মেন্যু
১০০০ টাকার পণ্য কিনলে সারা দেশে ডেলিভারি একদম ফ্রি।

মুহাম্মাদ ﷺ হৃদয়ের বাদশা (২য় খণ্ড)

অনুবাদ: মুহাম্মাদ আদম আলী
পৃষ্ঠা: ৫০৪ (কালার অফসেট ৭০ গ্রাম পেপার)|
বাইন্ডিং: হার্ড কভার

ইতিপূর্বে যারা নারী সাহাবীদের প্যাকেজ নিয়েছেন, লেখক রশিদ হাইলামায তাদের পরিচিত মুখ। তার রচিত খাদিজা (রাঃ) প্রথম মুসলমান এবং শেষ নবী মুহাম্মাদ (সাঃ)-এর বিবি’ এবং ‘আয়েশা রাযিয়াল্লাহু আনহা রাসূল (সা.) এর বিবি, সঙ্গীনী, ফকীহ বিখ্যাত সীরাতগ্রন্থ।

সীরাত রচনায় লেখক অসাধারণ দক্ষতা দেখিয়েছেন। সীরাতকে তিনি শুধু তথ্যের স্তূপ না বানিয়ে থরে থরে সাজান। চমৎকার তার ভাষাশৈলী। পাশাপাশি বিভিন্ন ঘটনাকে দারুণভাবে বিশ্লেষণ করার অসাধারণ এক শক্তি রয়েছে তার কলমে।

সেই ধারাবাহিকতায় এবার নবিজি ﷺ-এর সীরাত নিয়ে ‘সুলতান অব হার্টস’ এর প্রথম খণ্ডের পর ২য় খণ্ডের বঙ্গানুবাদ নিয়ে এলো মাকতাবাতুল ফুরকান।

পরিমাণ

400.00  800.00 (50% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

2 রিভিউ এবং রেটিং - মুহাম্মাদ ﷺ হৃদয়ের বাদশা (২য় খণ্ড)

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    রাসূল (স:) হলেন এমন একজন মহামানব যার জীবনী নিয়ে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন সীরাত গ্রন্থ রচিত হচ্ছে। প্রত্যেকের জীবনীকারের লেখায় যেন আলাদা মাধুর্য ফুটে ওঠে। তারই ধারাবাহিকতায় রাসূল (স:) এর জীবনী নিয়ে একটি অন্যতম সীরাত গ্রন্থ হলো রাশীদ হাইলামায ও ফাতিহ হারপসি রচিত prophet Muhammad s sultan of hearts  । বইটি মাকতাবাতুল ফুরকান থেকে প্রকাশিত হয়েছে “মুহাম্মদ (স:) হৃদয়ের বাদশা” নামে। বইটি অনুবাদ করেছেন মুহাম্মদ আদম আলী।
    বইটি তিন খন্ডে রচিত হলেও তৃতীয় খন্ডটি এখনো প্রকাশিত হয় নি। তবে প্রথম খন্ড পড়ে বেশ ভালো লাগার ফলে এরপর দ্বিতীয় খন্ডটিও সংগ্রহ করে পড়েছি। আলহামদুলিল্লাহ 
    ,
    ➤ সার-সংক্ষেপঃ-
    “মুহাম্মদ (সা:) হৃদয়ের বাদশা প্রথম দ্বিতীয় খন্ড” সীরাত গ্রন্থটি লেখক ১১টি পর্বে ভাগ করে প্রতিটি পর্বকে আবার বিভিন্ন অনুচ্ছেদে বিভক্ত করেছেন। যাতে পড়তে গিয়ে পাঠকের ক্লান্তিবোধ হবে না ।
    দ্বিতীয় খন্ড শুরু হয়েছে রাসূল (স:) এর আকাবার শপথ এর ঘটনা নিয়ে। পর্যায়ক্রমে রাসূল (স:) এর মদিনায় হিজরত ও মদিনায় একটি নতুন সমাজ গঠন সম্পর্কেও আলোচনা করা হয়েছে। এছাড়া ইসলামের ইতিহাসে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ যুদ্ধ যেমন বদর, ওহুদ ও খন্দক যুদ্ধ সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে এই খন্ডে।

    ➤ বইয়ের বিশেষ বৈশিষ্ট্যঃ-
    এই কিতাবের স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য হলো এখানে লেখক নবীজির জীবনীকে তথ্যের স্তুপ না বানিয়ে সাহিত্যিক ভাবধারা অক্ষুণ্ণ রেখে ঘটনা গুলো বিশ্লেষণ করেছেন। এ গ্রন্থে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জীবনের ক্রমধারার প্রতিই কেবল দৃষ্টি নিবদ্ধ করা হয়নি, বরং সাহাবায়ে কেরাম, পরিবার ও নিকটস্থ সদস্যদের দৃষ্টিতে তার চরিত্র, আচরণ ও গুণাবলীর প্রতি সবিশেষ দৃষ্টি নিবদ্ধ করা হয়েছে। বইতে লেখক এমন এক অভিব্যক্তি ব্যবহার করেছেন যা গতিশীল পাঠককে সামনে অগ্রসর হতে উৎসাহিত করে। পড়তে গিয়ে মনে হবে আপনি বুঝি কোন সাহিত্যমাখা উপন্যাস পড়ছেন।
    ,
    ➤ ব্যক্তিগত অনূভুতিঃ-
    ব্যক্তিগত অনূভুতি যদি বলতে হয় তাহলে বলবো বইটি এককথায় অসাধারন। বইয়ের প্রতিটি পাতায় রয়েছে লেখকগণের কঠোর পরিশ্রমের ছোয়া। বইয়ের সঠিক শব্দচয়ন, মজবুত ও পাকাপোক্ত শব্দের গাঁথুনি আমার মন ছুয়ে গেছে। বইয়ের প্রতিটি বাক্যই যে অভূতপূর্ব ভালোলাগায় সম্মোহিত করে রাখে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত। বইটি পড়তে গিয়ে পাঠক কোথাও বিরক্তবোধ করবেন না। নিজের অজান্তেই হারিয়ে যাবেন সীরাতের অজানা ভুবনে। মনে হবে, নতুন করে জানছেন রাসূল (স:) কে। বইটি পড়ার পর পাঠক আরো বুঝতে পারবেন রাসূলের দুনিয়ার জীবন কেমন ছিল। জানতে পারবেন রাসূল (স:) এর আচার আচরণ ও কর্মপন্থা সম্পর্কে। যা আমাদের জন্য অনুসরণীয়।
    সব মিলিয়ে বইটি খুবই ভালো এবং উপকারী। তাই সকল পাঠকের প্রতি অনুরোধ বইটি একবার হলেও পড়ুন আর জীবনকে রাঙিয়ে তুলুন রাসূল (স:) এর জীবন ও আদর্শের আলোকে।

    Was this review helpful to you?
  2. 5 out of 5

    :

    আলহামদুলিল্লাহ, সকলের পড়া উচিত৷ নিজের জীবনের প্রোয়জনে৷ পরবর্তী খন্ডের অপেহ্মায়৷৷ প্রকাশককে অতিরিক্ত যন্তবান হতে হবে বানান এর হ্মেত্রে৷ ধনবাদ৷
    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?