মেন্যু
১০০০ টাকার পণ্য কিনলে সারা দেশে ডেলিভারি একদম ফ্রি।

স্বাগত তোমায় আলোর ভুবনে

অনুবাদক ও সম্পাদক : আমীমুল ইহসান
বইটির পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৮৪

ইসলামি ঘরানায় বর্তমানে ছোটগল্প বেশ জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। তাই অনেক লেখকই দাওয়াহর জন্য এটিকেই বেছে নিচ্ছেন। ছোট গল্প যেহেতু দশ থেকে পঞ্চাশ মিনিট দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট হয়, তাই পাঠকরা সাধারণত বিরক্ত হয় না। তাছাড়া গল্পে গল্পে পাঠকের বোধবিশ্বাসে সহজেই রেখাপাত করা সম্ভব হয়। যাক, ছোটগল্প নিয়ে একদিন আলাদা আলোচনা করব ইনশাআল্লাহ।

‘স্বাগত তোমায় আলোর ভুবনে’ এর গল্পগুলো পুরোপুরি রবিবাবুদের ছোটগল্পের সংজ্ঞায় পড়ে না। এগুলো অনেকটা বিভূতিভূষণ ও বনফুলের ছোটগল্পগুলোর মতো। গল্পকে রোমাঞ্চকর কোনো পরিণতি দেয়ার চেয়ে গল্পের মূল মেসেজটা পাঠকের হৃদয়ে চারিয়ে দেয়ার চিন্তাই এখানে লেখককে তাড়িত করেছে।

শাইখ আব্দুল মালিক আল কাসিমের রচনা যারা পড়েন তাদের অজানা নয় যে, তার প্রায় সব রচনার সারনির্যাস হলো দাওয়াহ ও আত্মশুদ্ধি। আশির দশকে লেখা ‘আজ-জামানুল কাদিম’গল্প গ্রন্থটি তার রচনাবলির মধ্যে সর্বাধিক জনপ্রিয়। তার দায়িসুলভ প্রতিভার পূর্ণ স্ফূরণ ঘটেছে এই গল্পগুলোতে। মৃত্যু, কবর, তাওবা, সাদাকা, দাওয়াহ, সদাচার, তিলাওয়াত, মুহাসাবা, হিজাব ইত্যাদির মতো মুমিনের জীবনঘনিষ্ঠ বিষয়গুলোকে উপজীব্য করে তিনি গল্পগুলো নির্মাণ করেছেন।

গ্রন্থটি রচনা করতে গিয়ে মনে হয় তিনি মেয়েদের প্রতি বিশেষভাবে লক্ষ রেখেছেন। অধিকাংশ গল্পেই তিনি মেয়েদের বিভিন্ন দ্বীনি বিষয়গুলোকে দক্ষতার সঙ্গে উপস্থাপন করেছেন। নারীদের পর্দা, দাওয়াত ও ইবাদতসহ দাম্পত্য জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অনেকগুলো বিশুদ্ধ ভাবনা উঠে এসেছে গল্পে গল্পে। তাই আমি বলব, বইটি যতটা না যুবকদের তার চেয়েও বেশি মেয়েদের।

গল্পগুলো আশির দশকে আরবের তৎকালনি সমাজজীবনের প্রেক্ষাপটে লেখা। বইটি পড়তে গিয়ে পাঠক সেই সময়ের কিছুটা আভাস পাবেন। তখন বর্তমান যুগের মতো প্রযুক্তি এতটা বিস্তার লাভ করেনি। দাওয়াতের উপকরণ হিসেবে তিনি বারবার বলেছেন বয়ানের ক্যাসেটের কথা। তবে অনুবাদ করার সময় আমরা সময়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রক্ষার্থে গল্পের আবহটাকে কিছুটা যুগোপযোগী করার চেষ্টা করেছি। যেমন সময় অপচয় করা প্রসঙ্গে আমরা ইন্টারনেটের কথা বলেছি, ইউটিউবের কথা বলেছি। বুঝতেই পারছেন আশির দশকে এসবের নাম-গন্ধও ছিল না।

আজ-জামানুল কাদিম-এ তিন খণ্ডে মোট ছত্রিশটি গল্প আছে। কিছু গল্প সাইজে বেশ ছোট হওয়ার কারণে এবং কিছু গল্পের মেসেজ আমাদের উদ্দিষ্ট পাঠকদের জন্য কম গুরুত্বপূর্ণ মনে হওয়ায় বাদ পড়েছে। প্রতি খণ্ড থেকে নয়টি করে মোট সাতাশটি গল্প আমরা মলাটবদ্ধ করেছি।

