মেন্যু
nobi jiboner surovito path

নবী জীবনের সুরভিত পাঠ

পৃষ্ঠা : 300, কভার : হার্ড কভার
কালের কপোলতলে‌ অগণন মানুষের আগমন- নির্গমনে মুখরিত পৃথিবী। ব্যস্ততম পৃথিবীতে কিছু মানুষ এঁকে যান নিজের স্মৃতিচিহ্নের স্বাতন্ত্র্য পরিচয়। তাদের অসাধারণ গুণপনাময় কর্মযজ্ঞ পৃথিবীতে যোগপরম্পরায় ধিকি ধিকি আলো জ্বেলে যায়। সেই... আরো পড়ুন
পরিমাণ

292  400 (27% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

28 রিভিউ এবং রেটিং - নবী জীবনের সুরভিত পাঠ

4.9
Based on 28 reviews
5 star
85%
4 star
14%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    জীবন মাহমুদ:

    #ইসলামিক_বই_পরিচিতি_প্রিভিউ_প্রতিযোগিতা_হাসানাহ-১

    প্রিভিউ

    বই:নবী জীবনের সুরভিত পাঠ
    —-_——————_————-

    সিরাহ। শব্দটি শুনলেই মনের ভিতর একটা ভালো লাগা কাজ করে। আর সেই সিরাহ বই যদি হয় প্রিয় লেখকের তাহলে সেটা পড়তে কেমন অনুভূতি হতে পারে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা।এই বই পড়ে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর আদর্শ কিভাবে আঁকড়ে ধরা যায় তা নিয়েই প্রিয় লেখক সাইদ ইবনে আলী আল কাহত্বানী-র বই–“নবী জীবনের সুরভিত পাঠ”❒ পাঠ্যানুভূতি—
     ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄
    বইটা যখন পড়ছিলাম তখন আকাশটা গোমরা মুখো করে ছিলো বাইরে বৃষ্টি হচ্ছিল থেমে থেমে । কখনো মুষলধারে, কখনো বা গুড়িগুড়ি । বৃষ্টি বিলাস আর বইয়ের লেখাগুলো আমার হৃদয় রাজ্যে একটা অদ্ভুত মোহময় পরিবেশ সৃষ্টি করেছিল ৷ বইয়ের প্রতিটা লাইন থেকে যেন মুক্তো ঝরছিল ।লেখকের লেখনি শক্তি আমার হৃদয়কে আন্দোলিত করেছিল । বিশেষ করে “নবীজীর ইবাদাত ও জিহাদ” শিরোনামের লেখাটা হৃদয়ের ভিত নাড়িয়ে দিয়েছে। বইটির ভাষা সম্পাদনা দুটোই চমৎকার হয়েছে । শব্দচয়ন আর সাবলীল বাক্যগঠনে বইটি হয়ে উঠেছে মনোমুগ্ধকর । যেন সাহিত্যের পসরা সাজানো হয়েছে বইয়ে ।
    কেন পড়বেন–
    —–_——_—–
    প্রত্যক মানুষকে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে, আখিরাতে কি নিয়ে আল্লাহর মুখোমুখি হবেন এবং সেই মহানবী (স:) শাফায়াত কিভাবে পাবেন যদি না তির সিরাত পড়ে সেই অনুযায়ী আমল করতে না পারেন। আমরা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে জ্ঞানের থেকেও বেশি ভালোবাসি অথচ খুব কম ব্যক্তি আছে তার জীবনী গ্রন্থ পড়েছে। রাসূল (স:) এর জীবনে ঘটে যাওয়া জানা অজানা ঘটনা জানতে বইটা পড়ে আপনাকে অবশ্যই পড়তে হবে। বইটি পড়তে গিয়ে একজন গাফিল বান্দা সংবিৎ ফিরে পাবে । তাই দিনকে অবহেলা আর অলসতায় কাটাতে না চাইলে বইটি অবশ্যই পড়া উচিত । কিভাবে নিজের মনকে প্রশান্ত করতে পারেন, সুন্নাতের চাদরে মুড়ে কিভাবে অনন্য উচ্চতায় পৌছতে পারেন সে অনুপ্রেরণা খুঁজে পাবেন । মোটকথা, এই সিরাত বইটা যে কতোটা গুরুত্বপূর্ণ পাঠকরা এই বইটা পড়ে তা উপলব্ধি করতে পারবে।
    বইঃ নবী জীবনের সুরভিত পাঠ(রাহমাতুল্লিল আলামিন)
    লেখকঃ শাইখ সাঈদ ইবনে আলী আল ক্বাতহানী
    অনুবাদকঃ উবাইদ উসমান
    প্রকাশনাঃ হাসানাহ পাবলিকেশন
    মূল্যঃ ৪০০৳
    পৃষ্ঠাঃ ৩০০

