মেন্যু
nire ferar ahban

নীড়ে ফেরার আহবান

প্রকাশনী : আয়ান প্রকাশন
সম্পাদক : ওস্তাদ তানজীল আরেফীন আদনান
পৃষ্ঠা : 199, কভার : পেপার ব্যাক, সংস্করণ : 1st Published, 2022
আইএসবিএন : 9789849599869, ভাষা : বাংলা
দিনশেষে ক্লান্ত আমরা নিজের বাড়িতে যে শান্তির একটা অনুভূতি পাই তা কি আর কোথাও পাওয়া যায়? যায় না! কারণ নিজের ঘরেই নিজের আসল সুখ, যে সুখ পৃথিবীর অন্য কোথাও নেই।... আরো পড়ুন
পরিমাণ

180  360 (50% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

11 রিভিউ এবং রেটিং - নীড়ে ফেরার আহবান

4.6
Based on 11 reviews
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 4 out of 5

    সিরাজাম:

    ◾ নীড়- পরম শান্তির, স্বস্তির নিরাপদ আবাসস্থল। রিজিকের তাগিদে পক্ষীকূলেরাও ভোরে নীড় ছাড়ে। আবার দিনের আলো মিলিয়ে যাওয়ার আগেই নিরাপদ আবাসস্থল তার ছোট্ট নীড়ে ফিরে আসে। এখানেই যে তার সুকুন।

    আমাদেরও নীড় রয়েছে, আমরাও কাজের তাগিদে বেরিয়ে যাই। আবার কাজ শেষে নীড়ে ফিরে আসি। তবে আমরা মানুষ বলেই আমাদের জীবন-বিধান রয়েছে। পাখিদের হয়তো বিধিনিষেধ নেই, আর থাকলেও আমাদের অজানা।

    আমরা নীড়ে থেকেও কখনো কখনো অশান্তিতে থাকি, সুকুন পাইনা। নীড়ে থেকেও আমরা যেনো ঘুরে বেড়াই অন্য কোনো জগতে, যেখানে শান্তির বার্তা নেই। তাইতো জগতে এতো অশান্তি, এতো অনিয়ম, এতো অঘটন। এতসব সমস্যা থেকে উত্তরণের কি কোনো পথ নেই! মনের শান্তি কি কোথাও পাওয়া যায় না! ওইতো সেদিনও পাঁচ পাঁচটা প্রথম শ্রেণির চাকরি পাওয়া লোকটাও সুইসাইড করে। সাধারণ দৃষ্টিতে সফল, উজ্জ্বল ভবিষ্যতের এই লোকের কিসের অভাব ছিলো? ভালো রেজাল্ট, ভালো চাকরি, ভালো জীবনযাপন- জীবনের আরাধ্য জিনিসগুলো প্রায় মুঠোয় পুরে নিয়েও কেনো সে নিজেই হারিয়ে গেলো! হয়তো মনের শান্তি ছিলো না! দিনশেষে নীড়ে ফেরা হলেও তার আসলে নীড়ে ফেরা হতো না।

    কুরআনের সূরা আর রা’দের আয়াত: আল্লাহর স্মরণেই চিত্ত প্রশান্ত হয়। তাহলে আসল শান্তি কোথায়, কিসে রয়েছে সন্তুষ্টি তা সহজেই অনুমেয়।

    জীবনঘনিষ্ঠ এমনই কিছু গল্প নিয়ে দীপ্তিময়ী টিমের প্রথম বই- নীড়ে ফেরার আহ্বান। প্রকাশনায় রয়েছেন আয়ান।

    ◾বই অভ্যন্তরে:

    বইটিতে মোট একুশটি গল্প রয়েছে। শর্ট পিডিএফে মাত্র একটা গল্পই সংযুক্ত করা হয়েছে। গল্পে গল্পে জীবনের নানা বাঁকে প্রবেশ করেছেন লেখিকা বোনেরা। জীবন চলার পথের নানা সমস্যার সমাধান পাওয়া যাবে বইটিতে। অর্থাৎ- আপনার জীবনে কখন কোন পদক্ষেপ নেওয়া উচিত, কোন পরিস্থিতি কীভাবে সামাল দেওয়া উচিত, ভুল হয়ে গেলেও কী করা উচিত, কার সাথে আমাদের আচরণ কেমন হওয়া উচিত এইসব বিষয়গুলো গল্পের মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়েছে বলেই মনে হচ্ছে। আসলে পুরোপুরি ধারণা দেওয়াটা দুষ্কর। গল্পের শিরোনাম দেখে কিছুটা আন্দাজ করলাম আরকি!

