মেন্যু


ঈমানের দুর্বলতা

দুর্বল ঈমানদার তার অন্তরের কাঠিন্যের বিষয়টা অনুভব করতে পারে। আল্লাহ বলেন,
“অতঃপর এ ঘটনার পরে তোমাদের অন্তর কঠিন হয়ে গেছে। তা পাথরের মত অথবা তদপেক্ষাও কঠিন…” (সূরা বাক্বারাহ ২:৭৪)

কঠিন অন্তরের ব্যক্তিকে মৃত্যুর কথা স্মরণ করিয়ে দিলে বা সে কোনো মৃত ব্যক্তি দেখলে তার কোনো ভাবান্তর হয় না। এমনকি নিজে লাশ কাঁধে বহন করে নিয়ে তাতে মাটি দিলেও নির্লিপ্ত থাকে। কবরস্থানের নিকটে হাঁটার সময় তার কাছে মনে হয় সাধারণ কিছু পাথরের পাশ দিয়ে যাচ্ছে।

ঈমান দুর্বল হলে ইবাদাতে মনোযোগ থাকে না. সালাত, তিলাওয়াত, দু'আ যদি নিয়মিত করেও, সেগুলো একঘেয়ে রুটিনের মত করে। কী আওড়াচ্ছে তার অর্থের দিকে কোনো খেয়াল থাকে না। আল্লাহ “সে ব্যক্তির দুআ কবুল করেন না যার অন্তর তাঁর প্রতি গাফেল।” (তিরমিযি, ৩৪৭৯)

তাই ঘুমিয়ে পড়া ঈমানকে জাগিয়ে তুলতে হয়, পরিচর্যা দ্বারা এর অসুস্থতা কাটিয়ে উঠাতে হয়।
ঈমানের যাবতীয় দুর্বলতা এবং এসবের চিকিৎসা নিয়ে শায়খ সালেহ আল মুনাজ্জিদের বই টঈমানের দুর্বলতাট বেশ ফলদায়ক।

পরিমাণ

73  108 (32% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
- ১৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

2 রিভিউ এবং রেটিং - ঈমানের দুর্বলতা

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    লেখক পরিচিতি : শায়খ সালেহ আল – মুনাজ্জিদ সৌদি আরবের একজন ইসলামি স্কলার। ড. জাকির নায়েকের মতে এখন পৃথিবীতে বেচে আছেন এমন শ্রেষ্ঠ একজন ইসলামি স্কলার হলেন শায়খ মুহাম্মদ সালেহ আল-মুনাজ্জিদ। বহু বই লিখেছেন তিনি। লেখকের আত্মোন্নয়নমূলক বইগুলো সারা পৃথিবীর জুড়ে বিখ্যাত। গভীর চিন্তা – বিশ্লেষণ যার বইয়ের মধ্যে ফুটে ওঠে।

    বইয়ের বিষয়বস্তু : বইটিতে মূলত
    ১. দূর্বল ঈমানের বহিঃপ্রকাশ
    ২. ঈমানের দূর্বলতার কারণ এবং
    ৩. দূর্বল ঈমানের চিকিৎসা
    এই তিনটি বিষয়ে বিষাদ আলোচনা করা হয়েছে, পূর্ন রেফারেন্স সহ। ঈমানের দূর্বলতার ২২ টি উপসর্গ, ৮ টির অধিক কারণ এবং ২০ টির অধিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে৷ প্রতিটি বিষয় গভীরভাবে বর্ননা করা হয়েছে।

    বইটিতে যা পাবেন :
    প্রথমেই রয়েছে একটি বড় ভূমিকা। ভূমিকায় ঈমানের বিষয়ে আমরা অবহেলা করি, ক্বলব এর ফিতরাত, অন্তঃকরণের কাঠিন্যতা, চিকিৎসার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আলোকপাত করা হয়েছে।

    ঈমানের দূর্বলতার বহিঃপ্রকাশ : বইটির প্রথম অংশে ঈমানের দূর্বলতার লক্ষন সমূহ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। পাপাচারে নিমজ্জিত হওয়া, হৃদয়ের কঠিনতা, কুরআনের আয়াত দ্বারা প্রভাবিত না হওয়া ইত্যাদি। ইবাদতে আর সেই তৃপ্তি পাওয়া যায় না, এর অর্থ আমাদের ঈমানে মরিচা ধরেছে। আমরা এসবকে ঈমানের ঘাটতি হিসেব দেখি না। যার ফলে আমাদের অজান্তেই ঈমান দূর্বল হয়ে পড়ে৷ এছাড়া মেজাজে ভারসাম্যহীনতা, কথা – কাজে গড়মিল, বিপদাপদে ভীতসন্ত্রস্ত হওয়া, দুনিয়ার প্রতি আকর্ষন ইত্যাদিকে ঈমানের দূর্বলতা হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। কিন্তু এই বিষয়গুলোকে আমরা গুরুত্বই দিই না।

