মেন্যু
shesher ossru

শেষের অশ্রু

অনুবাদক: আব্দুল্লাহ মজুমদার সম্পাদনা: শিহাব আহমেদ তুহিন পৃষ্ঠা: ১০৪  কভার: পেপারব্যাক “দুনিয়ার সব নারী থেকে একজন পুরুষ বেঁচে থাকতে পারে। কিন্তু এমন একজন থাকতে পারে যে খুব গোপনে তার মনে জায়গা করে নিতে পারে।”-... আরো পড়ুন
পরিমাণ

115  160 (28% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

10 রিভিউ এবং রেটিং - শেষের অশ্রু

5.0
Based on 10 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published.

  1. 5 out of 5

    Mohammad Mayen Uddin Robayet:

    প্রযুক্তির যুগে আমরা বসবাস করছি। আজকাল শয়তানের অন্যতম হাতিয়ার হলো সোশ্যাল মিডিয়া। যে হাতিয়ারের মাধ্যমে আমাদেরকে নারী ফেতনার মধ্যে ফেলেছে তার সামর্থের মাত্র সামান্যটুকু দিয়ে।যার ফলে আমরা কেউ এই ফিতনা থেকে মুক্ত নই। আমরা নিজের নফসের সাথে যুদ্ধে হেরে গিয়ে আমরা জড়িয়ে পড়ছি এই ফিতনায়। শয়তানের চক্রান্ত খুব নিখুঁত। আপনি হয়তো এখন কেবল তাকানো এখন হয়তো এসএমএস বিনিময়, ফেসবুক চ্যাট। কাল কী হবে জানেন না। একটা দৃষ্টি একটা মেসেজ দিয়ে খুলে যায় দরজা। শয়তান এভাবে এক শতাংশ দুই শতাংশ করে একশ শতাংশ পর্যন্ত নিয়ে যায়। আপনাকে সে বলবেনা দরজা খুলতে। সে শুধু একটা উঁকি দিতে চাইবে। তাছাড়া আপনি শয়তানের সাথে চালাকি করে পারবেন না শয়তান আদম আলাইহিস সালামের আগ থেকে এসেছে। সে আপনার, আমার ও সকল আলেম, মাওলানা, মুফতি সাহেবের চেয়েও ইসলামের সম্পর্কে বেশি জ্ঞান রাখে। আমাদের সবার জ্ঞান মিলে শয়তানের জ্ঞান সমান হবে না। শয়তানের সাথে খেলতে যাবেন না ঝুঁকি নিবেন না। শয়তানের সাথে আমাদের যুদ্ধ চলবে মৃত্যু পর্যন্ত।

    ‘শেষের অশ্রু’ গল্পের ইয়াসারার ছিল একজন অসম্ভব খোদাভীরু মানুষ। অসম্ভব একজন পরহেজগার। মানে সে এক পথে হাঁটলে শয়তান তার উল্টো পথে হাটত। অথচ সেই ইয়াসারার এক সময় শয়তানের ফাঁদে পা দিল। সে শয়তানকে তার দরজা খুলে দিয়েছিল,শয়তান সেই দরজা দিয়ে তাকে আল্লাহ থেকে দূরে সরিয়ে নিল। দুনিয়া বিমুখ ইয়াসারার আর একসময় নারীর ফাঁদে পা দিল। ঠিক কি হয়েছিল তার শেষ পরিণতি? ইয়াসারার কি ফিরে আসতে পেরেছিল? সে উত্তর পেতে হলে ‘শেষের অশ্রু’ শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে।
    সবশেষে বলবো নিজের বিবেককে নাড়া দেওয়ার মতো একটি বই। সবার সংগ্রহে থাকা উচিত।

    5 out of 5 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    Mahira:

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভালোলাগা_জুন_২০২০

    “নারী ফিতনা” এক ভয়ংকর হৃদয়ঘটিত ফিতনা। সৃষ্টির ঊষালগ্ন থেকে অদ্যাবধি কতশত আবেদ-মুত্তাকিরা এই “নারী” নামক দুর্বলতায় ঘায়েল হয়েছেন অজান্তে-আনমনে, শয়তানের চিরাচরিত রণকৌশলে!
    এমনই ফিতনায় পতিত হওয়া আল্লাহভীরু এক যুবকের হোঁচট খাওয়ার গল্প নিয়েই রচিত “শেষের অশ্রু”।

    [বই কথনঃ]

    এই বইটি বাগদাদের ইবাদতপ্রেমী যুবক ইয়াসারকে নিয়ে সত্যঘটনা অবলম্বনে লিখা। সে ছিলো ঈর্ষনীয় লেভেলের আল্লাহভীরু। কিন্তু, একটা সময় নারীঘটিত সমস্যায়, শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণে তার সবকিছু উলটপালট হয়ে যায়।

