মেন্যু


কবি না কবিতা হবো

প্রকাশনী : পড় প্রকাশ

যে সমস্ত কওমি তরুণ লিখতে চায়, শব্দের বুননে তৈরি করতে চায় স্বপ্নের প্রাসাদ, মিডিয়ায় কাজ করার উদ্দাম প্রেরণা যাদের তাড়িয়ে বেড়ায় প্রতিদিন, পরিচিত গণ্ডির দেওয়াল তাদের ভাঙতে হয়। তারচেয়ে দরকারি ভাঙন হলো নিজেকে ভাঙা। নিজের বোধ, চেতনা ও মননকে ভাঙা। সুনির্দিষ্ট চিন্তা ও লক্ষের আলোকে যে নিজেকে যতটা ভাঙতে পারে, সে ততটাই সফল হয়। এই ভাঙনটাই তার সফলতার জাদুকাঠি হিসেবে কাজ করে।

নিজেকে কখন, কোথায়, কীভাবে, কতটুকু ভাঙতে হয়—তারই বিশদ বর্ণনা দিয়েছেন সাহিত্যিক আলেম মাওলানা মুহাম্মদ যাইনুল আবিদীন। শুধু সাহিত্য নয়, জীবন ও সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে নিজেকে কতটুকু ভাঙার অধিকার ইসলাম আমাকে দিয়েছে, তার মানচিত্রও এঁকে দিয়েছেন তিনি।

পরিমাণ

27  50 (46% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
প্রসাধনী
- ১৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

1 রিভিউ এবং রেটিং - কবি না কবিতা হবো

5.0
Based on 1 review
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    #বইটি_কী_নিয়ে_লেখাঃ
    ‘কবি না কবিতা হবো ‘ একটি অলিখিত গল্পের লিখিত রুপ। নিজেকে কখন, কোথায়, কীভাবে, কতটুকু ভাঙতে হয় তার ই বিশদ বর্ণনা দিয়েছেন সাহিত্যিক আলেম মাওলানা মুহাম্মদ যাইনুল আবিদীন। শুধু সাহিত্যে নয়, জীবন ও সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে নিজেকে কতটুকু ভাঙার অধিকার ইসলাম আমাদের দিয়েছে তার ই মানচিত্র তুলে ধরা হয়েছে বইটিতে।

    #বইয়ের_আলোচনাঃ
    কথায় কথায় হয়ে যায় অনেক কথা। জানা হয় নানান বিষয়৷ সহজ সাবলীল ভাষায়, তরুণদের সঙ্গে গল্পচ্ছলে বলে গেছেন অনেক কথা। আমরা মনে করি জীবনে উন্নত, খ্যাতি লাভ করতে হলে প্রাতিষ্ঠানিক ও একাডেমিরপড়া পড়া ছাড়া আর কোনো বিকল্প নাই৷ একাডেমির বই আর পড়াশোনা আমাদেরকে এমন ভাবে আবদ্ধ করে রাখে যে আমাদের চিন্তা চেতনা ও মন-মানস বিকশিত করার কোনো ভাবনা উদিত হয় না। এই পরিমন্ডলে বাইরের কিছু ভেতরে প্রবেশের এবং ভেতরের কিছু বহির্গমনের অনুমতি পায় না৷ পৃথিবীর সঙ্গে তাদের এবং তাদের সঙ্গে পৃথিবীর কোনো সংযোগ থাকে না৷
    অথচ, আমরা যদি সমগ্র পৃথিবীর সেরা ও বিজ্ঞ মনীষিদের জীবনী অধ্যয়ন করি তবে স্পষ্টতই দেখতে পাবো, প্রাতিষ্ঠানিক ও একাডেমিক শিক্ষা কোনো কালেই তাদেরকে পরিতুষ্ট করতে পারেনি। ক্ষুদ্র একটি জ্ঞানের জগতে তাদেরকে বন্দি করে রাখতে পারেনি।
    আমাদের মনে রাখতে হবে শ্রেণীর এই পাঠ্য বই দিয়ে কখনোই একজন সফল মানুষ হয়ে উঠা যায় না৷ যারা আকাশ চুম্বী স্বপ্ন দেখে এবং আগামী দিনে নতুন কিছু করার প্রত্যয় ধারণ করে তাদের সকলকে পড়তে হবে এবং পড়তেই হবে। লেখক, সাহিত্যিক, সাংবাদিক, গবেষক-সবার ক্ষেত্রেই এটা সমান সত্য।
    যে-সকল মনীষীকে আমরা আজ কবিতার মতো চর্চা করছি, এই পাঠ্যপুস্তক তাঁদেরকেও কখনো তৃপ্ত করতে পারেনি। তাঁর প্রতিষ্ঠানও তাকে ক্ষুদ্র দেউড়িতে আবদ্ধ করে ফেলতে পারেনি। চাই তিনি অক্সফোর্ড, আল আজহার, উম্মুল কোরা, দারুল উলুম দেওবন্দ, হাটহাজারি অথবা অন্য কোনো নামী প্রতিষ্ঠানের ছাত্র হোন না কেনো!
    এখানে যে বিষয় টি সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে – শিক্ষক, লেখক, গবেষক, বক্তা ও আলোচক শ্রেণীর সকলেই কিন্তু পাঠক। কেননা ভালো পাঠক হওয়া ছাড়া উপরোক্ত কোন কাজই সুচারুরূপে সম্পন্ন করা যায় না। একজন ভালো পাঠক ই পারে ভালো শিক্ষক, লেখক, বক্তা ইত্যাদি হতে৷ যার ফলে তাকে যারা অনুসরণ করে তারা ক্ষণে ক্ষণে তাকে মনে করবে।
    কিন্তু আমরা এমন এক শ্রেনীর মানুষ যে পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি যদি অন্য বই পড়াকে নিছক বিলাসিতা বলে মনে করি। পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি যে অন্য বই পড়াও গুরুত্বপূর্ণ সেইটা কোনো ভাবেই আমরা বুঝতে চাই না। এই বইটাতে সেই কথাই বলা হয়েছে। একাডেমিক বই ছাড়া সব বই পড়াকে ও সমান গুরুত্ব দিতে হবে। তবে বয়সের সাথে উপযোগী বই বাছাই করতে হবে।

