মেন্যু


গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)

প্রকাশনী : আয়ান প্রকাশন
পৃষ্ঠা : 160, কভার : পেপার ব্যাক

তাখরিজ- মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি
অনুবাদ- মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার

আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন তার ইবাদতের জন্য। তার তাওহিদের স্বীকারোক্তির জন্য। কিন্তু আমরা আল্লাহ তাআলার ইবাদত ভুলে গুনাহ করে বসি। শয়তানের ধোঁকায় পড়ে তার আনুগত্য করি। আল্লাহর অবাধ্যতা করি। আল্লাহর অবাধ্যতা করলে, গুনাহ করলে অন্তরের মাঝে কালো দাগ পড়ে যায়। কালো দাগ পড়তে পড়তে অন্তর এমন হয়ে যায় যে ভাল কাজের খেয়াল অন্তরে আসেই না। আসলেও খারাপের ভীড়ে একটি ভালকাজ করার হিম্মতও হয় না অন্তরে।
সমাজে পাপাচার এতোটাই বেড়ে গিয়েছে যে, গুনাহ নিয়ে বললেও খুব চিন্তা ভাবনা করে বলতে হয়। গুনাহের ব্যাপারে উম্মতের আলেমগণ সতর্ক করেছেন যুগে যুগে। লিখেছেন অনেক পুস্তক ও পুস্তিকা। বয়ান ও বক্তৃতায় উম্মতকে সতর্ক করেছেন গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার ব্যাপারে। তেমনি একজন মহান ব্যক্তি হলেন আল্লামা ইবনুল কাইয়িম আল জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ। উম্মতের ব্যাপারে বড়ই চিন্তিত ছিলেন। তাই তো তার কিতাবের মধ্যে উম্মতদরদির নিশান মিলে। রহিমাহুল্লাহর গুরুত্বপূর্ণ একটি রচনা হল
الجواب الكافي لمن سأل عن الدواء الشافي “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দাওয়ায়িশ শাফী” অথবা الداء والدواء
“আদ দাউ ওয়াদ দাওয়াউ”। রহিমাহুল্লাহ কিতাবটির মাঝে উম্মতের আভ্যন্তরীন রোগ তথা অন্তরের রোগ ও তার প্রতিকার বর্ণনা করে দিয়েছেন। ইবনুল কাইয়িম রহিমাহুল্লাহ তার যুগে লিপিবদ্ধ করে গিয়েছেন কিতাবখানা সেই সময়কার অবস্থার প্রেক্ষাপটে। কিন্তু সেটি আজকের দিনেও যেন নির্দেশ করছে। কেমন যেন তিনি বর্তমানের জন্যই বলছেন। কথাগুলো যেন আমাদের সময়ে আমাদেরকে খেতাব করে বলা হচ্ছে।
আলোচিত কিতাব ‘আদদাউ ওয়াদদাওয়া’ বা আলজাওয়াবুল কাফী এর মাঝে গুনাহের আলামত বা প্রভাব সমূহ নিয়ে আলোকপাত করেছেন। এবং গুনাহের কারণে কী কী ক্ষতি হয় তাও উল্লেখ করেছেন। পাশাপাশি গুনাহ থেকে উত্তরণের পথও বাতলে দিয়েছেন।

পরিমাণ

143  260 (45% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
- ১৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

32 রিভিউ এবং রেটিং - গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)

5.0
Based on 32 reviews
5 star
96%
4 star
3%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    💎মানুষের জীবনের সব স্বপ্ন সাধারণত দুনিয়াতে পূরণ হয় না। কারণ মানুষের জীবন ক্ষণস্থায়ী। এই দুনিয়াটাও ক্ষণস্থায়ী। এই ক্ষণস্থায়ী দুনিয়ায় কখনোই জীবনের সকল স্বপ্ন সম্পন্ন করা সম্ভব নয়। সেই স্বপ্ন পূরণ একমাত্র জান্নাতে হতে পারে ইং শা আল্লাহ।

    💎কারণ জীবন নামের ঘড়িটার সুতা একসময় টান দেওয়া হবে। সেদিন আমাদের সবাইকে ফিরে যেতে হবে মহান রবের সামনে। কিন্তু সেদিন আমরা কি নিয়ে ফিরে যাব?

    💎দুনিয়া হলো পরজনমের পাথেয় অর্জনের একমাত্র স্থান। এখান থেকেই পরকালের পাথেয় জোগাতে হবে। কিন্তু এখন দেখা যায় দুনিয়ার যশ-খ্যাতি, সাফল্য-ব্যর্থতার হিসাব করতে গিয়ে গুনাহ হলেও তা যেন কোন ব্যাপারই নয়।

    💎কিন্তু গুনাহ থেকে সর্বদাই বেঁচে চলা উচিত। কারণ গুনাহের ইহকালীন ও পরকালীন অনেক ক্ষতি রয়েছে। দুনিয়াবী জীবনেও নানারকম বিপদ-আপদ, রোগ-শোক ইত্যাদির মধ্য দিয়ে গুনাহের শাস্তি আসে। পরকালীন জীবনে জাহান্নাম কবর এসবের শাস্তিও রয়েছে।

    💎কিন্তু তবুও অনেক মানুষ নির্বিকার।ন্যায় অন্যায়, ভালো-মন্দ, উচিত-অনুচিতের হিসাব ভুলে নিজের স্বার্থসিদ্ধির জন্য ধূসর দুনিয়ার মোহের হাতছানিতে এড়িয়ে চলছে আখিরাতকে।

    💎সমাজে এখন গুনাহের পর গুনাহ হওয়া বেড়েই চলছে। যেমনটা সমুদ্রের ঢেউয়ের পর ঢেউ আসতেই থাকে। এখন আমরা এক ফিৎনাময় সমাজে বসবাস করি। যার প্রায় প্রতিটি পদে-পদে গুনাহের আশঙ্কা থাকে।

