মেন্যু
strider sathe nobi o monishider achoron

স্ত্রীদের সাথে নবী ও মনিষীদের আচরণ

প্রকাশনী : মাকতাবাতুন নূর
পৃষ্ঠা : 96

অনুবাদ: মাওলানা যায়েদ আলতাফ

আমি ব্যাক্তিগতভাবে মনে করি প্রতিটি দম্পতির বইটি পড়া উচিত, এবং অবশ্যই বইটি পড়া জরুরি। কারণ দাম্পত্য জীবন হচ্ছে পরকালের পাথেয়, বিবাহ কে শরিয়তে ঈমানের অর্ধেক বলা হয়েছে। দাম্পত্য জীবন মানেই হচ্ছে, সুখ দুঃখে একে অপরের পাশে থাকা, স্বামী রেগে গেছেন তো স্ত্রী চুপ থাকবেন,আবার স্ত্রী রেগে গেছেন তো স্বামী সহনশীলতার সাথে পরিস্থিতি শামলাবেন। কিন্তু বর্তমান সমাজের চিত্র পুরাই ভিন্ন। বিশেষ করে ঢাকা শহরের অবস্থা তো খুব ভয়াবহ। আমি যদি আপনাদের কে একটা রিপোর্টের কথা বলি,তাহলে যে কারো গা শিউরে উঠবে।

শুধু মাত্র ঢাকা শহরে, গত জুন থেকে অক্টোবর ৫৯৭০ টি তালাক পরেছে। উত্তর সিটিতে ২৭০৬ টি। আর দক্ষিণ সিটিতে ৩২৬৪ টি।

এবার চিন্তা করুন আমাদের সমাজের কি অবস্থা। সামান্য কিছুতেই আমরা সুন্দর সাজানো সংসার কে ভেঙ্গে চূরমার করে দিচ্ছি।

আসলে আমরা নারী পুরুষ উভয়েই, ধৈর্যের পরীক্ষায় হেরে যাচ্ছি, অথচ আমাদের পূর্ববর্তীদের মধ্যেও স্বামী-স্ত্রীর মাঝে ঝগড়া-বিবাদ হত, তারা কখনো সহসাই এত কঠিন সিদ্ধান্ত নিতেন না। তখন তারা কি করতেন, এসব বিষয় জানতে অবশ্যই আপনাকে বইটি পড়তে হবে। আল্লাহ তাআলা আমাদের সবার দাম্পত্য জীবনকে, সুখময় করে দিন আমিন।

পরিমাণ

122  175 (30% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
- ৪৯৯+ টাকার অর্ডারে একটি প্রিমিয়াম বুকমার্ক ফ্রি!

- ৬৯৯+ টাকার অর্ডারে একটি একটি আমল চেকলিস্ট ফ্রি!

- ৮৯৯+ টাকার অর্ডারে একটি বই ফ্রি!

- ১,১৯৯+ টাকার অর্ডারে একটি আতর ফ্রি!

- ১,৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

প্রসাধনী

12 রিভিউ এবং রেটিং - স্ত্রীদের সাথে নবী ও মনিষীদের আচরণ

5.0
Based on 12 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    একটা পরিবারের সূত্রপাত ঘটে একজন নর ও নারীর মধ্যে সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে, ইসলামের পরিভাষায় পবিত্রতম সেই সম্পর্ককে আমরা বিয়ে বলে থাকি। সৃষ্টিগতভাবেই একজন নারী পুরুষের শারীরিক গঠনে পরিবর্তন দেখা যায়, একজন নারী, কিংবা একজন পুরুষকে এমনভাবেই সৃষ্টি করা হয়েছে যাতে বিপরিতধর্মী চরিত্রের প্রতি আকৃষ্ট হয়, কিন্তু এই আকর্ষণ হতে হবে শরীয়ত সম্মত। নর- নারী কেবলমাত্র বৈবাহিক সম্পর্কের মাধ্যমেই তাদের জৈবিক চাহিদা পূরণের স্বীকৃতি লাভ করে। বিবাহিত জীবনে শুরুর ধাপ, পাত্র পাত্রী নির্বাচন থেকে শুরু করে বিয়ে, পারস্পরিক বোঝাপড়া, সংসার সামলানো, সন্তান গ্রহণ তাদের লালন-পালন ইত্যাদি বিভিন্ন পর্যায়ে স্বামী স্ত্রীর মতামতের পার্থক্য দেখা যায়, এটা শুধু আমাদের ক্ষেত্রে নয় এটা নবী রাসূলগন এবং মনীষীদের জীবনেও ছিলো। একজন নারী পুরুষের দাম্পত্য জীবনের ভীত মজবুত হলেই কেবল একটা সুসজ্জিত, সুনিপুণ পরিবার গঠন সম্ভব। বিয়ের পরবর্তীতে স্ত্রীর সাথে আচরণ কেমন হওয়া উচিত এই বইটি পড়লে আমরা বুঝতে পারবো ইন শা আল্লাহ।