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    Muhammad Umar Ahmad:

    #ইসলামিক_বই_পরিচিতি_প্রিভিউ_প্রতিযোগিতা_হাসানাহ_১
    বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম

    📜শুরুর কথাঃ
    সমস্ত প্রশংসা মহান আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লার। লক্ষ কোটি দরুদ ও সালাম বর্ষিত হোক আমাদের নবী হযরত মুহাম্মাদ (সা), তার পরিবার ও সাহাবীদের উপর। আল্লাহর রাসুল (সা) হলেন আমাদের জন্য উত্তম আর্দশ। তিনি হলেন উসওয়াতুন হাসানাহ। তিনি হলেন সমগ্র বিশ্বের জন্য রহমত স্বরুপ। মহান আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা ইরশাদ_
    Al-Anbiya 21:107

    وَمَاۤ اَرْسَلْنٰكَ اِلَّا رَحْمَةً لِّلْعٰلَمِيْنَ

    আর আমি তো তোমাকে বিশ্ববাসীর জন্য রহমত হিসেবেই প্রেরণ করেছি।

    তার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের বিররণ ও আমরা কুরআন থেকে পাই। তিনি আরো বলেছেন_
    Al-Qalam 68:4

    وَاِنَّكَ لَعَلٰي خُلُقٍ عَظِيْمٍ

    আর নিশ্চয় তুমি মহান চরিত্রের উপর অধিষ্ঠিত।

    তাকে প্রেরণ করেন আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা তার রাসুল প্রেরণের সমাপ্ত ঘোষণা করেছেন। প্রত্যেক মুসলিমের জন্য তিনি হলেন একমাত্র উত্তম আর্দশ। আমাদের পরকালে নাজাতের জন্য তার পূর্ণ অনুসরণ করা আবশ্যক। কারণ আমরা তার দাওয়াতী মিশনের অন্তর্ভুক্ত।
    মহান আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা পবিত্র কালামে পাকে বলেছেন ___
    Al-Ahzab 33:21

    لَقَدْ كَانَ لَكُمْ فِيْ رَسُوْلِ اللّٰهِ اُسْوَةٌ حَسَنَةٌ لِّمَنْ كَانَ يَرْجُوا اللّٰهَ وَالْيَوْمَ الْاٰخِرَ وَذَكَرَ اللّٰهَ كَثِيْرًا ؕ

    অবশ্যই তোমাদের জন্য রাসূলুল্লাহর মধ্যে রয়েছে উত্তম আদর্শ তাদের জন্য যারা আল্লাহ ও পরকাল প্রত্যাশা করে এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করে।

    আয়াত থেকে একটা বিষয় সহজেই অনুমেয় যারা আল্লাহ ও পরকালে বিশ্বাস রাখে,ও আল্লাহকে বেশি স্মরন করে, তাদের জন্যই আল্লাহর রাসুল (সা) একমাত্র উত্তম আর্দশ। কারণ সবচেয়ে পবিত্র উত্তম বানী হচ্ছে মহান আল্লাহর কালাম, আর সবচেয়ে উত্তম আর্দশ হচ্ছে রাসুল (সা) এর আর্দশ।
    অন্যত্র আল্লাহ বলেন___
    Aal-e-Imran 3:31

    قُلْ اِنْ كُنْتُمْ تُحِبُّوْنَ اللّٰهَ فَاتَّبِعُوْنِيْ يُحْبِبْكُمُ اللّٰهُ وَيَغْفِرْ لَكُمْ ذُنُوْبَكُمْ ؕ وَاللّٰهُ غَفُوْرٌ رَّحِيْمٌ

