মেন্যু
১০০০ টাকার পণ্য কিনলে সারা দেশে ডেলিভারি একদম ফ্রি।

নারী সাহাবীদের ঈমানদীপ্ত জীবন

পৃষ্ঠা: ৮৬

নারী সাহাবীদের ঈমানদীপ্ত জীবন’ মুসলিম বিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টিকারী আরবী গ্রন্থ ‘সুওয়ারুম মিন হায়াতিস সাহাবিয়্যাত’ এর অনুদিত গ্রন্থ। অনুবাদক আরবী সাহিত্যমান ও রস অনুবাদে পরিপূর্ণভাবে তুলে আনতে চেষ্টার কোনো ত্রুটি রাখেননি।

‘নারী সাহাবীদের ঈমানদীপ্ত’ গ্রন্থে ইসলামের ইতিহাসের যেসব মহীয়সী নারীদের জীবনী আলোচিত হয়েছে:

(১)প্রিয় নবীর দুধমা হালীমা
(২) নবীজীর ফুফু ছফিয়্যাহ
(৩) প্রিয় নবীর কন্যা ফাতিমা তুয যাহরা
(৪)আবু বকর রাযি. এর কন্যা আসমা
(৫)নাসীবা আল মাযেনিয়্যা,
(৬) উম্মে হাবীবা(রমলা) বিনতে আবু সুফিয়ান
(৭) গুমাইছা বিনতে মিলহান
(৮) উম্মে সালামা

Out of stock

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

1 রিভিউ এবং রেটিং - নারী সাহাবীদের ঈমানদীপ্ত জীবন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভালোলাগা_মার্চ_২০২০
    .
    সেই সাড়ে চৌদ্দশত বছর আগের কথা! মক্কাবাসীর ‘আল-আমিন’এর রিসালাত প্রাপ্তির পরের সময়কাল! বনী আদমের জন্য মহামানবের মাধ্যমে রাব্ব পাঠালেন ঐশীবাণীর নির্দেশিকা। সেই আলোর বিচ্ছুরণে চরম সত্যকে চিনতে দলেদলে ছুটে আসলো তৃষিত সব প্রাণ।সেই প্রাণগুলোর মধ্যে বিশাল একটা অংশ ছিলো নারী সাহাবিদের।
    তাদের জন্য সত্যের পথে হাঁটার এই রাস্তা মোটেও কুসুমাস্তীর্ণ ছিলোনা। নবীজির ডাকে সাড়া দিয়ে কেউবা ছেড়েছেন মাতৃভূমি। কেউ হারিয়েছেন প্রিয়জন-প্রিয়মুখ!কেউ আবার মৃত্যুকে গ্রহণ করেছেন হাসিমুখে। তবু তাঁরা যে মহাসত্যের রঙ মেখেছিলেন তনুমনে, তার থেকে একচুল ও বিচ্যুত হননি। এতটাই দৃঢ় ঈমানের অধিকারীনী ছিলেনে তারা।
    .
    রব্বের সান্নিধ্যে লাভে এমনই কিছু নারী সাহাবীদের ত্যাগ-তিতিক্ষার কথাই “নারী সাহাবীদের ঈমানদৃপ্ত জীবন” বইটির উপজীব্য।
    .
    |বইয়ের আলোচনাঃ| বইটি ‘সুওয়ারুম মিন হায়াতিস সাহাবিয়্যাত’ এর অনুদিত গ্রন্থ। আটজন নারী সাহাবিদের আলোকিত জীবন নিয়ে ৯৪ পৃষ্ঠার এই বইয়ের ব্যপ্তি।

    বইয়ের অবতারণা নবীজির দুধমাতা হযরত হালিমা (রঃ) জীবনী দিয়ে।
    .
    (২) হযরত ছফিয়্যাহ (রাঃ)। জগদ্বিখ্যাত সেই প্রথমা মুসলিম বীরাঙ্গনা, যিনি এক মুশরিককে হত্যা করে ইতিহাস রচিত করেছিলেন।এই দুঃসাহসী নারী উহুদ যুদ্ধেও অংশ নিয়েছিলেন। আপন ভাই শহীদ হামজার বিকৃত লাশ দেখেও রবের সন্তুষ্টির আশায় তিনি ধৈর্য হারা হননি।
    .
    (৩) নবীজির কলিজা, জান্নাতের নেত্রী দু’জাহানের আইডল ফাতেমা তুয যাহরা (রাঃ) ‘র জীবন।
    .
    (৪,৫) আবুবকর (রাঃ) এর দু’কন্যা আসমা ও উম্মে উমারা। প্রেক্ষাপট বিবেচনায় এই দুই নারীর তিতিক্ষার তুলনা করা দুরূহ।

    (৬) তারপরে,রাসূল (সঃ) এর প্রিয় খালা উম্মে সুলাইম এর জীবনবৃত্তান্ত।
    .
    (৭,৮) উম্মে হাবিবা ও উম্মে সালমা (রাঃ)। যারা জীবন নিয়ে পড়েছিলেন চরম বিপাকে। আর সেই অসহায়ত্বই হয়ে যায় তাদের জীবনের রবের রাহমাহ। প্রিয় নবী তাদের বিয়ে করে নিশ্চিত করেছিলেন নিরাপত্তা আর আকাশসম মর্যাদা।
    .
    |ভালোলাগা-মন্দলাগাঃ|
    বইয়ের সবচেয়ে ভালোলাগার দিক হলো- শব্দের গাঁথুনি দিয়ে কাহিনীর প্রাণবন্ত চিত্রায়ন। যেন সবক’টি ঘটনা চোখের সামনে ঘটছে। অনুবাদ প্রাঞ্জলতা আনয়ন কিংবা সাহিত্যমানে কোনো ত্রুটি রাখেননি। বাইন্ডিং-কোয়ালিটি ঠিক আছে।তবে বানানবিভ্রাট চোখে পড়ার মতো।প্রচ্ছদটাও আরেকটু ভালো হলে
    পারতো।
    .
    |পাঠ প্রতিক্রিয়াঃ| রবের সাকুল্য লাভে রাযিয়াল্লাহু আনহুন্না’দের কণ্টকাকীর্ণ রাস্তার দুর্বোধ্য পথচলার কাহিনী শুনলেই নিজের জীবনোপলব্ধির অন্তঃসারশূন্যতা খুঁজে পাই! বইটা পড়ে চোখের পানি ফেলেছি,বিস্মিত হয়েছি, কখনোবা হেসেছিও। সত্য আর সুন্দরের জন্য তাদের ত্যাগগুলো আমাদের খুঁজে দিতে পারে জীবনের রসদ। ইনশাআল্লাহ।

    Was this review helpful to you?