মেন্যু
proshnottore shishuder akhlak

প্রশ্নোত্তরে শিশুদের আখলাক (শিশুতোষ)

প্রকাশনী : আযান প্রকাশনী
পৃষ্ঠা : 60, কভার : পেপার ব্যাক
পৃষ্ঠা ধরণ: আর্ট পেপার রঙিন গ্লোসি পেপারে বাহারী ডিজাইন শিশুদের আখলাক বা চরিত্র গঠনে প্রয়োজন উত্তম তরবিয়ত। কেননা উত্তম তরবিয়তের মাধ্যমেই উত্তম আখলাক গড়ে উঠতে পারে। উত্তম আখলাক শিখে একটি শিশু... আরো পড়ুন

Out of stock

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

15 রিভিউ এবং রেটিং - প্রশ্নোত্তরে শিশুদের আখলাক (শিশুতোষ)

4.9
Based on 15 reviews
5 star
86%
4 star
13%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 4 out of 5

    জোবায়ের:

    শৈশব কাটে যার ,আদবের পাঠে তার
    জীবনটা হয়ে ওঠে আলোকিত ঢের,
    জীবনের শুরু যদি, হতে পারে জ্ঞান নদী,
    ব্যর্থতা থাকে না তো সেই জীবনের।

    আখলাক। মানুষের জীবনের সবচে গুরুত্বপূর্ণ একটা সম্পদ। চরিত্র গঠনের কাজ শুরু করতে হয় শৈশবেই। তখন শিশুরা থাকে কাদামাটির মতো নরম। এ সময় থেকেই তাদেরকে গড়ে তুলতে হয়।

    উত্তম চরিত্রের অধিকারী হতে চাইলে এ সংশ্লিষ্ট ইসলামি পাঠ অতি প্রয়োজনীয়। উত্তম চরিত্র বিষয়ক বেশ কিছু প্রশ্নোত্তর নিয়ে রচিত ‘ প্রশ্নোত্তরে শিশুদের আখলাক বইটি। বইটি মূলত একটি অনুবাদ গ্রন্থ। শিশুদের জন্য রচিত এই সুন্দর বইটি লিখেছেন সিরিয়ান লেখক ও গবেষক ইয়াজিন আল গানিম। বইটি অনুবাদ করেছেন সালমান মাসরুর।

    উত্তম চরিত্র নিয়ে প্রশ্নোত্তর আকারে রচিত এই বইটির শর্ট পিডিএফ দেখার সুযোগ হয়েছে। সামগ্রিকভাবেই বইটি বেশ সময়োপযোগী। আমরা এখন এমন এক সময়ে বাস করছি, যখন দিন দিন মানুষের চরিত্রের ভয়াবহ রুপ
    বেড়েই চলছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের একমাত্র পথ হলো শৈশব থেকেই নৈতিকতার পাঠ প্রদান করা৷ সে লক্ষ্যে বইটিকে বেশ সময়োপযোগী একটা বই বলেই মনে হয়েছে।

    বইটির সূচিপত্র অনুযায়ী বইটিতে আখলাক সম্পর্কিত ত্রিশটি প্রশ্ন এবং তার উত্তর উপস্থাপন করা হয়েছে। আপাত দৃষ্টিতে বইয়ে রাখা প্রশ্ন এবং উত্তরগুলো শিশুদের জন্য উপযোগী এবং গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া বইয়ের পৃষ্ঠাসজ্জাও শিশুদের জন্য বেশ চিত্তাকর্ষক বলেই মনে হয়েছে আমার কাছে।

    বইটির শর্ট পিডিএফ দেখার সুযোগ হয়েছে বলে পুরো বইটি নিয়ে মন্তব্য করা যাচ্ছে না। তবে শর্ট পিডিএফেই ভালো দিকগুলোর পাশাপাশি এমন কিছু বিষয় চোখে পড়েছে যেসব ক্ষেত্রে আরেকটু উন্নতি করা যেতে পারে বলে আমার মনে হয়। প্রথমত বেশ কয়েকটি বানানের ভুল দৃষ্টিগোচর হয়েছে। শিশুদের জন্য নির্ভুল বানানের বই খুব জরুরি। আশা করি হার্ড কপি হিসেবে আসার আগেই বানানের বিষয়টি সমাধান করা হবে। এছাড়াও বইটির প্রশ্নোত্তরের ক্ষেত্রে আরেকটু শিশুদের উপযোগী শব্দচয়ন ও বাক্য বিন্যাস রাখতে পারলে ভালো হতো। এতে শিশুরা বড়দের সহযোগিতা ছাড়াই বইটি পড়তে এবং সহজেই বুঝতে পারতো।

