মেন্যু
১০০০ টাকার পণ্য কিনলে সারা দেশে ডেলিভারি একদম ফ্রি।

সিসাঢালা প্রাচীর

প্রকাশনী : সমর্পণ প্রকাশন

অনুবাদ: মুনীরুল ইসলাম ইবনু জাকির
মোট পৃষ্ঠা: ৮০
কভার: পেপার ব্যাক

মুসলিম উম্মাহ হলো একটি দেহের মতো। আফ্রিকার অধিবাসী কোনো মুসলিম যদি সাহায্যের জন্যে হাত বাড়ায়, তবে ভারতবর্ষে বসেও একজন মুসলিম সে আহ্বানে সাড়া দেয়। আটলান্টিকের এক অজানা স্থান থেকেও যদি কোনো মুমিনের আর্তচিৎকার ভেসে আসে, তবে পুরো মুসলিমজাতি তাতে পেরেশান হয়ে যায়। যেমনিভাবে একজন মুসলিম রমণীর জন্যে সতেরো হাজার সাদা-কালো ঘোড়া নিয়ে ছুটে গিয়েছিলেন খলিফা মু’তাসিম, তেমনিভাবে ওই মুসলিমকে সাহায্য করার জন্য ছুটে যায় তারা। এটাই ইসলামি ভ্রাতৃত্ববোধ। এটাই ঈমানি দায়িত্ব। এভাবেই মুমিনরা একতাবদ্ধ হয়ে গড়ে তোলে সিসাঢালা প্রাচীর। যে প্রাচীর কখনও পরাভূত হয় না। ক্ষয়ে যায় না। শত্রুর প্রবল আঘাতেও এ প্রাচীর গুঁড়িয়ে যায় না। ঠায় দাঁড়িয়ে থাকে মাথা উঁচু করে।

ভ্রাতৃত্বের ওপর রচিত বক্ষ্যমাণ গ্রন্থটি ইতিহাসের সবচেয়ে প্রাচীন গ্রন্থগুলোর একটি। জগদ্বিখ্যাত ইমাম ইবনু আবিদ দুনইয়া রহ.-এতে ভ্রাতৃত্ব বিষয়ক নবীজির হাদীস, সাহাবী এবং পরবর্তী প্রজন্মের উক্তিগুলো সংকলন করেছেন।

পরিমাণ

84.00  120.00 (30% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

2 রিভিউ এবং রেটিং - সিসাঢালা প্রাচীর

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    বই : সীসাঢালা প্রাচীর
    লেখক : ইমাম ইবনু আবিদ দুনইয়া (রহিমাহুল্লাহ)
    অনুবাদক : মুনীরুল ইসলাম ইবনু জাকির
    প্রকাশনী : সমর্পণ প্রকাশন
    সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য : ১২০ টাকা
    মোট পৃষ্ঠা : ৮০

    বইটি কেন পড়বেন?
    একতাই বল। এই প্রবাদটি যারা শুধু মুখেই নয় বাস্তবেও দেখতে চান তাদের জন্য একটা মাস্টার পিস বই এটি। গায়ে মানে না আপনি মোড়ল, একাই রাজা অবস্থা থেকে যারা একতাবদ্ধ হতে চান এবং দলীয় গন্ডির মধ্যে থেকে নিজেদের মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়ন করতে আগ্রহীদের জন্য অবশ্যপাঠ্য এটি। একত্রে থাকার উপকারিতা সহজে হৃদয়ে বদ্ধমূল হবে, সমাজ গঠনে এই মহান নীতির সুফল হৃদয়ঙ্গম করা যাবে।