    বল, ‘যদি তোমরা আল্লাহকে ভালবাসো, তাহলে আমার অনুসরণ কর, আল্লাহ তোমাদেরকে ভালবাসবেন এবং তোমাদের পাপসমূহ ক্ষমা করে দেবেন। আর আল্লাহ অত্যন্ত ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু’।

    এখানেও বুঝা যাচ্ছে যে, মহান আল্লাহ বলছেন, যদি আল্লাহকে কেউ ভালোবাসে তাহলে রাসুল (সা) এর অনুসরণ বাধ্যতামূলক করতে হবে। তাই একজন মুসলিম হিসেবে প্রত্যেকের রাসুল (সা) জীবনে সম্পর্কে জানা ও তা থেকে জ্ঞান ও শিক্ষা অর্জন করে তা নিজের বাস্তব জীবনে প্রতিফলিত করা আবশ্যক৷ কারন পরকালে নাজাতের একমাত্র সরল পথ রাসুল (সা) দেখানো পথ। বাকি সব মত পথ ভ্রান্ত ও বাতিল পথ৷ রাসুল (সা) জীবনী বলতে আল্লাহ প্রদত্ত ওহীর বাস্তব প্রতিফলন। তিনি তাওহীদের বাণী প্রচারক। মানুষকে মানুষের দাসত্ব থেকে একমাত্র আল্লাহর দাসে প্রবিষ্ট করতে এসেছেন।

    মহান আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা বলেছেন__
    An-Nisa’ 4:65

    فَلَا وَرَبِّكَ لَا يُؤْمِنُوْنَ حَتّٰي يُحَكِّمُوْكَ فِيْمَا شَجَرَ بَيْنَهُمْ ثُمَّ لَا يَجِدُوْا فِيْۤ اَنْفُسِهِمْ حَرَجًا مِّمَّا قَضَيْتَ وَيُسَلِّمُوْا تَسْلِيْمًا

    অতএব তোমার রবের কসম, তারা মুমিন হবে না যতক্ষণ না তাদের মধ্যে সৃষ্ট বিবাদের ব্যাপারে তোমাকে বিচারক নির্ধারণ করে, তারপর তুমি যে ফয়সালা দেবে সে ব্যাপারে নিজদের অন্তরে কোন দ্বিধা অনুভব না করে এবং পূর্ণ সম্মতিতে মেনে নেয়।

    রাসুল (সা) বলেছেন___
    তোমাদের কেউ ততক্ষণ পর্যন্ত মুমিন হতে পারবে না, যতক্ষণ না আমি তার নিকট তার পিতা-মাতা, সন্তান-সন্ততি ও সমস্ত মানুষ থেকে প্রিয় হবো।
    সহীহ বুখারি-১৫

    রাসুল (সা) জীবনী জানা এবং সেই শিক্ষা আমাদের জীবনে প্রতিফলিত করার গুরুত্ব আল্লাহর বানী ও রাসুল (সা) হাদিস থেকে সহজেই অনুমেয়।

    📘বইটির বিষয়বস্তুঃ
    শায়খ সাঈদ ইবনে আলী আল ক্বাহতানী আরবের প্রখ্যাত লেখদের অন্যতম। তার রচিত আরবি কিতাবটি বাংলা ভাষায় প্রকাশ করছেন প্রিয় হাসানাহ পাবলিকেশন। তারা নাম দিয়েছেন “নবী জীবনের সুরভিত পাঠ”(রহমাতুল্লিল আলামিন)৷ বইটি রাসুল (সা) জীবনী নিয়ে রচিত কিন্তু এটি গতানুগতিক জীবনী গ্রন্থ না। কারণ বইটিতে আল্লাহর রাসুল (সা) জীবনের বিশেষ বিশেষ ঘটনাবলি অত্যন্ত মাধুর্যের সাথে লেখক তার লেখনির মাঝে ফুটিয়ে তুলেছেন। অনুবাদকও তার কাজে পাকা হাতের পরিচয় দিয়েছেন, পাঠক বইটি পড়া মাত্রই বুঝতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

