মেন্যু


যুহুদ প্যাকেজ

জনৈক ব্যক্তি রসূল ﷺ এর নিকট এসে বলল, ‘হে আল্লাহর রসূল ﷺ ! আমাকে এমন একটি আমল বলে দিন; যা আমি করলে আল্লাহ আমাকে ভালোবাসবেন এবং মানুষও আমাকে ভালোবাসবে। তখন তিনি ﷺ বললেন- দুনিয়া বিমুখতা অবলম্বন করো; তাহলে আল্লাহ তোমাকে ভালোবাসবেন। আর মানুষের নিকট যা আছে, সেগুলোর ব্যাপারে নির্মোহী হও; তাহলে মানুষ তোমাকে ভালোবাসবে।'(সুনান ইবন মাজাহ)
.
“এত এত বই আসছে, কোনটা রেখে কোনটা কিনবো?!” বর্তমানে এরকম দোদুল্যমান পরিস্থিতিতে পড়াটা অস্বাভাবিক নয়। সত্যি বলতে এত বই পড়ে কোনো লাভ নেই যদি না সেই অধ্যয়ন আমাদেরকে আল্লাহর নিকটবর্তী করে, আল্লাহকে ভালোবাসতে শেখায়। আল্লাহর ভালোবাসা, তাঁর রহমত ব্যতীত কোন পাঠক উপকৃত হতে পারে না, কোনো আমলকারী স্বীয় আমল দিয়ে জান্নাত পাবে না। আল্লাহর ভালোবাসা অর্জন হয় কেবল দুনিয়ার বিমুখতার দ্বারা। দুনিয়া বিমুখতা আত্মার পরিশুদ্ধির জন্য সর্বশ্রেষ্ঠ আমল। লোভ লালসা, অহংকার, হিংসা, রিয়া, কুনজর, ব্যভিচার, চুরি, হত্যা- সকল ফাসাদের সমাধান হচ্ছে দুনিয়া বিমুখতা।
তাই মাকতাবাতুল বায়ানের সৌজন্যে দুনিয়া বিমুখতার ওপর সবচে’ প্রাচীনতম বই ইমাম আহমাদের  কিতাবুয যুহুদের বাংলা রূপ ‘রাসূলের চোখে দুনিয়া‘ ,  ‘সাহাবিদের চোখে দুনিয়া‘, এবং তাবিয়িদের চোখে দুনিয়া—এই ৩টি বইয়ের অবলম্বনে ‘যুহুদ প্যাকেজ’ নিয়ে আপনাদের সামনে আমরা উপস্থিত হয়েছি।

Out of stock

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

9 রিভিউ এবং রেটিং - যুহুদ প্যাকেজ

4.6
Based on 9 reviews
5 star
55%
4 star
44%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    ‘বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম ‘

    “আমার বন্ধুদের মধ্যে আমার নিকট সবচেয়ে সৌভাগ্যবান সেই মুমিন— যার পার্থিব অবস্থা নগন্য, সালাতের পরিমাণ অধিক, যে উত্তমরূপে স্বীয় রবের দাসত্বকারী, মানুষের নিকট সুপ্ত— যার ফলে লোকেরা তাকে খুব একটা গুরুত্ব দেয় না, যার মৃত্যু হয় দ্রুত, উত্তরাধিকার সম্পদ থাকে অল্প ও (মৃত্যুর পর) কান্নাকাটি করার লোক থাকে কম।”