    💎সমাজের অনেক মানুষ আছে যারা গুনাহ থেকে বেঁচে চলতে চায়। কিন্তু তাদের সে অনুযায়ী ইলম নেই। গুনাহ কেন হয়? গুনাহের ক্ষতি কি? গুনাহ থেকে কিভাবে মুক্তি পাওয়া যাবে? গুনাহ থেকে কিভাবে নিজেদেরকে সরিয়ে রাখা যায়? এ সম্পর্কে অনেক মানুষ ই ভালো জ্ঞান রাখে না। আর গুনাহ সম্পর্কে এসব জ্ঞান না থাকার কারণেও অনেক মানুষ গুনাহে লিপ্ত হয়ে পড়ে।

    💎যারা গুনাহে লিপ্ত হয়ে পড়েছে। তারা ফিরে আসলে ক্ষমা করার জন্য আল্লাহ্ তায়ালা আশার বাণী দিয়েছেন। আল্লাহ্ তাআলা বলেন-

    হে মুমিনগণ, তোমরা আল্লাহর সমীপে খাঁটি তওবা কর, এই আশায় যে তোমাদের প্রভু তোমাদের সকল পাপ ক্ষমা করে দেবেন আর তোমাদেরকে এমন উদ্যানসমূহে উপবিষ্ট করবেন যার নিম্নদেশে নদীসমূহ প্রবাহিত থাকবে…
    — সূরা আল-তাহরিম

    অবশ্যই আল্লাহ তাদের তওবা কবুল করবেন, যারা ভূলবশত মন্দ কাজ করে, অতঃপর অনতিবিলম্বে তওবা করে, এরাই হল সেসব লোক যাদেরকে আল্লাহ ক্ষমা করে দেন। আর তওবা নেই তাদের জন্য, যারা কুফুরি(অবাধ্য) অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে। আমি তাদের জন্য যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি প্রস্তুত করে রেখেছি।
    — সূরা আন-নিসা

    💎রাসূল (সা.) বলেন,
    তোমাদের কেও মরুভূমিতে হারিয়ে যাওয়া উট খুঁজে পেয়ে যতটা খুশি হয়, আল্লাহ তাঁর বান্দার তওবাতে তাঁর চেয়েও বেশি খুশি হন।
    — সহীহ বুখারী

    💎ইমাম ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ এর “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি” এর অনুবাদ “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” এই বইটিতে গুনাহের কারণ, গুনাহের ক্ষতি, গুনাহ থেকে মুক্তির উপায় ইত্যাদি বিষয় সুন্দর, সহজ ও সাবলীল ভাষায় বর্ণনা করা হয়েছে। যা থেকে পাঠক সহজেই তার গুনাহের কারণ খুঁজে পাবে, গুনাহের ক্ষতিগুলো জানতে পারবে এবং যদি গুনাহে লিপ্ত থাকে, সেখান থেকে বের হয়ে আসার পথ জানতে পারবে। যা তাকে গুনাহ থেকে বেঁচে থাকতে এবং গুনাহ থেকে ফিরে আসতে অনেক সহায়তা করবে। ইং শা আল্লাহ।

    📚গুনাহ থেকে ফিরে আসুন
    (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    লেখক: আল্লামা হাফিয ইবনুল কায়্যিম আল জাওযী
    প্রকাশক: আয়ান প্রকাশন

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    🍀সমাজ এখন ফিতনাময়। মানুষ যেন গুনাহের সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে। মহান আল্লাহ তা’আলার দেয়া বিধান লংঘন করে মানুষ যেন আবার সেই আইয়ামে জাহিলিয়াত কে ডেকে আনছে।

    🍀প্রায় প্রতিটি পদে-পদে গুনাহের আশঙ্কা। এমন যেন হয়ে গেছে যে, সামনে তাকিয়ে গুনাহ দেখে পিছনে ফিরলে সেখানেও গুনাহের আশঙ্কা। উপরে তাকিয়ে গুনাহ দেখে নিচে তাকালে সেখানেও যেন একই রকম অবস্থা।

    🍀মহান আল্লাহ তা’আলা মানব জাতিকে সৃষ্টি করেছেন তাঁর ইবাদতের জন্য। কিন্তু দুনিয়াবী ভোগবিলাসে মত্ত হয়ে শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে কত মানুষ যে আজ পথ হারা!! পাশ্চাত্যের অনুকরণ-অনুসরণ ও বিভিন্ন বিজাতীয় সংস্কৃতি এখন এমন ভাবে মানুষের মনে জেঁকে বসেছে যে সেইসব রীতিনীতি পালন করতে গিয়ে গুনাহ হয়ে গেলেও তাতে যেন কিছুই যায় আসে না।

    🍀কিন্তু প্রায় সব ধরনের গুনাহতেই ইহকালীন ও পরকালীন ক্ষতি রয়েছে। গুনাহের দ্বারা দুনিয়ার ক্ষতি ও বরবাদী নেমে আসে। রিজিকে বরকত কমে যায়। প্রশান্তি উড়ে যায়। অস্বস্তি ও অস্থিরতা আসে। আর মৃত্যুর পর আরো বড় শাস্তি  তো কবর ও দোজখের শাস্তি তো রয়েছেই।

    🍀🍀🍀🍀🍀🍀🍀🍀🍀🍀🍀

    🍀কিন্তু এত সব গুনাহ করার পরেও যদি বান্দা তার ভুল বুঝতে পেরে তওবা করে, তাহলে মহান আল্লাহ অনেক অনেক বেশি খুশি হন।

