মেন্যু
secrets of zionism

সিক্রেটস অব জায়োনিজম

বিষয় : বিবিধ বই
পৃষ্ঠা : 296, কভার : হার্ড কভার
অনুবাদ: ফুয়াদ আল আজাদ আমেরিকার বিখ্যাত ফোর্ড মোটরগাড়ি কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা মালিক হেনরি ফোর্ড। কোম্পানি পরিচালনা করতে গিয়ে তিনি তো চক্ষু চড়কগাছ! এ কী! ইহুদিদের জায়োনিষ্ট জাল অক্টোপাসের মতো ঘিরে ধরেছে পৃথিবীকে! . ফোর্ড... আরো পড়ুন
পরিমাণ

300 

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

9 রিভিউ এবং রেটিং - সিক্রেটস অব জায়োনিজম

4.9
Based on 9 reviews
5 star
88%
4 star
11%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    Rafsan Bin Habib:

    অসাধারণ একটি বই!
    10 out of 11 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    Md. Abdul Khaleque:

    সিক্রেটস অব জায়োনিজম,
    Osadharon ekti boi, boi-er suru theke ses porjonto ektana porar moto boi. protita page-ei ache onek onek information. Yahudi-ra amaderke je kivabe boka baniye rekhese- boita na porle bujha jabe na. boi-ta sei 100 bochor ager lekha othocho ekhono jeno jibonto.
    sromik ra keno andolon kore? sromik/kormojibider beton barano hole keno sathe sathe voggo ponner dam bere jay? socialism, democracy, fundamentalist etc. etc kader toiri? share market hotat hohat hipe kore keno- abar collapse kore keno? aro aro onek kisu, ja bole ses kora jabe na. agei bolechi, boitir patay patay information. tai sobaike bolbo, boiti nijer songrohe rakhun ebong porun, onek kaje dibe.
    7 out of 8 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    সাকিব রহমান:

    ধন্যবাদ, ♥️
    3 out of 5 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    shahedsadik0905:

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভাল_লাগা_জুলাই_২০২০

    করোনা ভাইরাস। বলতে পারেন পরজীবী ভাইরাস। সুস্থ মানবদেহে ছোট ছিদ্র (নাসারন্ধ্র+মুখগহ্বর) দিয়ে প্রবেশ করে। ট্রাকিয়া হয়ে ফুসফুসে গিয়ে বাসা বাধে৷ পুষ্টিগ্রহণ করতে থাকে৷ বংশবৃদ্ধি করতে থাকে৷ গলা ব্যথা,জ্বর,কাশি দিয়ে শুরু করে আর শেষে পুরো মানুষটাকেই অচল করে দেয়৷ এমন উদ্ভিদ পরজীবীদের কথাও আমরা জেনে এসেছি। প্রকৃতিতে প্রানী প্রানীর বিরুদ্ধে পরজীবী,উদ্ভিদ উদ্ভিদের বিরুদ্ধে পরজীবী। কিন্তু মানুষ মানুষের বিরুদ্ধে পরজীবি?

    এখন থেকে ১০০ বছর আগের কথা, মূল ইংরেজী বইটির বিভিন্ন অংশ যাহা আগে আর্টিকেল আকারে প্রকাশিত হতো তাহা একত্রিত করা হয়৷ হেনরি ফোর্ডের আর্টিকেলগুলো শত বছর আগে ৯০০ হাজার পর্যন্ত বিক্রি হতো ইউরোপ আমেরিকাতে৷ বই আকারে প্রকাশিত হলে বেস্ট সেলার বনে যায়। বড় বড় লাইব্রেরীতে স্থান পায়৷ কিন্তু কোনো অজ্ঞাত এক কারণে বইটি সব লাইব্রেরী থেকে উধাও হতে শুরু করে৷ বাজার থেকে অধিকাংশ কপি গায়েব করে দেওয়া হয়। একসময় আর বইটির হদিস পাওয়া যায় না। কিন্তু সত্য কি চাপা থাকে?কিছু বছর পর আবার মেঘ কেটে যায়। ২৩ টি ভাষায় অনুদিত বইটি বাংলা ভাষায় এই প্রথম প্রকাশিত হলো। বইমেলা ২০২০

    #পাঠ_অনূভুতি
    বইটার রিভিউ লেখার কোনোই ইচ্ছা ছিলো না। কারণ এটা আমেরিকা ইউরোপের ব্যাকগ্রাউন্ড নিয়ে লেখা। এই একটা বই। তো যেসব কারণে রিভিউ লিখতে বসলাম এবং সবার উচিত বইটা পড়া কারণ এখন আমার দেশ আর পারিপার্শ্বিকতার সাথে বইটার সুন্দর মিল পেয়ে গেছি যে,কেমনে না লিখি! দেখলাম,পরজীবীরা কিভাবে একটা জাতিকে ধ্বংস করলো। আর ভাবলাম, মেলালাম, কিভাবে আরেক পরজীবী আপনাকে আপনার পরিবার সমাজ দেশ সহিত ধ্বংস করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে।