    যে ইয়াসারের হৃদয় বন্দনা করতো প্রভু-প্রেমের সাতকাহন, সেই ইয়াসারের হৃদয় আটকা পড়ে যায় ভিনদেশী রমনীর লাস্যময়ী হাসিতে। শয়তানের ফাঁদে পা দিয়ে দুনিয়াবিমুখ ইয়াসারের লিপ্ত হতে থাকে আয়তলোচনা’র ছলনাময়ী প্রণয়াকাঙ্ক্ষায়! আস্তে আস্তে মসজিদে লেপ্টে থাকা অন্তরে প্রলেপ পড়ে দুনিয়াদারির। ইবাদাতের স্বাদ তেতো হতে থাকে ক্রমেই। তার সফেদ সাদা অন্তরে লেগে যায় কালিমার দাগ! অন্ধকার-অমানিশার ঘোরে সে তলিয়ে যেতে থাকে, গভীর থেকে গভীরতর খাদে!
    .
    এরপর? ইয়াসার কি পেরেছিলো নিজ অবস্থান দৃঢ় রাখতে? পেরেছিলো কি ডাগরচোখা কন্যার আবেদনময়ী আহবান অগ্রাহ্য করতে? নাকি ডুব দিয়েছিলো অন্ধকারের অতল গহব্বরে?
    এই টুইস্টটা থেকে যাক! আপনাকে এর পরের কাহিনী জানতে,হাতে নিতে হবে বইটি।

    [ভালোলাগাঃ]
    প্রথমে ভেবেছিলাম, বইটা পড়বো কোনো অলস দুপুর কিংবা বৃষ্টিস্নাত সন্ধ্যার ঘুমজড়ানো আবেশে! কফির চুমুকে কাগজের জমিনে চোখ বুলিয়ে,পরম আয়েশে। কিন্তু বই হাতে নিয়ে সেসব আয়োজন আমার মাঠে মারা গেলো। বইয়ে ডুব দিয়ে একবসাতেই যবণিকা!
    বইয়ের কাহিনী যেমন বাস্তব, চরিত্রগুলোও জীবন্ত। পাঠকের উত্তেজনা ধরে রাখতে সক্ষম শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত।

    [পাঠ অভিমতঃ] এই বইটি কেবল বাগদাদের ইয়াসারের গল্প নয়, বরং বর্তমান সমাজের গল্প, সৃষ্টির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত অগণিত যুবকের পদস্খলিত হওয়ার গল্প।
    .
    ফ্রী মিক্সিং এর এই যুগে তারুণ্যের উপস্থিতিতে, যুবকদের মনের কোণে নিত্যনতুন ফ্যান্টাসি উঁকিঝুঁকি দেয় বসন্তের কোকিলের মতো। এমন অবস্থায় ঈমানের দৃঢ়তা বজায় রাখতে,তাদের নফসের সাথে যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হয় প্রতিনিয়ত।
    ফিতনার এই উত্তাল সায়রে নিজেকে নিয়ন্ত্রণে রেখে হিদায়াহ’র পথে নির্নিমিখ ছুটে চলা কতটা দুঃসাধ্য, তা কেবল যুবসমাজই উপলব্ধি করতে পারে।
    কিন্তু এই পথচলায় পতনই সমাপ্তি নয়। হোঁচট খেলে রব উঠে দাড়ানোর সুযোগ দিয়েছেন। তাওবাহ করে পুনঃবার আল্লাহমুখী হওয়ার চান্স দিয়েছেন। এই বইটি তাওবাহ’র প্রতি নতুন করে তাড়না জাগায়। প্রবৃত্তিকে আয়ত্তকরণে রাখার শিক্ষা দেয়।

    আল্লাহর কাছে ফিরে আসতে নব্য প্রত্যাবর্তনের উপাখ্যান গড়তে চাইলে, পড়ে দেখুন বইটা। অনুপ্রেরিত হবেন, ইনশাআল্লাহ।

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    Montasir Mamun:

    বইঃ শেষের অশ্রু
    লেখক : দাঊদ ইবনু সুলাইমান উবাইদি
    অনুবাদক: আব্দুল্লাহ মজুমদার
    সম্পাদনা: শিহাব আহমেদ তুহিন
    প্রকাশনী : সমর্পণ প্রকাশন
    পৃষ্ঠা: ১০৪
    গায়ের দামঃ ১৩৪ টাকা
    কভার: পেপারব্যাক, বাইন্ডিং, পেজ ও ছাপা কোয়ালিটি ভাল

    বইটি কেন পড়বেন?
    ফিতনা একজন মানুষকে কীভাবে কোথা থেকে কোথায় নিওউএ যেতে পারে সে বিষয়ে ধারনার জন্য এই বইটি পড়া উচিৎ। একজন উচ্চ মানের আবেদ ও যে নারীর ছলনা থেকে নিরাপদ নয় তা এই ঘটনা পড়লে বোধগম্য হবে। আবেগ দ্বারা আচ্ছন্ন হয়ে এক টান টান উত্তেজনাপূর্ন শিক্ষনীয় কাহিনী পড়তে আজই এর পাতায় ডুব দিন।