    🍀তওবার আক্ষরিক অর্থ মহান আল্লাহর দিকে ফিরে আসা। ইসলামী শরীয়তে এর অর্থ অতীত পাপকাজ থেকে ফিরে আসা এবং ভবিষষ্যতে তা না করার দৃঢ় সংকল্প করা।

    🍀হাদিসে উল্লেখ করা হয়েছে:
    প্রত্যেক আদম সন্তানই পাপ করে, পাপীদের মধ্যে তারাই সর্বোত্তম যারা তওবা করে।—— সুনানে তিরমিযী

    🍀হাদিসে আরো উল্লেখ করা হয়েছে: সেই সত্ত্বার কসম, যার হাতে আমার প্রাণ, মানুষ যদি পাপ না করতো তবে আল্লাহ তাআলা মানবজাতিকে উঠিয়ে নিয়ে এমন এক সম্প্রদায়ের অবতারণা করতেন, যারা পাপ করত এবং পরে (নিজের ভুল বুঝতে পেরে) আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতো এবং আল্লাহ তাদের ক্ষমা করে দিতেন।—— সহীহ মুসলিম

    🍀🍀🍀🍀🍀🍀🍀🍀🍀🍀

    🍀মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার এর অনুবাদে ইমাম ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ এর “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি” অর্থাৎ “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” বই টি
    থেকে আমরা শুধু গুনাহের কারণ, ক্ষতি এসব ই জানতে পারব না বরং গুনাহ থেকে উত্তরণের পথও জানতে পারবো। যা আমাদেরকে গুনাহ থেকে ফিরে আসতে বিশেষভাবে সহায়তা করবে। ফিতনাময় এ সমাজেও গুনাহ থেকে বেঁচে চলার জন্য উত্তম পরামর্শ আমরা এই বইটিতে পাবো।

    🍀পাশ্চাত্য সংস্কৃতির অনুসরণে জীবনের প্রায় প্রতিটি পদে গুনাহের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে করতে যারা আজ গুনাহের সাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে তাদের জন্য এই বইটি যেন হাত বাড়িয়ে দিয়েছে সেই সাগর থেকে তুলে আনার জন্য। গুনাহের সমুদ্রের অতলে হারিয়ে যাওয়া মানুষদের কে খুঁজে বের করে ফিলিয়ে আনতে এই বইটি একটি ডুবুরির ভূমিকা পালন করবে। শুধু একটু ফিরে আসার চেষ্টার প্রয়োজন। সে চেষ্টা হতে পারে এই বইটি পড়া ও বোঝা। এবং বইটি থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা নিজের জীবনে কাজে লাগানো।

    🍀বইটিতে গুনাহের কারণ গুনাহের ক্ষতি এবং তার প্রতিকার অনেক সুন্দর করে তুলে ধরা হয়েছে। যা থেকে সহজেই পাঠক তাদের গুনাহগুলো কে চিহ্নিত করতে পারবে এবং ইহকালীন ও পরকালীন ক্ষতি হওয়া থেকে নিজেদেরকে বাঁচিয়ে রাখতে পারবে। এবং হয়ে যাওয়া গুনাহ থেকে ফিরে আসতে পারবে ইংশাআল্লাহ।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    :

    হাদিসে পুণ্যের সংজ্ঞা প্রদান করা হয়েছে। সাথে গুণাহের সংজ্ঞাও। আন নাওয়াস বিন সামআন হতে বর্ণিত:

    নবীজি (সা.) বলেছেন,
    “পুণ্য হল সদ্ব্যবহার, আর গুণাহ হলো যা সন্দেহ তৈরি করে এবং তুমি পছন্দ কর না যে লোকজন তা জেনে ফেলুক।”
    — সহীহ মুসলিম

    গুনাহ হল যা সন্দেহ সৃষ্টি করে এবং হৃদয়কে বিচলিত করে, এমনকি লোকে যদি তা বৈধ বলে এবং বারবার তা ন্যায়সঙ্গত বলে তোমাকে বোঝাতে থাকে তাঁর পরও।
    — আহমাদ আদ-দারমি

    ⬛________________________

     আল্লাহ্‌র নির্দেশের পরিপন্থী হয় এমন সকল কাজকেই গুনাহ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। গুনাহের ফলে ইহকালীন ও পরকালীন উভয় জীবনে অনেক শাস্তি ভোগ করতে হতে পারে। গুনাহের ফলে দুনিয়ার জীবনে অনেক বিপদের আশঙ্কা থাকে ও পরকালীন জীবনে কবরের আজাব জাহান্নামের আযাবের কঠিন শাস্তি ভোগ করতে হতে পারে।

    ⬛________________________

    মানুষ মন্দ কর্ম প্রবণ। তাই হয়তো সহজেই শয়তান মানুষকে ধোঁকা দিয়ে গুনাহে লিপ্ত করে ফেলতে পারে। অনিচ্ছাকৃত ভাবে গুনাহ হয়ে গেলে মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারে মন থেকে ক্ষমা চেয়ে অনুশোচনা করে সে কাজ থেকে ফিরে আসলে ও ভবিষ্যতে না করার অঙ্গীকার করলে মহান আল্লাহ তাআলা ক্ষমা করে দিবেন।

    আল্লাহ্ তাআলা বলেন,
    অবশ্যই আল্লাহ তাদের তওবা কবুল করবেন, যারা ভূলবশত মন্দ কাজ করে, অতঃপর অনতিবিলম্বে তওবা করে, এরাই হল সেসব লোক যাদেরকে আল্লাহ ক্ষমা করে দেন। আর তওবা নেই তাদের জন্য, যারা কুফুরি(অবাধ্য) অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে। আমি তাদের জন্য যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি প্রস্তুত করে রেখেছি।
    —সূরা আন-নিসা