    সামগ্রিক দিক দিয়ে বইটিকে বেশ ভালো এবং উপকারী বই বলেই গন্য করা যায়। বইয়ের কালার কম্বিনেশনও বেশ ভালো হবে বলে আশাবাদী।

    জাতির চারিত্রিক অধঃপতনের এই দুঃসময়ে বইটি উত্তম চরিত্র গঠনের যে অনুপম পাঠ নিয়ে হাজির হয়েছে তা নিঃসন্দেহে জাতির জন্য কল্যানকর।উত্তম চরিত্রে সুবাসিত পাঠে পুরো জাতি হয়ে উঠুক সুবাসিত। বই সংশ্লিষ্ট সকলে সামগ্রিক কল্যান কামনা করি। তাদের পরিশ্রমটুকু আরশে আজীমে পৌঁছে যাক। পথহারা জাতি খুঁজে পাক উত্তম চরিত্র রাঙানো এক আলোকিত পথের দিশা।

    0 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    Sazzad Hossain:

    আখলাক বা চরিত্র হল মানুষের একটি অনন্য বৈশিষ্ট্য যা তাকে আল্লাহর অন্যান্য সকল সৃষ্টি হতে পৃথক করে ও আলাদাভাবে চেনা যায়। এই আখলাকের গুরুত্ব কত সেটা রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “ওই মুমিন ঈমানে পরিপূর্ণ যার চরিত্র সবচেয়ে ভালো” (সুনানু আবি দাউদ: ৪৬৮২, সুনানুত তিরমিজি: ১১৬২)। তাহলে বিষয়টির গুরুত্ব বুঝতে আর বাকী থাকে না। চরিত্র গঠনের উত্তম সময় ছোটবেলা। এই সময়টায় অনেক কিছু নিয়ে অনেক জিজ্ঞাসা থাকে অনেকের যা হয়ত অনেক পিতা-মাতা ব্যস্ততার কারণে সময় দিতে পারেন না। আশাকরি এটা তাদের কাজে আসবে শিশুদের তারবিয়াতে।

    ■ বইয়ের বিষয়বস্তু ও শর্টপিডিএফ পাঠানুভূতিঃ
    ১৫ পৃষ্ঠার একটি অনবদ্য পূর্ণ রঙিন খুব অল্প কথায় খুব গাম্ভীর্যপূর্ণ বিষয়ের উপস্থাপনা খুব সহজে ও স্বল্প কথায় আনা হয়ছে বইটিতে। শিশুরা অনেক বেশি কথা মনে রাখতে পারে না অনেক সময়, আবার খুব বিস্তারিত হলে আসল কথাটা হারিয়ে যায়। কিন্তু এই বইয়ে ঠিক ঔ ব্যাপারটাকে মাথায় রাখা হয়েছে যাতে মূল বিষয়টা খুব সুচারুভাবে রঙিন পাতায় পাতায় আনা যায়। শর্টপিডিএফ পড়ে খুবই ভাল লেগেছে যে আলহামদুলিল্লাহ্ আখলাকের প্রাথমিক গুরুত্ববহ সব দিকই চলে এসেছে – চরিত্রের গুরুত্ব, সংজ্ঞা, উত্তম চরিত্রের ফজিলত, ইহসান, আমানত, খিয়ানত, সততা, ধৈর্য, একে অপরকে সহায়তা, লজ্জা, দয়া, ভালবাসা, হিংসা, বিদ্রুপ, উপহাস, ধোঁকা, গীবত, পরনিন্দা, বিনয়, অহঙ্কার, অলসতা, রাগ, গোয়েন্দাগিরি, অপচয়, কার্পণ্য,ভীরুতা, বীরত্ব, জবানের হারাম চর্চা – এসব। বলতে গেলে উত্তম চরিত্রের প্রধান দিকগুলি চলে এসেছে এখানে। এসব থেকে খুব সহজেই দীক্ষা নেয়া যেতে পারে ইনশাআল্লাহ্ ।

    ■ বইটি কাদের জন্য উপকারীঃ
    বইটি শিশুদের জন্য হলেও, এটি শিশুর অভিভাবক পড়ে শিশুকে খুব ভাল করে বোঝাতে সক্ষমতা অর্জন করবে। খুব কম কথায় কিভাবে প্রকাশ করতে হয় সেটাও অভিভাবক নিজে চর্চা করে শিশুকে, সন্তানকে শেখাতে পারবে। রঙিন আর্ট পেপারে ছাপার ফলে এটি খুবই আনন্দদায়ক ও আকর্ষণীয় হবে।