    📘বইটির বিশেষত্বঃ
    আলহামদুলিল্লাহ শর্ট পিডিএফ টি পড়েছি। পড়ার পর থেকে যে বিষয়গুলো আমার তাদের কাজের বিশেষত্ব মনে হয়েছে__
    ♦️সীরাতটিতে লেখক কুরআন হাদিসের দালিলিক রেফারেন্স কেই প্রাধান্য দিয়েছেন।
    ♦️চারিত্রিক বিষয়ের আলোচনা আলাদা সমাদরে আলোচনা করেছেন।
    ♦️কুরআন ও হাদিস ভিত্তিক দালিলিক আলোচনা সমৃদ্ধ ও ইতিহাস মিশ্রিত চমৎকার বর্ণনা।
    ♦️গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়গুলোর শেষে শিক্ষনীয় বিষয়গুলো পয়েন্ট আকারে উল্লেখ করা হয়েছে।
    ♦️অনুবাদের ক্ষেত্রে আরবি মূল টেক্সটের মূল ভাব ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করা হয়েছে আলহামদুলিল্লাহ।
    ♦️অনুবাদের ক্ষেত্রে প্রাঞ্জলতা রক্ষা করা হয়েছে।
    ♦️দলিল হিসেবে মান নির্ণয়ের ক্ষেত্রে লেখক সর্তকতা অবলম্বন করেছেন।
    ♦️বইটিতে মোট ৩৩টি আলাদা আলাদা অধ্যায় দিয়ে সাজানো আছে।

    সবশেষ আমি মনে করি, একজন মুসলিম হিসেবে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য রাসুল (সা) প্রকৃত আশেক হতে হলে বইটি অবশ্যই পাঠ করা প্রয়োজন।নিজের জীবনকে আল্লাহর বাধ্য ও অনুগত হয়ে কাটাতে, আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন, ও সর্বোপরি সিরাতল মুস্তাকীমের উপর চলতে চাইলে রাসুল (সা) জীবনী অধ্যায়ন বাধ্যতামূলক। কারণ রাসুল (সা) পুরো জীবন হলো আমাদের জন্য রোল মডেল ও অনুসরণীয়। তাই মুসলিমদের একমাত্র আর্দশ হলেন রাসুল (সা)। আর হ্যা,আমি বইটি পাঠ করবো ইনশাআল্লাহ। তাই বলে যায়, নবীজির (সা) জীবনের টুকরো টুকরো ঘটনা প্রবাহ, মণি-মুক্তোর স্বাদ অনুধাবন করতে আমাদের সকলের পড়া উচিত “নবী জীবনের সুরভিত পাঠ” (রহমাতুল্লিল আলামিন)। বইটি মহান আল্লাহ উম্মাহর খেদমতের জন্য কবুল করুন এবং বইটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলে জাযায়ে খাইর দান করুন।

    📘বই পরিচিতি
    বইঃ নবী জীবনের সুরভিত পাঠ
    লেখকঃ শাইখ সাঈদ ইবনে আলী আল ক্বাহতানী
    অনুবাদকঃ উবাইদ উসমান
    প্রচ্ছদঃ ওয়ালিউল ইসলাম
    প্রুফঃ হাসানাহ টিম
    সম্পাদনায়ঃ জুবাইর রশীদ

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    Maksud alam:

    #ইসলামিক_বই_পরিচিতি_প্রিভিউ_প্রতিযোগিতা_হাসানাহ_১

    বিসমিল্লাহির রহমানির রাহীম।
    সমস্ত প্রশংসা মহান রব আল্লহর জন্য। দরূদ ও সালাম বর্ষিত হোক মানবতার মুক্তির দূত রসূলে পাক (স:) এর উপর।
    আল্লাহ তাআলা কুরআন মাজিদে ইরশাদ করেন _

    قُلْ إِن كُنتُمْ تُحِبُّونَ اللَّهَ فَاتَّبِعُونِى يُحْبِبْكُمُ اللَّهُ وَيَغْفِرْ لَكُمْ ذُنُوبَكُمْ ۗ وَاللَّهُ غَفُورٌ رَّحِيمٌ

    বল, ‘যদি তোমরা আল্লাহকে ভালবাস, তাহলে আমার অনুসরণ কর, আল্লাহ তোমাদেরকে ভালবাসবেন এবং তোমাদের পাপসমূহ ক্ষমা করে দেবেন। আর আল্লাহ অত্যন্ত ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু। (আলে ইমরান, আয়াত নং : ৩১)