    ⬛_________________________

    কেউ যদি কোন গুনাহ করে ফেলে। আর তারপরে নিজের ভুল বুঝতে পেরে তওবা করে। তাহলে আল্লাহ তায়ালা অনেক খুশি হোন।

    নবীজি (সা.) বলেছেন,
    “তোমাদের কেও মরুভূমিতে হারিয়ে যাওয়া উট খুঁজে পেয়ে যতটা খুশি হয়, আল্লাহ তাঁর বান্দার তওবাতে তাঁর চেয়েও বেশি খুশি হন।”
    — সহীহ বুখারী

    ⬛_________________________

    “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” বই টি
    ইমাম ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ এর “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি”নামক বই এর অনুবাদ।

    বইটির শর্ট পিডিএফ থেকে ধারণা করা যায় যে, এ বইটি গুনাহের কারণ ও গুনাহের ক্ষতি দেখিয়ে দিবে এবং গুনাহ থেকে উত্তরনের পথ বাতলে দেবে।

    বইটিতে গুনাহের কারণ হিসেবে নারী, ধন-দৌলত ও জায়গা জমি কে চিহ্নিত করা হয়েছে। কারন এই জিনিসগুলো অন্য আরো গুনাহের রাস্তা খুলে দেয়।

    গুনাহের ক্ষতি ও গোনাহের কারণসমূহ জানলে গুনাহ থেকে বেঁচে চলা সহজ হয়ে যাবে। কেউ যদি গুনাহ থেকে বেঁচে চলার পরামর্শ দান করে এবং গুনাহে পতিত থাকা অবস্থায় হাত বাড়িয়ে দিয়ে গুনাহ থেকে তুলে আনে। সে কতইনা উত্তম বন্ধু! সেই উত্তম বন্ধুর ভূমিকা পালন করবে এই বইটি। যাবতীয় গুনাহ থেকে খাঁটি তওবা করে এবং ভবিষ্যতে তা থেকে বাঁচার পাক্কা ইরাদা করতে এই বইটি একজন উত্তম বন্ধুর ভূমিকা পালন করবে।
    ইং শা আল্লাহ।

    ⬛_______________________

    বইঃ গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    লেখকঃ আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ(রহ)
    অনুবাদঃ মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার
    প্রকাশনায়ঃ আয়ান প্রকাশন

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    :

    🍁ইমাম ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ এর “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি”নামক বই এর অনুবাদই হল
    “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন”।
    বইটির অনুবাদ করেছেন মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার।

    🍁বইটিতে গুরুত্বপূর্ণ যেসব বিষয় উল্লেখ রয়েছে, তা হল-
    _কি কি কারণে গুনাহ হয়ে যায়
    _গুনাহের ক্ষতি গুলো কি কি এবং _কিভাবে গুনাহ থেকে মুক্তি লাভ করা যাবে

    🍁ইচ্ছাকৃত ভাবে হোক বা অনিচ্ছাকৃত ভাবে হোক মানুষের গুণাহ হয়ে যায়। তাই কেউ ই নিষ্পাপ নয়। শুধুমাত্র নবী-রাসুলগণই গুনাহ থেকে মুক্ত। গুণাহ করা থেকে বড় অপরাধ হলো গুণাহ করার পর তা থেকে তাওবা না করা, ফিরে না আসা, অনুতপ্ত না হওয়া এবং বারবার গুণাহ করা। 

    🍁গুনাহর কারণে বিভিন্ন ক্ষতি রয়েছে, তন্মধ্যে আত্মার ক্ষতি, শারীরিক ক্ষতিসহ ইহকাল ও পরকালের অসংখ্য ক্ষতি রয়েছে। গুনাহ করার কারণে মানুষ ধর্মীয় ইলম থেকে বঞ্চিত হয়ে যায়। গুনাহ করার কারণে অন্তরের নূর নিভে যায়। গুনাহ জ্ঞানের আলোকে নিভিয়ে দেয়। জ্ঞানের আলো নিভে গেলে বিবেক-বুদ্ধি দুর্বল ও অসম্পূর্ণ হয়ে যায়। গুনাহ করার কারণে মানুষের কাজসমূহ কঠিন হয়ে যায়। গুনাহের দ্বারা মুখ কালো হয়ে যায়। অন্তর অন্ধকার হয়ে যায়। মানুষ তার কৃত গুনাহের কারণে রিয্ক থেকে বঞ্চিত হয়। জীবিকার বরকত হ্রাস পায়।

    🍁অনেকেরই গুনাহের সংখ্যা অসংখ্য-অগণিত। দুই একটার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। কত রকমের গুনাহ হয়ে যায়। কিন্তু এই সবগুলোর জন্যই কি আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে পাকড়াও করেন? না করেন না। আল্লাহ তায়ালা বেশিরভাগ গুনাহ ক্ষমা করে দেন।

    🍁আল কুরআনের বিভিন্ন আয়াতে আল্লাহ নিজেকে দয়ালু, মহানুভব ও ক্ষমাশীল হিসেবে বর্ণনা করেছেন। যেমন-

    হে বিশ্বাসীগণ! তোমরা সকলে আল্লাহর দিকে প্রত্যাবর্তন কর,যাতে তোমরা সফলকাম হতে পার।_সূরা আন-নুর

