মেন্যু
১০০০ টাকার পণ্য কিনলে সারা দেশে ডেলিভারি একদম ফ্রি।

মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম

প্রকাশনী : রাহবার

পরিবেশক : মাকতাবাতুল ইসলাম
পৃষ্ঠাসংখ্যা : ৪৮০
পরিমার্জিত দ্বিতীয় সংস্করণ : মার্চ, ২০১৯ খ্রি.

বইটি সম্পর্কে Review of Islamic Books পেইজের এডমিন Mashuq Rahman ভাইয়ের মন্তব্য:

সীরাত আল্লাহর রহমতে আমার কিছু পড়া হয়েছে। সবগুলির মধ্যে এটি আমার কাছে একদম অনন্য লাগছে। কারণ এটি কাহিনীর মত সুপাঠ্য, যেন এক সাহিত্যিক লিখেছেন, আবার অথেন্টিক, প্রচুর রেফারেন্স সম্বলিত, যেন এক আলিমা লিখেছেন। একদিকে যেমন প্রায় যেন কোন বিষয়ই বাদ পরেনি, আবার তা করতে গিয়ে বইটি কলেবরে বড়ও হয়নি। এরকম অনেক ভালো দিকের সমাহার হয়েছে বইটিতে।
আমি আগে জেনেরাল লাইনের ভাইরা সীরাত পড়তে চাইলে বিভিন্ন বই সাজেস্ট করতাম, এখন চোখ বন্ধ করে এটাই সাজেস্ট করবো ইনশাআল্লাহ। এবং উপহার দিবো ইনশাআল্লাহ। এই বই এর ব্যাপক প্রসার আশা করছি। কারণ এটি আর ১০ টির মত না। অসাধারন একটি বই।

————
বইটি সম্পর্কে বিখ্যাত অনুবাদক মাওলানা Abdullah Al Masud ভাইয়ের মন্তব্য:

সীরাতের কোন কোন বই ব্যাপক আবেগের রসে মাখামাখি হয়ে থাকে। আবেগের ফুলঝুরি ছুটাতে লেখক নানান শব্দের বাহার দেখিয়ে পুরো ব্যাপারটিকেও স্যাঁতস্যাঁতে বানিয়ে ফেলেন। আবার কোনকোনটি আবেগ-ভালোবাসাহীন শুষ্ক কাঠের মতো হয়ে থাকে। মনে হয় এর ভেতর কোন নুরানিয়াত নাই। কেবলই শুষ্ক ভূমি। এই বইটা দুয়ের মাঝামাঝি অবস্থান থেকে লেখা। এতে লাগামছাড়া আবেগের ছড়াছড়ি নাই আবার কেবলই কাষ্ঠখণ্ডও নয়। মোটকথা একটা ভারসাম্যতার ভেতর দিয়ে এটি রচিত। আবার ইতিহাস বর্ণনার মতো মারমার কাটকাট ভঙ্গিতে এগিয়ে চলাটাও এর মধ্যে নাই। আবার নিছক গল্পের ঢঙ্গেও রচিত না। সবকিছুর মধ্যে একটা সমন্বয় ঘটানো হয়েছে।

পরিমাণ

308.00  440.00 (30% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

1 রিভিউ এবং রেটিং - মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    আমরা সচরাচর রাসূল (স:) এর যেসব জীবনী পড়ি তাতে থরে থরে সাজানো থাকে তথ্যের স্তুপ আবার কোন কোন জীবনীতে সাহিত্যের দৃষ্টিকোণ থেকে অতি বাড়াবাড়ি করা হয়। আবার যেসব জীবনীতে বেশি পরিমানে তথ্য থাকে তাতে ঘটনাগুলোর বিশ্লেষণ করা থাকেনা।কিন্তু  “মহানবী” গ্রন্থটি লেখিকা এ দুইয়ের মাঝামাঝি থেকে লিখেছেন। এই কিতাবের স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য হলো এখানে লেখিকা নবীজির জীবনীকে তথ্যের স্তুপ না বানিয়ে সাহিত্যিক ভাবধারা অক্ষুণ্ণ রেখে ঘটনা গুলো বিশ্লেষণ করেছেন।
    ,
    ▶সার-সংক্ষেপ:-
    “মহানবী” বইটিকে লেখিকা ৫২ ছোট ছোট পর্বে ভাগ  করে আলোচনা করেছেন। যথা-