পরিমাণ

168.00  240.00 (30% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

3 রিভিউ এবং রেটিং - স্বাগত তোমায় আলোর ভুবনে

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    🌹👑🌹লেখক পরিচিতি : 🌷👑🌷

    🎓 ড. শাইখ আব্দুল মালিক আল-কাসিম। আরববিশ্বের খ্যাতনামা লেখক, গবেষক ও দায়ি। জন্মগ্রহণ করেছেন সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদের উওরে অবস্থিত ‘বীর’ নগরীতে— বিখ্যাত আসিম বংশের কাসিম গোএে। তাঁর দাদা শাইখ আব্দুর রহমান বিন মুহাম্মদ বিন কাসিম আল- আসিমি আন- নাজদি রহ. ছিলেন হাম্বলি মাজহাবের প্রখ্যাত ফকিহ। তাঁর পিতা শাইখ মুহাম্মদ বিন আব্দুর রহমান রহ. ও ছিলেন আরবের যশস্বী আলিম ও বহু গ্রন্থপ্রণেতা। তিনি জন্ম সূএেই পেয়েছিলেন প্রখর মেধা, তীক্ষ্ণ প্রতিভা আর ইলম অর্জনের অদম্য স্পৃহা। পরিবারের ইলমি পরিবেশে নিখুঁত তত্ত্বাবধানে বেড়ে উঠেছেন খ্যাতনামা এই লেখক।

    🗞️ আনুষ্ঠানিক পড়াশোনা শেষ করে আত্মনিয়োগ করেন লেখালেখিতে— গড়ে তোলেন ‘দারুল কাসিম লিন নাশরি ওয়াত তাওজি’ নামের এক প্রকাশনা সংস্থা। প্রচারবিমুখ এই শায়খ একে একে উম্মাহকে উপহার দেন সওরটিরও অধিক অমূল্য গ্রন্থ।

    📑 আত্মশুদ্ধিবিষয়ক বাইশটি মূল্যবান বইয়ের সম্মিলনে পাঁচ ভলিউমে প্রকাশিত তাঁর ‘আইনা নাহনু মিন হা-উলায়ি’ নামের সিরিজটি পড়ে উপকৃত হয়েছে লাখো মানুষ। বিভিন্ন ভাষায় অনূদিত হয়েছে এই সিরিজের অনেকগুলো বই।

    📦 সাধারণ মানুষের জন্য তিনি প্রাঞ্জল ভাষায় ছয় খন্ডে রচনা করেছেন রিয়াজুস সালিহিনের চমৎকার একটি ব্যাখ্যাগ্রন্থ। এ ছাড়াও তাঁর কুরআন শরিফের শেষ দশ পারার তাফসিরটিও বেশ সমাদৃত হয়েছে।

    🌈📖🌈বই রিভিউ : 🌈📖🌈

    🍂 দুনিয়ার এই ক্ষণিকের জীবন আমাদের জন্য শুধুমাএ পরীক্ষার স্থান। অথচ এই জীবনের মোহে আমরা ডুবে আছি। আমাদের আচরণ, চাল-চলন, কথাবার্তার ধরণ, কাজ-কর্ম এমন যে আমরা এ দুনিয়ার স্থায়ী বাসিন্দা!! আমরা মৃত্যুকে ভুলে দুনিয়ার জীবন নিয়ে ব্যস্ত।! অথচ মহান আল্লাহ তা’য়ালা পবিএ কুরআনে ঘোষণা দিয়েছেন—
    کُلُّ نَفۡسٍ ذَآئِقَۃُ الۡمَوۡتِ ۟ ثُمَّ اِلَیۡنَا تُرۡجَعُوۡنَ ﴿۵۷﴾
    “প্রতিটি প্রাণ মৃত্যুর স্বাদ আস্বাদন করবে, তারপর আমার কাছেই তোমরা প্রত্যাবর্তিত হবে।”
    [সূরা = আল -আনকাবুত :৫৭]

    দুনিয়ার যদি কোন মূল্য থাকতো তবে আল্লাহ্‌ সুবহানাহু তায়ালা আনহু কাফেরদের এক ফোঁটা পানি পান করতে দিতেন না।