    🍁আল্লাহ তায়ালা ফিরে আসার দরজা এখনো খোলা রেখেছেন। মৃত্যু অবধি দরজা খোলা পাওয়া যাবে। আর সেই দরজা খুঁজে নিতে সেই দরজায় পৌঁছাতে এই বইটি পথচলার সঙ্গী হবে। বইটিতে গুনাহের কারণ, গুনাহের ক্ষতি ও গুনাহ থেকে মুক্তি লাভের উপায় সম্পর্কে সুন্দর সহজ সাবলীল ভাষায় আলোচনা করা হয়েছে। বইয়ের সাথে নিজেকে মিলিয়ে দেখলে পাঠক নিজের গুনাহের কারণ খুঁজে বের করতে পারবে, নিজের কৃত গুণাহের ক্ষতি সম্পর্কে জানতে পারবে এবং গুনাহ থেকে ফিরে আসার জন্য পথ খুঁজে পাবে। ইংশাআল্লাহ।

    __________________________

    বইঃ গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    লেখকঃ আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ(রহ)
    অনুবাদঃ মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার
    প্রকাশনায়ঃ আয়ান প্রকাশন
    বাইন্ডিংঃ পেপারব্যাক
    পৃষ্টা সংখ্যাঃ ১৭৬

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 5 out of 5

    :

    আল্লামা ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহ
    এর লেখা বই, আশা করি অনুবাদ ঠিক থাকলে ভাল একটা বই হবে মুসলিম দের জন্য।
    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  6. 5 out of 5

    :

    ➡️”গুণাহ বলতে কি বুঝায়?”
    = গুণাহ বলতে মূলত যা বুঝায় তা হলো-
    মহান আল্লাহ ও তাঁর রাসূল (সা.)-এর আদেশ যথাযথ ভাবে পালন না করা। তাঁদের বিরুদ্ধাচরণ করা বা অবাধ্য হওয়া। তাঁদের নিষেধকৃত কাজ করা। তা হোক না কেন প্রকাশ্যে বা গোপনে।
    _____________

    📘বইটি সম্পর্কে সংক্ষিপ্তধারণা:

    “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” বইটি ইমাম ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ এর “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি”নামক অত্যন্ত মূল্যবান কিতাবের অনুবাদ।

    ➡️“গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” বইটিতে যেসব বিষয় খুব গুরুত্ব সহকারে তুলে ধরা হয়েছে তা হল-
    💠গুনাহ যেসব কারণে সংঘটিত হয়
    💠গুনাহের ফলে কি ধরনের ক্ষতি হতে পারে
    💠গুনাহ থেকে মুক্তির উপায় সমূহ
    _____________

    ➡️গুনাহ করার উল্লেখযোগ্য কারণ হিসেবে যে বিষয়গুলোকে তুলে ধরা হয়েছে তা হল-
    💠নারী
    💠 ধন-দৌলত
    💠 জায়গা-জমি

    হাদিসে রাসূল (সা.)-
    “আমার (ইন্তেকালের) পরে আমার উম্মাতের পুরুষদের জন্য নারী অপেক্ষা অধিক ফিতনার শঙ্কা আর কিছুতেই রেখে যাইনি।”
    _বুখারী ও মুসলিম

    অন্য হাদিসে সম্পদের ফিতনা সম্পর্কেও আলোকপাত করা হয়েছে।
    ___________

    ➡️”গুনাহ কেন হয়?”
    =গুনাহ যে কারণে হয়ে থাকে তা হল-
    শয়তানের ওয়াসওয়াসা, প্রবৃত্তির বিকৃত তাড়না, পরিবেশ ও সামাজিকতার মন্দ প্রভাবসহ আরো নানা কারণে জীবনচলার পথে অনেক মানুষই ভুলে যায় আল্লাহর হুকুম মেনে চলার কথা।

    মানুষ যে গুণাহ করবে না, তার কোনো নিশ্চয়তা তো আমরা দিতে পারিনা। কারণ প্রকৃতিগতভাবেই মানুষের মন্দ কাজের প্রতি আসক্তি রয়েছে।

    আল কুরআনে মহান আল্লাহ বলেন-
    ‘নিশ্চয়ই মানব মন মন্দকর্ম প্রবণ।’
    _সূরা ইউসুফ : ৫৩

    হাদিসে রাসূল (সা.) বলেন-
    ‘প্রত্যেক আদম সন্তান ত্রুটিশীল ও অপরাধী।’
    _তিরমিজি
    _____________

    ➡️”কেন গুণাহ থেকে ফিরে আসা উচিত? এর লাভ কি?”

    = মানুষ যে গুণাহ করবে এটা তেমন অস্বাভাবিক কিছু নয়। কিন্তু মানুষের কর্তব্য হল পাপের করার পর তওবা করে নেয়া। কেননা যদি কোনো অপরাধ হয়ে যায় তাহলে হতাশ/নিরাশ না হয়ে মহান আল্লাহর দয়া ও রহমতের আশায় তওবা করে আল্লাহর পথে ফিরে এলেই দয়ালু আল্লাহ ক্ষমা করে দেবেন।

    হাদিসে রাসূল (সা.) বলেন-
    ‘প্রত্যেক আদম সন্তান ত্রুটিশীল ও অপরাধী, আর অপরাধীদের মধ্যে উত্তম তারা যারা তওবা করে।’
    _তিরমিজি

    গুনাহ থেকে ফিরে আসতে হবে। যথাযথ প্রক্রিয়ায় ফিরে এলে মহান আল্লাহ সব গুনাহ মাফ করে দিবেন।

    আল কুরআনে মহান আল্লাহ বলেন-
    ‘হে আমার বান্দাগণ! যারা নিজেদের ওপর জুলুম করেছ, তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হইও না। নিশ্চয় আল্লাহ সব গোনাহ মাফ করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।’
    _সূরা যুমার : ৫৩
    __________________

    ➡️“গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” ➡️”গুণাহ বলতে কি বুঝায়?”
    = গুণাহ বলতে মূলত যা বুঝায় তা হলো-
    মহান আল্লাহ ও তাঁর রাসূল (সা.)-এর আদেশ যথাযথ ভাবে পালন না করা। তাঁদের বিরুদ্ধাচরণ করা বা অবাধ্য হওয়া। তাঁদের নিষেধকৃত কাজ করা। তা হোক না কেন প্রকাশ্যে বা গোপনে।
    _____________

