না থাকলে হয়তো এই পৃথিবীর আলোই দেখতে পেতাম না।

    মা-বাবা পরম যত্নের ছায়াতলে আমাদের বড় করে তোলেন। আমরা হয়তো ঠিকই বড় হতে থাকি। কিন্তু তাদের কাছে আমরা ঠিক ওই ছোট্ট শিশুটিই থাকি তাদের চোখের মধ্যে। তারা প্রতিটা সময়ই আমাদের চাহিদা পূরণ করেছেন তাদের সাধ্যের মধ্যে থেকে। কিন্তু আমরা কি কখনো পেরেছি তাদের চাহিদা পূরণ করতে? হয়তো পরিনি। শুধু পেরেছি তাদের রাগ দেখাতে, তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালি দিতে।

    আল্লাহ্ আমাদের সবাইকে মাফ করুক এবং হেদায়াত দান করুক। আমিন।

    আমরা যেমনই হই না কেনো তাদের ভালোবাসার অন্ত নেই। হয় আমরা প্রতিবন্ধী অথবা অন্ধ, বা আমরা একজন সুস্থ মানুষ। তাদের ভালোবাসা ওই সবার জন্যই একই থাকে। তাদের দৃষ্টিভঙ্গি সবার জন্যই সমান। কারণ তারা মা-বাবা।

    এই বইটি “শাইখ আবদুল মালিক মুজাহিদের” ‘Loving Our Parents’ বইটি থেকে বেশ কিছু গল্প নেওয়া হয়েছে। আসলে এগুলো তো গল্প নিয়, জীবন থেকে নেওয়া গল্প। আরিফ আজাদ ভাই এই বইটি অনেক দক্ষতার সাথে সম্পাদনা করেছেন।

    ভাইয়ের যেমন কীবোর্ড ভিজেছিল তার চোখের পানিতে, আমারও চোখে এক পশলা বৃষ্টি নেমেছিল এই বইটি পড়তে পড়তে। বইটি পড়ে যদি আমরা মা-বাবা কে জড়িয়ে ধরে একবার বলতে না পারি যে, মা-বাবা আমাদের মাফ করে দিও। তাহলে আমাদের হয়তো বুকের মধ্যে কোনো হৃদয় নেই।

    আমরা কখনোই তাদের ঋণ পরিশোধ করতে পারবো না। পুরো জীবনে বেশির ভাগ মা-বাবারা আমাদের কর্মকাণ্ডে বিরক্ত হন না। কিন্তু আমরা ঠিকই তাদের প্রতি বিরক্তবোধ দেখাই।

    আল্লাহর দোহাই লাগে, আপনারা মা-বাবার প্রতিদিন খোজ করুন, এক মিনিট হলেও কথা বলুন। কেননা, ব্যস্ততার দোহাই দিয়ে তাদের অবহেলা করতে পারেন না।

    সময় ফুরিয়ে যাওয়ার আগেই তাদেরকে ভালোবাসুন। এবং তাদের কাছে মাফ চেয়ে নিন আপনার ভুলের জন্য।

    বইটি সব সন্তানদের পড়ার জন্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে।
    #MRHR

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
  6. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    মা মা মা এবং বাবা, বইটি এক কথায় অসাধারণ,বিশেষ করে সালেম এর গল্পটা আমাকে খুব ব্যাধিত করেছে,আসলে আমাদের সকলকে সালেমের মত হওয়া দরকার,বর্তমান বিশ্বে সালেমের খুব প্রয়োজন,,
    3 out of 4 people found this helpful. Was this review helpful to you?
  7. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    বই:মা,মা,মা এবং বাবা
    সম্পাদনায়: আরিফ আজাদ
    প্রকাশনীঃ সমকালীন প্রকাশন
    ✅ গায়ের মূল্যঃ ২৩৫ টাকা
    ✅ পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ ১৭৬

    বই সম্পর্কে কমন কথাঃ মা, বাবা ও সন্তানদের জন্য পারফেক্ট একটা বই। এই বই পড়বে আর চোখের পানি বের হবে না এটা মনে হয় অষ্টম আশ্চর্য হবে। ? যারা সন্তানদের দেয়া কষ্টে মন খারাপ করে আছেন, যারা মা বাবার প্রতি সেভাবে লক্ষ্য রাখতে পারছেন না তাদের ফিরে আসার জন্য বইটি ওষূদের মত কাজ করবে ইনশা আল্লাহ।

    ? মা, বাবা এর প্রতি ভালোবাসা, ভক্তি, তাদের প্রতি অবহেলার পর ফিরে আসার গল্প আছে এখানে। আবার মা বাবার প্রতি খারাপ আচরনের কারনে দুনিয়ায়তেই নানা বিপদে পড়ার উদাহরন পাওয়া যাবে।