    বইটি মূলত বোনদের জন্য লেখা। কিন্তু ছেলেমেয়ে উভয় পড়তে পারেন। কুরআন হাদীসের বাণীসমূহের সংযোজনে গল্পের এই বইটি থেকে আমরা নতুন কিছু জানতে পারবো বলেই আশা রাখছি। পিডিএফ পড়ে প্রথম গল্পটা ভালোই লেগেছে, এখন অন্যগুলো পড়ে দেখার পালা।

    লেখিকা বোনদের কলমে আল্লাহ বারাকাহ দান করুন। তাদের কাজটুকু আল্লাহ কবুল করে নিন, ইন শা আল্লাহ!

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 4 out of 5

    সিরাজাম:

    ◾ নীড়- পরম শান্তির, স্বস্তির নিরাপদ আবাসস্থল। রিজিকের তাগিদে পক্ষীকূলেরাও ভোরে নীড় ছাড়ে। আবার দিনের আলো মিলিয়ে যাওয়ার আগেই নিরাপদ আবাসস্থল তার ছোট্ট নীড়ে ফিরে আসে। এখানেই যে তার সুকুন।

    আমাদেরও নীড় রয়েছে, আমরাও কাজের তাগিদে বেরিয়ে যাই। আবার কাজ শেষে নীড়ে ফিরে আসি। তবে আমরা মানুষ বলেই আমাদের জীবন-বিধান রয়েছে। পাখিদের হয়তো বিধিনিষেধ নেই, আর থাকলেও আমাদের অজানা।

    আমরা নীড়ে থেকেও কখনো কখনো অশান্তিতে থাকি, সুকুন পাইনা। নীড়ে থেকেও আমরা যেনো ঘুরে বেড়াই অন্য কোনো জগতে, যেখানে শান্তির বার্তা নেই। তাইতো জগতে এতো অশান্তি, এতো অনিয়ম, এতো অঘটন। এতসব সমস্যা থেকে উত্তরণের কি কোনো পথ নেই! মনের শান্তি কি কোথাও পাওয়া যায় না! ওইতো সেদিনও পাঁচ পাঁচটা প্রথম শ্রেণির চাকরি পাওয়া লোকটাও সুইসাইড করে। সাধারণ দৃষ্টিতে সফল, উজ্জ্বল ভবিষ্যতের এই লোকের কিসের অভাব ছিলো? ভালো রেজাল্ট, ভালো চাকরি, ভালো জীবনযাপন- জীবনের আরাধ্য জিনিসগুলো প্রায় মুঠোয় পুরে নিয়েও কেনো সে নিজেই হারিয়ে গেলো! হয়তো মনের শান্তি ছিলো না! দিনশেষে নীড়ে ফেরা হলেও তার আসলে নীড়ে ফেরা হতো না।

    কুরআনের সূরা আর রা’দের আয়াত: আল্লাহর স্মরণেই চিত্ত প্রশান্ত হয়। তাহলে আসল শান্তি কোথায়, কিসে রয়েছে সন্তুষ্টি তা সহজেই অনুমেয়।

    জীবনঘনিষ্ঠ এমনই কিছু গল্প নিয়ে দীপ্তিময়ী টিমের প্রথম বই- নীড়ে ফেরার আহ্বান। প্রকাশনায় রয়েছেন আয়ান।

    ◾বই অভ্যন্তরে:

    বইটিতে মোট একুশটি গল্প রয়েছে। শর্ট পিডিএফে মাত্র একটা গল্পই সংযুক্ত করা হয়েছে। গল্পে গল্পে জীবনের নানা বাঁকে প্রবেশ করেছেন লেখিকা বোনেরা। জীবন চলার পথের নানা সমস্যার সমাধান পাওয়া যাবে বইটিতে। অর্থাৎ- আপনার জীবনে কখন কোন পদক্ষেপ নেওয়া উচিত, কোন পরিস্থিতি কীভাবে সামাল দেওয়া উচিত, ভুল হয়ে গেলেও কী করা উচিত, কার সাথে আমাদের আচরণ কেমন হওয়া উচিত এইসব বিষয়গুলো গল্পের মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়েছে বলেই মনে হচ্ছে। আসলে পুরোপুরি ধারণা দেওয়াটা দুষ্কর। গল্পের শিরোনাম দেখে কিছুটা আন্দাজ করলাম আরকি!

    বইটি মূলত বোনদের জন্য লেখা। কিন্তু ছেলেমেয়ে উভয় পড়তে পারেন। কুরআন হাদীসের বাণীসমূহের সংযোজনে গল্পের এই বইটি থেকে আমরা নতুন কিছু জানতে পারবো বলেই আশা রাখছি। পিডিএফ পড়ে প্রথম গল্পটা ভালোই লেগেছে, এখন অন্যগুলো পড়ে দেখার পালা।

    লেখিকা বোনদের কলমে আল্লাহ বারাকাহ দান করুন। তাদের কাজটুকু আল্লাহ কবুল করে নিন, ইন শা আল্লাহ!