    📘বইটি সম্পর্কে সংক্ষিপ্তধারণা:

    “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” বইটি ইমাম ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ এর “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি”নামক অত্যন্ত মূল্যবান কিতাবের অনুবাদ।

    ➡️“গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” বইটিতে যেসব বিষয় খুব গুরুত্ব সহকারে তুলে ধরা হয়েছে তা হল-
    💠গুনাহ যেসব কারণে সংঘটিত হয়
    💠গুনাহের ফলে কি ধরনের ক্ষতি হতে পারে
    💠গুনাহ থেকে মুক্তির উপায় সমূহ
    _____________

    ➡️গুনাহ করার উল্লেখযোগ্য কারণ হিসেবে যে বিষয়গুলোকে তুলে ধরা হয়েছে তা হল-
    💠নারী
    💠 ধন-দৌলত
    💠 জায়গা-জমি

    হাদিসে রাসূল (সা.)-
    “আমার (ইন্তেকালের) পরে আমার উম্মাতের পুরুষদের জন্য নারী অপেক্ষা অধিক ফিতনার শঙ্কা আর কিছুতেই রেখে যাইনি।”
    _বুখারী ও মুসলিম

    অন্য হাদিসে সম্পদের ফিতনা সম্পর্কেও আলোকপাত করা হয়েছে।
    ___________

    ➡️”গুনাহ কেন হয়?”
    =গুনাহ যে কারণে হয়ে থাকে তা হল-
    শয়তানের ওয়াসওয়াসা, প্রবৃত্তির বিকৃত তাড়না, পরিবেশ ও সামাজিকতার মন্দ প্রভাবসহ আরো নানা কারণে জীবনচলার পথে অনেক মানুষই ভুলে যায় আল্লাহর হুকুম মেনে চলার কথা।

    মানুষ যে গুণাহ করবে না, তার কোনো নিশ্চয়তা তো আমরা দিতে পারিনা। কারণ প্রকৃতিগতভাবেই মানুষের মন্দ কাজের প্রতি আসক্তি রয়েছে।

    আল কুরআনে মহান আল্লাহ বলেন-
    ‘নিশ্চয়ই মানব মন মন্দকর্ম প্রবণ।’
    _সূরা ইউসুফ : ৫৩

    হাদিসে রাসূল (সা.) বলেন-
    ‘প্রত্যেক আদম সন্তান ত্রুটিশীল ও অপরাধী।’
    _তিরমিজি
    _____________

    ➡️”কেন গুণাহ থেকে ফিরে আসা উচিত? এর লাভ কি?”

    = মানুষ যে গুণাহ করবে এটা তেমন অস্বাভাবিক কিছু নয়। কিন্তু মানুষের কর্তব্য হল পাপের করার পর তওবা করে নেয়া। কেননা যদি কোনো অপরাধ হয়ে যায় তাহলে হতাশ/নিরাশ না হয়ে মহান আল্লাহর দয়া ও রহমতের আশায় তওবা করে আল্লাহর পথে ফিরে এলেই দয়ালু আল্লাহ ক্ষমা করে দেবেন।

    হাদিসে রাসূল (সা.) বলেন-
    ‘প্রত্যেক আদম সন্তান ত্রুটিশীল ও অপরাধী, আর অপরাধীদের মধ্যে উত্তম তারা যারা তওবা করে।’
    _তিরমিজি

    গুনাহ থেকে ফিরে আসতে হবে। যথাযথ প্রক্রিয়ায় ফিরে এলে মহান আল্লাহ সব গুনাহ মাফ করে দিবেন।

    আল কুরআনে মহান আল্লাহ বলেন-
    ‘হে আমার বান্দাগণ! যারা নিজেদের ওপর জুলুম করেছ, তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হইও না। নিশ্চয় আল্লাহ সব গোনাহ মাফ করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।’
    _সূরা যুমার : ৫৩
    __________________

    ➡️”বইটি কেন পড়া উচিত?”
    = “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” বইটিতে শুধুমাত্র গুনাহের ভয়াবহতা ক্ষতি এসবই আলোচনা করা হয়নি বরং বইটিতে গুনাহের পেছনে লুকিয়ে থাকা কারণগুলোকে বের করে নিয়ে আসা হয়েছে এবং গুনাহ থেকে উত্তরণের পথ বাতলে দেওয়া হয়েছে।

    ছোট ছোট অনুচ্ছেদে সাজানো এই বইটি বেশ তথ্যসমৃদ্ধ। বইটির সহজ সুন্দর সাবলীল ভাবে চমৎকার ভাষাশৈলীতে তথ্যসমূহের উপস্থাপন পাঠকের হৃদয় ছুঁয়ে যাবে। বইটি বুঝে পড়লে ও বইটি থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা নিজেদের জীবনে কাজে লাগালে পাঠকের জীবনের মোর মহান আল্লাহর দিকে টার্ণ নিবে। ইংশাআল্লাহ।

    বইটির প্রচ্ছদ এক কথায় অসাধারণ।

    বর্তমান ফিতনার সময়ে এরকম একটি বই আমাদের জন্য অনেক মূল্যবান। তাই আমি আমাকেসহ সকলকে আহ্বান করছি, আসুন আমরা বইটি পড়ি এবং বইটি থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা নিজেদের জীবনে বাস্তবায়ন করি। এতে আমাদের ইহকালীন ও পরকালীন উভয় সময়ই কল্যাণ লাভ সম্ভব হবে। ইংশাআল্লাহ।
    ____________

