মেন্যু
ummahor oikko: poth o pontha

উম্মাহর ঐক্য পথ ও পন্থা

পরিমাণ

120  200 (40% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

2 রিভিউ এবং রেটিং - উম্মাহর ঐক্য পথ ও পন্থা

5.0
Based on 2 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    Muhammad Masud Rana:

    ইখতেলাফ, ইজতিহাদ, মাযহাব আর সহিহ দলিলের রেষারেষিতে মুসলিম উম্মাহের মাঝে আজ বিরাট দলাদলি সৃষ্টি হতে দেখা যায়। অথচ এটা কুরআন ও সুন্নাহ দ্বারা প্রমানিত যে, মুসলিম উম্মাহ হিসেবে একতা বজায় রেখে সম্প্রীতি আর সংহতি রক্ষা করে চলা ইসলামের একটা মৌলিক ফরয।

    বাস্তব জীবনে তাওহীদ প্রতিষ্টা করে ঈমান চর্চা করা যেমন জরুরি বিষয়, তেমনি পারস্পরিক ঐক্য বজায় রেখে সুন্নতের অনুসরণও অনেক জরুরি।

    কিন্তু আমরা এখন এই দুঃখজনক বাস্তবতার সম্মুখীন যে, হাদিস ও সুন্নাহের অনুসরণ নিয়ে উম্মাহের মাঝে ব্যাপক বিবাদ-বিসংবাদ সৃষ্টি হচ্ছে। এই বিবাদের কারন হিসেবে ইমামগণকে এবং তাদের সংকলিত মাযহাব সমুহকে দায়ী করা হচ্ছে।

    অথচ ফিকহের এই মাযহাবগুলো হচ্ছে কুরআন সুন্নাহর বিধিবিধানের ব্যাখা এবং তার সুবিন্যস্ত ও সংকলিত রুপ। এরপরেও মাযহাব, ইজতিহাদ, ইখতেলাফ নিয়ে বিবাদ চলমান থাকায় এটা প্রমাণ হয় যে, মুসলিম উম্মাহর ঐক্য ও সংহতির সঠিক উপলব্ধি এবং ঐক্য বিনাশী বিষয়গুলো চিন্হিত করার ক্ষেত্রে সকলেই বিভ্রান্তির শিকার।

    চলমান বইটিতে সেই ভ্রান্তির নিরসন করা হয়েছে।

    প্রথমেই মুসলিম হিসেবে আমাদের ঐক্য ও সংহতি এবং সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির গুরুত্ব আলোচনা করা হয়েছে। এরপর কোন কোন বিষয় ঐক্যের পরিপন্থী এবং সেখান থেকে কিভাবে পরিত্রাণ পাওয়া যাবে সেটা বলা হয়েছে। তারপর ইসলামী শরিয়তে কোন কোন বিষয়ে মতপার্থক্যের অনুমতি রয়েছে এবং সেক্ষেত্রে সুন্নতের দিকে আহবানের পথ কেমন হওয়া উচিত সেটা বলা হয়েছে।

    তারপর নামাযের পদ্ধতিতে সুন্নতের বিভিন্নতা কেন এবং কেন্দ্রিয় মতপার্থক্যের বৈধতা কতটুকু, সেক্ষেত্রে ইখতেলাফ ও ইজতিহাদের সমাধান দরকার কি না সেই রহস্যভেদ করা হয়েছে। মাঝে মাঝে এসব বর্ননা স্বয়ং রসুল (স) ও তার সাহাবাদের যুগে কেমন ছিল, মতপার্থক্যের স্থানে রসুল (স) কিভাবে তার সমাধান করেছেন সেটাও তুলনামূলক আলোচনা করা হয়েছে।

    এমনকি মাযহাব কেন সৃষ্টি হয়েছে, ইসলামি শরীয়তে মাযহাবের প্রয়োজনীয়তা কেমন, মাযহাবের বৈধতা কতখানি, ইমামগনের মাযহাব এখনো চলমান থাকবে কি না এমন সংশয়যুক্ত সকল প্রশ্নের সংক্ষিপ্ত উত্তর দেয়া হয়েছে।

    লেখক বইটির শেষ দিকে ফুরুয়ি বা শাখাগত ইখতেলাফের ক্ষেত্রে বর্তমান আলেম সমাজের কড়াকড়ি ও বাড়াবাড়ি কতটা সঠিক সেটা বলেছেন।

    অর্থাৎ ইখতেলাফ ও ইজতিহাদের স্বরুপ বর্তমানে কেমন হওয়া উচিত এবং তার মাপকাঠি সুন্নাহ মোতাবেক কেমন হবে তার পূর্নাঙ্গ ও সঠিক উত্তর পেতে হলে এই বই পড়ার কোনো বিকল্প নেই।

    প্রত্যেক সচেতন ও ইসলামী চেতনা ধারনকারী তরুণদের উচিত সবার আগে এই বইটি পড়া।

    বইঃ উম্মাহর ঐক্য, পথ ও পন্থা।
    লেখকঃ মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল মালেক।
    মূল্যঃ ১২০ টাকা।

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    মুহাম্মাদ মেহেদী:

    পূর্ব থেকে পশ্চিম – সবখানে আজ আমাদের আঘাতের চিহ্ন! সেখানে আমরা নিজেরাও আজ নিজেদের মধ্যে ছোটখাটো বিষয় নিয়ে মারামারি, কাঁদা ছোড়াছুঁড়িতে লিপ্ত। তাও কিনা হাদীস ও সুন্নাহর অনুসরণ নিয়ে! অথচ কথা ছিল এগুলো আঁকড়ে ধরেই আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে পথ চলবো। যুগে যুগে সচেতন আলিমরা তাদের বক্তৃতা-লেখনীর মাধ্যমে আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ থাকার বিষয়ে সচেতন করে গেছেন এবং এখনো করে যাচ্ছেন। তারই ধারাবাহিকতায় আমাদের বাংলাভাষী বিশিষ্ট একজন আলিম মাওলানা মুহাম্মাদ আবদুল মালেক (হাফি.) রচনা করেছেন “উম্মাহর ঐক্যঃ পথ ও পন্থা” নামে এই বইটি।
    .
    ★বইটির বিষয়বস্তুঃ–
    সুন্নাহর অনুসরণ এবং উম্মাহর ঐক্য দুটো বিষয়েই আমাদের সমাজে রয়েছে ব্যাপক অবহেলা ও ভুল ধারণা। মতভিন্নতার মাঝেও সম্প্রীতি রক্ষা, সুন্নাহসম্মত পন্থায় সুন্নাহর প্রতি আহবান– এই গ্রন্থটির মূল আলোচ্য বিষয়। পাশাপাশি আছে বিশিষ্ট আলিমদের দিক নির্দেশনা আর সহনশীলতার পাঠ। এককথায় বইটিকে ফিকহি আদব শেখার বই বলা যেতে পারে।
    বইটিতে মোট ৬টি পরিচ্ছেদ আছে–
    ১) কী কী বিষয় ঐক্যের পরিপন্থী এবং কী কী বিষয় নয়।
    ২) অনুমোদিত মতপার্থক্যের ক্ষেত্রে সুন্নাহ অনুসরণ এবং সুন্নাহর দিকে আহ্বানের অনুসৃত ও সুন্নাহসম্মত পন্থা।
    ৩) নামাযের পদ্ধতিতে সুন্নাহর বিভিন্নতা বা সুন্নাহ অনুধাবন কেন্দ্রিক পার্থক্য।
    ৪) ফুরূয়ি ইখতিলাফের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি এবং বাড়াবাড়ির কারণ।
    ৫) বিবিধ।
    ৬) প্রশ্নোত্তর।
    প্রতিটি পরিচ্ছেদে রয়েছে সময়ের প্রেক্ষাপটে চমৎকার সব আলোচনা। ইনসাফপূর্ণ আলোচনায় ইসলামের অন্যতম ফরজ বিধান ও সৌন্দর্য “উম্মাহর ঐক্য” বিষয়টি পাঠকের সামনে উঠে এসেছে।
    .
    ★কেন পড়বেন বইটিঃ–
    কোথায় যেন একবার পড়েছিলাম, ইলম শেখার আগে আদব শিখতে হয়। এ বইটা আপনাকে সেই আদবটাই শেখাবে। ফিকহি মতভেদে ভাইদের প্রতি সহনশীলতা ও নম্রতা শেখাবে। জানাবে, ইখতিলাফ থাকা সত্ত্বেও কিভাবে সালাফদের মধ্যকার সম্পর্কগুলো সৌহার্দপূর্ণ ছিল। ইখতিলাফি বিষয়ে কিভাবে তারা সমস্যার সমাধান করতেন এবং এ বিষয়ে কি ছিল তাদের মানহাজ, তাও জানতে পারবেন। একজন সচেতন মুসলিম, হোক সে মাজহাবি কিংবা আহলে হাদীস দুজনের জন্যই এই বইটি অত্যন্ত উপকারী। নিজেদের মধ্যকার ছোটখাটো বিবেদ ছেড়ে ইসলামের অন্যান্য বিধান নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে বইটি উৎসাহ জোগাবে। সচেতনতা বৃদ্ধি করবে। ভাতৃত্বের বন্ধনগুলো বৃদ্ধি করতে অবশ্যই এই বইটি পড়া উচিত।
    .
    ★পাঠ অনুভূতিঃ–
    আমার প্রিয় বইগুলোর মধ্যে এটি একটি। বইয়ের সবচেয়ে ভাললাগার দিক হচ্ছে লেখকের দরদপূর্ণ ও ভারসাম্যপূর্ণ দিকনির্দেশনা। তাঁর প্রতিটি লেখায় পাঠক আকৃষ্ট না হয়ে পারে না৷ উম্মাহর এই কঠিন মুহূর্তে এমন একটি বই অনেকেরই টনক নাড়িয়ে দিবে। আমি নিজেও একটা সময় ইখতিলাফি মাসআলা নিয়ে বাড়াবাড়ি করতাম। এই বইটা আমাকে সেই মানসিকতা থেকে বের করে এনেছে।
    ইলম সন্ধানী প্রতিটি পাঠকের জন্য এই বইটিকে অপরিহার্য মনে করি।
    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No