    [আবূ উমামা বাহিলি(রদিয়াল্লাহু আনহু) থেকে এটি বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) আল্লাহ তায়া’লার এ বক্তব্যটি পাঠ করে শুনিয়েছেন; বই: রাসূলের চোখে দুনিয়া]
    ———
    মাঝে মাঝে এমন কিছু সময় আসে আমাদের জীবনে ধরাবাঁধা কোনো কিতাবে মন বসে না, অথবা এক বসায় একটি সম্পূর্ণ বই পড়ে ফেলার মত ইচ্ছাও কাজ করে না। এমন হয় যে দুনিয়ার কোনো যন্ত্রণা আপনাকে খুব পোড়াচ্ছে, কোনো বিষয়ে খুব করে হতাশা ঘিরে ধরেছে কিংবা দুঃখ; ব্যাপারখানাও এমন যে কাউকে বলাটাও সুবিধাজনক হবে না, কিন্তু কারো উত্তম নসীহা পেলে হয়তো অন্তরটা প্রশান্ত হয়ে যেত।
    নসীহার তো সৌন্দর্যই এই যে তা অনেক শব্দবহুল দীর্ঘ হবে না, শ্রোতার বিরক্তি উদ্রেক করবে না, কিন্তু যাকে উদ্দেশ্য করে বলা হচ্ছে তার হৃদয়ে গিয়ে ঠাণ্ডা হাওয়া দিবে। আমাদের পূর্বসূরিরা এভাবেই একে অপরকে উপদেশ দিতেন, এমনকি তাদের জীবনযাপনের প্রতিটি চিত্রই আমাদের জন্য সর্বোত্তম উপদেশ।
    আমাদের পূর্বসূরিদের কথা ও কর্মসম্বলিত ঠিক এমনই একটি গ্রন্থ ‘কিতাবুয যুহ্দ’, এটি কারো কারো জন্য হতে পারে উত্তম নসীহা। যখনই কেউ দুনিয়া আর দ্বীনের ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে, দীর্ঘ প্রত্যাশার দরুন হাঁপিয়ে ওঠে, আমি তাকে ‘কিতাবুয যুহদে’র অনুবাদ তিনটি সাজেস্ট করি। তাঁর কারণ এই যে আমি নিজে এর উপরে আমলের চেষ্টা করি, যখনই ট্র‍্যাক হারিয়ে ফেলি। এটা এমন কোনো বই না যে আপনি একেবারে পুরোটা পড়ে রেখে দিলেন, ব্যস আপনার সব জ্ঞানার্জন হয়ে গ্যাছে!! বরং আপনি যখনই ব্যস্ততার দরুন হাঁপিয়ে উঠবেন, নয়তো কোনো হতাশায় ভুগবেন কিংবা কোনো সমস্যায় পড়বেন, আপনি এর যে কোনো একটি খণ্ডের যে কোনো একজন রাসূল কিংবা সাহাবী কিংবা তাবিয়ির যুহদ সম্পর্কে কিছু অংশ পড়তে থাকুন। ইন শা আল্লাহ আপনি আপনার কাঙ্ক্ষিত সমস্যার সমাধান পেয়ে যাবেন, সরাসরি সমাধান না পেলেও আপনার সমস্যাটির ব্যাপারে নতুন করে ভাবতে শিখবেন, যেভাবে ভেবেছেন তাঁরা, যাঁরা আমাদের পূর্বে ঈমান নিয়ে গত হয়েছেন।
    .
    যেই মুহূর্তে লিখছি তখনো আমার বিছানায় এটি আমার পাশেই অবস্থান করছে। যে কোনো সময় যে কোনো পৃষ্ঠা খুলে পড়া শুরু করি, নানা কারণে অশান্ত হওয়া অন্তর প্রশান্ত হতে থাকে আল্লাহর ইচ্ছায়, মনে হয় চোখের সামনে আল্লাহর এই বান্দাদের যেন দেখতে পাচ্ছি, যাঁদের মাধ্যমে পেয়েছি নববী শিক্ষা আর আদর্শের মানদণ্ড। একই পৃষ্ঠা যে কতবার পড়েছি, নসীহা! উত্তম নসীহা! আল্লাহর কিতাব, তাঁর রাসূলগন, সাহাবী, তাবিয়িদের জীবনী এবং উপদেশকে আঁকড়ে ধরলে আশা করা যায় আল্লাহ রব্বুল আ’লামীন তাঁর বান্দাদের পথহারা করবেন না৷
    .
    #গ্রন্থটি নিয়ে কিছু কথাঃ
    ———
