মেন্যু


যেসকল হারামকে অনেকেই তুচ্ছ মনে করে

পৃষ্ঠা : 144, সংস্করণ : 1st Published, 2018

পাপ যখন ব্যক্তিগত পর্যায়ে থাকে তখন এর ক্ষতি কেবল ব্যক্তি নিজেই ভুগে। তার মনে হয়ত এর জন্য অনুশোচনা বোধ থাকে। ফলে তাওবার সুযোগ থাকে। কিন্তু যখন সেই পাপ সামাজিকভাবে প্রচলিত হতে শুরু করে, তখন মানুষ ভুলতে থাকে ‘এটা মূলত পাপ’। আমাদের সমাজে এমন অনেক বিষয় আছে, যা মানুষ স্বাভাবিকভাবেই করে যাচ্ছে, অথচ সেগুলো স্পষ্টত হারাম। মনে নেই কোনো আফসোস, নেই কোনো তাওবার অনুশোচনা। ফলে আমৃত্যু মানুষ সেগুলো হালাল ভেবে করতে থাকে।

.
শায়েখ সালেহ আল-মুনাজ্জিদ (হাফি.) সৌদির বিখ্যাত একজন আলেমে-দ্বীন। তিনি বইটিতে সেই বিষয়গুলো কুরআন সুন্নাহের দলিলের আলোকে তুলে ধরেছেন, যেসব হারামকে অনেকেই তুচ্ছ মনে করে।
পরিমাণ

145  250 (42% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
জিলহজ্জ স্পেশাল গ্যাজেটস
- ১৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

2 রিভিউ এবং রেটিং - যেসকল হারামকে অনেকেই তুচ্ছ মনে করে

5.0
Based on 2 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভালোলাগা_জুলাই_২০২০

    #বইঃ যেসকল হারামকে অনেকেই তুচ্ছ মনে করে,
    লেখক : মুহাম্মাদ সালেহ আল মুনাজ্জিদ,

    #প্রারম্ভিকাঃ
    ইসলামে প্রত্যেকটি বিষয়ের জন্য আছে সুনির্দিষ্ট নিয়ম-কানুন। ঘুমানো থেকে শুরু করে সমাজনীতি, অর্থনীতি সব বিষয়েই ইসলামের আছে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা। তাই ইসলাম গুটিকয়েক ইবাদত আর উৎসবের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না। তাইতো ইসলাম ধর্ম না দ্বীন অর্থাৎ পরিপূর্ণ জীবনব্যাবস্থা। ঠিক একইভাবে ইসলামে হালাল-হারাম বিষয়গুলো নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে। কিছু সংখ্যাক হারাম ছাড়া সবকিছুই হালাল। কিন্তু এই কিছু সংখ্যক হারাম কাজ থেকেই আমরা বিরত থাকতে পারি না! আবার আমাদের অনেকের জানাই নেই এই বিষয়ে! এই কাজকে সহজ করে দিতে লেখক ও বিশিষ্ট দাঈ মুহাম্মাদ সালেহ আল মুনাজ্জিদের ‘যেসকল হারামকে অনেকেই তুচ্ছ মনে করে’ বইটি কার্যকরি।

    #বইটিতে_যা_আছেঃ
    আমাদের সমাজে প্রচলিত মারাত্মক কিছু হারাম করজ যা আমরা অনেকেই হালাল মনে করি এমন বিষয়গুলো নিয়ে বইটি সাজানো। বইটিতে মোট ৭০টি হারাম কাজের বর্ণনা দেয়া হয়েছে যা আমাদের সমাজে অহরহ হচ্ছে। বিষয়গুলোকে আমরা একদমই স্বাভাবিক মনে করি। লেখক এই হারাম কাজগুলো কুরআন- হাদিস দ্বারা প্রমানিত করেছে।

    #বর্তমান_প্রেক্ষাপটে_বইটিঃ
    বর্তমানে মুসলিমরা মোটাদাগে কিছু বিষয়কে হারাম মনে করে। কিন্তু এর বাইরেও যে অনেক বিষয় হারাম আছে সে বিষয়টিই পরিষ্কার করে দিয়েছেন লেখক বইটিতে। বর্তমান যুগের জন্য বইটি যুগোপযোগী। ইসলামকে পরিপূর্ণভাবে মাবতে চাইলে এই হারামগুলো থেকে বেঁচে থাকা জরুরি।

    #বইটি_পড়ে_আমার_পরিবর্তনঃ
    বইটি পড়ে আমার ভিতর পরিবর্তন এসেছে। এই বইতে অনেক বিষয় আছে যা আমার জানা ছিল না হারাম। বইটি পড়ে আমি হারাম বিষয়গুলোকে জানতে পারি এবং নিজেকে সংশোধন করতে পারি৷

    #কাদের_পড়া_উচিতঃ
    বইটি সকল মুসলিমের পড়া উচিত। প্রচলিত হারামগুলো থেকে বাঁচতে বইটি অমূল্য। বইটি পড়লে বুঝতে পারবেন কাজগুলোকে আমরা কতটা তুচ্ছ করি অথচ এই কাজ সম্পর্কে কুরআন – হাদিসের বানী কত কঠিন!