    .

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    kajol akhi:

    এই বই টি তাদের জন্য খুবই উপযোগী যারা বিয়ে নামের পবিএ বন্ধনে আবদ্ধ হতে চায়।
    বই টি তাদের অনুপ্রেরণা জাগাবে যারা অবিবাহিত যুবক এবং অবিবাহিত যুবতি। তবে যারা বিবাহিত আছে তাদের মাঝেও অনুপ্রেরণার জোয়ার আসবে। ইনশা ~আল্লাহ.।বিবাহ নামের একটি সুন্দর সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্য দু জনকেই জ্ঞান অর্জন করা উচিৎ। আর এই জ্ঞান অর্জন করতে হলে প্রয়োজন বই পড়া। তবে সেই বই টা হতে হবে ইসলামী। দুজন দু জনকে বিবাহ বিভ্রাট বই টা হাদিয়া দেওয়ার মাধ্যমে ও বিবাহিত জীবনে অনেক কঠিন সমস্যা সমাধান হিসাবে বের হয়ে আসবে। ফলে, সেখানে স্থান পাবে না বিয়ে ভাঙ্গার নামে দুটি কঠিন শব্দ ।জীবনে হয়ে উঠবে আল্লাহর রহমতে ঘেরা সুন্দর।
    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    মুহাম্মদ রুবেল মিয়া:

    “নীড়ে ফেরার আহবান” বইটি সীমালঙ্ঘনের পথ ছেড়ে সত্য দ্বীনে ফিরে আসার উপাখ্যান নিয়ে রচিত। বইটিকে নীড়ে ফেরার ২১ টি শিক্ষনীয় কাহিনী দিয়ে সাজানো হয়েছে। যা আমাদের ভুল পথ থেকে সঠিক পথে ফিরে আসার পাথেয় হবে।

    বইয়ের কথাগুলো পাঠকের হৃদয়ে আঘাত করবে। দিলে লাগার মতো ভাষালঙ্কার দিয়ে, সাহিত্যের মাধুর্য দিয়ে, সরল প্রকাশভঙ্গি দিয়ে সাজানো হয়েছে “নীড়ে ফেরার আহবান” বইটি৷

    ইনশাআল্লাহ বইটি পাঠকদের হৃদয় জুড়িয়ে দিবে। ভুল পথে থাকাদের সঠিক পথে ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করবে।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 5 out of 5

    Kajol akhi:

    বেলা শেষে সকলেই আপন নীড়ে পাড়ি জমাতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। কালের নিয়মে এটি হয়েই আসছে। সবাইকে ঠিক নীড়ে ফিরে যেতে হয়। স্বীয় রবকে ভুলে গিয়ে যখন তরুণ-তরুণীরা দুনিয়ার অশ্লীলতায় নিজেকে বিলিয়ে দিতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে;তখনও সৃষ্টিকর্তা ক্ষোভ প্রকাশ করে কারো রিযিক বন্ধ করে দেননা। তিনি ঠিক আশা করেন তার সৃষ্টি তাঁর দিকে ফিরবে, তাঁর কাছে গিয়ে অনুতপ্ত কন্ঠে বলবে,’আমার রব! আমাকে ক্ষমা করুন’। তখন তিনি বান্দাকে ক্ষমা করে দিবেন। কারণ তিনিই ক্ষমাশীল।
    দুনিয়ার এই সাময়িক আনন্দে মেতে উঠে আমরা আজ নিজেদের হারাতে ব্যস্ত। তেমনি কয়েকটি চরিত্রের অন্ধকার থেকে আলোর পথে ফিরে আসার গল্পের সমন্বয়ে নীড়ে ফেরার আহ্বান বইটির জন্ম। বইয়ের প্রত্যেকটি গল্পে রয়েছে আলাদা আলাদা শিক্ষা যা আমাদের ব্যক্তি জীবনে অত্যন্ত প্রয়োজন।
    বান্দা গুনাহর পর একদিন ঠিক নীড়ে ফেরে। স্বীয় রবের কাছে ফিরে আসে। এমন গল্পগুলোকে কল্পনায় সাজিয়ে তুলেছেন লেখিকা টিম। যাদের প্রত্যেকের লেখায় উঠে এসেছে আমাদের জীবনের সাথে মিলে যাওয়া ঘটনা সমগ্র।

    বইটি আমাদের সকলের পড়া উচিত। হয়তো মিলে যেতে পারে আমার কিংবা আপনার সাথে। আবার এই বইয়ের মাধ্যমেও হয়তো নীড়ে ফিরে যাবে এক যাক প্রাণ। আপন রবকে চিনতে পেরে পাখিরা ফিরুক মুসল্লায়, অনুভব করতে পারুক রব যে তার ফেরার অপেক্ষায়।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top