মেন্যু
tara jholmol

তারা ঝলমল

পৃষ্ঠা : 192, কভার : পেপার ব্যাক
নিরীক্ষণ: মাওলানা আসাদ আফরোজ সাহাবীরা হলেন নববী ইলমের ধারক ও বাহক। কিন্তু, তাদের জীবনী সম্পর্কে আমাদের জানাশোনা সাধারণত খুব কম। বেশিরভাগ মানুষ ১০-১২ জনের বেশি সাহাবীর নাম পর্যন্ত জানেন না, তাঁদের... আরো পড়ুন
পরিমাণ

213  288 (26% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

4 রিভিউ এবং রেটিং - তারা ঝলমল

5.0
Based on 4 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    ফয়সাল আদিব:

    সাহাবীরা আমাদের আলোকবর্তিকা হয়ে নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হতে প্রাপ্ত ইলমের মাধ্যমে পথ দেখিয়েছেন। অথচ সেই আলোর ফেরিওয়ালাদের সম্পর্কে আমরা অধিকাংশই অজ্ঞ; অনেকে ত দুইচারজনে বেশি নামও বলতে পারেন না।প্রাথমিক লেভেলে সাহাবীদের সম্পর্কে জানতে হলে এই বইটি নিঃসন্দেহে অসাধারণ একটি বই।
    0 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    ফয়সাল আদিব:

    মদীনায় তখন মূর্তিপূজার জোয়ার।রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মক্কা থেকে ইসলামের দাওয়াত পৌঁছানোর জন্য মুসআব ইবনু উমায়ের রাযিয়াল্লাহু আনহুকে মদীনায় প্রেরণ করেন।তাঁর দাওয়াতের প্রভাবে মদীনার অনেকেই ইসলাম গ্রহন করেন,যাঁদের মধ্যে অন্যতম হল মুআয ইবনে জাবাল রাযিয়াল্লাহু আনহু।

    মূর্তিপূজা ছেড়ে ইসলাম গ্রহনের পর যখন তাঁর সারা শরীর জুড়ে ঈমানি শক্তি বিরাজ করছিল তখন তিঁনিও তাঁর আরও কয়েকজন সদ্য ইসলামগ্রহনকারী যুবক সঙ্গী মিলে সিদ্ধান্ত নেন মদীনায় কাউকে আর মূর্তিপূজা করতে দিবেন না।একদিন তাঁরা মদীনার বনূ সালামা গোত্রের নেতা আমর ইবনুল জামূহ এর ঘরে গিয়ে চূপিসারে মূর্তি চুরি করে ডাস্টবিনে ফেলে আসেন।আমর ইবনুল জামূহ তার মূর্তি না পেয়ে খোঁজাখুঁজি করে ডাস্টবিনে দেখতে পায়।সে পুনরায় সেটাকে পরিষ্কার করে ঘরে এনে স্হান দেয়।

    পরেরদিন মুআয রাযিয়াল্লাহু আনহু ও তাঁর সঙ্গীরা একই কান্ড ঘটান এবং আমর ইবনুল জামূহ ঐদিনও ডাস্টবিন থেকে ময়লা পরিষ্কার করে এসে ঘরে সম্মানের সাথে মূর্তিকে সাঁজিয়ে রাখে।এবার সে মূর্তির পাশে একটা তলোয়ার রেখে মূর্তিকে বলে,”দেবী আমার,তোমার সাথে কে বা কারা এমন করছে তা আমি জানি না।তবে তুমি ত সবই জান।এরপর থেকে তোমার সাথে কেউ যদি এমনটা করতে চায় তাহলে এই থাকল তরবারি, তুমি নিজেই নিজের আত্নরক্ষা করো”।

    এবার সে নিশ্চিন্তে ঘুমোতে চলে যায় আর সকালে উঠে দেখে পুনরায় মূর্তি গায়েব।এবারও সে তার মূর্তিকে ডাস্টবিনে গিয়ে আবিষ্কার করে; যেখানে এক নোংরা কুকুরের সাথে মূর্তিটাকে কেউ বেঁধে দিয়েছে।এই ঘটনার পর আমর ইবনুল জামূহ হতবাক হয়ে পড়েন।যেই মূর্তির কাছে তলোয়ার রেখে আসার পরও সে নিজেকে রক্ষা করতে পারে না সেই মূর্তির কাছেই কিনা আমি নিজের প্রতিনিয়ত নিরাপত্তা প্রার্থনা করি?