    ⭐ মালিক ইবনু দিনার রহ. বলেন –
    “তুমি যে পরিমাণ দুনিয়ার জন্য চিন্তিত হবে, তোমার অন্তর থেকে সে পরিমাণ আখেরাত বের হয়ে যাবে।
    আর, তুমি যে পরিমাণ আখেরাতের জন্য চিন্তিত হবে, তোমার অন্তর থেকে সে পরিমাণ দুনিয়া বের হয়ে যাবে।”

    🌍 অথচ দুনিয়া পাগল এই আমরা দুনিয়াতে একটু ভালো থাকার জন্য, একটু সুখে থাকার জন্য কত কিছুই না করি।! আর আল্লাহ’র ইবাদত করার সময়টুকু যেন আমাদের হয়ে উঠে না!! দুনিয়ার মোহে পড়ে পরকালের প্রস্তুতির কথা আমরা বেমালুম ভুলে যাই!। পরকালই যে আমাদের আসল ঠিকানা সেটা আমাদের মনেই থাকে না!!। মৃত্যু যেকোন মুর্হূতে ঘটতে পারে । অথচ আমাদের তার জন্য নেই কোন চিন্তা, ভাববার সময়!!

    🍂 হায়! আমরা দুনিয়ার এই পরীক্ষার হলে খেলতামাশা করেই সময় নষ্ট করে ফেলি, কত বোকা আমরা।
    কিন্তু আমাদের রব চান আমরা যেনো তাঁরই দেখানো পথে চলি। তাইতো আমাদের প্রভু স্বয়ং আমাদের শিখিয়ে দিয়েছেন, বলো:
    اِہۡدِ نَا الصِّرَاطَ الۡمُسۡتَقِیۡمَ ۙ﴿۶﴾
    আমাদেরকে সরল পথ দেখান। পথের হিদায়াত দিন।
    [সূরা = আল – ফাতিহা : ৬]

    আর আমরা… দুনিয়াতেই ডুবে আছি!! কি করুণ অবস্থা আমাদের!!!

    💎 একদা হাসান বসরি (রা:) একটি জানাজার পেছনে পেছনে গোরস্তানে যান। কবরের পাড়ে বসে তিনি বলেন, ‘পার্থিব জীবনে দুনিয়াবিমুখ হওয়া চাই আর ভীত হওয়া চাই আখিরাতের ব্যাপারে।‘

    🍀 কবরের কাছে এসে সমান হয়ে যায় সবাই। কে রাজা কে প্রজা কোনো ফারাক নেই। সবার একই অবস্থা, একই পরিণতি। শিক্ষা গ্রহণ করার জন্য আর কত দৃষ্টান্ত চাই আমাদের?

    🍂🌺🍂 কিছু বই আছে যা পড়া শেষ না হওয়া অবধি জানার আকাঙ্ক্ষা বেড়ে যায়, এরপর কি কি আছে পড়ার জন্য একটা অন্য রকম ফিলিস্ কাজ করে। আবার কিছু বই আছে এমন যে পড়ার পরে আমাদের হৃদয়ের মাঝে দাগ কেটে যায়। এমনও বই আছে যা পড়ার পরেও খুব যত্ন করে রেখে দিই। আর কিছু বইয়ের এমনও অদ্ভুত লেখনী শক্তি আছে যা কেবল সামনের দিকে টেনে নিয়ে যেতে থাকে। আর বইটি থেকে শিক্ষণীয় অনেক কিছুই থাকে এটা বলার অপেক্ষা রাখে না। বইটা পড়তে পড়তে মনে হয় অন্তরে কিছু একটা খানিকক্ষণ পর পর ধাক্কা দিয়ে যাচ্ছে।

    ✨🎁✨ ‘স্বাগত তোমায় আলোর ভুবনে’ নিঃসন্দেহে এমনই একটি বই। বইটি পড়ার সময় আপনার মনের মাঝে উপলদ্ধিরা এক অন্যরকম কাজ করতে থাকবে। বইটার কিছু খন্ডে তো আপনার চোখের পানি ধরে রাখাই মুশকিল হবে। মনে হবে বইটির প্রতিটি খন্ড যেন হৃদয় মাঝে এক চরম সত্যের বাসা বেঁধে দিয়ে যাচ্ছে। যে সত্যটা আমরা জানি কিন্তু ভুলে থাকতে চাই!!। আরও স্পষ্ট করে দিয়ে যাচ্ছে আমাদের সত্যের সম্মুখীন হতে হবে কোনো একদিন। আর বইটি পড়া শেষে থেকে যাবে একরাশ চিন্তায় ফেলে দেবার মতো অনুভূতির আলো।