    বই সম্পর্কেঃ
    বিজ্ঞ একজন লেখকের লেখা বইটি বন্ধন তৈরি ও তা বজায় রাখার আদ্যপন্ত বর্ননা করেছে। একসাথে মিলেমিশে থাকার ফযিলত ও টিপসগুলো পড়তে পড়তে একতাবদ্ধতার স্বাদ পাবেন পাঠকেরা। আলোচনার ফাঁকে ফাঁকে আল্লাহর বানী ও রাসূলের হাদীস কথাগুলোকে আরো মনোমুগ্ধকর, অনুপ্রেরণামূলক করে তুলেছে। এক এক জন পাঠকে এই বইটি করে তুলতে পারে একটি সুদৃঢ় প্রাচীরের এক একটি ইট (ইউনিট) হিসাবে। যে কিনা নিজেদের মধ্যে বন্ধন অটুট রেখে শত্রুর মোকাবেলা পর্যন্ত করতে পারবে হাস্যবদনে। একে অপরের সাথে বন্ধন তাদেরকে আল্লাহর সাথে বন্ধন এর গভীরতায় নিয়ে যাবে, প্রশান্তি ও আল্লাহর সন্তুষ্টির শিখরে উঠিয়ে দিবে।

    বই এর অনন্য দিকগুলোঃ
    প্রতিটি আয়াত, হাদীসের রেফারেন্স গুলো দেওয়াতে বইটি বেশ গ্রহনযোগ্য হিসাবে সর্বমহলে প্রশংসিত হবার দাবী রাখে। ছোট ছোট প্যারায়, অধ্যায়ে, শিরোনামে ভাগ করায় পড়তে ক্লান্তি আসে নাই। ঝরঝরে গদ্য হিসাবে পরিনত হয়েছে, পাতা উল্টাতে উল্টাতে কখন যে বইয়ের সাথে হারিয়ে যেতে হচ্ছে মাঝে মাঝে টেরই পাওয়া যাচ্ছে না।

    বইয়ের উপযোগিতাঃ
    সব ধরনের মানুষই আসলে দলীয় কর্মকান্ডের সাথে যুক্ত, একতাবদ্ধতায় আবদ্ধ। এজন্য সবার জন্যই বইটি উপকারী। বিভিন্ন গ্রুপ বা সংগঠন না দলের লোকেরা নিজেরা নিজেদের মধ্যে এই বই নিয়ে আলোচনা করতে পারেন, উপহার হিসাবে দিতে পারেন। সামাজিক বন্ধন ও স্থিতিশীলতার জন্য এই বইটি সবারই পড়া উচিৎ ও বাস্তব জীবনে এর শিক্ষা প্রয়োগ করা উচিৎ।

    Was this review helpful to you?
  2. 4 out of 5
    Rated 4 out of 5

    :