    বই : গুনাহ থেকে ফিরে আসুন
    (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    লেখক : আল্লামা ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহ
    প্রকাশনী : আয়ান প্রকাশন
    পৃষ্ঠা : 160
    কভার : পেপার ব্যাক
    তাখরিজ- মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি
    অনুবাদ- মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  7. 5 out of 5

    :

    🍁 শুরুর কথা :
    ____________

    গল্প মানুষের জীবনের কথা বলে । গল্প আপনাদের সোনালী অতীতকে মনে করিয়ে দেয়। মানুষের জীবনে অতীতের গল্প গুলো তাকে স্মরণ করিয়ে দেয় জীবনে ঘটে যাওয়া সেইসব দিনগুলোকে । গল্প মানুষকে হাসায় , আবার গল্পই মানুষকে কাঁদায় । ” গল্প গুলো ভালো লাগার ” বইটি রচিত হয়েছে মানুষের সেইসব দিনের স্মৃতি বিজড়িত কিছু ভালো লাগার গল্প নিয়ে ।

    🍁 বই কথন :
    ____________

    বছরের শেষ দিকে মাদ্রাসার ভীষণ টানাটানি পরে যায় । হুজুরদের বেতন তো দূরের কথা , তালিবে ইলম দের দৈনিক খাবারের চাল কেনার টাকা ও থাকে না । তখন উনি কোথেকে যেন এক থোকা টাকা বের করে আমার হাতে দিতেন । বলতেন :

    —– এগুলা খরচ করুন । ইন শা আল্লাহ, আল্লাহ বরকত দিবেন ।

    এরকম নানা গল্পে সজ্জিত হয়েছে ” গল্প গুলো ভালোলাগার ” বইটিতে ।

    এই সামান্য অংশ বই থেকে তুলে ধরলাম । সম্পূর্ণ বই পড়তে হলে আপনাকে অবশ্যই বইটি নিজের সংগ্রহে নিয়ে আসতে হবে ।

    🍁 পাঠক বইটিতে যেসব গল্প পাবেন তার কিছু অংশ :
    ______________________________

    🔷খাইরু মাতা গুনাই বিবি ,
    🔷তাবিজ নামের অলংকার টি ,
    🔷ফিরে তাকালে না ,
    🔷পুরস্কার ,
    🔷 নও মুসলিমাহ ,
    🔷তালহার রোজা রাখা ……..
    …………………………….
    ………………………….

    🍁 প্রিভিউ কথন :
    ______________

    ” গল্প গুলো ভালোলাগার ” বইটিতে লেখক খুব সুন্দরভাবে আমাদের দৈনন্দিন জীবনের সাথে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন গল্প গুলোকে চমৎকারভাবে তুলে ধরেছেন । যা প্রতিনিয়ত ঘটে যাচ্ছে আমাদের চারপাশে । প্রত্যেকটা গল্প লেখক আল্লাহর ও রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর দ্বীন মোতাবেক কিভাবে চলা উচিত তা বর্ণনা করেছেন অত্যন্ত সাবলীল ভাষায় । গল্প গুলো পাঠকের ভালো লাগবে ইন শা আল্লাহ ।
    ২৯ টি মনোমুগ্ধকর গল্পে লেখক বইটি পাঠকের সামনে পেশ করেছেন ।

    🍁 বই পড়ে আমার অনুভূতি :
    ______________________

    মাত্র ১৬ পৃষ্ঠার পিডিএফ পরে এতো সুন্দর বইয়ের প্রতি অনুভূতি কিভাবে প্রকাশ করবো বুঝতে পারছি না । শর্ট পিডিএফ পড়ে সম্পূর্ণ বইটি কখন পড়তে পারবো তার তীব্র আকাঙ্ক্ষা অনুভব করছি । আলহামদুলিল্লাহ লেখক এত সুন্দর করে গল্প গুলো সাজিয়েছেন মাত্র কয়েক পৃষ্ঠা পড়েই এর প্রতি ভালো লাগা শুরু হয়ে গেছে । শুরুর গল্প গুলো পড়তে গিয়ে অনেকটাই আবেগী হয়ে গেছি যে পুরো বইটি না পড়া অবধি শান্তি পাচ্ছি না । তাই আর বিলম্ব না করে বইটি আপনার সংগ্রহে নিয়ে আসতে পারেন । ইন শা আল্লাহ বইটি পাঠকের মনে জায়গা করে নিবে।

    🍁 বইটি কেনো পড়া উচিত ? কাদের পড়া উচিত ?
    _____________________________

    “গল্প গুলো ভালোলাগার ” বইটি সকলের পড়া উচিত । কেননা , লেখক বইটিকে এমন ভাবে উপস্থাপন করেছেন যে , বইটি সকল পাঠক আনন্দের সাথে আগ্রহ নিয়ে পড়তে পারবে । একজন পাঠক বইটিতে আমাদের জীবনের সাথে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন গল্প গুলো পাবেন যা পাঠকের মনের খোরাক জুগাবে ।

    🍁 প্রিয় লাইন :
    ____________

    রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন , ” যে ব্যক্তি তাবিজ লটকালো সে শিরক করলো । ” ( মুসনাদ আহমদ ৪/১৫৬ )

    📖 এক নজরে বইটি :
    ________________

    📕 বই : গল্প গুলো ভালোলাগার
    🖊️ লেখক : আয়ান আরবিন
    সম্পাদনা : ছানা উল্লাহ সিরাজি
    পৃষ্ঠা : ১৩৬
    মুদ্রিত মূল্য : ২০০ টাকা মাত্র ।
    প্রকাশনী : আয়ান প্রকাশন ।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  8. 5 out of 5

    :

