মেন্যু
shukher moto kanna

সুখের মতো কান্না

পৃষ্ঠাসংখ্যা : ১৫২ হার্ডবোর্ড বাধাই, ৮০ অফহোয়াইট পেপার একটি দূরবর্তী সত্য ঘটনার ছায়া অবলম্বনে রচিত উপন্যাস। উপন্যাসটি কয়েক খণ্ডে প্রকাশ হবে। এটি প্রথম খণ্ড। দ্বিতীয় খণ্ডের নাম ‘একটি স্বপ্নভেজা সন্ধ্যা’। বেশ কিছুদিন ধরেই... আরো পড়ুন
পরিমাণ

148  200 (26% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

1 রিভিউ এবং রেটিং - সুখের মতো কান্না

4.0
Based on 1 review
5 star
0%
4 star
100%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 4 out of 5

    সিরাজাম বিনতে কামাল:

    বইয়ের নাম: সুখের মতো কান্না
    লেখা: রশীদ জামীল
    প্রকাশনী: কালান্তর

    ♦ নারীবাদী সংগঠনের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান মিসেস জলি।
    অধিকার ও দায়িত্ব: প্রসঙ্গ নারী শীর্ষক সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিশেবে ব্যক্তব দিচ্ছেন।

    তিনি বলছেন, কেন নারীদের খাটোনজরে দেখা যায়! কেন এই সমাজে নারীদের স্বয়ংসম্পূর্ণ, ম্যাচিউরড হিশেভে স্বীকৃতি দেওয়া হয়না! কেন মন্ত্রণালয়ের নাম “মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়” রাখা হয়েছে!
    এই “ও” অব্যয় দিয়ে তারা কী বুঝাতে চায়?
    ১. উভয় দুর্বল
    ২. উভয় বুদ্ধিহীন প্রাণী
    ৩.উভয় পরনির্ভরশীল
    ৪.উভয় বিবেকশূন্য
    ৫.উভয় অকেজো ; কোনটি?

    মিসেস জলির দাবী একটাই। দেশে পাগলের সংখ্যা ও কম নয়। আবার পুরুষের জন্যেও আলাদা মন্ত্রণালয় নেই। আলাদা আলাদা মন্ত্রণালয় করলে খরচ বেড়ে যাবে। তাই তিনি নতুন একটি বিভাগ চান, যার নাম হবে “পুরুষ ও পাগল বিষয়ক মন্ত্রণালয়।”
    উপস্থিত নারীরা হাততালি দিয়ে চিৎকার দিয়ে বলে ওঠলেন, “ঠিক! ঠিক!”

    আমাদের জন্মের আগে, বহু আগে এই পৃথিবীতে ঘটে গেছে অনেক লোমহর্ষক কাহিনি।
    কিছু আমরা জানি, কিছু আমাদের অজানা, কিছু হারিয়ে গেছে। কিন্ত ইতিহাস ঘাটলে ঠিকই আমরা জানতে পারি সেই লোমহর্ষক ঘটনাগুলো। শয়তানের কুমন্ত্রণা এখন যেমন আছে তেমনি ছিল আগেও। আমাদের ঈমানী পরীক্ষার জন্য আমাদের কতই-না পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হয়, সম্মুখীন হতে হবে। ঈমানী বলে বলীয়ান হলে ইন শা আল্লাহ পরীক্ষা যত কঠিনই হোক না কেন আমরা উত্তীর্ণ হবো। হেরে যাবে শয়তান, হারবে আমাদের নফস। আর বিজয়ী হবো আমরা। মহানবী (সা:) বলে গিয়েছেন, ‘আমি আমার উম্মতের জন্য সবচেয়ে বিপদজনক যা দেখছি তা হলো নারীবিষয়ক ফিতনা।’
    নারীবিষয়ক ফিতনা শুধু বর্তমান প্রজন্মের জন্যই নয়, যুগ যুগ ধরে তা চলে আসছে। আর এইটা হতে পারে মুমিনের জন্য ঈমানীয় পরীক্ষা। তাই আমরা নারী-পুরুষ উভয়কেই সচেতন থাকা উচিত।

    এমনই একটি নারীবিষয়ক ফিতনার কাহিনি একুশের মত করে লিখা হয়েছে এই বইয়ে। মূলত এটি একটি উপন্যাস। লেখক উপন্যাসের আদলে একটা সত্য কাহিনীকে একুশের মত করে লিখেছেন।

    কাহিনিটি পাঠককে খুঁজে বের করতে হবে। আর সচেতন পাঠক অল্প এক্টু পড়তেই কাহিনি বুঝে ফেলবেন। বইটি পড়ে বেশ মজা পেয়েছিলাম আর অজানা অনেক তথ্যও জানা হয়েছে। সেকেন্ড পার্ট পড়ার তৃষ্ণা জন্মেছে।

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top