মেন্যু
pracyabad o kuran

প্রাচ্যবাদ ও কুরআন

প্রকাশনী : চৈতন্য
পৃষ্ঠা : 88, কভার : হার্ড কভার, সংস্করণ : 1st published 2022
আইএসবিএন : 9789849608189
মহাগ্রন্থ আল কুরআন নিয়ে প্রাচ্যবিদদের সংশয় ও আপত্তি গুরুতর। বিস্তর অধ্যয়ন ও উন্নত বুদ্ধিবৃত্তির অধিকারী প্রাচ্যতাত্ত্বিক পণ্ডিতগণ তাদের গবেষণা ও রচনাসমূহে আল কুরআনকে নানাভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন। এসব প্রশ্ন ও আপত্তির... আরো পড়ুন

Out of stock

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

3 রিভিউ এবং রেটিং - প্রাচ্যবাদ ও কুরআন

5.0
Based on 3 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published.

  1. 5 out of 5

    ইমতিয়াজ আফেন্দী:

    রিভিউ করেছেন রাসেদ

    আমরা জানি, কুরআন বিশ্বনবীর প্রতি জিব্রীল মারফত আল্লাহর পক্ষ থেকে প্রেরিত ওহীর সংকলন। ‘ওহী’ শব্দের বাংলা রূপায়ন বহি আর বহি মানে বই। সে অর্থে কুরআনও একটি বই। কিন্তু এই বই আর আমাদের অন্য সব বই এক নয়; এ দুইয়ের মাঝে প্রভেদ আসমান ও জমিনের। হু, একেবারে আক্ষরিক অর্থেই।

    কুরআনের স্রষ্টা খোদ ‘স্রষ্টা’ আল্লাহ তাআলা। আর তামাম দুনিয়ার বাকি সব বইয়ের রচয়িতা আমরা ‘সৃষ্টিকুল’। কুরআন সন্দেহের ঊর্ধ্বে, ভুলের ঊর্ধ্বে। আর আমরা, আমাদের বইগুলো ভুলের ঊর্ধ্বে নয়; বরং ভুলই আমাদের স্বভাব-বৈশিষ্ট। তাই সাধ্যমতো চেষ্টার পরও আমাদের বইগুলোতে ভুল থেকে যাওয়া বিচিত্র কিছু নয়।

    এ কারণেই আমাদের বইগুলোর ভুমিকা বা প্রারম্ভিকায় ‘ভুলগুলো পাঠক ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন!’ বা ‘ভুলগুলো সম্পর্কে আমাদের অবহিত করলে আগামী সংস্করণে শুধরে নেওয়ার প্রয়াস পাবো, ইনশাআল্লাহ।’ ইত্যাদি কমন একটা ব্যাপার লিখে দিতে হয়। পক্ষান্তরে কুরআনের শুরুতে আল্লাহ পাকের স্পষ্ট ঘোষণা ‘যালিকাল কিতাব, লা রইবা ফীহ’—এতে কোনোপ্রকার সন্দেহ-সংশয়ের অবকাশ নেই।

    তবুও কিছু পশ্চিমা পণ্ডিত, যাদের বলা হচ্ছে প্রাচ্যবাদী, তাদের সংশয় এই কুরআন নিয়ে, কুরআনের মৌলিকতা ও সত্যতা নিয়ে। জ্ঞান ও বুদ্ধিবৃত্তির চর্চার নামে লিখনীর মাধ্যমে তারা তাদের সংশয় ছড়িয়ে দিতে চায়, আমাদেরকে সন্দিহান করে তুলতে চায় কালামুল্লাহ সম্পর্কে। যেনো তাদের দল ভারী হয়!

    দুঃখজনক হলেও সত্য যে, পশ্চিমা শিক্ষায় শিক্ষিত কিছু ‘বিবেকবান মুসলিমও’ তাদের লেখায় প্রভাবিত হন, হন প্রতারিত। সন্দেহাতীত কুরআন নিয়ে তারা সংশয়ে পড়েন তাদের লিখনী পড়ে, তারা সন্দেহে নিপতিত হন ওদের অমূলক দাবি ও ধারণার উপর দাঁড় করানো কিছু অপযুক্তির প্রলাপ শুনে।

    কারা এই প্রাচ্যবাদী? কুরআন নিয়ে কী কী তাদের সংশয়? তাদের সংশয়ের ভিত্তিই বা কতটুকু? কেনো তারা তাদের সংশয় ছড়িয়ে দিচ্ছে? ভিত্তিহীন দাবিদাওয়ার বাজার বসাচ্ছে? আসলে কী চায় তারা? এমনতরো কিছু প্রশ্নের জবাব ও বোঝাপড়া উঠে এসেছে তরুণ লেখক ও গবেষক Kazi Akram-এর কলমে। তার পরিশ্রমী অধ্যয়ন ও সত্যানুসন্ধানী পর্যালোচনার সামষ্টিক গ্রন্থরূপ ‘প্রাচ্যবাদ ও কুরআন’। যাতে প্রাচ্যবাদের ইতিবৃত্ত, চরিত্র, কর্মধারা এবং মোকাবিলাও বিধৃত হয়েছে অত্যন্ত সারগর্ভ ও সাবলীল বয়ানে।

    আমাদের বিশ্বাস, বইটি পড়লে তাদের তথাকথিত যুক্তিগুলোর ‘ফাঁক ও ফাঁকি’ পরিষ্কার হয়ে যাবে আপনার কাছে। অন্তত বস্তুনিষ্ঠতার দাবিদার বুদ্ধিবৃত্তির মোড়কে পরিবেশন করা তাদের বক্তব্য ও বয়ানগুলো আর ‘প্রশ্নাতীত’ এবং ‘পক্ষপাতমুক্ত’ বলে মনে হবে না আপনার।

    নির্ঝর দা’র নান্দনিক প্রচ্ছদে এবং সুনিপুণ বাঁধাইয়ে বইটি বেরিয়েছে সিলেটের চৈতন্য প্রকাশন থেকে।

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    নাসিম:

    ‘প্রাচ্যবাদ ও কুরআন’ বইটির গায়ে লেখা আছে প্রকাশকাল ফেব্রুয়ারি ২০২২। মজার ব্যাপার হচ্ছে জানুয়ারিতেই বইটি খতম করে ফেললাম।আলহামদুলিল্লাহ!