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভাল_লাগা_জুন_২০২০

    ব‌ই :যেসকল হারামকে অনেকেই তুচ্ছ মনে করে
    লেখক : মুহাম্মাদ সালেহ আল মুনাজ্জিদ
    প্রকাশনী : আর রিহাব পাবলিকেশন
    বিষয় : হালাল হারাম
    পৃষ্ঠা ১৪৪
    মূল্য:২৫০ টাকা-৪০% ছাড়=১৫০ টাকা

    **সারসংক্ষেপ**
    ________________
    আমাদের সমাজে অনেক নিষিদ্ধ বিষয়‌ও কালক্রমে অনুমোদিত হয়ে যায়। জানি হারাম, কিন্তু অনেকে করছে, দেখতে দেখতে সেই হারাম কাজটা আর খারাপ লাগে না। কারণ সমাজে এতোটাই প্রচলন শুরু হয়ে যায়,যে ওই হারাম কাজ আর হারাম মনে হয় না।যেমন ধরুন- জন্মদিন পালন, গায়ে হলুদ, মেহেদী সন্ধ্যা অনুষ্ঠান, বিভিন্ন দিবস পালন,কুলখানি অনুষ্ঠান এগুলো কি আমাদের কাছে এখন আর হারাম মনে হয়?বহু দ্বীন মেনে চলা নামাজী পরিবারেই এগুলো কিছু মনে করা হয় না। সমাজের আর দশজন করছে,তাই আমরাও করি। কিন্তু হালাল হারামের বিষয়ে চিন্তা করি না।আরে এতো ছোটখাটো বিষয় ধরলে চলে না।
    কিন্তু না, ইসলাম আমাদের সেই শিক্ষা দেয় না, হারামকে হারাম‌ই মনে করতে হবে। সেটা যত ছোট বিষয়ই হোক।
    পাপ যখন ব্যক্তিগত পর্যায়ে থাকে তখন এর ক্ষতি কেবল ব্যক্তি নিজেই ভুগে। তার মনে হয়ত এর জন্য অনুশোচনা বোধ থাকে। ফলে তাওবার সুযোগ থাকে। কিন্তু যখন সেই পাপ সামাজিকভাবে প্রচলিত হতে শুরু করে, তখন মানুষ ভুলতে থাকে ‘এটা মূলত পাপ’। কারণ সেগুলো দেখতে দেখতে মানুষ অভ্যস্ত হয়ে যায়। আমাদের সমাজে এমন অনেক বিষয় আছে, যা মানুষ স্বাভাবিকভাবেই করে যাচ্ছে, অথচ সেগুলো স্পষ্টত হারাম। মনে নেই কোনো আফসোস, নেই কোনো তাওবার অনুশোচনা। ফলে আমৃত্যু মানুষ সেগুলো হালাল ভেবে করতে থাকে।
    ∆ভাগ্য গণকের কাছে যাওয়া
    ∆আল্লাহর সাথে শরীক করা
    ∆রাশিফল বিশ্বাস করা
    ∆লোক দেখানো ইবাদত
    ∆নামাজে বেশি বেশি নড়াচড়া করা
    ∆বিভিন্ন দিবস পালন করা
    ∆গীবত, চোগলখোরী
    ∆আমানত খিয়ানত করা
    ∆অশ্লীল ছবি তোলা ও দেখানো
    ∆বি’দাত কাজ করা
    এমন অনেক বিষয় আছে যেগুলো আমরা হারাম মনেই করি না। প্রতিনিয়তই আমারা সেগুলো করতে দেখছি এবং করছি। তাই এসব ছোটখাটো বিষয় হারাম মনে না করে আমরা প্রতিনিয়ত এই করে যাচ্ছি।যেগুলো আমাদের গুনাহের পাল্লা ভারী করে দিচ্ছে কিন্তু আমরা সচেতন হচ্ছিনা তওবাও করছি না।

    শায়েখ সালেহ আল-মুনাজ্জিদ (হাফি.) সৌদির বিখ্যাত একজন আলেমে-দ্বীন। তিনি বইটিতে সেই বিষয়গুলো কুরআন সুন্নাহের দলিলের আলোকে তুলে ধরেছেন, যেসব হারামকে অনেকেই তুচ্ছ মনে করে।

    তাই আসুন ব‌ইটি পড়ি, এইসব হারাম কাজ সম্পর্কে জানি।
    এইসব হারাম থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে সমাজের প্রচলিত ভুল সংশোধনের দায়িত্ব আমার, আপনার, আমাদের সকলের।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top