    ? সন্তানের প্রতি ভালবাসার নিদর্শন এখানে মিলবে। তাদের প্রতি নিজের সব বিলিয়ে দেয়ার গল্প পড়ে চোখ ভিজবে।

    ? সন্তান লালন পালনের কিছু টিপস যেমন পাওয়া যাবে তেমনি মা বাবার জন্য চক্ষু শীতলকারী হবার নানা টোটকাও মিলবে এই বইয়ে।

    ? যাদের মা বা বাবা অথবা দুজনেি মারা গিয়েছেন তারা কিছুটা আক্ষেপে ভুগবেন তাদের যথাযথ সম্মান দিতে পারেন নাই এমন অনুভূতি হবার কারনে। তাই যাদের সুযোগ আছে তারা অবশ্যই বইটি পড়ে নিন।

    ? কয়েকটি গল্পের নাম দেখে নিনঃ মায়ের চিঠি, অনুশোচনার গল্পঃ হারিয়ে ফেলার পর, আনুগত্যের গল্পঃ সঠিক পথের দিশা, মায়ের অভিশাপ, অশুভ পরিনাম, সেতুবন্ধন ইত্যাদি।

    ? এই বইয়ে কুর আন হাদীসের কিছু ঘটনাও বর্নিত হয়েছে শেষ অধ্যায়ে। নবী, সাহাবী ও অন্যান্য সালেহীনদের জীবনের ঘটনা এখানে দেয়া আছে সুন্দরভাবে।

    ??? পর্যালোচনাঃ বইটি এমন একটি বই যা সবার ঘরে, সব লাইব্রেরীতে থাকার দাবী রাখে। আপনি যদি ছেলে/মেয়ে হোন তাহলে মা বাবাকে। যদি মা বাবা হোন তাহলে ছেলে মেয়েকে বইটি গিফট দিতে পারেন। অথবা এটা এমন একটি বই যা সবাইকে গিফট দেওয়া বা পড়তে দেওয়া যায়। সব জায়গায় রাখা যায়।

    ✅ রেটিংঃ ১০/১০

    4 out of 4 people found this helpful. Was this review helpful to you?
  8. 4 out of 5
    Rated 4 out of 5

    :

    ‘মা, মা, মা, এবং বাবা’- বইটি টুকরো টুকরো কিছু গল্প দিয়ে সাজানো। গল্পগুলো আমাদের সমাজ থেকেই উঠে আসা। গল্পগুলোর উদ্দেশ্য হলো, বাবা মায়ের প্রতি ভালবাসাকে নতুন করে জাগিয়ে তোলা। যেসব সন্তান বাবা মায়ের প্রতি উদাসীন, বয়স্ক বাবা মায়ের প্রতি যাদের অন্তর কঠিন হয়ে পড়েছে, আমার মনে হয় – বইটি যদি তারা একবার পড়ে, তাহলে বাবা মায়ের প্রতি তারা এমন অনুগত হয়ে যাবে, যা তারা কখনো কল্পনাও করেনি। যেসব সন্তানদের অন্তর বাবা মায়ের প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসায় পরিপূর্ন, তাদের বইটি সেই সুসংবাদ ও জানিয়ে দিবে, যা আল্লাহ ও তার রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) আমাদের জানিয়েছেন।

    জন্মের পরপর প্রত্যেকটি মানবশিশু থাকে খুবই অসহায়। সেই অসহায় অবস্থায় আমাদের লালন পালন করে বড় করে তোলেন আমাদের বাবা মা, জীবনের সবটুকু ঢেলে দিয়ে আমাদেরকে আগলে রাখেন তারা। আমাদের জন্ম, শৈশব, কৈশোর এবং যৌবনের গল্পে তারাই থাকেন মূল ভুমিকায়।

    কিন্তু, বড় হওয়ার সাথে সাথে কিছু সন্তান হয়ে ওঠে অকৃতজ্ঞ, যারা দুনিয়ার লোভে পড়ে বাবা মাকে ভুলে যায়। আবার এমন কিছু সৌভাগ্যবান সন্তান ও আছে, যারা সবকিছুর বিনিময়ে বাবা মাকে আগলে রাখে, ভালবাসে, যেভাবে শৈশবে তাদেরকে আগলে রেখেছিলেন তাদের পিতা মাতা।

    বইটিতে আছে কিছু সৌভাগ্যবান সন্তানের গল্প, আরো আছে কিছু অবাধ্য সন্তানের গল্প। অবাধ্য সন্তানদের পরিণতি কেমন হয় তাও আছে এই বইতে। বইটির শেষে আছে কুরআন ও হাদীস থেকে নেয়া কিছু ঘটনা।