    যা নিয়ে বইটিঃ
    ———————–
    আশা করি বইয়ের নাম এবং সূচিপত্র থেকেই বই সম্পর্কে কিছুটা ধারণা ইতিমধ্যে পেয়ে গেছেন। বইটির বিষয়বস্তু ব্যবচ্ছেদ করলে কয়েকটা বিষয় বিশেষভাবে উঠে আসে
    ⇨ কিভাবে নবীগণ এবং মনীষারা স্ত্রীর অসদাচরণে ধৈর্য ধারণ করছেন।
    ⇨ মা এবং স্ত্রীর মাঝে সৌহার্দপূর্ণ সুসম্পর্ক বজায় রাখতে নবী, মনীষীগণ কি ধরনের আচরণ করতেন।
    ⇨ স্ত্রীদের সাথে সদাচরণের জন্য রয়েছে উত্তম পুরষ্কার, এ বিষয়ে বিস্তারিত সুস্পষ্ট বর্ণনা।
    ⇨ কিভাবে স্ত্রীর হৃদয় জয় করা যায় তার বর্ণনা।
    ⇨ নবীগণ এবং মনীষীরা কখনো স্ত্রীদের আচরণে অভিযোগ করতেন না এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা।

    বইয়ের বিশেষ ভালো লাগার অংশঃ
    —————————————————
    অপর মুসলমানকে বিপদমুক্ত রাখতে যারা স্ত্রীর নিপীড়ন সহ্য করেছেন অধ্যায়টি আমার হৃদয়ে বেশ মোটাদাগে গেঁথে গিয়েছে। এই পরিচ্ছেদ থেকে ছোট একটা অংশ সংযুক্ত করলামঃ

    ➤পূর্ববর্তীদের মধ্যে এমন মহান ব্যক্তি ছিলেন যারা শুধু এ উদ্দেশ্যে স্ত্রীর অসদাচরণ ও নিপীড়ন সহ্য করে গিয়েছেন, যাতে তিনি তালাক দিয়ে দিলে অন্য কোনো মুসলমান তাকে বিয়ে করে তার মতো বিপদে না পড়ে।
    আহা! কতো উত্তম চিন্তাভাবনা, কতো উত্তম তাদের চরিত্র।

    বইটি কাদের জন্য এবং কেনো পড়বেনঃ
    ———————————————————-
    বিবাহিত – অবিবাহিত সকল পুরুষের জন্য বইটি অবশ্যপাঠ্য বলে মনে করছি। একজন পুরুষ যদি নবী রাসূলগন এবং মনীষীদের উত্তম আদর্শে নিজেকে গুণান্বিত করতে চায় তবে তার চাই উত্তম প্রস্তুতি আর এই প্রস্তুতি গ্রহণে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বইটি। এছাড়া যেসকল পুরুষ বুঝতে অপারগ কিভাবে মা এবং স্ত্রীর মাঝে সমঝোতার সম্পর্ক বজায় রাখবেন, কিভাবে সংসার পরিচালনার ক্ষেত্রে সমস্ত প্রতিকূলতার ধৈর্য ধারণ করবেন তাদের জন্য বইটি মেডিসিনের মতো কাজ করবে ইন শা আল্লাহ। আশা করি পাঠক বইটি পড়ে ধৈর্য, বাস্তবতা, এবং ভালোবাসার প্রকৃত শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবেন।