    ঈমানের দূর্বলতার কারণ : বইয়ের দ্বিতীয় অংশে ঈমানের দূর্বলতার কারন নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে৷ ঈমানী পরিবেশ থেকে দীর্ঘ দিন দূরে থাকার ফলে আমাদের ইমানে দূর্বলতা ভার করে। এছাড়া সৎ ও অনুকরণযোগ্য ব্যক্তি থেকে দূরে থাকা ধীরে ধীরে ঈমান থেকে দুরে সরিয়ে নিয়ে যায়। শরিয়তের জ্ঞান ও ঈমানী বইপত্র থেকে দূরে থাকা, দুনিয়ার প্রতি মোহ, ধন – সম্পদ ও স্ত্রী – সন্তান নিয়ে মেতে থাকার ফলে পরকালের প্রতি উদাসীনতা তৈরি হয়। অন্তরের কাঠিন্যেতা, বেশি খাওয়া, বেশি ঘুমানো, অধিক রাত্রি জাগরন ইত্যাদি আমাদের ঈমানকে নিস্তেজ করে। এই বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিত বর্ননা করা হয়েছে বইটিতে৷

    দূর্বল ঈমানের চিকিৎসা : শেষ অংশে দূর্বল ঈমানের জন্যে অনেক গুলো চিকিৎসা দিয়েছেন লেখক। কোরান মাজিদ নিয়ে চিন্তা গবেষণা, আল্লাহর বড়ত্ব অনুভব করা। এছাড়া বেশি বেশি মৃত্যু জীবনকে স্বাদহীন করে। নেক আমলে আত্মনিয়োগ, শরীয়তের জ্ঞান অর্জন করা, বিনয়ী হওয়া, আত্নসমালোচনা করার মাধ্যমে ঈমানের দূর্বলতা থেকে মুক্তি সম্ভব। পরিশেষে আল্লাহর কাছে দুয়া করা। এছাড়া কোরান হাদিস থেকে অনেক চিকিৎসা দিয়েছেন লেখক।

    ব্যক্তিগত অনুভূতি : অশ্চর্যের বিষয় হলো আমরা সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে সবথেকে বেশি অবহেলা করছি। তা হলে ঈমান। নিজেদের অজান্তেই ঈমানে সংশয়ের দানা বাধছে৷ বইটি আমাদের চেখের সামনে প্রতিনিয়ত করা ভুলগুলোকে ভাসিয়ে তুলবে। সাথে চিকিৎসার রাস্তা বলবে। বইটি আমার কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে কারণ ঈমানের চাইতে গুরুত্বপূর্ণ আর কি হতে পারে?

    4 out of 4 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    “ঈমানের দুর্বলতা” । বইটির লেখক– শাইখ সালেহ আল-মুনাজ্জিদ । তাঁর লেখা পড়ে নিজেকে সংশোধন করতে ইচ্ছে হয়নি, এমন পাঠকের সংখ্যা খুবই কম । এই বইটিও তেমনি । অনেক কিছু পেয়েছি এই বই থেকে । পেয়েছি নিজেকে সংশোধন করার অদম্য ইচ্ছাশক্তি । বইটি প্রকাশিত হয়েছে “রুহামা পাবলিকেশন” থেকে ।

    বক্ষ্যমান এই গ্রন্থে লেখক দুর্বল ঈমানের বহিঃপ্রকাশ, ঈমানের দুর্বলতার কারন এবং এর চিকিৎসাসমূহ খুব সুন্দরভাবে তুলে ধরেছেন । বইটি পড়ে প্রত্যেক মুমিন ব্যক্তি নিজের ঈমানের দুর্বলতা কাটিয়ে ঈমানীশক্তিতে বলীয়ান হওয়ার শিক্ষা লাভ করতে পারবে ।

    গুরুত্বপূর্ণ এই বইটি তিনটি অধ্যায়ে ভাগ করা হয়েছে । প্রথম অধ্যায়টি দুর্বল ঈমানের বহিঃপ্রকাশ নিয়ে । দ্বিতীয় অধ্যায়টি ঈমানের দুর্বলতার কারণগুলি নিয়ে । এবং সর্বশেষে তৃতীয় অধ্যায়ে দুর্বল ঈমানের চিকিৎসা বিষয়ে । এসব অধ্যায়গুলোতে লেখক সেসব বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন যার মাধ্যমে একজন ব্যক্তি খুব সহজেই তার ঈমানের সামগ্রিক অবস্থা নির্ণয় করে নিতে পারবে । বিষয়গুলোকে ঈমানের দুর্বলতা মাপার ‘প্যারামিটার’ বলা যায় । যে কেউ চাইলেই এই প্যারামিটার দিয়ে তার ঈমানের অবস্থা পরিমাপ করে নিতে পারবে । একজন পাঠক ঈমান দুর্বল হওয়ার আলামতগুলো সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করতে পারবে । বিষয়গুলো সম্পর্কে ভালভাবে জেনে নিয়ে, নিজের সাথে মিলিয়ে নিতে পারবে । এমনকি ঘরোয়া তা’লিমেও এসব বিষয়ে আলোচনা করতে পারবে ।