    🔖📘🔖 বইটি মূলত ৩ খন্ডে সাজানো হয়েছে। এই ৩টি খন্ডের অধ্যায়গুলো আবার ২৭টি শিরোনামে বিভক্ত। বইটার প্রতিটি অধ্যায় যেন হৃদয়ের গহিনে পৌছেঁ দেবার মতো র্বাতা বহন করে। প্রতিটা অধ্যায়ে রয়েছে অজস্র শিক্ষণীয় দিক। বইয়ের পৃষ্ঠাগুলো জানান দিয়ে যাবে আমার অবস্থা কি! আমি দুনিয়ার জন্য কি কি করছি, আর আখিরাতের জন্য আমার কাছে কি কিছু আছে!!?

    🔳 মৃত্যু অবধারিত। কার, কখন, কোথায়, মৃত্যু ঘটবে কেউ বলতে পারবে না। মৃত্যুর কাছে আমরা কত অসহায়!! অথচ দুনিয়াতে বেঁচে থাকতে আমাদের বড়াইয়ের শেষ থাকে না!! এইটা আমার ওইটা আমার, আমার এত এত কিছু আছে বা সামান্য কিছু আছে আমার। অথচ দুনিয়াতে কিছুই আমার না।! আমার আমার করা এই আমিটাই যে ক্ষণস্থায়ী বাসিন্দা দুনিয়ার বুকে !!!। এই কথাটা যেনো আমাদের স্মরণেই থাকে না!! কত প্রস্তুতি, কত চিন্তা আমাদের এই দুনিয়াকে ঘিরে!!!

    আজ যে মানুষটা একটা পরিবারের অংশ। যার সাথে প্রতিদিন কথা বলি, মজা করি, হাসি-ঠাট্টা করি, অভিমান করি, সুখ-দুঃখের কথা বলি, যার স্বপ্ন থাকে হাজারটা, যে কিনা চিন্তা করে রাখে আগামীকাল সে এই এই কাজগুলা করবে। অথচ দেখা গেলো কাল সে এই দুনিয়াতেই নেই!!!
    আহা! এইতো দুনিয়া, আজ আছি তো কাল নেই। হায়!!এই ক্ষণস্থায়ী দুনিয়াকে পাবার আশায় আমাদের সারাটা জীবন শেষ হয়ে যায়!!

    🌙💎🌙 পবিএ কুরআনে বলা হয়েছে —–

    کُلُّ نَفۡسٍ ذَآئِقَۃُ الۡمَوۡتِ ؕ وَ اِنَّمَا تُوَفَّوۡنَ اُجُوۡرَکُمۡ یَوۡمَ الۡقِیٰمَۃِ ؕ فَمَنۡ زُحۡزِحَ عَنِ النَّارِ وَ اُدۡخِلَ الۡجَنَّۃَ فَقَدۡ فَازَ ؕ وَ مَا الۡحَیٰوۃُ الدُّنۡیَاۤ اِلَّا مَتَاعُ الۡغُرُوۡرِ ﴿۱۸۵﴾
    “প্রতিটি প্রাণী মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করবে। আর ‘অবশ্যই কিয়ামতের দিনে তাদের প্রতিদান পরিপূর্ণভাবে দেয়া হবে। সুতরাং যাকে জাহান্নাম থেকে দূরে রাখা হবে এবং জান্নাতে প্রবেশ করানো হবে সে-ই সফলতা পাবে। আর দুনিয়ার জীবন শুধু ধোঁকার সামগ্রী।”
    [ সূরা- আলে ইমরান : ১৮৫ ]

    🕊️ আমাদের মৃত্যু নিশ্চিত জেনেও আমরা কত ভাবলেশহীন হয়ে দিন যাপন করছি!! দুনিয়া যেনো আমাদের সব, তাই তো আমরা দুনিয়ার পিছনেই ছুটে চলেছি। অথচ আল্লাহ্‌ সুবহানাহু তায়ালা আনহু আমাদের মৃত্যুর কথা আল – কুরআনে উল্লেখ করে বার বার আমাদের সতর্ক বার্তা দিয়েছেন। আর আমরা যেনো সেই মহান বার্তা ভুলেই বসে আছি!!।

    🏷️ এই বইটার প্রতিটি ঘটনা পাঠকদের মনে বার বার স্মরণ করিয়ে দিবে আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা আনহু’র এই মহা-মূল্যবান বার্তা। মৃত্যু যা প্রতিটা মানুষের জীবনেই ঘটবে, আর আমরা কি করছি দুনিয়ার এই সল্প সময়ের জীবনের লোভে পরে !!