    এবার তিঁনি মূর্তিপূজা ছেড়ে দেন এবং ইসলাম গ্রহন করেন।রাযিয়াল্লাহু আনহু।

    সাহাবীদের জীবনীর অল্পসল্প অধ্যায় প্রাথমিক পাঠের জন্য বইটা অত্যন্ত সহায়ক একটি বই।মহান আল্লাহ এর লেখককে উত্তম প্রতিদান দিন।

    0 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    Md.Mahbub:

    বইটির শিরোনামে সাহাবিদের নাম তুলে ধরা হয়নি। রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর দেওয়া টাইটেল বা সাহাবিদের দেওয়া টাইটেল ই শিরোনামে দেওয়া হয়েছে যাতে করে খুব সহজেই সাহাবীদের নাম গুলো মনে রাখতে পারব।
    এক নজরে কয়েকটি শিরোনাম দেখা যাক_____
    মরুভূমির তীব্র রোদে ঝলসে যাবে যেখানে একটা ডিম দিলে ফ্রাই হতে বেশি সময় লাগবে না।সেই উত্তপ্ত রোদেই হাবশিকে বলা হচ্ছে __এখনো মুহাম্মাদের আল্লাহর ওপর ঈমান আনা থেকে ফিরে আসো।__সেই হাবশি ছিলেন বিলাল (রদিয়াল্লাহু আনহু)তিনি বার বার বলছিলেন “”আহাদুন আহাদ,আহাদুন আহাদ””
    তিনি ছিলেন সেই সময়ের একজন _সেলিব্রিটি। তিনি যে পারফিউম ব্যবহার করতেন সেটা এতোটাই ইউনিক ছিল যে,রাস্তা দিয়ে কেউ হেঁটে গেলে বুঝতে পারতো,একটু আগে তিনিই রাস্তা দিয়ে হেঁটে গেছেন।
    এই গল্পের মানুষটি “সোনার চামচ”, মুখে নিয়ে জন্মগ্রহন করছেন।যার নাম ছিল__,মুসাআব ইবনু উমাইর।
    ইসলাম গ্রহন করার জন্য তার উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত হয়ে নিজের বিলাসি জীবন ত্যাগ করতে বিন্দুমাত্র বিচলিত হননি।

    কবির মতে তরুণরা “বাষ্পের বেগে স্টিমারের মতো চলে এই বয়সে কানে আসে কত মন্ত্রনা। কিন্তু এই বয়সে মুয়ায ইবনু জাবাল ইসলাম গ্রহন করেন।আমর ইবনু সালামা ছিলেন সেই গোত্রের নেতা তার একটি মুর্তি ছিল নাম মানাত।সেই মূর্তিটিকে পারফিউম রেশমি কাপড় এমনি সেবাযত্ন করতেন এই মূর্তিটিকে মুয়াযসহ আরো দুজন সাহাবি ডাস্টবিনে রেখে আসেন অনেক মজার কাহিনি (★তারা ঝলমল বইয়ে ১২৭পৃ) পাবেন। এই সাহাবী __উম্মাতের সবচেয়ে বড় ফকীহ ছিলেন।

    __রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন___আমার উম্মতের মধ্যে সবচেয়ে বড় ক্বারী উবাই ইবনু কা’ব। কুরআনের প্রতি ছিল গভীর জ্ঞান। আর নাই বলি বইয়ের পাতায় আমন্ত্রন।

    পরিশেষে বলব:
    “তারা ঝলমল” বইটি নিঃসন্দেহে দারুণ। আরও ভালো কি হতে পারত? হয়তো ভালোর আসলে কোন শেষ নেই। কিন্তু যে চলমান,গতিশীল ভাষায় তিনি এই বইটিকে গল্প আকারে ফুটিয়ে তুলেছেন। এক কথায় অসাধারণ, আমার কাছে অনেক ভালো লেগেছে। ? এত্ত সুন্দর করে উপস্থাপন দেখে সত্যি ই অবাক হইছি। লম্বা একটা রিভিউ লিখতে ইচ্ছে করছে।আপাতত শুধু এটুকুই বলি,,বইটি অত্যন্ত চমৎকার এবং সবার জন্য অবশ্য পাঠযোগ্য। পরবর্তী বইয়ের অপেক্ষায় রইলাম!!

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    Mahmud Hasan:

    একসাথে কিংবা একচান্সে একাধিক সাহাবীর জীবনী পড়তে পারা আমার কাছে অন্তত সৌভাগ্যের বিষয়। ভাষা, চরিত্র ফুটিয়ে তোলা, শব্দ চয়ন সবকিছু মিলিয়ে অসাধারণ। মহান আল্লাহ আপনাদের এই খেদমত কবুল করুন।
    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top