    পাঠ্য অনুভূতিঃ
    ————————
    বর্তমানে যুগের ছেলে মেয়েদের কাছে বিয়ে একপ্রকার ফ্যান্টাসির রূপ নিয়েছে। আপনি যদি সেরকম ফ্যান্টাসিতে ভুগে থাকেন, যদি মনে করেন বিবাহিত জীবন হবে পুষ্পিত সজ্জায় সাজানো এক বাগান, যেখান থেকে সর্বদা আপনি অনুভব করবেন এক সুগন্ধি পরশ তবে এখনো আপনি ঘোর অমানিশায় আছেন। বিবাহিত জীবন কখনো সমান্তরাল, সুসজ্জিত হয় না, বিবাহিত জীবনে চড়াই-উতরাই পার করেই চলতে হয় সবাইকে। বইটির আলোকে নবী মনীষীদের জীবনী থেকে আমরা দেখতে পাই কতোটা কণ্টকাকীর্ণ ছিলো তাদের পথচলা, কিভাবে তারা ব্যক্তিগত জীবনে সমস্ত প্রতিকূলতায় ধৈর্য ধারণ করছেন, কিভাবে স্ত্রীর নিপীড়ন হাসিমুখে সহ্য করে গেছেন কেবলমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য। বইটি পড়ে একধরনের আত্মিক প্রশান্তি অনুভব করেছি আলহামদুলিল্লাহ।

    সমালোচনাঃ
    ———————
    বইটির প্রচ্ছদ এতোটা আকর্ষণীয় যা দেখেই প্রাথমিকভাবে বইটি পড়ার ইচ্ছে জেগেছিলো। বইয়ের কাভার, বাইন্ডিং, পৃষ্ঠার মান,লিখনশৈলী অনেক বেশি গ্রহণযোগ্য বলে মনে হয়েছে আলহামদুলিল্লাহ। এছাড়া প্রতিটি পাতায় প্রয়োজন মাফিক টিকা সংযুক্তিকরণের বিষয়টি প্রশংসা পাওয়ার যোগ্য। তাছাড়া বইটিতে আপাতদৃষ্টিতে কোনো ভুল ত্রুটি চোখে পড়ে নি, এর কমবেশি আল্লাহই ভালো জানেন।

    বইটি বর্তমানে ঘুনে ধরা সমাজে একজন স্বামী স্ত্রীকে আলোর দিশা দেখাতে সাহায্য করবে। বইটি পড়ে একজন স্বামী তার ভুলগুলো শুধরে নেওয়ার সুযোগ পাবেন এছাড়াও কারণে অকারণে স্ত্রীর প্রতি অভিযোগ করার প্রবণতা থেকে বেরিয়ে আসতে পারবেন ইন শা আল্লাহ। পারিবারিক বিভিন্ন সংকটপূর্ণ মুহূর্তে কিভাবে ধৈর্য্য ধারণ করতে হবে তার প্রকৃত শিক্ষা লুকিয়ে আছে বইয়ের মুল্যবান পাতায়। সবশেষে, প্রকাশনী এবং বই সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি এবং সবার উত্তরোত্তর কল্যাণ কামণা করছি।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    মহান আল্লাহ পুরুষগণকে তাদের স্ত্রীদের ব্যাপারে বলেন- “তোমরা তাদের সঙ্গে সদাচরণ সহকারে জীবনযাপন কর। তোমরা যদি তাদেরকে অপছন্দ করো, তবে এমন হতে পারে যে, আল্লাহ যাতে প্রভূত কল্যাণ রেখে দিয়েছেন তোমরা তাকেই অপছন্দ করছ।” (সূরা নিসা, আয়াত ১৯)

    ★বিষয়বস্তু:
    স্বামীর সাথে অশান্তি সৃষ্টি করা স্ত্রীদের সঙ্গে নবি ও মনীষীদের আচরণ কেমন ছিল- বইটি মূলত এ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে আবর্তিত। তাঁদের জীবন সংশ্লিষ্ট এরকম কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা এবং ইসলামি শরীয়াহ মোতাবেক স্ত্রীর অসদাচরণে স্বামীর করণীয় সম্পর্কে বইটি রচিত হয়েছে।