    ?বইয়ের প্রথম শিরোনাম ‘ইতিহাসের ইতিহাস’। এখানে বর্ণিত হয়েছে  ইবরাহিম (আ:) কর্তৃক বিবি হাজেরা ও শিশুপুত্র ইসমাইলকে জনমানবহীন মরুভূমিতে রেখে যাওয়া, পানির খোঁজে হাজেরার সাফা ও মারওয়া পাহাড়ের মাঝে ঘুরে বেড়ানো, শিশুপুত্র ইসমাইল এর পায়ের আঘাতে জমজম কুপ সৃষ্টি হওয়া এবং রাসূল (স:) এর দাদা  আব্দুল মুত্তালিব কর্তৃক হারিয়ে যাওয়া সেই জমজম পানির কূপ পুনরুদ্ধারের কথা আলোচনা করা হয়েছে।

    ?বইয়ের দ্বিতীয় শিরোনাম ‘জীবন মৃত্যুর খেলাঘরে’ । এ অধ্যায়ে ইবরাহিম (আ:) কতৃক শিশুপুত্র ইসমাইলকে কুরবানির ঘটনা ও আমেনার সাথে আব্দুল্লাহের শুভ বিবাহ, বিবাহ অনুষ্ঠান থেকে ফেরার পথে পরশ্রীকাতর সেই ইহুদি-কন্যার সাথে সাক্ষাতের কথা আলোচনা করা হয়েছে।

    ?তৃতীয় শিরোনাম ‘পৃথিবীজুড়ে অন্ধকার’ শিরোনামে এ অধ্যায়ে ইয়ামানের গভর্নর আবরাহার বিশাল হস্তিবাহিনী নিয়ে বায়তুল্লায় আক্রমণ, আল্লাহ তায়ালার নির্দেশে ঝাঁকে ঝাঁকে ছোট্ট পাখির কংকর নিক্ষেপের মাধ্যমে হস্তিবাহিনী ধ্বংস হয়ে যাওয়ার ঘটনা বর্ণনা করা হয়েছে।

    ?বইয়ের চতুর্থ শিরোনাম ‘আমেনার আলোশিশু’। এখানে রাসূল (স:) এর জন্মের সময়কার বর্ণনা দেয়া হয়। শুরু হয় সর্বকালের শ্রেষ্ঠ মহামানবের দুনিয়ার জীবনের অগ্রযাত্রা।

    ?এভাবে বইতে ৫২ টি শিরোনামের মাধ্যমে রাসূল (স:) এর পুরো জীবনকাহিনী তুলে ধরা হয়। প্রতিটি শিরোনামের নামকরণ করা হয়েছে আকর্ষণীয় শব্দ দ্বারা। যেন সেই শিরোনাম দেখলেই পুরো লেখা পড়তে ইচ্ছা করে।
    .
    ▶ব্যক্তিগত অনূভুতি:-
    ব্যক্তিগত অনূভুতি যদি বলতে হয় তাহলে বলবো বইটি এককথায় অসাধারন। বইয়ের প্রতিটি পাতায় রয়েছে লেখকগণের কঠোর পরিশ্রমের ছোয়া। সঠিক শব্দচয়ন, মজবুত ও পাকাপোক্ত শব্দের গাঁথুনি বইটিকে নিয়ে গেছে এক  অনন্য উচ্চতায়। বইয়ের প্রতিটি বাক্যই যে অভূতপূর্ব ভালোলাগায় সম্মোহিত করে রাখবে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত। বইটি পড়তে গিয়ে পাঠক কোথাও বিরক্তবোধ করবেন না। নিজের অজান্তেই হারিয়ে যাবেন সীরাতের অজানা ভুবনে। মনে হবে, নতুন করে জানছেন রাসূল (স:) কে।
    বইটি পড়ার পর পাঠক আরো বুঝতে পারবেন রাসূলের দুনিয়ার জীবন কেমন ছিল। জানতে পারবেন রাসূল (স:) এর আচার আচরণ ও কর্মপন্থা সম্পর্কে। যা আমাদের জন্য অনুসরণীয়।
    এমন খুব কম বই আছে যার প্রতিটি বাক্য ভালো লাগার, প্রতিটি পাতায় মিশে থাকে জ্ঞানের ছোয়া ও শিক্ষণীয় মেসেজ ” মুহাম্মদ হৃদয়ের বাদশা ” বইটি তার মধ্যে অন্যতম। সত্যি তো রাসূল (স:) এর দুনিয়াবী জীবনের থেকে শিক্ষনীয় তো আর কিছু নেই। রাসূল (স:) এমন একজন মানুষ যাকে অনুসরণ করলে দুনিয়ার জীবন পরিচালনা করলে সুখ ও শান্তির পথে চলা সম্ভব।
    সব মিলিয়ে বইটি খুবই ভালো এবং উপকারী। তাই সকল পাঠকের প্রতি অনুরোধ বইটি একবার হলেও পড়ুন আর জীবনকে রাঙিয়ে তুলুন রাসূল (স:) এর জীবন ও আদর্শের আলোকে।
    .

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?