    বইটির বিষয় জটিল ও কঠিন হলেও ভাষা সহজ ও সাবলীল। লিখেছেন কাজের কাজী মুহতারাম কাজী একরাম ভাই। আল্লাহ তায়া’লা তাঁর ইলম ও হিকমায় আরও বারাকাহ দান করুন।

    বলতে গেলে প্রাচ্যবাদ সম্পর্কে বাংলায় মৌলিক কাজ কম হয়েছে। আশা করি বইটি এ শূন্যতা পূরণে সক্ষম হবে। প্রজন্মের চিন্তার জাগরণ ঘটবে এর হাত ধরে। কুরআন সম্পর্কে প্রাচ্যবাদীদের আপত্তি নিরসনে বইটিতে অত্যন্ত মৌলিক আলোচনা করা হয়েছে। এ বিষয়ক প্রাথমিক পাঠকদের জন্য বইটি অত্যন্ত উপকারী হবে… ”

    Poet Ahmad Burhanuddin

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    Hasan Moinuddin:

    প্রাচ্যবাদ পশ্চিমের একটি চিন্তাপ্রকল্প ; এর কর্মসূচি বহুবিস্তৃত এবং লক্ষ্য বহুবিধ । ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে প্রাচ্যবাদের লক্ষ্য হচ্ছে, ইসলাম ও মুসলিম জীবনের বহুমুখী অধ্যয়ন ও অনুশীলনপূর্বক এর উপর পাশ্চাত্যের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করা এবং ইসলামের উপর আপত্তি ও অভিযোগ উত্থাপনের মাধ্যমে ইসলামের হেয়ত্ব এবং খৃষ্টবাদের শ্রেয়ত্ব প্রতিপাদন করা ও ইসলাম থেকে মুসলমানদের বিমুখ ও আস্থাহীন করে তোলা । ক্রুসেড যুদ্ধে মুসলিমদের হাতে খ্রিস্টশক্তির লাঞ্ছনাকর পরাজয়ের প্রতিশোধ স্পৃহা থেকেই এর চর্চা ও প্রয়াস প্রকটভাবে লক্ষিত হয়েছে । প্রাচ্যবিদরা ইসলামকে বিশেষ দৃষ্টি ও গুরুত্বের সাথে নিজেদের চর্চা ও গবেষণার বিষয় করে নেয় এবং স্বাভাবিকভাবেই তাদের প্রধান টার্গেট হয় আল -কুরআন । নির্দিষ্ট লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে বিবেচনায় রেখে পবিত্র কুরআনের বিভিন্ন বিষয়ের উপর লেখনী ধারণ করে তারা । নানা দাবি ও আপত্তি উত্থাপন করে । বলা বাহুল্য, কুরআন মাজীদ সম্পর্কে তাদের এজাতীয় দাবি ও আপত্তি নেহায়েত অনৈতিহাসিক, অযৌক্তিক এবং অবশ্যই উদ্দেশ্যমূলক ।

    মুসলিম পণ্ডিত ও গবেষকগণ প্রাচ্যবিদদের ছড়ানো এসকল বিভ্রান্তি , বিচ্যুতি এবং মুসলিম সমাজে এর মন্দ- প্রভাব সম্পর্কে অবগতি ও সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে এযাবৎ কার্যকর তৎপরতা প্রদর্শন করে আসছেন । এ- সবের জবাবে আঞ্জাম পেয়েছে অ্যাকাডেমিক নন -অ্যাকাডেমিক পর্যায়ে প্রভূত কাজ । বিশেষত আরবি ভাষায় প্রচুর মূল্যবান কাজ হয়েছে । হয়েছে উর্দু ভাষায়ও । বর্তমান বইয়ে পবিত্র কুরআন নিয়ে প্রাচ্যবিদদের খেয়াল-চিন্তা, দাবি -অভিযোগ এবং তার পর্যালোচনা ও সত্যাসত্য বিচার উপস্থাপনের চেষ্টা করা হয়েছে। প্রসঙ্গত আনতে হয়েছে প্রাচ্যবিদ্যার পরিচয়মূলক প্রয়োজনীয় ইতিবৃত্ত । এসেছে প্রাচ্যবিদদের চরিত্রের নানাদিক এবং একই সঙ্গে প্রস্তাবিত হয়েছে মুক্তি ও মোকাবিলায় আমাদের করণীয় কর্তব্য ।

    বাংলা ভাষায় এ বিষয়ে স্বতন্ত্র ও উল্লেখযোগ্য কাজের অভাব বিবেচনায় ‘প্রাচ্যবাদ ও কুরআন’ গ্রন্থখানি পাঠকদের পক্ষে দরকারি এবং ফলপ্রসূ প্রমাণিত হবে বলে আশা করি ।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top