    ★বইকথন:
    চারদিকে যখন স্বামী-স্ত্রীদের নিত্যকার কলহ, নির্যাতন এবং তালাকের কাহিনীতে সয়লাব, ঠিক তখনই মাকতাবাতুন নূর প্রকাশনী নিয়ে এসেছিল “স্ত্রীদের সাথে নবি ও মনীষীদের আচরণ” বইটি। এ বইয়ে উঠে এসেছে ঐসব ঘটনা, যেখানে স্বয়ং নবি-রাসূল, সালাফে-সলেহীন, আলেম-উলামা, বিভিন্ন মনীষীগণ ছিলেন তাদের স্ত্রীদের দ্বারা ভুক্তভোগী। যারা তাদের নিত্যকার কাজে-কর্মে নানাভাবে তাদের স্ত্রীদের মাধ্যমে কষ্ট পেতেন। লাঞ্ছিত হতেন। ঘরে কিংবা বাইরে অথবা জনসম্মুখে- কোনোক্ষেত্রেই স্ত্রীরা তাদেরকে রেহাই দিতেন না। তবুও সেই মহান স্বামীগণ তাদের স্ত্রীগণের সাথে অসদাচরণ করেননি, পাল্টা আক্রমণ করেননি, তালাক দিয়ে দেননি। বরং সবর করে গেছেন। দিয়েছেন তাদের স্ত্রীগণকে প্রাপ্য অধিকার। আর এর বিনিময়ে তাঁরা মহান আল্লাহর কাছে তাঁদের নিজেদের গুনাহ মাফের আশা করতেন। এভাবেই ইসলামের ঝান্ডাবাহী নেতাগণ আমাদেরকে তাদের আচরণ দিয়ে শিক্ষা দিয়ে গেছেন কিভাবে ইসলামের জীবন বিধানকে মানতে হয়। কিভাবে রবের তরফ থেকে দেওয়া অভূত কল্যাণের সওগাতকে অপছন্দ কিংবা কিছুটা ক্ষতির সম্মুখীন হওয়া সত্ত্বেও আগলে রাখতে হয়। তারা তাদের জীবন-কাহিনী দিয়ে প্রমাণ করে গেছেন যে, স্ত্রীর বদমেজাজ, গালাগালি, তিরস্কার, ভর্ৎসনাসহ নানা রকম অশান্তির কারণে স্ত্রীকে তালাক দিয়ে দেওয়া কোনো জ্ঞানী লোকের কাজ নয়। বরং মহান আল্লাহর প্রভূত কল্যাণ লাভের জন্য ধৈর্য সহকারে এমন স্ত্রীদের সাথে সংসার করে যাওয়াই প্রকৃত মানুষের কাজ। কেননা একজন নারীর এসব কাজ তার স্বামীর পছন্দ না হলেও তার অন্য দিকগুলো অবশ্যই লোকটির পছন্দ হবে।

    নবি ও মনীষীদের তাদের স্ত্রী সম্পর্কিত ঘটনাবলী ছাড়াও এ বইয়ে স্থান পেয়েছে কুরআন-হাদীস অনুসারে একজন পুরুষের তার স্ত্রীর সাথে কী রকম ব্যবহার করা উচিত। স্ত্রীর অসদাচরণের শিকার হলে একজন পুরুষের কর্তব্য কী। এছাড়া বইটিতে রয়েছে যুগ খ্যাত বিভিন্ন ইসলামিক স্কলারদের তালাক সম্পর্কিত ফতোয়া। পিতা-মাতার নির্দেশে কেউ তার স্ত্রীকে তালাক দিতে পারবে কি না এর আদ্যোপান্ত উত্তরও। এভাবেই পরতে পরতে ইসলামি শিক্ষার পসরা সাজিয়ে এগিয়ে যায় বইটি।