    #প্রিয়_কলামঃ
    ১.প্রিয় পাঠ্য বানাব কুরআনুল কারিম ও রাসুল সাঃ এর সিরাত৷ আমাদের মূল কাজ হলো কুরআন হাদিস বুঝা। সবসময়, সর্বাবস্থায় পড়া৷
    ২. একজন ভালো আদর্শ শিক্ষক হয়ে ছাত্রের মনে জায়গা করে নিতে হলে অবশ্যই তাকে ভালো পাঠক হতে হবে। বেশি পড়তে হবে।
    ৩. যারা পাঠ্যপুস্তকে সীমিত থাকবে না, উপযুক্ত সময়ে তারা পাঠের উন্নতি করবে।
    ৪. সুরত কখনোই হাকিকতের সামনে টিকতে পারে না।তাই পড়তে হবে।
    ৫. হারিয়ে যাওয়ার জন্য নয়, বরং পথ দেখানোর জন্য পড়ব। জ্ঞান চর্চার জন্য পড়ব। এমন সংকল্প নিয়ে ই পড়তে হবে।
    ৬. আমরা পৃথিবী নিয়ন্ত্রণ করবো – এই টা ই একমাত্র লক্ষ ও সংকল্প করে পড়তে হবে।
    ৭. দাড়িয়ে থেকেও ছাড়িয়ে যেতে হবে।
    ৫. এমন একটা গাছ হতে হবে- যে গাছ এতটা প্রসারিত হবে, তা শুধু বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়াই নয়; বরং তাবৎ পৃথিবীর সকল মুসলমানের ছায়া হবে। ওই গন্তব্যের শুরু শেষ সবটাই রাসূল সাঃ এর ছায়ায় থেকে করতে হবে৷

    #বইটি_কেন_পড়বেনঃ
    বইটি আপনার চলার পথে আলো ফেলবে। চোখ নয়, মনটাও আলোকিত হয়ে উঠবে। জানতে পারবেন একাডেমিক বই ছাড়াও অন্য বই পড়ার গুরুত্ব। সুন্দর এক পৃথিবী গড়ে তোলা যে আমাদের পক্ষেই সম্ভব। সে জন্য আমাদের শিক্ষাক্ষেত্র এবং প্রাতিষ্ঠানিক লাইব্রেরি কেমন হওয়া উচিত। বইটি পড়ে জানতে পারবেন জিবনে উন্নত লাভ করতে বই পড়ার গুরুত্ব কত টুকু।

    #ভালো_লাগাঃ
    বইয়ের নাম, প্রচ্ছেদ দেখে ই বইটি কেনা। কিন্তু সব থেকে বেশি ভালো লেগেছে লেখকের চমৎকার লেখা। এত সুন্দর ভাবে বুঝিয়েছেন যে বইটি পড়ার পড় থেকে আমার আর ইচ্ছা নাই কবি হওয়ার। আমি কবিতা হতে চাই৷ ছোট বেলায় টুক টাক কবিতা লিখতাম স্বপ্ন ছিলো কবি হবো।

    #লেখক_পরিচিতঃ মুহাম্মদ যাইনুল আবিদীন জন্ম ২০ নভেম্বর ১৯৬৭, মুন্সীগঞ্জ দাওরায়ে হাদীস ও আরবি সাহিত্যে উচ্চতর ডিগ্রি, দারুল উলুম দেওবন্দ পেশা : শিক্ষকতা প্রিয় শহর : মক্কা মুকাররামা ও মদীনা মুনাওয়ারা।

    #শেষকথাঃ
    অনেক কম মূল্যের একটি বই, মাত্র ৫০টাকা! ছাড়ে ৩০-৪০ টাকায় পেয়ে যাবেন। আর পড়ার ব্যাপারে যে পরিমাণ উৎসাহ পাবেন তা হাজার টাকা দামের বই এ ও পাওয়া সম্ভব না বলে আমার মনে হয়। তাই আমাদের কে আগে পাঠক হতে হবে। ভালো পাঠক।

    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top