    1 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    Ruponti Shahrin:

    প্রিয়নবি হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘কোনো মানুষ যদি পরিপূর্ণ ঈমানদার হতে চায়, তবে সে যেন উত্তম চরিত্র অর্জন করে।’
    উত্তম চরিত্র বলতে আমরা আখলাককে বুঝে থাকি। আখলাক হলো মানুষের মেজাজ। মূলত আদর্শবোধ, নৈতিকতা, আদব, স্বভাব, জন্মগত বৈশিষ্ট্যকে আখলাক বলে। প্রতিটি নবজাতক শিশুই ফিতরাত বা ইসলামী স্বভাব নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। তারপর তার বেড়ে ওঠার প্রতিটি ধাপে পিতামাতার লালনপালনের ছায়া প্রকাশিত হয়।
    শিশুরা আগামী দিনের কর্ণধার। তাই অভিভাবকদের সর্বদা সচেতন থাকা আবশ্যক। আজকাল শিশুর শারীরিক বিষয় এবং লেখাপড়া নিয়ে পিতামাতা যতখানি চিন্তিত, তার যৎসামান্য চিন্তাও শিশুর চরিত্র গঠন নিয়ে করেন না। অহংকার, মিথ্যা, গীবত, ধোঁকাবাজি, উদাসীনতা, বাকবিতন্ডা, মূর্খতা, হিংসা, ষড়যন্ত্র- এসব নিয়ে বেড়ে ওঠে। হৃদয়ে একসময় পিতামাতার জন্য আবেগ, অনুভুতিও লোপ পায়। হৃদয়ে মানুষের জন্য ঘৃণা ও সকল কাজে নেতিবাচক দিক খুঁজে পেতে শুরু করে।
    শিশুর আখলাকের শিক্ষায় সুন্দর গুণাবলী প্রতীয়মান হয়। চারপাশের মানুষের মাঝেও আনন্দ সঞ্চার করে। ইসলামি আকিদা, উত্তম তরবিয়ত ও রাসুল (সা) এর চরিত্রের বৈশিষ্ট্যের আদর্শে বেড়ে ওঠা শিশুর মাঝে ঈমানী দ্বীপ্তি উদ্ভাসিত হয়।
    উত্তম সন্তান হলো সাদকায়ে জারিয়া। কুরআন-হাদিসের শিক্ষা জরুরি। লোকমান (আঃ) তার পুত্রকে নসিহত করেছিলেন। আল্লাহ পাক এতই খুশি হয়েছিলেন যে, তিনি কুরআন মাজিদেও উল্লেখ করেছেন। আখলাক গঠনে পিতামাতার ভূমিকাকে আল্লাহ তায়ালা সম্মানিত করেছেন।
    তাই, আযান প্রকাশনীর এবারের আয়োজন বই –
    “শিশুদের আখলাক”
    সিরিয়ান লেখক, গবেষক, ইমাম ও খতিব – ইয়াজিন আল-গানিম রচিত, ভাই সালমান মাসরুরের অনুবাদে ইসলামি রুপরেখায় প্রশ্নত্তরে পাওয়া যাবে জানা-অজানা বিষয়ের সহজ উত্তর।
    নবজাতককে নিয়ে পিতামাতার অনেক পরিকল্পনার প্রথম ধাপ হওয়া উচিত আখলাক গঠন। এটি একটি কঠিন ধাপ। যা বাকি ধাপগুলোর বুনিয়াদ। আখলাক গড়ে দিতে পারলে বাকিগুলো আল্লাহর রহমতে উত্তম ফলাফল নিয়ে আসে।
    প্রকাশিতব্য বইটি পড়ে আমার কাছে মনে হয়েছে আখলাকের প্রাথমিক বিষয়গুলো নিয়ে বইটি লেখা হয়েছে। গুরুগম্ভীর ভাষা নেই। বইটি অনুবাদ করাই হয়েছে শিশু থেকে অভিভাবক সকলেই যেন উপকৃত হতে পারে। শর্ট পিডিএফ থেকে ধারণা করা যায় ৩০টির মত প্রশ্নের উত্তর বইটিতে দেওয়া আছে।
    অনুবাদের পাশাপাশি হাদিস ও আয়াতের তাখরিজ সংযোজন করা হয়েছে বলেই অনুবাদকের অভিমত। কিন্তু বইটি প্রকাশের পরই তা বিশ্লেষণযোগ্য। সুচীপত্রের বাইরে দুটি নমুনা প্রশ্নের উত্তর দেখলাম। খুবই সংক্ষিপ্তাকারে সংযোজিত। শিশুদের কৌতুহল পুরণে অভিভাবকের ব্যাসিক ইসলামি জ্ঞান থাকা আবশ্যক। অনুবাদকের সাবলীল লেখার মাঝে আঞ্চলিকতার টান স্পষ্ট। কিছু জায়গায় বানান ভুল চোখে পড়ার মতো।
    আশা করছি ভুলত্রুটি শুধরে নিয়ে বইটি প্রকাশিত হবে। বরাবরের ন্যায় পাঠকপ্রিয়তা পাবে।
    1 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    ফাবিহা বিনতে কাশেম:

    কথায় আছে – ‘ব্যবহারেই বংশের পরিচয়’
    অর্থাৎ, মানুষের আচার-ব্যবহার বা আখলাক-আকিদাই তার বংশগত,পরিবারিক আভিজাত্য কিংবা অনাভিজাত্যকে তুলে ধরে। আর প্রতিটি মুমিনের জীবনে উত্তম আখলাকের গুরুত্ব অপরিসীম। উত্তম আখলাক ব্যতীত কেউ পূর্ণাঙ্গ মুমিন হতে পারেনা। মানুষের উত্তম চরিত্র বা আখলাক গঠনের প্রথম শিক্ষাই আসে পরিবার থেকে। আর এর বীজ বপনের কাজ শুরু হয় শৈশব থেকেই। এই বীজ বপনের কাজটি আরও সুচারুরূপে কিভাবে সম্পন্ন করা যায় তারই সহায়িকা হিসেবে আযান প্রকাশনী পাঠকদের সমীপে পেশ করতে যাচ্ছে ‘প্রশ্নোত্তরে শিশুদের আখলাক’।

    🍁 সকল মানবশিশুই একটি ফিতরাত নিয়ে দুনিয়াতে আসে। বেড়ে উঠার বিভিন্ন পর্যায়ে পারিবারিক,সামাজিক আচরণবিধি বা উপাদানগুলোর মাধ্যমে প্রভাবিত হয়। মা-বাবাই একটি শিশুর প্রথম ও প্রধান আশ্রয় এবং শিক্ষক। তাদের লালন পালন এবং শিক্ষাই শিশুর জন্মগত ফিতরাত কে বিকশিত করে। সুতরাং, মা-বাবার দায়িত্বশীলতার উপরই নির্ভর করে শিশুর আখলাক কিরূপ হবে। উম্মাহর প্রতিটি শিশু আল্লাহ রাব্বুল আল-আমীনের পক্ষ থেকে পিতামাতার জন্য রহমত এবং একই সাথে আল্লাহর আমানত। তাদের দ্বীনি ইলম প্রদান করা ও উত্তম আখলাকের অধিকারী করে গড়ে তোলা আল্লাহর তরফ থেকে সকল অভিভাবকদের উপর অর্পিত কর্তব্য। এই কর্তব্যে উদাসীনতা প্রদর্শন করে আল্লাহর তা’আলার আমানতের খেয়ানত করলে প্রত্যেক মা-বাবাকে অবশ্যই আল্লাহর কাছে জবাবদিহি করতে হবে। কিন্তু হাল আমলের অধিকাংশ মা-বাবাই এই বিষয়ে উদাসীন। সন্তানের কাছ থেকে তারা উত্তম আখলাক প্রত্যাশা করেন ঠিকই; এজন্য যে তাদের সচেষ্ট হওয়া প্রয়োজন সেটা তারা ভুলে যান। আযান প্রকাশনীর প্রকাশিতব্য ‘প্রশ্নোত্তরে শিশুদের আখলাক’ বইটি তাদেরকে সচেতন করে তুলবে তাদের কর্তব্য সম্পর্কে। যদিও বইটি শিশুদের জন্য কিন্তু মা-বাবাও এখানে নির্দেশনা পাবেন, ইনশাআল্লাহ। শিশুরা কাঁচা মাটির মত। তাদেরকে যে ছাঁচে ফেলে লালন-পালন করা হবে ঠিক তেমনিভাবে তারা বেড়ে উঠবে। শিশুরা অনুকরণপ্রিয় এবং যে কোন জিনিস আয়ত্ত্ব করে অতি সহজেই। তাই ‘প্রশ্নোত্তরে শিশুদের আখলাক’ বইটি তাদের হাতে তুলে দিলে তাদের কচিমনে অনায়াসেই সত্যের আলো প্রবেশ করবে। জিজ্ঞাসা জিজ্ঞাসায় তারা জেনে নেবে আখলাকের মৌলিক বিষয়গুলো। তারা বেড়ে উঠবে উত্তম ইনসাফ,সত্যবাদিতা,হায়া,ক্ষমাশীলতা,জবানের হেফাজত আর তাওবার গুণাবলী আয়ত্ত্ব করে।

