মেন্যু
time management

টাইম ম্যানেজমেন্ট

লেখক : Ismail Kamdar
অনুবাদক : মুহাম্মাদ ইফাত মান্নান
পৃষ্ঠা : 120, কভার : পেপার ব্যাক, সংস্করণ : 1st Published, 2020
ভাষা : বাংলা
ইমাম আবু হানিফা রহ.-এর রেশমি কাপড়ের কাজ করার একটি বড় ঘর ছিল। তাঁর কাছে অনেক পোশাক শ্রমিক ও কারিগর থাকত। অর্থাৎ তিনিও প্রায় ব্যস্ত ছিলেন। ইবনুল মুবারক রহ.-ও একজন ব্যবসায়ী... আরো পড়ুন
পরিমাণ

160  228 (30% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

- ৫৯৯ টাকা অর্ডারে ১টি ফ্রি আমল চেকলিষ্ট।

- ৮৯৯ টাকা অর্ডারে ১টি ফ্রি বই।

25 রিভিউ এবং রেটিং - টাইম ম্যানেজমেন্ট

4.4
Based on 25 reviews
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published.

  1. 5 out of 5

    Sakib Ahmed:

    আমাদের জীবনের ৮০% সময়গুলো অযথা চলে যাচ্ছে। বাকি ২০% কাজ আমরা করি। আমরা আইডিন্টিফাই করতে পারিনা কোন গুলো করা গুরুত্বপূর্ণ আর কোনো দরকার নেই।এ পর্যন্ত টাইম ম্যানেজমেন্ট এর যতগুলো বই লেখা হয়েছে তার মধ্য সবচেয়ে ইফেক্টিভ বই ইসমাইল কামদারের লিখিত এই বইটি। বইটিতে লেখক সুন্দর করে সাজিয়েছেন।যেহেতু এটা ইসলামের আলাকে লেখা তাই অন্যান্য বস্তুবাদীদের বই থেকে আলাদা। টাইম ম্যানেজমেন্ট এর যতগুলো পয়েন্ট দরকার লেখক বইতে সেগুলো নিয়ে এসেছেন। সকল পাঠকের বইটি পড়া আবশ্যক বলে আমি মনে করি।
    5 out of 7 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 4 out of 5

    kredoy239:

    মানুষের জীবনে আর কিছু সম্মান থাকুক বা না থাকুক একটা জিনিস কিন্তু সবার জন্যই সমান ভাবে বরাদ্দ করা, হোক সে ধনী-গরীব, হিন্দু-মুসলিম। আর তা হলো সময়। আমাদের মুসলিমদের একটা নির্দিষ্ট সময় দেয়া হয়েছে এটা প্রমাণ করার জন্য যে আমরা জান্নাত লাভের উপযোগী। সময়কে গুছিয়ে ব্যবহার করার প্রয়োজনীয় টিপসের জন্য তিন-চারটা বই অথবা দশক টা ইউটিউব ভিডিও দেখতে না বলে মাত্র একটি বই পড়তে সাজেস্ট করব সেটি হলো- সিয়ান পাবলিকেশনের ”টাইম ম্যানেজমেন্ট” বইটি।

    অনেকেই নিজের সময় কে সঠিক ভাবে কাজে লাগাতে পারেন না এবং দুনিয়া ও আখিরাতে ক্ষতির সম্মুখীন হয়।
    আলহামদুলিল্লাহ্ লেখক সময়ের সর্বোচ্চ ব্যবহার আর সময় থেকে কিভাবে বারাকাহ্ হাসিল করা যায় সে সম্পর্কে লিখেছেন। এই বইটিকে ৬টি ধাপে সাজানো হয়েছে।

    ★একটি লক্ষ্য নিয়ে বেঁচে থাকাঃ
    জীবনের লক্ষ্য ঠিক করার উপদেশটা সেই ছোটবেলা থেকেই আমরা শুনে আসছি। তবে আমাদের লক্ষ্যটা হওয়া উচিত ইসলামকেন্দ্রিক। কারণ আপনি যাই করেন না, কেন যাই হন না কেন, যেতে তো হবে আপনাকে কবরেই। তাই যে পেশাই বেছে নিন না কেন, তার দ্বারা যাতে ইসলামের সেবা হয়। লেখক লক্ষ্য নির্ধারণ করার জন্য একটি টেকনিকের কথা বলেছেন যা হলো- S.M.A.R.T.