    এখন আসি এই তিনটি খণ্ডের ব্যাপারে একসাথে বলার কারণ কি? তা হচ্ছে, এটি মূলত ইমাম আহমাদ রহিমাহুল্লাহর একটি গ্রন্থেরই অনুবাদ এবং তিনটি অংশে পর্যায়ক্রমে অনূদিত হয়েছে। মূল গ্রন্থ ‘কিতাবুয যুহদে’র নবী-রাসুলদের বর্ণনাগুলো অনুবাদ করা হয়েছে ‘রাসূলের চোখে দুনিয়া’ নামক গ্রন্থাকারে, সাহাবিদের বর্ণনাগুলো এসেছে ‘সাহাবিদের চোখে দুনিয়া’ এবং তাবিয়িদের বর্ণনাগুলো অনূদিত হয়েছে ‘তাবিয়িদের চোখে দুনিয়া’ নামক গ্রন্থাকারে। নববী শিক্ষার এই ধারাবাহিকতা জানার জন্য তিনটি অনুবাদই পড়া কাম্য। এই অসামান্য গ্রন্থটি আমাদের সেই সব শ্রেষ্ঠ মানুষদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়, যাঁরা দুনিয়ার সত্যিকার হাল-হাকিকত বুঝতে পেরেছেন, যারা আল্লাহর কিতাবকে এবং রাসূলের সুন্নাহকে সেভাবেই ভালোবেসেছেন যেভাবে ভালোবাসা উচিত। ‘যুহদ’ অর্থই যেহেতু ‘দুনিয়াবিমুখিতা’, বোঝাই যাচ্ছে এই কিতাবের শিক্ষা ও এর বাস্তবায়ন আপনাকে দুনিয়াদারিতা থেকে মুক্তি দিতে পারে, আল্লাহ চাইলে। সেই সাথে ইবাদতে একনিষ্ঠতা এবং আত্মশুদ্ধির মতো বিষয়গুলোও আল্লাহর যাহেদ বান্দাদের কথা-কাজ দ্বারা শেখা সম্ভব হবে। একজন ‘যাহেদ’ বা দুনিয়াবিমুখ বান্দা হওয়ার জন্য অবশ্যই তাঁদেরকে অনুসরণ করতে হবে, যারা দুনিয়ার এই কণ্টকাকীর্ণ পথ পাড়ি দিয়েছেন যুহদের অধ্যাবসায়ে। তাঁদের ধ্যানজ্ঞান, দুনিয়ার উপর তাঁদের মুসাফিরের ন্যায় জীবনযাপন আমাদের নতুন করে ভাবতে শেখাবে। নয়তো দুনিয়ার চাকচিক্য আমাদের বরাবরের মত হতাশ করে ছাড়বে, অপদস্থ করে ছাড়বে!
    ইবনুল কায়্যিম আল-জাওজিয়াহ রহ. বলেছেন, যাহেদের বৈশিষ্ট্য হবে এরূপ: ‘হে আল্লাহ, আমরা তোমারই ইবাদত করি এবং তোমার কাছেই সাহায্য প্রার্থনা করি।’ আর প্রকৃত যাহেদের স্বরূপ খোঁজার জন্য এই গ্রন্থটি উত্তম। মা শা আল্লাহ।
    আবারো বলবো, এই কিতাবটির বিশেষত্বই এই যে, আমি যখন যেখান থেকে ইচ্ছা শুরু করে, যতটুকু খুশি পড়ে রেখে দিতে পারি এবং গভীর ভাবনায় ডুব দিতে পারি। এটি যেহেতু মূলত হাদীস-সংক্রান্ত গ্রন্থ, সাধারণ লেখকদের লেখনীর বাহুল্য এবং অপ্রয়োজনীয় ভাবাবেগ থেকে এটি মুক্ত বলা যায়। আল্লাহ রব্বুল ইজ্জত যেন আমাদেরকে তাদের পথ দেখান, যাদেরকে তিঁনি তাঁর পক্ষ থেকে নিয়ামত দান করেছেন। আহা আমাদের গত হয়ে যাওয়া অতীত!
    .
    #অনুবাদ বিষয়ক বাকি কথাঃ
    ———-
    ‘যুহুদ প্যাকেজ’—প্যাকেজ আকারে একত্রে তিনটি খণ্ডের দাম: ৬৯৬ টাকা (অনলাইন পরিবেশক: ওয়াফি লাইফ)
    ‘যুহুদ প্যাকেজ’— ‘কিতাবুয যুহ্দ’ এর অনুবাদ আকারে যে তিনটি বই প্রকাশিত হয়েছেঃ
    ১ম খণ্ড: রাসূলের চোখে দুনিয়া (অনুবাদ: জিয়াউর রহমান মুন্সী)
    ২য় খণ্ড: সাহাবিদের চোখে দুনিয়া
    (অনুবাদ: আবদুস সাত্তার আইনী)
    ৩য় খণ্ড: তাবিয়িদের চোখে দুনিয়া
    (অনুবাদ: আলী হাসান উসামা, আব্দুল্লাহ আল মাসউদ)