    🍁 আশা করা যায় বইটি শিশুদের প্রবল আগ্রহ সৃষ্টি করবে। ছোট্ট সোনামনিদের আকৃষ্ট করার জন্য মিষ্টি একটি প্রচ্ছদ ব্যবহার করা হয়েছে। আরও রয়েছে হরেক রকমের ছবি আঁকা রঙিন পৃষ্ঠা। প্রায় ৩০টি ছোট প্রশ্নের উত্তরে সাজানো হয়েছে বইটি ।

    এই বইটি হতে পারে আপনাদের ঘরের ছোট্ট সোনামনিদের জন্য শ্রেষ্ঠ উপহার। হতে পারে তাদের আখলাকে হামীদা গঠনের প্রথম সোঁপান। তবে আর অপেক্ষা কিসের…

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 4 out of 5

    Amit Hasan:

    আখলাক তথা স্বভাব বা চরিত্র বা ব্যবহার একটি মানবীয় গুণ। প্রতিটি বস্তুর যেমন ভালো মন্দ থাকে ঠিক তেমনি মানব চরিত্রের ও ভালো মন্দ দিক বিদ্যমান। মুসলিম হিসেবে আমাদের উচিত ভালো চরিত্রে গুণান্বিত হওয়া এবং মন্দ সর্বদাই পরিতাজ্য। শিশুরা অনুকরণপ্রিয়। ছোট থেকে তারা যা দেখবে ও শিখবে তাই তারা বড় হয়ে নিজেদের মধ্যে ধারণ করবে। কথায় আছে, মানুষের চরিত্রই তার বংশের পরিচয়। তাই শিশুদের সৎ চরিত্রের সাথে গড়ে তুলতে পিতা-মাতার গুরুত্ব হবে অপরিহার্য। এই সৎ চরিত্র আবার অনেক গুলো মানবীয় গুণের সমষ্টি। শিশুদেরকে কোন কোন গুণে গুণান্বিত করলে সৎ চরিত্র তথা উওম আখলাকের অধিকারী হবে এবং কোন গুণগুলো পরিহার করা উচিত সেগুলোই প্রশ্নোত্তরে তুলে ধরা হয়েছে প্রকাশীতব্য বই “প্রশ্নোত্তরে শিশুদের আখলাক” এ।

    ■ বইটিতে যা থাকবে-

    বইটির ১৫ পৃষ্ঠার শর্ট পিডিএফ পর্যালোচনা করে ও সূচিপত্র বিশ্লেষণে দেখা যায়, একটি শিশুর উওম চরিত্র অর্জন করতে যে গুণ গুলো তার মধ্যে ধারণ করা প্রয়োজন যেমন- ইহসান, আমানত, সততা ,পারস্পরিক সহযোগিতা, হায়া বা লজ্জা, রহমত বা দয়া, ভালোবাসা, বিনয়, বীরত্ব ইত্যাদি। এই গুণগুলোর প্রকারভেদ বা ধরন, এই গুণ গুলোর বিপরীত গুণ যা শিশুকে মন্দ আচরণে প্রভাবিত করতে পারে যেমন- হিংসা, অহংকার, গিবত, পরনিন্দা, ঠাট্টা বিদ্রুপ, গোয়েন্দাগিরি, অলসতা, রাগ, অপচয় ও কার্পণ্য, ভীরুতা ইত্যাদি এগুলোর ধরন ও প্রকারভেদ সহ উওম চরিত্রের গুরুত্ব ৩০ টি প্রশ্নোত্তরে আলোকে বইটিতে আলোকপাত করা হয়েছে।

    ■ বইটির প্রয়োজনীয়তা-

    বইটি প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। বইটি পাঠের মাধ্যমে বইটির আলোচ্য উওম গুণ গুলো যদি একটি শিশু ছোট থেকেই শিক্ষা লাভ করে তাহলে সে উওম চরিত্রের অধিকারী হতে পারবে। পাশাপাশি মন্দ গুণ গুলো জানার মাধ্যমে সে সেগুলোকে পরিত্যাগ করে চলতে পারবে ইনশাআল্লাহ।

    ■ বইটি কাদের জন্য-

    বইটি মূলত শিশুদের জন্য। রঙিন আর্ট পেপারে হওয়ায় শিশুদের কাছে বইটি বেশ আকর্ষণীয় হবে। বইটি মূলত শিশুদের জন্য হলেও বড়রাও বইটি পাঠের মাধ্যমে তাদের আখলাককে ঝালিয়ে নিতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top