মেন্যু
ondhokar theke alote

অন্ধকার থেকে আলোতে

পৃষ্ঠা: ১৯০ বাংলাদেশে অনলাইনে ইসলামবিদ্বেষ ছড়ানো হচ্ছে বহু আগে থেকে। সে তুলনায় নাস্তিক-ইসলামবিদ্বেষীদের জবাব দেয়ার ধারাটা নতুন। যদিও আরো আগে থেকেই এর শুরু, কিন্তু এতে জোয়ার এসেছে ২০১৬ ও ২০১৭ সালে।... আরো পড়ুন

Out of stock

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

4 রিভিউ এবং রেটিং - অন্ধকার থেকে আলোতে

4.5
Based on 4 reviews
5 star
50%
4 star
50%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published.

  1. 5 out of 5

    Mst Halima Akter:

    বইটা পড়ে বুঝলাম যে, লেখক বইটা লিখতে গিয়ে অনেক গবেষণা করেছেন। অর্থাৎ, বইটা একটা গবেষণাধর্মী বই। ১৮১ পৃষ্ঠার এই বইটিতে লেখক মোট ৩১০ টা রেফারেন্স দিয়েছেন। আর রেফারেন্সের সোর্সগুলোও যথেষ্ট গ্রহণযোগ্য।

    ইসলাম নিয়ে তরুণ লেখকদের এরকম গবেষণাধর্মী বই আমি এখনো পড়িনি, সেই হিসেবে লেখকের প্রতি কৃতজ্ঞ এরকম একটা বই পাঠককে উপহার দেবার জন্য।

    বইটিতে লেখক ইসলামের বিরুদ্ধে উত্থাপন করা প্রশ্নগুলো মূল সোর্স থেকে তুলে এনেছেন। অর্থাৎ, বঙ্গদেশীয় নাস্তিকদের/ইসলামবিরোধীদের আপত্তি গুলোর মূল সূত্র হলো খ্রিষ্টান মিশনারি। তাদের শিখিয়ে দেওয়া প্রশ্নগুলো এদেশীয় নাস্তিকরা করে অনেকটা একচোখা নীতি অবলম্বন করে।

    যেমন তারা ধরেই নেয়, বাইবেলে যা বলা আছে তা সত্য আর কুরআনে যা বলা আছে তা ভুল। কুরআনের কোনো তথ্যের সাথে বাইবেলের কোনো তথ্য মিলে গেলে তারা চিৎকার দিয়ে বলে, কুরআন বাইবেল থেকে কপি করা (নাউজুবিল্লাহ)। আবার বাইবেলের কোনো তথ্যের সাথে কুরআনের অমিল থাকলে তখন তারা বলে বাইবেলেরটা সত্য কিন্ত কুরআনেরটা মিথ্যা।

    এরকম একচোখা লোকগুলোর প্রশ্নের উত্তরগুলো লেখক বইতে তুলে ধরেছেন কুরআন, বাইবেলের উদাহরণের মাধ্যমে।

    বইটা পড়ে বুঝলাম, লেখকের বাইবেল সম্পর্কেও ভালো ধারণা আছে। যার ফলে বিভিন্ন ঐতিহাসিক বর্ণনায় কুরআন আর বাইবেলের মতামত কি এবং কোনটা শেষপর্যন্ত সত্য বলে প্রমাণিত হয়েছে সেই বিষয়টা সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে পেরেছেন।

    আমি প্রতি সপ্তাহে দু-তিনটে ডকুমেন্টারি ভিডিও দেখার চেষ্টা করি। একবার ল্যাপটপে ‘সেই পবিত্র শহর’ নামে একটা ডকুমেন্টারি ডাউনলোড করে রেখেছিলাম। সময়-সুযোগের অভাবে ভিডিওটা আর দেখা হয়নি।

    কয়দিন আগে এক ভাই আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, এই ভিডিওটা দেখেছি কিনা। আমি ‘না’ বলায় উনি ভিডিওটির কিছু প্রপোগান্ডা আমাকে বলেন। তারমধ্যে একটা ছিলো কা’বা ঘর নিয়ে। তখন আমি এটার উত্তর জানতাম না।

    পরদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জিওগ্রাফি ডিপার্টমেন্টের কিছু ভাইয়ের কাছ থেকে উত্তরটা জানতে পারলাম। তাদের উত্তর শুনে আমি মোটামুটি ৮০ ভাগ সন্তষ্ট হলাম, বাকি ২০ ভাগ সন্তষ্ট হলাম এই বইয়ের মাত্র একটা ইনফরমেশন পড়ে।

    “সরলরৈখিকভাবে কিবলা থেকে বিচ্যুতির পরিমাণ সর্বোচ্চ ৪৫ ডিগ্রি হতে পারে।”

    ‘সেই পবিত্র শহর’ নামক ভিডিওটিতে যেসব প্রপোগান্ডা ব্যবহার করা হয়েছে তা আমার মনে হউ, কম জানা কোনো মানুষ দেখলে বিভ্রান্তির শিকার হতে পারে। কিন্ত বইটিতে তথ্যবহুল যুক্তি উপস্থাপনের মাধ্যমে লেখক এই ভিডিওটির এসব প্রপোগান্ডার এমনভাবে উত্তর দিয়েছেন যে, এখন আবার এই ভিডিওটি দেখলে অনেকটা ‘Funny Video’ -র মতো লাগবে!