    #কেন_পড়বেন?কি_জানবেন?
    ইহুদি কারা? আর জায়োনিস্ট কারা? দুই শেণীর মৌলিক পার্থক্য কি? এদের উৎপত্তি কি? সংক্ষেপে ইহুদি ইতিহাস দিয়ে বইটি শুরু।
    ইজরাইল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার আগে কোথায় ছিলো তারা? কি করছিলো? কিভাবে তারা সফল হলো?
    ইহুদি ষড়যন্ত্র কি সত্য? যৌক্তিকতা কি? প্রমাণ কি? তাদের প্রোটোকল কিভাবে ফাস হলো? কি লেখা সেই প্রোটোকলে? তার কতটুকু বাস্তবায়ন হয়েছে? তার বিস্তৃতি কতটুকু?
    পত্রপত্রিকা, শিক্ষাব্যবস্থা, সংগীত-চলচিত্র থেকে খেলাসহ বিভিন্ন মাঠে তাদের বিছানো জালের বিস্তৃতি ও যুবকদের মগজধোলাই ও মস্তিষ্কশুণ্য করতে তাদের পরিকল্পনা!
    বিভিন্ন আন্তর্জাতিক শিল্প ও বিপ্লবে তাদের হাত কতটুকু? বিশ্বযুদ্ধের পেছনে কাদের হাত?
    আমেরিকাকে কিভাবে তারা পুতুল বানিয়ে ফেললো? তাদের অর্থের পরিমাণ কতটুকু? আন্তর্জাতিক ব্যাংক ব্যবস্থার পেছনে কারা ছড়ি ঘুরাচ্ছে? বিল গেটসের থেকেও ধনী কারা? তাদের সম্পদের উৎস কি?
    তাদের অপকর্মের চিত্র, ঔদ্ধত্যপনা ও ঘেটে ব্যবস্থা সম্পর্কে ধারণা এবং শেষে জ্যান্টাইলদের প্রতি তাদের দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে বইটি শেষ হয়েছে।

    #সমালোচনা
    ত্রুটি তেমন চোখে পড়ে নাই তবে অনেক পাঠকই অবগত নন আন্তর্জাতিক, অর্থনৈতিক,রাজনৈতিক  বিভিন্ন পরিভাষা সম্পর্কে। সেগুলো কোট করে দিলে নতুন পাঠকদের সুবিধা হতো।

    সময় উপযোগী একটি বই।
    নিজের জ্ঞানের পরিসীমা বাড়াতে পড়ুন।
    বিশ্বখ্যাত ফোর্ড মোটরগাড়ি কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা হেনরি ফোর্ডের দুনিয়াব্যাপী সাড়া জাগানো বই
    সিক্রেটস অব জায়োনিজম।

    এ যেন শিয়ালের হাতেই মুরগী পুশানীর গল্প৷
    সুই হয়ে ঢুকে ফাল হয়ে বের হওয়ার কাহিনী।
    করোনা ভাইরাস পরজীবী হয়ে মানব দেহে প্রবেশ করে আর এখান থেকেই পুষ্টি গ্রহণ করে৷ শেষে মানুষটাকেই মেরে ফেলে।

    8 out of 10 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 5 out of 5

    tonney23:

    আমরা ভয়ংকর এক ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি, যেখানে ভাল আর মন্দের কোন পার্থক্য থাকবেনা। যেখানে ব্যক্তি স্বাধীনতার নাম দিয়ে সব কিছুর বৈধতা দেয়া হবে। সেটা হবে ধর্ম নীতি নৈতিকতাহীন সমাজ ব্যবস্থা।ভোগ হবে সেখানে উন্নতির মাপকাঠি। সবকিছু ভরে যাবে অনাচারে আর অভাবে। তখন আসবে এক কথিত রক্ষাকর্তা। সে নিয়ন্ত্রণ করবে দুনিয়া, সাথে থাকবে তার একদল অনুসারী। সে এখনো আত্নপ্রকাশ করেনি কিন্তু তার অনুসারী অভিশপ্ত এক জাতি, যারা তিলে তিলে তৈরি করছে মঞ্চ।সমস্ত পৃথিবীর সম্পদ শুষে নিয়েও হলে, তারা তাকে হাসিল করবে।তাদের আছে অর্থ-সম্পদ অর্জনের ব্যাপারে বিশেষ অনুরাগ ও ক্ষমতা।যারা নিজেদের ভাবে “ঈশ্বর মনোনীত সম্প্রদায়”।তারাই সেই ইহুদি জাতি। পুরো প্রক্রিয়াটাই জায়োনিজম।