    প্রতিদিন পত্রিকা খুললে একটা শিরোনাম সবসময়ই থাকে- মুসলিমদের উপর নির্যাতন, অত্যাচার। কালের পরিক্রমায় আজ মুসলমান জাতি সব থেকে পিছিয়ে, অবহেলিত আর নির্যাতিত। কিন্তু এই জাতিই তো এক সময় ছিল সভ্যতায় সবচেয়ে বেশি অগ্রগামী। যুদ্ধ, চিকিৎসা, জ্ঞান-বিজ্ঞান, সর্ব ক্ষেত্রেই বাজিয়েছিল তাদের বিজয়ের দামামা। রোম, মিশর, স্পেন, ইতালী অটোম্যান, মধ্যপ্রাচ্য, সকল স্থানেই ছিল তাদের শ্রেষ্ঠত্ব।
    .
    তবে মুসলিমদের অবস্থা আজ কেন এত নির্মম? এর অন্যতম কারণ হচ্ছে ভ্রাতৃত্বের অবক্ষয়। সামান্য মতানৈক্যই ফাটল ধরিয়ে দিচ্ছে মুসলমানদের ভ্রাতৃত্বের প্রাচীরে। আজ মুসলিমরাই একে অপরের শত্রু।
    .
    মুসলিমদের সেই ভ্রাতৃত্বের প্রাচীরকে পুনরায় মেরামত করতেই ‘ইমাম ইবনু আবিদ দুনইয়া (রহ.)’ রচনা করেন ভ্রাতৃত্ব বিষয়ক গ্রন্থটি। তার গ্রন্থটিকে বাংলায় ভাষান্তর করেছেন ‘মুনিরুল ইসলাম ইবনু জাকির’ ভাই। বইটির নাম দিয়েছেন- “সিসাঢালা প্রাচীর”।
    .
    ‖বিষয়বস্তু‖
    ‘ইমাম ইবনু আবিদ দুনইয়া (রহ.) এর বইগুলোর একটি বিশেষ বৈশিষ্ট হলো, তিনি তার বইগুলোতে আলোচনাগুলো তুলে ধরেন পয়েন্ট আকারে এবং কুরআন-সুন্নাহর পাশাপাশি প্রচুর পরিমাণ সালাফদের উক্তি উল্লেখ করেন। এই বইটিও তার ব্যতিক্রম নয়। বইটিতে সর্বমোট ষোলটি পাঠ রয়েছে। প্রত্যেকটি পাঠকে আবার আনা হয়েছে আবার ছোট ছোট শিরোনামের আওতায়।
    .
    এক বাক্যে বইটিকে ‘ভ্রাতৃত্ব এবং বন্ধুত্ব’র বিষয়ভিত্তিক কুরআনের আয়াত, হাদিস ও সালাফদের কথামালার সংকলন বলা যেতে পারে। আমরা কেন আল্লাহর জন্য ভালোবাসবো, আর আল্লাহর জন্য ভালোবাসার পুরস্কার কি কি হতে পারে, কাদের বন্ধু নির্বাচন করবো, কেমন হবে আমাদের বন্ধুদের বৈশিষ্ট্য, সৎ বন্ধু বানানো এবং তাদের সাথে সুসম্পর্ক স্থাপনের গুরুত্ব, ব্যক্তিজীবনে সৎ বন্ধুদের প্রভাব— এসকল বিষয়কে হাদিস ও সাহাবী-সালাফদের কথামালার দ্বারা তুলে ধরা হয়েছে।
    .
    ‖ভালো লাগা-মন্দ লাগা‖
    সহজ এবং বোধগম্য ভাষায় বইটিকে অনুবাদ করা হয়েছে। পাঠগুলোকে অনুচ্ছেদ এবং শিরোনামে বিন্যস্ত করায় বইটি পড়ে বুঝতে সুবিধা হয়েছে। বইটির প্রত্যেকটি আলোচনা ছিল খুবই দলিল সমৃদ্ধ। ফুটনোটে প্রতিটি হাদিসের রেফারেন্স ও মান উল্লেখ করা হয়েছে। কিছু হাদিসের ব্যাখ্যাও দিয়ে দেওয়া আছে। বইটিতে কেবল হাদিসগুলোই মানই নয়, বরং সালাফদের উক্তিগুলোর বিশুদ্ধতার মানও তুলে ধরা হয়েছে।
    .
    সবচেয়ে বেশি ভালো লেগেছে- বইয়ের শুরুর দিক থেকেই ‘দ্বীনদার বন্ধু’র প্রয়োজনীয়তা এবং বন্ধু নির্বাচনের মতো অনেক দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, আল্লাহর জন্য ভালোবাসার পুরস্কার এত বিশাল যে তা দেখে নবি-রাসূল, শহিদরাও ঈর্ষান্বিত হবে।
    .
    কথায় আছে, ‘প্রথমে দর্শনদারী পরে গুণ বিচারি’। কিন্তু বইয়ের নাম এবং প্রচ্ছদ কোনোটিই বইয়ের বিষয়বস্তুর সাথে মিলে নি বলে মনে হয়েছে। বাইরে থেকে দেখে কেউ আন্দাজও করতে পারবে না যে বইটি বন্ধুত্ব-ভ্রাতৃত্ব নিয়ে লেখা।
    .
    ‖পাঠ্যনুভূতি‖
    বন্ধুত্ব বা ভ্রাতৃত্ব নিয়ে এত হাদিস, সাহাবি ও সালাফদের এত উক্তি আছে যা বইটা না পড়লে হয়ত জানতেই পারতাম না। নেককার বন্ধুর প্রয়োজনীয়তা অনুভব করিয়ে বন্ধুত্বপূর্ণ চরিত্র গঠনের জন্য উৎসাহিত করবে। পরস্পরের মধ্যে ভ্রাতৃত্বের সম্পর্ক গঠনের মাধ্যমে এক শক্তিশালী জাতিতে পরিণত হওয়ার গাইডবুক হবে এই বইটি।
    Was this review helpful to you?