    এই গ্রন্থের অনুবাদ যারা করেছেন তাদেরকে আল্লাহ উত্তম প্রতিদান দিন, বারাকাহ দিন। কতোই না সহজ, সাবলীল অনুবাদ মা শা আল্লাহ। বইটিতে বুখারী, মুসলিমসহ অন্যান্য পরিচিত হাদীসগ্রন্থের উদ্ধৃতি নেই, তার কারণ এ সকল হাদীস গ্রন্থ রচিতই হয়েছে আহমাদ ইবনু হাম্বালের পর। ইমাম বুখারী, মুসলিম ও আবু দাঊদ তাঁর ছাত্র ছিলেন। তিনি নিজেই ছিলেন হাদীসশাস্ত্রের একজন প্রথম সারির মুজতাহিদ ইমাম।

    # রেটিং: এই গ্রন্থের রেটিং দেয়ার যোগ্যতা আমার নেই, এই জন্য যে— যাঁদের কথা এখানে আলোচিত হয়েছে তাদের একজনকেও যদি অন্তত স্বপ্নে দেখতাম, তবু কিছুটা স্বস্তি পেতাম!

    আলহামদুলিল্লাহি রব্বীল আ’লামীন।
    আল্লহুম্মা সল্লি ‘আলা মুহাম্মাদিও ওয়া ‘আলা আ-লি মুহাম্মাদ।

    7 out of 8 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    বইগুলো অসাধারণ। হাদিসের রেফারেন্স দিলে আরও ভালো হতো।
    2 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 4 out of 5

    :

    অনলাইন জগতের অগণিত খারাপ প্রভাবগুলোকে ছাপিয়ে দ্বীন সম্পর্কে জানতে আগ্রহী ভাই-বোনদের কাছে দ্বীনের জ্ঞানকে পৌঁছে দেয়ার জন্য ওয়াফি লাইফ বা এরকম যারাই এই উদ্যোগ নিয়েছে তাদের জন্য আল্লাহর কাছে দু’আ রইলো, আল্লাহ তাদেরকে কবুল করুন, তাদের কাজে বারাকাহ দান করুন, এবং এর উত্তম প্রতিদান দান করুন।
    আলহামদুলিল্লাহ, আমি ওয়াফি লাইফ থেকে কিতাবুয যুহুদ অর্ডার করার পর কম সময়ে ডেলিভারি পেয়েছি। বইগুলো এখনো পড়া হয় নি।
    6 out of 6 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    :

    ভালো বই সকলের পড়া উচিত। দেখি সংকট কাটিয়ে কিনতে পারি কিনা ।
    6 out of 8 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No