    ★গতানুগতিক জীবন থেকে সুসংগঠিত জীবনেঃ
    প্রতিদিনই আমরা একই কাজের পুনরাবৃত্তি করেই যাচ্ছি। যা করছি তার দ্বারা ভালো কিছু অর্জন করছি কিনা তা জানার সামান্যতম চিন্তাও করি না। বিনা কারণে ইঁদুরের মত দৌড়াদৌড়ি না করে, আগে সুন্দর একটা পরিকল্পনা করুন। তারপর সে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করুন। সাপ্তাহিক পরিকল্পনা করুন যাতে প্রতি সপ্তাহে কোন কোন ভালো অভ্যাস গড়েছেন, বদঅভ্যাস ঠিক করেছেন, কোন কাজটি এ সপ্তাহে শেষ করতে হবে তা ভালো ভাবে সাজাতে পারেন। প্রতিদিন সকালে সেইদিন কি কি কাজ করবেন তার একটি লিস্ট বানিয়ে, কোন কাজটা আগে শুরু করবেন এবং কোনটি পরে শুরু করবেন সেই ক্রমান্বয়ে কাজ গুলো কে সাজিয়ে ফেলুন। এবং কাজ করা শুরু করে দিন

    ★কাকে অগ্রাধিকার দিচ্ছেনঃ
    আমাদের বর্তমান সমস্যা হচ্ছে দুনিয়ার কাজকে প্রধান হিসেবে ধরে নিয়ে আল্লাহর বিধান গুলোকে অপশনাল হিসেবে রাখি। আর পরে মিথ্যা আফসোস করেছে আমি নামাজ পড়ার সময় পাই না। প্রতিদিন এমন একটি কাজ করুন যা আপনাকে আপনার ক্যারিয়ারের দিকে একধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে। সারাদিন সুসংগঠিতভাবে সব কাজ করলেও যদি পরিবারের সদস্যদের সাথে সময় কাটানোর জন্যই সময় না থাকে, তবে এত কিছু করেও কোনো মানুষ সুখী হতে পারবে না।
    তাই পরিবারের সাথে সময় কাটানোর জন্য আলাদা সময় নির্ধারণ রাখুন।

    ★পদক্ষেপ নেওয়াঃ
    যতই প্ল্যান করুন না কেন আসল কাজটা হবে তখনই যখন কেউ পদক্ষেপ নিবে। পদক্ষেপ না নিয়ে শুধু কাজটা নিয়ে ভাবতে থাকলে তা একা একা কখনো শেষ হয়ে যাবে না। কোন কাজে একদম নিখুঁত হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন না। আপনি যেখানে আছেন সেখান থেকে শুরু করে দিন। কর্মদক্ষতা ধীরে ধীরে আপনা-আপনি বৃদ্ধি পেতে থাকবে। পরিকল্পনা করার সময় ভালো-খারাপ দুটোই ভালোভাবে ভেবে নিবেন। একবার পরিকল্পনা হয়ে গেলে কাজটি শুরু করে দিতে হবে। কাজ শুরুর পর এটা ভাবা যাবে না- “এমনটা না করে এভাবে করলেই তো পারতাম”। একসাথে একবসায় পুরো কাজ শেষ না করে কাজটাকে আলাদা আলাদা টাস্কে ভেঙ্গে নিন। আর সেই ছোট ছোট টাস্কগুলো পূরণ করুন, তাহলে কাজটি আপনা-আপনি শেষ হয়ে যাবে।

    ★গতি বেগ ধরে রাখাঃ
    কোন কিছু শুরু করার আগেই আমরা ফল নিয়ে চিন্তা করি, তেমনি কাজটি শুরুর কিছু মুহূর্তের মধ্যে আমরা তার ফিডব্যাক পেতে চাই। আর যখন আমরা নগদ ফিডব্যাক না পাই কাজটি থেকে, তখন আমরা হার মেনে নিই। এক্ষেত্রে আমাদের ধৈর্য ধরে একনাগাদ করে যেতে হবে। আর ব্যর্থ হলে বারবার চেষ্টা করে যেতে হবে, যদি আপনি জানেন যে আপনি যা করছেন তা ঠিক। যখন একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করে ফেলবেন তখন মাঝপথ থেকে ফিরে আসা যাবে না এজন্য নিজেকে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ রাখতে হবে।

    ★এড়িয়ে চলবেন যাদেরঃ
    এই অধ্যায় লেখক অনেকগুলো ডিস্ট্রাকশন নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন এবং সেগুলো থেকে বাচ্চার টিপস ও দিয়েছেন।

    পাঠ-প্রতিক্রিয়াঃ
    সময়ে বারাকাহ বৃদ্ধি করার জন্য নিজের অনেক সময় নষ্ট করেছি ইউটিউবে ঘাটাঘাটি করে আর পশ্চিমাদের বই পড়ে। তবে সেগুলা পড়ে সময়কে কাজে লাগাতে গিয়ে উল্টো আরো বেশি সময় নষ্ট করে ফেলেছি। আবার সেই বইগুলো ইসলামের দিকে আহ্বান করে নি। কিন্তু যখন এই বইটি পড়লাম, এবং বইয়ে উল্লেখিত পদ্ধতিগুলো মানা শুরু করলাম। আলহামদুলিল্লাহ তখন আগে থেকে ভালোভাবে টাইম ম্যানেজ করতে পারি। রামাদানের টাইম ম্যানেজমেন্ট অধ্যায়টি অসাধারণ লেগেছে।