    নবী সা. কে অনুসরণ করতে হলে অবশ‍্যই আমাদেরকে তার কর্মপদ্ধতি, দৈনন্দিন কার্যাদি সম্পর্কে অবহিত হতে হবে। তবেই আমরা তার জীবনের সাথে আমাদের জীবনকে মিলিয়ে নিতে পারবো। নবী সা. এর জীবনীকে আমাদের কাছে তুলে ধরতে হাসানাহ পাবলিকেশন্স আমাদের জন‍্য নিয়ে এসেছে এক ব‍্যতিক্রম ধরনের সীরাত গ্রন্থ।
    বইটির ৪৯ পৃষ্ঠার শর্টপিডিএফ পড়ে যা বুঝলাম এটি কোনো গতানুগতিক সীরাত গ্রন্থ নয়। লেখক রাসূল সা. এর জীবনী থেকে তুলে এনেছেন গুরুত্বপূর্ণ কিছু অধ‍্যায়।

    📘বইটি সম্পর্কে সারসংক্ষেপ:
    প্রথমেই উল্লেখ করছিলাম এটি কোনো গতানুগতিক সিরাতগ্রন্থ নয়। মূল বইতে তেত্রিশ অধ‍্যায় স্থান পেলেও অনুবাদকৃত বইটিতে ভূমিকাসহ মোট ৩৬ টি পাঠ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। শর্টপিডিএফে চারটি অধ‍্যায় উন্মুক্ত করা হয়েছে। যেখানে প্রথম দুটি অধ‍্যায়ে রাসূল সা. এর জন্ম এবং তার উপর ওহি অবতীর্ণের বিষয়টি আলোকপাত করা হয়েছে। পরবর্তী দুটি অধ‍্যায়ে ওনার চারিত্রিক কাঠামো এবং কর্মপদ্ধতি অর্থাৎ ইবাদত, জিহাদ ইত‍্যাদি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।
    বইটির অন‍্যতম একটা গুণ হলো এখানে কোনো দুর্বল ও দুর্লভ বক্তব‍্যকে স্থান দেওয়া হয়নি। এমনকি প্রত‍্যেকটি অধ‍্যায়ে করা হয়েছে দালিলিক আলোচনা। বইটির অধ‍্যায় গুলোর নামকরণ ছিলো বেশ মুগ্ধকর। যা আপনাকে মুগ্ধ করেই ছাড়বে। কয়েকটি অধ‍্যায়ের নাম আমার কাছে বেশ ভালোই লেগেছ। যেমন কচিকাঁচাদের নবিজি, অপ্রতিরোধ‍্য আলোকরশ্মি, যেগুলো অন‍্যান‍্য সীরাত গ্রন্থগুলোতে বিরল বললেই চলে।

    📘বইটি কেন পড়বেন :
    আল্লাহ তাআলা কুরআন মাজিদে বলেন
    انك لعلي خلق عظيم

    “নিশ্চয়ই আপনি সুমহান চরিত্রে অধিষ্ঠিত।”

    রাসূল সা. কে জানা তার জীবনীকে অনুসরণ করা প্রত‍্যেক মুমিনের জন‍্য অপরিহার্য। ইমাম ইবনুল জাওযী রহ. বলেন_

    ” সকল ইলমের মূল ও সর্বাধিক উপকারী ইলম হচ্ছে রাসূল সা. ও তার সাহাবীদের জীবনচরিত।”

    আর প্রত‍্যেক মুমিনের জন‍্য অবশ‍্যই আবশ‍্যক হচ্ছে রাসূল সা. কে তার আইডল হিসেবে গ্রহণ করা। প্রত‍্যেকটি কর্মে রাসূল সা. এর কাজের সাথে তার কর্মকে মিলিয়ে নেওয়া। তাই সকলের উচিত রাসূল সা. এর সীরাতকে
    বেশি বেশি অধ‍্যয়ন করা।