    বইটি কাদের জন্যঃ
    আমার মনে হয়, সব সন্তানদের বইটি একবার অন্তত পড়া উচিত। যাদের বাবা মা জীবিত আছেন, বইটি পড়ার পর বাবা মায়ের প্রতি তাদের আচরণ বদলে যাবে। যাদের বাবা মা ইন্তেকাল করেছেন, তারা সালাতে দাঁড়িয়ে বাবা মায়ের জন্য হুহু করে কাঁদবে।

    বইটির ভাষা খুবই প্রাঞ্জল। সমকালীন প্রকাশন এর অন্যান্য বইয়ের মত এই বইটিরও কভার, বাইন্ডিং, পেজ মেকাপ খুব চমৎকার।

    বইটির পেছনে যারা মেহনত করেছেন, আল্লাহ তাদের উত্তম প্রতিদান দিন।

    1 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
  9. 4 out of 5
    Rated 4 out of 5

    :

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভাল_লাগা_সেপ্টেম্বর_২০১৯
    আল্লাহ সুবহানাহুওয়াতালা আমাদেরকে যেসব অসংখ্য নিয়ামত দিয়েছেন, তার মধ্যে অন্যতম হলেন আমাদের পিতামাতা। তারা শত ঝড়ঝাপ্টায় পরম মমতায় আমাদেরকে আগলে রেখে তিল তিল করে বড় করে তুলেন। পিতামাতার জন্যে সন্তান হচ্ছে চোখের শীতলতা। আর সন্তানের জন্যে পিতামাতা হলেন আকাশের জ্বলজ্বলে নক্ষত্র, প্রথম বন্ধু, প্রথম শিক্ষক। আমাদের জান্নাতে যাওয়ার অন্যতম অবলম্বন হলেন আমাদের পিতামাতা। তাইতো নবীজির (ﷺ) হাদিস থেকে জানতে পারি, যে ব্যাক্তি তার পিতা ও মাতা উভয়কেই বৃদ্ধ অবস্থায় পেলো অথচ তাদের সেবা করে জান্নাতে যেতে পারলো না, তার জন্যে ধ্বংস। [1]
    .
    মানুষের একটি বৈশিষ্ঠ্য হল, সে সহজেই কোন নিয়ামত পেলে তার কদর করেনা। যখন সে জিনিসের অভাব বোধ করে, তখন তার মূল্য বোঝে। অথচ মাতাপিতার মত এত বিশাল নিয়ামতের কদর অনেক মানুষ বোঝেনা। মাতাপিতা মারা যাওয়ার পর তাদের কদর বুঝে সেবা না করার আক্ষেপ নিয়ে সারাজীবন ডুকড়ে কেঁদেছে এমন লোক সমাজে অনেক পাওয়া যাবে। তাই প্রতিনিয়ত মাতাপিতার কর্তব্য স্মরণ করিয়ে দেয়ার জন্যে এমন একটি বইয়ের প্রয়োজন ছিল অনেক।
    .
    বইয়ের কিছু গল্প শায়খ আব্দুল মালেক মুজাহিদের ‘Loving our parents’ বই থেকে নেয়া হয়েছে। কিছু গল্প আরব শায়খদের রচনা থেকে, কিছু গল্প ইন্টারনেট থেকে প্রয়োজনীয় সম্পাদনা করে নেয়া হয়েছে। আছে অন্যান্য জায়গা থেকে নেয়া সুন্দর সব গল্পের সমাহারও।
    .
    বইটিকে দুইভাগে ভাগ করা যায়। প্রথম অংশে আছে জীবন থেকে নেয়া বিভিন্ন গল্পের সমাহার।
    .
    প্রথম গল্প হচ্ছে এক মায়ের চিঠি। এ যেন প্রত্যেক মায়ের মনের কথা। সন্তান গর্ভে ধারণ থেকে পৃথিবীর আলো বাতাসে বেড়ে উঠা পর্যন্ত মায়েদের অবদান যে কত বিরাট তা এই লেখাটি পড়ে আরেকবার স্মরণ হবে, চোখ অশ্রুসিক্ত হবে। ইচ্ছে করবে নিজের মাকে জড়িয়ে ধরে ধন্যবাদ জানাতে।
    .
    এই বইটা শুধুই মায়েদের গল্প নিয়ে নয়, আছে বাবাদের গল্প, সন্তানের গল্প, সফল পরিবারের গল্প, ব্যর্থ পরিবারের গল্প। বইয়ের গল্পগুলো পড়ে আপনার বোধোদয় ঘটবে। উপলব্ধি করবেন কত বড় নিয়ামতকে আপনি অবহেলা করছেন। নিজের পরিবারকে দেখবেন অন্য রকম মমত্ববোধ থেকে।
    .
