মেন্যু
suprovat philistin

সুপ্রভাত ফিলিস্তিন

প্রকাশনী : নবপ্রকাশ
কভার : হার্ড কভার
ভাষা : বাংলা
বইটি মূলত একটি উপন্যাস। লেখক শুরুতেই স্বীকারোক্তি টেনেছেন--" এই বইয়ের সব চরিত্র কাল্পনিক। তবে ফিলিস্তিন এবং এ বইয়ে বর্ণিত ঘটনাগুলো, ইতিহাস ও উল্লেখিত ব্যক্তিত্ব -- এসব কিছু বাস্তব। লেখক বেশ... আরো পড়ুন
পরিমাণ

304  380 (20% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

1 রিভিউ এবং রেটিং - সুপ্রভাত ফিলিস্তিন

4.0
Based on 1 review
5 star
0%
4 star
100%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 4 out of 5

    Umm Ahmad:

    সুপ্রভাত ফিলিস্তিন ‘মর্নিংস ইন জেনিন’ উপন্যাসের অনুবাদ। বইটি পড়ে মনে হয়েছে ‘মর্নিংস ইন জেনিন’ নামটিই উপন্যাসটির জন্য মানানসই। আহা জেনিন! একটি শরণার্থী শিবির। ঘর ছাড়া হাজার হাজার মানুষের বাসস্থান। এই ঘিঞ্জি পরিবেশেও আমাল আর হুদার মতো শিশুরা আনন্দের বিষয়বস্তু খুঁজে নেয়। কিছু মুখ ভালোবাসার কাউকে খুঁজে নেয়। ভোর বেলা বাবার কোলে বসে কবিতা শোনা, বড় ভাইয়ের চিঠি তার প্রেমিকার কাছে পৌঁছানো, হাত ভাঙা পুতুল, হাজি সেলিমের কাছ গল্প শোনা, নিজেদের না দেখা বাড়ি- যেখানে তাদের ৪০ প্রজন্মের স্মৃতি জড়িয়ে আছে সেখান ফিরে যাওয়ার স্বপ্ন নিয়ে আমাল যখন ব্যস্ত, মনে হচ্ছিল আমিও তখন তার সঙ্গে ছিলাম। পিতৃপুরুষদের ভূমিতে ফিরে সাগর দেখতে চাওয়া হুদার সাথে ছিলাম। ছিলাম এতিমখানায় কাটানো দুষ্টুমিষ্টি সময়গুলোতেও।
    বইয়ের উল্লেখযোগ্য অংশ আমালকে নিয়ে হলেও পুরো উপন্যাসেই যেন শুনতে পাওয়া যায় ডালিয়ার নূপুরের শব্দ আর কোলের সন্তান হারা মায়ের ‘ইবনি ইবনি’ চিৎকার। সেজন্যই হয়তো লেখিকা প্রথমে বইটির নাম রেখেছিলেন, ‘The Scar of Devid’।
    ডালিয়া। বাতাসে এলোমেলো চুল উড়িয়ে জয়তুন-তিনের বাগানে ঘুরে বেড়ানো দূরন্ত কিশোরী। তার নূপুরের শব্দে বিমহিত হয় আইনে হুজের আকাশ বাতাস। সুন্দরী, চঞ্চল ডালিয়া একসময় তার ভালোবাসার মানুষ হাসানের ঘরের ঘরণী হয়ে আসে, দু বছরের মাথায় তার কোল আলো করে আসে পুত্র ইউসুফ। ইউসুফের জন্মের চার বছর পর জন্ম হয় দ্বিতীয় ছেলে ইসমাঈলের। সুখেই কাটছিল তাদের জীবন। হঠাৎ ইসরায়েলিদের হামলায় সবকিছু হারায় আইনে হুজের মানুষ। ডালিয়া হারায় ইসমাঈলকে। পুত্রের সাথে সাথে ডালিয়ার মুখের হাসিও হারিয়ে যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ইউসুফ, ইসরায়েলি সৈন্য ডেভিড আর উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন দেখা আমাল- ডালিয়ার তিন সন্তানই পুরো উপন্যাসের কেন্দ্রবিন্দু। তাদের চোখ দিয়েই দেখানো হয়েছে ফিলিস্তিনের ৭০ বছরের ঘটনাপ্রবাহ। এতো বছরের ঘটনা আর অনেক অনেক চরিত্র থাকায় উপন্যাসটি অনেক বড়। ঠিক কত পেইজের মনে নেই, ৪০০+ হয়তো।
    লেখিকার কথা পড়ার পরও উপন্যাস পড়ার পুরোটা সময় আমার মনে হয়েছে লেখিকা সুজানই আমাল। সত্যি পুরোটা সময়। আমার একটা ব্যর্থতা হচ্ছে আমি বেশিক্ষণ গল্প উপন্যাস পড়তে পারিনা। মনে হয়, অ্যা! এটা তো বানানো। কিন্তু ‘সুপ্রভাত ফিলিস্তিন’ এর চরিত্রগুলো আসল না হলেও ঘটনাগুলো সত্যি। তাই হয়তো একটা পৃষ্ঠা পড়ার সময় পরের পৃষ্ঠায় যাওয়ার জন্য অস্থিরতা কাজ করেছে। পৃষ্ঠা উল্টিয়েছি আর চোখের পানি ফেলেছি। শত বছরের স্মৃতি মেশানো পূর্বপুরুষদের ভূমি ছেড়ে আসতে হলো তাদের কাছে যাদেরকে আশ্রয় দেওয়া হয়েছিল, পুতুলের মতো যেই বাচ্চাটা কোলে ছিল বোমের আঘাতে ছাদ ধসে পড়ে সে থেতলে গেল, শিক্ষককে তার ছাত্রছাত্রীদের সামনে উলঙ্গ করে ইসরায়েলি সেনার পায়ে চুমু দেওয়াতে বাধ্য করা হলো। যাকে খুশি তাকে ধরে নিয়ে যেতে, মেরে ফেলতে লাগল ইসরায়েলিরা। এসব কাদের সাথে ঘটলো, কাদের সাথে এখনও ঘটছে? আমারই ভাইয়ের সাথে, আমারই বোনের সাথে। না কেঁদে কিভাবে পারি?
    ‘সুপ্রভাত ফিলিস্তিন’ ইসলামী উপন্যাস নয়। তবে মুসলিমদের উপন্যাস। শত শত বছর ধরে ফিলিস্তিনে বসবাস করা মুসলিমদের উপন্যাস। তাদের সুখ-দূঃখ-ভালোবাসার উপন্যাস।
    5 out of 5 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top