    📘ভালো লাগা:
    শর্টপিডিএফে যতটুকু পড়েছি তন্মধ্যে কয়েকটি বিষয় আমার কাছে খুবই ভালো লেগেছে। যেমন বইটির আট পৃষ্ঠায় সম্পাদক
    সীরাতেগ্রন্থ পড়ার পূর্বে কয়েকটি বিষয় মনে রাখতে বলেছেন যা পাঠককে সীরাত পড়ায় আরো আগ্রহী করে তুলবে। বইটির অন‍্যতম ভালো লাগা হচ্ছে বইটিতে কুরআন ও হাদীসের রেফারেন্স ভিত্তিক আলোচনা স্থান পেয়েছে। বইটিতে মূল আরবীর ভাব তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। যার কারণে সহজেই পাঠক মূলভাবটা বুঝতে পারবেন।

    📘 এক নজরে বইটি :
    বইঃ নবী জীবনের সুরভিত পাঠ
    লেখকঃ শাইখ সাঈদ ইবনে আলী আল কাহতানী
    অনুবাকঃ উবাইদ উসমান
    প্রচ্ছদঃ ওয়ালিউল ইসলাম।
    প্রুফঃ হাসানাহ টিম
    সম্পাদকঃ জুবায়ের রশীদ।

    📘মন্তব‍্য:
    প্রতিটি মুমিনই চায় নবী জীবনকে আকড়ে ধরে নবীজির শ্রেষ্ঠ উম্মত হয়ে পরকালে তার শাফায়াত লাভ করতে। তাই সে সবসময় নবিজীর জীবনকে জানতে চায় পরতে পরতে। ইনশাআল্লাহ আমি আশা করি নবি জীবনের সুরভিত পাঠ বইটি আমাদের জানার সেই অদম‍্য ইচ্ছাকে কিছুটা হলেও পূর্ণ করবে। আল্লাহ তাআলা যেন এ বইটি পাঠের মাধ‍্যমে নবীজির ভালোবাসা আমাদের অন্তরে বদ্ধমূল করে দেন এবং প্রতিটি কর্মে তার সুন্নাত পালন করার তৌফিক দান করেন।

    📝মাকসুদ আলম।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    maesha:

    অন‍্যায়, অবিচার, অবক্ষয়, বিশৃঙ্খলা ও কুসংস্কারের অশুভ ছায়ায় পৃথিবী যখন আচ্ছন্ন,জীবনের প্রতিটা ক্ষেত্রেই যখন অবক্ষয়ের লক্ষণ সুস্পষ্টভাবে পরিলক্ষিত, সর্বস্তরের সকল মানুষ যখন দিশেহারা, আঁধার ঘেরা এই পৃথিবী যখন সুবহে সাদিকের প্রতীক্ষায়; ঠিক তখনই আদর্শভ্রষ্ট মানুষকে তার হতাশা থেকে; অন্ধ-তামসিকতামগ্ন মানুষদের শ্বাসরুদ্ধকর অসহায় অবস্থা থেকে, আত্মগ্লানি থেকে মুক্তি দিতে মহান আল্লাহ্ এ ধরায় আবির্ভাব ঘটান একজন জ‍্যোতির্ময় মহাপুরুষের।সেই আলোকিত মহামানব, হযরত মুহাম্মদ(ﷺ) এর আগমনে বিশ্বলোক হয় উদ্ভাসিত; অসহায়-দুর্বল মানুষ খুঁজে পায় অন্ধকারে আলো আর হতাশায় আশ্বাস।

    মহানবী(ﷺ) ছিলেন জীবনের সর্বক্ষেত্রে অনুসরণীয় এবং অনুকরণীয়।তিনিই আমাদের উপহার দিয়েছেন সুন্দর ও উজ্জ্বলতম পথনির্দেশ।রাসূল (ﷺ) কুরআনের-ই জীবন্ত প্রতিচ্ছবি ছিলেন। তিনি জীবনের সব ক্ষেত্রে মহাগ্রন্থ আল-কুরআন বাস্তবায়ন করে উম্মাতকে সেই সরল পথের দিশা দেখিয়ে দিয়েছেন যে পথে চলার আদেশ দিয়েছেন স্বয়ং বিশ্বজাহানের রব।