    কুরআনে বর্ণিত হামান নিয়ে কয়েকদিন ধরে জানার চেষ্টা করছি। এই বইটা পড়ে সেই জানার পিপাসা অনেকাংশেই মিটেছে। লেখক এখানে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সূত্র থেকে তথ্য সংগ্রহ করে বিষয়টা বুঝিয়েছেন।

    পরিশেষেঃ
    বইটিতে নাস্তিকদের উত্থাপিত প্রশ্নের জবাব না বলে খ্রিষ্টান মিশনারিদের উত্থাপিত প্রশ্নের জবাব বলাটা আমার কাছে মনে হচ্ছে যুক্তিপূর্ণ হবে।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    codeoflife:

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভাল_লাগা_ সেপ্টেম্বর_ ২০২০

    *বইঃ অন্ধকার থেকে আলোতে
    *লেখকঃ মুহাম্মদ মুশফিকুর রহমান মিনার
    *প্রকাশনীঃ সমর্পণ প্রকাশন
    * পৃষ্ঠাঃ ১৯০
    *মূল্যঃঃ ২৭৫ টাকা (৩০% ছাড়ে ১৯২ টাকা)

    _________________

    ১৯০ পৃষ্ঠার বইটিতে ৩৪৮ টি reference দিয়েছেন। বুঝতে কষ্ট হবে না, যে লেখক অনেক গবেষণা করে বইটি লিখেছেন। পবিত্র কুরআন,হাদিস,তাফসির,বাইবেল এমনকি অনেক non Muslim ও secular source থেকে তিনি reference দিয়েছেন। বইটি মূলত ইসলাম সম্পর্কে খ্রিস্টান মিশনারী ও নাস্তিক মুক্তমনাদের অভিযোগ authentic source এর reference এর মাধ্যমে খন্ডন করা হয়েছে এবং সাথে দেয়া হয়েছে দাঁতভাঙা জবাব।

    ___________________

    বইটিতে মুহাম্মদ (সাঃ) এর নবুয়তের উপর নাস্তিক মুক্তমনারা যে অনাস্থা পোষণ করা হয়েছে তার জবাব দেয়া হয়েছে। ইসলাম যে প্রশ্ন করতে উৎসাহিত করে তাও এখানে সুন্দর করে বলা হয়েছে। নবী মুসা (আঃ) ও ফিরাউনের সহচর হামান সম্পর্কে কুরআনে যা বর্ণিত হয়েছে তাকে যেসব খ্রিস্টান মিশনারীরা মিথ্যা বলে তার উচিৎ জবাব দিয়েছেন লেখক। কুরবানির জন্য যে ইসমাইল (আঃ) কে নেওয়া হয়েছে তাকেও অনেক খ্রিষ্টান মিশনারিরা মিথ্যা বলে থাকে, হাস্যকর। লেখক এই অভিযোগেরও দাঁতভাঙা জবাব দিয়েছেন। কাবা কে নিয়ে তারা যে অভিযোগ করে তার জবাবও তিনি দিয়েছেন। গর্ভের সন্তান কী হবে তা কি একমাত্র আল্লাহই জানেন?এই অংশে লেখক খুব সুন্দর করে জবাব দিয়েছেন। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এর জন্ম, মৃত্যু নিয়ে তারা যে অপপ্রচার চালায় তার উপযুক্ত জবাব ও লেখক দিয়েছেন। কুরআনে বর্ণিত উত্তরাধিকার আইনের যৌক্তিকতা নিয়ে খুব সুন্দর একটা লেখা লিখেছেন। হজ্জকে যারা পৌওলিকতার মতো মনে করে তাদেরও লেখক জবাব দিয়েছেন।বইটির শেষে এক ইহুদি পন্ডিতের সাথে লেখকের কথোপকথন রয়েছে, যেখানে ইহুদি পন্ডিত শেষমেশ পালিয়েছে জবাব দিতে না পেরে।

    ______________________

    নাস্তিক মুক্তমনাদের লক্ষ্য, একজন মুসলমানের জীবনে সবচেয়ে দামি সম্পদ ঈমানকে ছিনিয়ে নেওয়৷ আমাদের জীবনটাকে উদ্দেশ্যহীন বানিয়ে ফেলা। অন্ধকার জগতের সেই ডাকুদের বিরুদ্ধে এই ক্ষুদ্র এক প্রচেষ্টা মাত্র। যেন ঈমানদাররা তাদের হীনমন্যতা ঝেড়ে ফেলে উজ্জীবিত হয়ে ওঠে।

    ____________________
    এই বইটি পড়লে অবচেতন মনেই লেখকের জন্য মন থেকে দোয়া বের হয়।
    যারা পড়তে ভালোবাসি, তাদের ঘরে এই “অন্ধকার থেকে আলোতে” সিরিজের বইগুলো পড়া উচিত যাতে খ্রিস্টান মিশনারী বা নাস্তিক মুক্তমনারা কোনো প্রশ্ন করলে দাঁতভাঙা জবাব দিতে পারি। আল্লাহ এই বইয়ের লেখকের লেখায় বারাকাহ দান করুন,আমিন।

    ________________

    🔥রিভিউ লেখকঃ Abdullah Mohammad

    1 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 4 out of 5

    nazmul:

    goood
    1 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 4 out of 5

    মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন:

    সম্ভবত অসাধারণ একটা আলোর সন্ধান পেতে চলেছি।
    2 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No