    আপনিও কিছু সুন্দর সুন্দর অভ্যাস ও কৌশল শিখতে পারবেন, যেগুলো অনুসরণ করে আপনি আপনার সময়ের সর্বোচ্চ ব্যবহার করতে পারবেন। সময় গোছাতে এবং জীবনের লক্ষ্য পূরণে এগুলো আপনার জন্য সহায়ক হতে পারে।

    সমালোচনাঃ
    ইসলামী দৃষ্টিকোণ থেকে লিখা বিধায় সময় এবং বারাকাহ সংক্রান্ত আয়াত,হাদিস ও সালাফদের বাণী আরো বেশি উল্লেখ করা থাকলে ভালো হত। অনুবাদটি সম্ভবত আক্ষরিক অনুবাদ। আক্ষরিক অনুবাদ না হয়ে যদি ভাবানুবাদ হতো,দেশের প্রেক্ষাপটের কিছু উদাহরন, ঘটনা, আলোচনা ইত্যাদি আসতো তাহলে বইটি পড়ে আগ্রহ আরও বৃদ্ধি পেত।

    কিছু বিষয় বাদ দিলেই বইটি সেরা বইগুলোর একটি। মুমিনের হাতে সময় নষ্ট করার সময় নেই। কারণ তাকে খুব দ্রুতই ফিরে যেতে হবে তার রবের কাছে। তাই সময়কে সুন্দরভাবে কাজে লাগানোর জন্য বইটির কোনো বিকল্প হতে পারে না।

    7 out of 8 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 3 out of 5

    ratul.nowkhoir:

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভাল_লাগা_মার্চ_২০২০

    সময় দামি এক সম্পদ। একে তাই ধার্মিকতার কাজে লাগানো উচিত। আমি যথাসম্ভব লোকজনের সান্নিধ্য এড়িয়ে চলি কিন্তু একেবারেই এড়িয়ে যাওয়া তো আর সম্ভব না। তাই কেউ আমার সাথে কথা বলতে এলে কথোপকথন যথাসম্ভব সংক্ষেপ করার চেষ্টা করি। একই সময়ে আমার লেখালেখির জিনিসগুলো ঠিক করে রাখি। ছোটখাটো যেসব কাজ না করলেই নয় আবার যেগুলো কথা বলতে বলতেই করে ফেলা যায়, সেগুলোও করে ফেলি। এই কাজগুলো প্রয়োজনীয় আবার খুব বেশি মনোযোগের দরকার নেই।
    © ইবনু জাওযী

    সময় খুবই দামি একটা সম্পদ আমাদের প্রত্যেকের কাছেই। এই সময় টা কত হেলায় কাটিয়ে দিচ্ছি দিনের পর দিন। এই সময় কে তো ধরে রাখার ক্ষমতাও আমাদের নেই। তাহলে সময়কে কিভাবে ধরে রাখা যায়! সময়কে ধরে রাখতে চাইলে এর সদ্ব্যবহার করা শিখতে হবে আমাদের। এজন্য চাই কিছু টিপস্। এই টিপস্ এর জন্য আমাদের কাছে অনেক ধরনের টাইম ম্যানেজমেন্ট এর বইও বাজারে রয়েছে। বেশ কয়েকদিন যাবত আমি ইসমাইল কামদার এর টাইম ম্যানেজমেন্ট বই টি বেশ যন্ত সহকারে পড়েছি। বেশ ভালই লেগেছে। বই এর লেখার মান আমার কাছে মোটামুটি লেগেছে। আমি আশা করবো আপনারা এই বইটি একবার হলেও পড়ে দেখবেন। হতাশ হবেন না ইনশাআল্লাহ্। বই টি পড়ে নিজের সময় নষ্ট করার অনেক কারণ খুঁজে পেয়েছি। এখন শুধু ভাবি যে কত্তো সময় আমি জীবনে নষ্ট করেছি। বইটি পড়ে সময় এর সঠিক ব্যবহার করার একটা চিন্তা খুঁজে পাবেন ইনশাআল্লাহ।
    #MRHR

    6 out of 6 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 4 out of 5

    Rehan Zia:

    Very good book
    3 out of 4 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 5 out of 5

    begumjahanara208:

    আলহামদুলিল্লাহ। অনেক উপকারী একটি বই। সারাদিনের সময়টা যখন ঠিকভাবে গুছিয়ে নেয়া হচ্ছিলো না তখন এই বইটি যেন আশার আলো হয়ে এল। আমি মনে করি এই বইটি আমার মতো অন্য ভাইবোনদের জন্যও উপকারী হবে। আল্লাহ আমাদের প্রত্যেক মুসলিমের সময়ের বারাকাহ দিন এবং সময়ের মূল্য দিতে পারার সামর্থ্য দিন। আমীন।
    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No