    সর্বোত্তম আচরণ ও অনন্য চরিত্রের মনোমুগ্ধকর সৌরভ আমরা পাই আমাদের প্রিয় নবীজির(ﷺ) সুরভিত জীবন থেকে। এই সৌরভ প্রত‍্যেকের জীবনে ছড়িয়ে দেয়ার এক অনন্য প্রয়াস ❛ নবী জীবনের সুরভিত পাঠ ❜ বইটি।

    বিশিষ্ট দায়ী ও লেখক সাঈদ ইবনে আলি আল কাহতানী রচিত এই চমৎকার বইটি বাংলাভাষীদের জন্য উপহার দিচ্ছে পাঠকনন্দিত প্রকাশনী @

    ত্রিশটিরও বেশি অধ্যায়ে সুসজ্জিত এ বইটিকে সাজানো হয়েছে সঠিক দলিলভিত্তিক তথ্য দিয়ে। বইটিতে উঠে এসেছে নবীজির বংশ-পরিচয়, জন্ম, শারীরিক ও দৈহিক সৌন্দর্যের বর্ণনা, নবীজির ইবাদত ও জিহাদ, নবীজির নানার গুণাবলী, তাঁর মুজিযাসমূহ, বিদায়ী অসিয়ত, মৃত্যু, নবীজির(ﷺ) মিরাস, শাতিমে রাসূলের শাস্তিসহ এমন নানান গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো।

    বইটির খানিকটা অংশ পড়ার সুযোগ পেয়েছি শর্ট পিডিএফ এর মাধ্যমে। পড়েছি আর অভিভূত হয়েছি।
    শর্ট পিডিএফ পড়ার পর কয়েকটি বিষয় সম্পর্কে বলা যায়—

    ▪বইটির সহজ-সাবলীল উপস্থাপনা ও ভাষাশৈলীর নান্দনিকতা সত্যিই প্রশংসনীয় যা এ বইয়ের প্রতি পাঠকের তীব্র আকর্ষণ সৃষ্টিতে অত‍্যন্ত সহায়ক হবে ইন শা আল্লাহ্ ।প্রয়োজনীয় স্থানে যথাযথ রেফারেন্স প্রদান বইটিকে করেছে আরও সমৃদ্ধ এবং গ্রহণযোগ্য।

    ▪বেশকিছু অধ্যায়ের শেষে ‘আলোচনার সারকথা’ শিরোনামে উঠে এসেছে নবী(ﷺ) জীবনের নানান ঘটনা থেকে আমাদের শিক্ষণীয় দিকগুলো।এর পাশাপাশি বর্তমান প্রেক্ষাপটে সেই ঘটনার প্রয়োগের বিষয়টিতেও আলোকপাত করা হয়েছে।
    এ অংশে সুন্নাহ পরিপন্থী কিছু ঘটনা বর্ণিত হয়েছে যা আমাদের সমাজে প্রচলিত। ভুল ধরে ধরে শুধরে দেয়ার এ উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসনীয়।

    ▪প্রতিটি অধ্যায়ের শিরোনামগুলো আকর্ষণীয় উপায়ে উপস্থাপন করা হয়েছে।

    নবীজিরﷺ উজ্জ্বল আদর্শের আলোকে হৃদয়কে উদ্ভাসিত করতে, পাপাচারে নিমগ্ন এবং দুর্গন্ধযুক্ত অন্তরটাকে একটু সুরভিত করতে আর মৃত্যু-পরবর্তী জীবনটাকে জান্নাতের ছোঁয়ায় সুরভিত করে তুলতে যে পথের দিশা অত‍্যাবশ‍্যক…..❛ নবী জীবনের সুরভিত পাঠ❜ গ্রন্থটি সে পথেই নিয়ে যাবে পাঠককে ইন শা আল্লাহ্।

    এক নজরে বই পরিচিতি:
    —————————————-
    ▪নাম: নবী জীবনের সুরভিত পাঠ
    ▪লেখক: সাঈদ ইবনে আলি আল কাহতানি
    ▪অনুবাদক: উবাইদ উসমান
    ▪সম্পাদক: জুবায়ের রশীদ
    ▪প্রচ্ছদ: ওয়ালিউল ইসলাম
    ▪প্রকাশনায়: হাসানাহ পাবলিকেশন

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 5 out of 5

    Abdul Aziz:

    #কেন_বইটি_পড়বেন

    *নবীর জীবনী সুরভিত পাঠ রাহমাতুল্লিল আলামিন * বক্ষমান গ্রন্থটি বাংলা ভাষায় সিরাহ শাস্ত্রের একটি অতুলনীয় সংযোজন। প্রসিদ্ধ লেখক ড. সাঈদ ইবনে আলী আল ক্বাতহানী গতানুগতিক আঙ্গিকের বাইরে গিয়ে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুদীর্ঘ ৬৩ বছরের জীবনী গভীরভাবে অধ্যয়ন করে তার সারনির্যাস পৃথক পৃথক শিরোনামে তুলে ধরেছেন বিশুদ্ধ ও সাবলীল বর্ণনায়।

    নবীজির চরিত্র মাধুরিমা সম্বন্ধে এক প্রশ্নের জবাবে আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহা বলেন, “আল্লাহর নবীর চরিত্র ছিল স্বয়ং কুরআন।

    নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর উত্তম চরিত্র, দয়া ও ক্ষমার দৃষ্টান্ত সিরাত পাঠের মাধ্যমে বিস্তর ধারণা পাওয়া যায়।

    যেখানে গ্রেফতাররত অমুসলিমেরা তাঁর ব্যবহার দেখে ইসলাম গ্রহণ করেন, নওমুসলিমের তাঁর আচার-ব্যবহারে তুষ্ট ছিলেন, সেখানে খোদ মুসলিমেরাই তাকে কত ভালোবাসতেন তা আর বলার থাকে না!

    উদহারনস্বরূপ, নবীজির (স) অপার দয়া ও ক্ষমাশীলতা যায়েদ ইবনে সাআনার জীবনের মোড় পাল্টে দেয়। যিনি ছিলেন একজন প্রভাবশালী ইহুদি যাজক ও পন্ডিত। নবীজির (স) কাছে তিনি কিছু ঋণ পেতেন। ঋণ নিতে এসে নবীজির (স) সাথে চূড়ান্ত পর্যায়ের খারাপ ব্যবহার করেন। তবুও নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার সাথে উত্তম ব্যবহার করেন এবং উমর রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু কে সেই যাজকের পাওনা ফেরত দিতে বললেন। নবীজির কোমল আচরণে ইসলামের সুশীতল ছায়ায় আশ্রয় নেন যায়েদ ইবনে সাআনা।

    এই ঘটনার পর হযরত যায়েদ (রা) বলেন আমি রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের মাঝে ২ টি জিনিস দেখে তিনি নবী হওয়ার ব্যাপারে নিশ্চিত হয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছি।
    ১.নিজের উপর ধৈর্যের অসীম নিয়ন্ত্রণ।
    ২.ধৈর্যের বাধ দ্বারা মানবীয় দুর্বলতা দমন।
    এমন হাজারো ঘটনা দ্বারা জ্বলজ্বল করছে নবুওয়াতের আকাশ।

    সিরাতে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সম্পর্কে জানতে৷ তাঁর উত্তম চরিত্র, ইনসাফ ও বাস্তবজীবনে সেগুলো প্রয়োগের জন্য ; নেতা ও রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে কেমন ছিলেন নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ; তার আলোচনা ফুটে উঠেছে এই বইটিতে।

    #সিরাহ_পাঠ_কেন_অত্যাবশ্যকীয়

    সিরাত পাঠ যদি সাধারণ সাহিত্য পাঠের মতো নিয়ে অধ্যয়ন করি তবে পাঠক হিসেবে আমি ব্যর্থ। ইমাম ইবনুল জাওযি (রাহিঃ) বলেন, সকল ইলমের মূল ও সর্বাধিক উপকারী ইলম হচ্ছে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর সিরাত পাঠ ও তাঁর সাহাবীদের জীবনচরিত।

    মূলত রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সিরাত পাঠ একটি ইবাদাত, ইমান বৃদ্ধির নিয়ামক,রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতি ভালোবাসা বৃদ্ধি করে, প্রাক্টিসিং মুসলিম হিসেবে গড়ে উঠতে সাহায্য করে, সর্বোপরি সুন্দর জীবনের পথ দেখায়।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top