    🖇️🧫🖇️ বইটার প্রচ্ছদ, ডিজাইন, বাইন্ডিং সব কিছু খুবই চমৎকার । বইটার নাম শুনেই পড়ার প্রতি অন্য রকম একটা আগ্রহ কাজ করবে।

    🌀 আমার কিছু কথা :
    বইটা কেনার আগে থেকে পড়া শেষ করা অবধি আমার আগ্রহের শেষ ছিলো না। বইটা পড়ার সময় মনে হচ্ছিল কিছু খণ্ড আমাকে উদ্দেশ্য করেই লেখা। আমার মহান রব এর এত অবাধ্য হওয়ার পরেও কত নিয়ামত দিয়ে তিঁনি আমাকে এখনও বাঁচিয়ে রেখেছেন। বইটা যেনো বার বার আমার করুণ দশা জানান দিয়ে যাচ্ছিল!। বইটা শেষ করার পর মনে হলো এত শিক্ষণীয় একটা বই আর মূল্যবান মণি, মুক্তা যে বইটাতে ছড়িয়ে আছে তা সবার জানা দরকার। তাই পড়া শেষ করার পর তো মনে হলো যেনো রিভিউ না দিলেই নয়। কবে যে রিভিউ দিবো এইটাই শুধু মনে হচ্ছিলো। অবশেষে আল্লাহ্‌ সুবহানাহু তায়ালা আনহু লেখার তাওফিক দিলেন। বইটাই এমন যে সবারই পড়া উচিত বলে আমি মনে করি।

    ▫️⏳▪️ পরিশেষে,

    নিয়ত মৃত্যুর খবর আসে,
    খাটিয়ায় চড়ে গোরস্তানে যায় কত প্রিয়জন,
    আপন হাতে কত লাশ মোরা করেছি দাফন,
    কিন্তু খানিক বাদেই ভুলে যাই সব,
    ক্ষণিকের মলিন চেহারা হেসে ওঠে ফের,
    আলোহীন বিকৃত এক উল্লাসে।

    🌨️🌸🌨️ বইটা গল্পে গল্পে আপনাকে মনে করিয়ে দেবে আল্লাহ’র আনুগত্যের কথা— রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর ভালোবাসার কথা। অন্তরে জাগিয়ে তুলবে আখিরাতের অতুল স্বপ্ন—জান্নাতের অমিত সম্ভাবনা। চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেবে তুচ্ছ দুনিয়ার অসারতা। গল্পের ভেতরে বিচরণ করতে গিয়ে উপলদ্ধি করতে পারবেন, আপনার হৃদয়ে বাসা বেঁধেছে আল্লাহ’র ভয় আর পরকালের প্রস্তুতির দুর্নিবার বাসনা।

    ✨ আমাদের অন্তরে যেনো সর্বদাই মৃত্যুর কথা জাগরুক থাকে। আল্লাহ্‌ সুবহানাহু তায়ালা আনহু যেনো আমাদের মৃত্যুর পরের জীবনের জন্য বেশি বেশি নেক আমল সঙ্গে করে নিয়ে যাওয়ার তাওফিক নসিব করেন।
    আমিন।

    Was this review helpful to you?
  2. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    এ রকম বই পড়লে পাঠকরা আনন্দের সহিত পড়তে পারে। আল্লাহ লেখককে তুমি কবুল কর
    Was this review helpful to you?
  3. 4 out of 5
    Rated 4 out of 5

    :

    আলহামদুলিল্লাহ্‌, আল্লাহ্‌ তায়ালা বইটা পড়ার সুযোগ দিয়েছেন। বইটার কভার পেজ খুবই সুন্দর। প্রত্যেকটা গল্পই হৃদয়কে নাড়িয়ে দেয়। দাওয়াহ এর জন্য খুবই উপকারি একটা বই। যারা দাওয়াহ করতে চান তাদের জন্যই বইটা। আকিদা, মৃত্যু, সময়ের মূল্য, আখিরাত, গাফিলতি, এক কথায় “একের ভিতর সব” টাইপের একটা বই।
    Was this review helpful to you?