    কিছু গল্প পড়ে আবারও বুঝতে পারবেন, বাবা মায়ের এই ঋণ কখনো শোধ হবার নয়। আমরা যতই উত্তম আচরণ আর খেদমত করিনা কেন, আমরা আমাদের মায়ের একটি দীর্ঘশ্বাসের প্রতিদানও দিতে পারবোনা, ঠিক যেমনটি আব্দুল্লাহ ইবনে উমার (রা) বলেছিলেন (১৭৪ পৃ.)। নেককার সন্তানরাও পিতামাতার জন্যে আশীর্বাদস্বরুপ। সালেম নামক আবিদ সন্তানের কাহিনী পড়েও চোখ মুছতে হতে পারে আপনার।এধরনের অসংখ্য হৃদয়ছোঁয়া গল্পের সমাহার এই বই।
    .
    কখনো অনুশোচনার আর আক্ষেপের গল্পগুলো পড়ে চোখ মুছবেন। মনে হবে নিজের পিতামাতার সাথেও তো কত বেয়াদবি, অবহেলা করেছি। কখনো সফল পিতামাতার সন্তানের গল্প পড়বেন। উপলব্ধি করবেন তাদের সেবা করার গুরুত্ব, উপলব্ধি করবেন নিজেদের শিশুদেরও সঠিকভাবে লালনপালনের প্রয়োজনীয়তাও।
    .
    কিছু গল্প পড়ে হয়ত আপনি থেমে যাবেন, সামনে এগুতে পারবেন না। ‘অনুশোচনার গল্পঃ হারিয়ে ফেলার পরে’ গল্পটি ছিল আমার জন্যে তেমনই একটি গল্প। ‘বাবা-মায়ের স্মৃতি’ লেখাটাও অসাধারণ ছিল, লেখক নিজের জীবন থেকে আমাদের বাস্তব উপদেশ দিয়ে গেলেন কীভাবে বাবা মায়ের সাথে সদাচার করতে হবে। ‘সিলাহ রেহমী’ লেখাটি তো দিকনির্দেশনামূলক উপদেশে রচিত এমন রচনা যে বারবার পড়া উচিত। বইয়ের কিছু গল্পে অবাধ্য সন্তান, অবাধ্য ছেলের বউ আর দুঃখ অনুশোচনার কাহিনী পড়ে সেসব থেকে শিক্ষা নেয়ার খোরাক যেমন আছে, তেমনি বাধ্য সন্তান, লক্ষী ছেলের বউদের গল্পও আছে যেগুলো পড়ে অনুপ্রাণিত হবেন। মোটকথা, এতদূর পড়ে মনে হবে, বইটি কমপ্লিট প্যাকেজ, শুধু কুরআন হাদীসের কিছু গল্প জুড়ে দিলেই স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে যেতো।
    .
    আর সেজন্যেই হয়ত ২য় অংশে আছে কোরআন-হাদিস থেকে নেয়া কিছু রচনার সংকলন, সালাফদের মাতাপিতার প্রতি ভক্তির কিছু সুন্দর গল্প, হাদীস থেকে নেয়া ঘটনা এবং পিতার সাথে ইব্রাহীম (আ) এর ঘটনা। সব মিলিয়ে সম্পূর্ণ বইটি পরিণত হয়েছে সংগ্রহে রাখার মত একটি অনবদ্য রচনাসম্ভারে।
    .
    বইটি প্রকাশনীর ড্রিম প্রজেক্ট ছিল। তারা ভালো একটি কাজ উপহার দিতে চেস্টার কমতি করেনি। নজরকাঁড়া প্রচ্ছদ, সুন্দর পৃষ্ঠাসজ্জা, পাঠোপযোগী সুন্দর ও শ্রুতিমধুর লেখনী সবকিছুতেই ছিল যত্নের ছোঁয়া। বানান বিভ্রাট প্রায় চোখেই পড়েনি (৯৭ পৃষ্ঠায় ‘স্বঃপ্ন’ বানানটি ছাড়া)।
    .
    তবু তারপরেও আমরা যেহেতু মানুষ, ক্রুটিবিচ্যুতিবিহীন কিছু প্রকাশের দাবী আমরা করতে পারিনা। আমার এ বইতে দুটি বড় রকমের অসংগতি নজরে এসেছে। বলে রাখি, অসঙ্গগতিগুলো ফতওয়ার অসম্পূর্ণতা নিয়ে, ভুল নয়। ফুটনোটে সম্পূর্ণ ফতওয়া সংক্ষেপে উল্লেখ করলেই সেগুলো আর অসঙ্গগতি হিসেব থাকবেনা ইনশাআল্লাহ
    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
  10. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    অত্যান্ত ভালো, উপকারী একটি বই। লেখকের এলম ও আমলে বরকত নাজিল হোক।
    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
  11. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    অসাধারণ একটি বই
    Was this review helpful to you?