    কাদের জন্য শিক্ষনীয়?
    যুবক, যুবতীদের জন্য এই বই খুবই প্রাসঙ্গিক। রকেত মধ্যে যে লুকানো আবেগ ও শক্তি টগবগ করে তা বশে আনা কেন প্রয়োজন এই বই থেকে তা জানা যাবে।
    যারা ভাবছেন একটু না হয় আনন্দ করলাম, পরে তাওবা করে নিব, তাদের জন্য এটা একটা গাইডলাইন বই হবে।
    ফিরে আসার সংগ্রামে যারা যুক্ত হতে চাচ্ছেন তারা এই বইয় নিজেকে খুঁজে পাবেন

    সারমর্মঃ
    ইবাদতপ্রেমী, সুদর্শন যুবক ইয়াসারকে ঘিরেই বইয়ের কাহিনী চলমান হয়েছে। যে যুবকের ধ্যানে জ্ঞানে মসজিদ, কুরআন; চোখে আখিরাত ছাড়া কিছুই ছিল না, সেই ইয়াসারকে গ্রাস করেছিল যুবতী এক ভীনদেশী মেয়ের ডাগর কালো দুটি চোখ, কণ্ঠস্বর, চেহারা। একটি চিরকুট দিয়ে শুরু হয়ে দেখা, কথা এভাবে এগুতে এগুতে ঐ যুবক পৌছে যায় সারশীর নামক সুন্দরীর বাড়িতে। সৌন্দর্যের মাধ্যমে দুনিয়ার প্রতি আকৃষ্ট করে, আখিরাত ভুলিয়ে দিয়ে শয়তান প্রায় বশ করে অন্ধকারে এনে ফেলেছিল তাকে। ইবাদাতের স্বাদ আস্তে আস্তে তেতো হয়ে আসছিল, অন্ধকার ও অস্থিরতা যেন তা্কে বার বার হাত ছানি দিয়ে ডাকছিল।

    একদিকে সুন্দরী নারী অন্যদিকে তাঁর ইবাদাত, পরিবার, আখিরাত ও প্রিয় শায়খ। সে কি পেরেছিল সুন্দরীর আবেদনকে অগ্রাহ্য করতে? শায়খের নিবীড় আলোচনা, মসজিদের টান কি তাকে ফেরাতে পেরেছিল? নাকি অন্ধকারের অতল গহবরে পৌছে গিয়েছিল সে? জানতে হলে টান টান উত্তেজনাপূর্ন পরিসমাপ্তির দিকে এগিয়ে বইটির অনন্য স্বাদ গ্রহন করতে হবে। এই বই আপনার অশ্রু বের করে ছাড়বে। সেটি কি হবে শেষের অশ্রু? কল্যানের, প্রশান্তির, তাওবার অশ্রু নাকি অনুশোচনার অনলে পোড়া অশ্রু?

    অনুভূতিঃ
    বেশ আলোড়িত হয়েছি বইটি পড়ে। সব যুবক যুবতীর এই ধরনের বই পড়ে রাখা দরকার। সেলফ কন্ট্রোল, তাওবা, ডেডিকেশন, ইত্যাদি অনেক বেসিক বিষয় শেখা যাবে বই থেকে। ইনশা আল্লাহ জীবনের কঠিন বাস্তবতা ও নানামুখী শিক্ষা দিয়ে একটি অমূল্য সম্পদ হিসাবে আপনার বাড়িতে থাকবে বইটি। যেমনটি হয়েছে আমার ক্ষেত্রে।

    রেটিংঃ ৯/১০

    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    রাজিয়া:

    মাশা আল্লাহ… এই বই সম্পর্কে আমার অনুভূতি বলে বোঝানো সম্ভব না। আমার প্রিয় বইগুলোর একটি ‘শেষের অশ্রু’ বইটি। বইয়ের প্রথম বাক্য থেকে শেষ বাক্য পর্যন্ত সবকিছুই আমার হৃদয় স্পর্শ করেছে। বইটি এই সমাজের সকল তরুণ-তরুণী, কিশোর-কিশোরী, যুবক-যুবতীর একবার অন্তত পড়া উচিত। জীবনের মানে কিছুটা হলেও বদলে যাবে ইনশা আল্লাহ্‌।
    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 5 out of 5

    Maruf:

    প্রেম রোগ যারা ভুগছেন এবং এইখান থেকে
    বার হইতে চাইছেন তারা বুক টা পড়তে পারেন
    অনেক ভালো ওষুধ হিসাবে কাজ করবে বিশেষ
    করে শেষ পাতাই অস্রু ধরে রাখতে পারবেন না
    তা যেন বের হইতে বাধ্য
    4 out of 4 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No