    ★বইটির বিশেষত্ত্ব:
    স্বামী-স্ত্রীর দাম্পত্য জীবন নিয়ে অসংখ্য বই থাকলেও, স্ত্রীর অনবরত অসদাচরণে তালাক না দিয়ে সবরের শিক্ষা দানকারী স্বতন্ত্র বই খুব কমই দেখা যায়। এক্ষেত্রে এ বইটি উল্লেখযোগ্য। আমাদের অনুসরণীয় ব্যক্তিদের ফতোয়া এবং আচরণিক উপাদান থেকে শিক্ষা নিয়ে দাম্পত্য জীবনকে পুনর্গঠনে সহায়ক হবে এটি। পাঠকের সুবিধার্থে এখানে প্রতিটি বিষয়ের সঠিক তথ্যসূত্র এবং প্রয়োজনীয় টীকাও দেওয়া হয়েছে। ফলে যে কেউ নিশ্চিন্তে বইটি পড়তে পারবেন।

    ★ভাষাশৈলী:
    বইটি অত্যন্ত সহজ-সাবলীল ভাষায় রচিত। প্রাঞ্জলভাষী অনুবাদক মাওলানা যায়েদ আলতাফ তাঁর হাতের স্পর্শে বইটিকে বাংলার কাননে প্রস্ফুটিত করেছেন। এতে কোনো ভাষাগত জটিলতা নেই। তাই আশা করি বইটি সব পাঠকের কাছেই সুখপাঠ্য বলে বিবেচিত হবে।

    ★বইটি কেন পড়বেন:
    ইসলামের ইতিহাসে স্ত্রীর বিষয়ে সবচেয়ে বেশি সবরকারী নবি ও মনীষীদের নাম জানতে বইটি পড়তে হবে। স্ত্রীর সাথে তাঁদের সম্পর্কের অবস্থান, প্রতিক্রিয়া, সবর ও সবরের লক্ষ্য সমন্ধে জানতেও এ বইটি পড়া প্রয়োজন। এছাড়া ইসলামি জীবন বিধান অনুযায়ী একজন স্ত্রীর খারাপ আচরণের প্রতি স্বামীর প্রতিক্রিয়ার স্বরূপ কেমন হওয়া বাঞ্ছনীয় এবং এতে সবরের প্রতিফল কী হবে, এগুলো সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে প্রতিটি মুসলিমের বইটি পড়া উচিত।

    ★বইটি কারা পড়বেন:
    বিবাহিত, অবিবাহিত, যুবক, বৃদ্ধ- প্রতিটি প্রাপ্ত বয়স্ক নারী-পুরুষই বইটি পড়তে পারেন। তবে যাদের দাম্পত্য জীবনে ইতিমধ্যেই ফাঁটল ধরে গেছে বা অন্তিম মুহূর্তে পৌঁছে গেছে, তাদের জন্য বইটি বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এতে ভুক্তভোগীরা সবরের দারুণ সবক পাবেন এবং তাদের জীবনের মোড় ঘুরে যাবে ইনশাআল্লাহ।

    ★পাঠ্যানুভূতি ও মন্তব্য:
    ঝকমকে প্রচ্ছদ আর চমৎকার নামের এই বইটি পড়ে আমার ভীষন ভালো লেগেছে। ইতিহাসের সেরা মানবদের স্ত্রীদের অসদাচরণের প্রতি ভালো প্রতিক্রিয়া এবং সবরের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত দেখে আমি রীতিমত মুগ্ধ হয়েছি। মন্দের জবাব যে মন্দ দিয়ে নয়, বরং ভালো দিয়ে করতে হয়, তাঁরা নিজেদের মাধ্যমে বারবার সেটার উদাহরণ দিয়ে গেছেন। আর মুসলিম উম্নাহকে উপহার দিয়েছেন ইসলামিক বিধান মানার শিক্ষনীয় জীবনাচার। আমার মনে হয়, কালের আবর্তনে এ পৃথিবীতে বিয়ে নামক পবিত্র বন্ধন টিকিয়ে রাখতে নফসের বিপরীতে যত যোদ্ধার আগমন ঘটবে, তাদের জন্য যুগের স্বর্ণালি এই মানবেরাই হবেন তখন অনুসরণীয় এবং উৎসাহের এক নবোদ্যম পাঠশালা। দু’আ করি ততদিন পর্যন্ত এ বইটি টিকে থাকুক। আলো ছড়াক ভেঙে যাওয়া দাম্পত্য সংসারে। মহান আল্লাহ বইটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে উত্তম প্রতিদান দান করুন। আমিন।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top