    আমরা ইবাদত করে কেন মজা পাই না, আমল করে শান্তি কেন পাই না, কুরআন পড়ে কেন আমাদের অন্তর প্রভাবিত হচ্ছে না, কেন সহজেই গুনাহের কাজে লিপ্ত হয়ে যাই ? — এসব প্রশ্নের উত্তর এ বইয়ে খুঁজে পাবেন । এছাড়াও কীভাবে একজন দুর্বল ঈমানদার তার ঈমানকে সতেজ করতে পারে, ঈমানকে বৃদ্ধি ও মজবুত করার চেষ্টা করতে পারে সে বিষয়গুলোকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে । কি কি কাজ করলে ঈমানী দুর্বলতা দূর হয়ে ঈমান শক্তিশালী হবে তার কার্যকর ২০টি উপায় তুলে ধরা হয়েছে ।
    ===========================
    .
    বইটি পড়ে আমি খুবই উপকৃত হয়েছি । অনুবাদ ভালো লেগেছে । গোছানো, সাবলীল । অনুবাদ করেছেন “হাসান মাসরুর” । তবে অল্প কিছু জায়গায় শব্দের প্রয়োগে কিছুটা কাঠিন্যতা লক্ষ্য করা গেছে । বইটি সম্পাদনা করেছেন “তারেকুজ্জামান” ।

    একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সেটি হলো, ৪৫ নাম্বার পৃষ্ঠায় সিজদার আয়াত আরবী ফন্টে লেখা হয়েছে । এখন কোনো পাঠক যদি তা মুখে পাঠ করে, তবেতো তার জন্য সিজদা করা ওয়াজিব হয়ে যাবে । কিন্তু সাধারণ পাঠক এই ব্যাপারটি না জানায়, সিজদা আদায় করবে না । সম্পাদক বা অনুবাদক যদি টীকা সংযোজন করে এই ব্যাপারটি স্পষ্ট করে দিতো , তবে পাঠক সতর্ক হতে পারতো । আরেকটি অভিযোগ, যেহেতু এটি একটি অনূদিত বই । তাই বইয়ের মূল নামটা উল্লেখ করা উচিত ছিল । অথচ বইয়ের কোথাও মূল বইটির নাম উল্লেখ করা হয়নি ।
    বইয়ে অল্প কিছু জায়গায় বানান ভুল চোখে পড়েছে ।

    কুরআনের আয়াত, হাদিস, সালাফ ও আলেমদের উক্তি, তাদের মনোভাব দিয়ে পুরো বইটিকে সাজানো হয়েছে । কুরআনের আয়াত ও হাদিস উল্লেখের ক্ষেত্রে আরবি মূল টেক্সট উল্লেখ করা হয়েছে এবং তথ্যসূত্র দেয়া হয়েছে ।
    প্রচ্ছদ, কাগজের মান, পৃষ্ঠা সজ্জা কোনোটা নিয়েই অভিযোগ করার মত কিছু নেই । আলহামদুলিল্লাহ্ ! বইটির পৃষ্ঠা সংখ্যা–৭৮ । নির্ধারিত মূল্য–৮০ টাকা ।

    আশাকরি, বইটি পাঠ করলে নিজের ঈমানের অবস্থান সম্পর্কে কিছুটা হলেও আন্দাজ করা যাবে । নিজের ঈমানী দুর্বলতা কাটিয়ে উঠতে প্রেরণা যোগাবে ।

    সালফে সালেহীনরা উপকারী জ্ঞানকে বারবার অধ্যয়ন করতেন । কেননা, বিভিন্ন পরিস্থিতির কারনে মানুষের অন্তর বারবার পরিবর্তন হয়ে পড়ে । এ কারনে যখনই বুঝবেন আপনার ঈমান দুর্বল হয়ে পড়েছে, ইবাদতের মান কমে যাচ্ছে, অন্তর অস্থির হয়ে উঠেছে তখনই এই বইটা নিয়ে বসে যাবেন, খুলে দেখবেন,পড়বেন । পুনরায় উৎসাহ নিয়ে ঈমান নবায়ন করার কাজে নেমে যাবেন । শুধু জানলেই হবেনা, জানাকে আমলে পরিণত করতে হবে । আর তখনই উপলব্ধি করতে পারবেন, আপনার ঈমানের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে । সর্বোপরি, আল্লাহ্ আমাদের জন্য সবকিছু সহজ করে দিন । আমিন ।
    7 out of 7 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No