    হেনরি ফোর্ড ছিলেন আমেরিকার গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান “ফোর্ড” এর প্রতিষ্ঠাতা।বিজ্ঞানী এডিসনের কোম্পানিতে কাজ করে যিনি হাত পাকিয়েছেন, ছিলেন তার কাছের বন্ধু। চিন্তা করতেন নিজের দেশ,জাতি আর ধর্ম নিয়ে।
    তিনি তৎকালীন আমেরিকায় ইহুদিদের প্রভাব দেখে বিচলিত হন।তারা কিভাবে প্রোপাগাণ্ডা চালিয়ে, অর্থের প্রভাব খাটিয়ে দেশটাকে নিজের কব্জায় নিচ্ছে, নিজেদের উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য, তা মিস্টার ফোর্ডকে তাদের ব্যাপারে লিখতে বাধ্য করে। ১মে তিনি এ বিষয়ে তার নিজের পত্রিকায় কলাম লিখেন, তারপর প্রকাশ করেন চার খন্ডের এক বই “The international Jew”. দীর্ঘকাল নিষিদ্ধ থাকার পর, এই বই আশির দশকে আবার প্রকাশিত হয়।এখন, তা এক খন্ডে বাংলা ভাষাভাষী পাঠকদের জন্য, গার্ডিয়ান পাব্লিকেশনের সৌজন্যে।

    বইটির কিছু গুরুত্বপূর্ণ দিকঃ

    হাজার বছরের পুরনো একটি জাতি, যারা নিজভূমি থেকে বিতাড়িত হয়ে যাযাবর ছিল দীর্ঘকাল, তারা কিভাবে আজকের দুনিয়ায় এত প্রতাপশালী হলো? কিভাবে তারা তাদের কথিত প্রতিশ্রুত ভূমি ফিরে পেল? আজ তাদের অন্যায় অবিচার প্রতিরোধে কোন জাতিরই এগিয়ে আসার সাহস নেই। কিভাবে তারা নিজেদের এ পর্যায়ে নিলো?বইটি পড়লেই জানা যাবে।

    তাদের সমাজ ব্যবস্থা কেমন?তারা অন্যদের ব্যাপারে কিভাবে চিন্তা করে। কিভাবে সংখ্যালঘু হয়েও সুবিধা আদায় করে সব দখল করে নেয়,এখানে আলোচিত হয়েছে।

    অর্থ-সম্পদের জন্য যে তারা কতটা মরিয়া বইটাতে তার কিছু নমুনা দেয়া আছে।বিনোদন ও প্রকাশনা জগতে তাদের ভূমিকা কি, সে সর্ম্পকে বিস্তারিত আলোকপাত করা হয়েছে।

    পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ঘটে যাওয়া বিপ্লব, সরকার পতন ও মহাযুদ্ধে
    তাদের ভূমিকা, বিস্তারিত আলোচিত হয়েছে।

    খ্রিস্টানরা কিভাবে ধর্মনিরপেক্ষ ও নাস্তিক হলো,কিভাবে খ্রিস্টান নারীদের পর্দা ছাড়িয়ে পন্য বানানো হলো, সে বিষয়েও জানা যাবে।

    জায়োনবাদী ইহুদিরা কিভাবে আধুনিক আন্তর্জাতিক ব্যাংকিং ও অর্থব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করলো ও তা নিয়ন্ত্রণ করছে, তা নিয়ে আলোচনা আছে।

    তাদের মাস্টারমাইন্ড রাবাইদের বিভিন্ন প্রটোকল বইটিতে আলোচিত হয়েছে।

    পৃথিবীর নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে নেয়ার জন্য মানবজাতিকে নিয়ে তাদের বিভিন্ন মহাপরিকল্পনা ও তা হাসিলের জন্য কর্মপদ্ধতি সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।সর্বপরি,তাদের মসীহর (দজ্জাল) জন্য তারা প্রস্তুত হচ্ছে ও বর্তমান বিশ্বকে অনেকটাই প্রস্তুত করেছে।

    বইটির কিছু ভাল দিকঃ
    বইটির অনুবাদ সহজপাঠ্য লেগেছে,
    চোখ খুলে দেয়ার মত বই,
    ভবিষ্যত পৃথিবীতে আন্তর্জাতিক পুঁজিবাদীদের নানা ষড়যন্ত্র ও চালবাজি বুঝার জন্য উপযুক্ত বই,
    বইটি মুসলিমদের জন্য সচেতনতামূলক।

    বইটির নেতিবাচক দিকঃ
    তেমন খারাপ দিক পাইনি।
    এ বিষয়ে আরেকটি বই বের হলে ভাল হয়।
    যেহেতু মূল বই ১৯২০ সালে লিখা। কারন আমরা অনেকেই তাদের বর্তমান কাজকর্মের ব্যাপারে কম জানি।

    বইটি সকল সচেতন মুসলিমদের জন্য অবশ্যপাঠ্য। পড়ুন, জানুন। জানলে, মিলিয়ে দেখুন। গার্ডিয়ানকে “জাযাকাল্লাহ খাইরান” বইটির জন্য। অনেক দু’আ রইল।

    17 out of 18 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No