    বই পরিচিতি:-

    বই:- গুনাহ থেকে ফিরে আসুন

    ‘গুনাহ’ শব্দটি শুনলেই আমাদের চোখের সামনে ভেসে ওঠে অন্যায়, অত্যাচার আর অবাধ্যতার চিত্র। এটি যেন মানবজীবনের একটি ভীতিকর শব্দ। গুনাহ করতে করতে আমরা ধাবিত হয়ে যাই জাহান্নামের অতল গহ্বরের দিকে। গুনাহের কালিতে কালো হয়ে যায় আমাদের নফস্। তাই আমরা সকলেই চাই গুনাহ থেকে বাঁচতে।

    “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন”, কিতাবটি আলেমে রাব্বানি শাইখুল ইসলাম ছানি, ইমাম ইবনুল কায়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রাহিমাহুল্লাহ এর ” আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি ” নামক অত্যন্ত মূল্যবান কিতাব থেকে নেওয়া হয়েছে।

    ◾ ব‌ইটি কারা এবং কেন পড়ব?

    গুনাহ আসে মূলত শয়তানের অস‌ওয়াসা থেকে, শয়তান অত্যন্ত ধৈর্য্য নিয়ে অবিরাম আমাদের নফসকে কুপ্রবৃত্তি দিতেই থাকে। তাই গুনাহ থেকে বাঁচার জন্য আমাদের নফসের সাথে অবিরাম যুদ্ধ করতে হয়। পাশাপাশি সুস্থ্য পরিবেশের ও দরকার হয়, যেমন: আদর্শ পরিবার, উত্তম বন্ধু, ভালো ব‌ই, এমনকি আপনার ফেসবুকের ভালো পেইজ এবং গ্রুপ। এই ব‌ইটি আপনাকে সেই সুস্থ্য পরিবেশ উপহার দিতে সক্ষম হবে বলে আমি মনে করি। যে কারনে সকল মুসলিম ভাই বোনদের এই ব‌ইটি পড়া উচিত।

    ◾ব‌ইটির সূচিপত্র থেকে ক’টা লাইন:

    •গুনাহের ক্ষতিসমূহ
    •একটি গুনাহ আরো অনেক গুনাহের সৃষ্টি করে
    •শেষ জামানায় গুনাহগারদের আলামত
    •গুনাহের অপরাধে নির্মম শাস্তি
    •রিজিক থেকে বঞ্চিত হ‌ওয়া

    ◾কি কি আছে এই ব‌ইয়ে?

    •গুনাহের আলামত,
    •গুনাহের ক্ষতি এবং
    •গুনাহ থেকে মুক্তির পথ সম্পর্কে আলোচনা।

    ◾ব‌ই থেকে একটুকরো :

    দুনিয়াতে ভাল ও খারাপ কাজের শক্তিসমূহ এক ব্যয়িত সময়ের আমল, যদিও প্রতিটি মানুষ স্বাভাবিক ভাবে জানে যে, খারাপ কাজে লিপ্ত হ‌ওয়া তার জন্য ক্ষতির কারন হবে, তার অসফলতা, নৈরাশ্য এবং কুখ্যাতি ,বদনামী হ‌ওয়ার কারন হবে। অন্যদিকে নেককাজ তার সুনাম – সুখ্যাতি , কামিয়াবি,ইজ্জত সম্মান এবং উভয় জাহানের উপকার ও কল্যাণের কারন হবে, কিন্তু এমন কি কারন থাকতে পারে যে ব্যাপকাকারে ইনসান এসব কিছু জানা বোঝার পর‌ও সেগুলো তাদের খারাপকাজে ও গুনাহে নিমজ্জিত করে?
    যখন ব্যক্তি কোনো কাজ করতে শুরু করে তখন তার ভাল ও খারাপ বাহু উভয়টি তার সামনে থাকে এবং ব্যক্তি তাদের ক্ষতি ও কদর্যতাকে বুঝতেও পারে কিন্তু যখনই আমলের সময় আসে তখন তার হাত, পা, জবান, তার চক্ষুদ্বয় এবং তার কান সবকিছুই খারাপ ও মন্দকাজের দিকে লাফালাফি করতে থাকে। ঐ সময় মানুষ সামান্য সময়ের জন্য বিশ্রাম নিয়ে চিন্তাফিকির পর্যন্ত করে না যে সে কি করছে?

    ব‌ইটিতে এভাবেই বিভিন্ন সমস্যার কথা আলোচনা করা হয়েছে এবং সেগুলি থেকে সমাধানের পথ ও বাতলে দেওয়া আছে।

    ◾মন্তব্য এবং শিক্ষা :

    ব‌ইটির শর্ট পিডিএফ পড়ে মনে হলো এটি আমার জন্যই লেখা, আমাদের বর্তমান সময়ের জন্যই হয়তো কথা গুলো সাজানো। খুব সুন্দর এবং চমৎকার ভাষা শৈলী এবং সাবলিল উপস্থাপনা।পুরো ব‌ইটা আরো সুন্দর হবে বলে আমি মনে করি। গ্রুপের এডমিন এবং সংশ্লিষ্টদেরকে এমন একটি আয়োজনকে আল্লাহ কবুল করুন, জাঝাকুমুল্লাহু খাইরান।

    ◾এক নজরে ব‌ইটি:

    ব‌ই: গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত ও
    তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ) ।
    মূল লেখক: আল্লামা ইবনুল কায়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রাহিমাহুল্লাহ।
    মূল কিতাবের তাখরিজ: মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানী।
    অনুবাদক : মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার।
    সম্পাদনা: আয়ান টিম
    প্রকাশনী: আয়ান প্রকাশক
    প্রথম প্রকাশ : জানুয়ারী, 2021.
    পৃষ্ঠা সংখ্যা : 176
    প্রচ্ছদ মূল্য: 260 টাকা মাত্র

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  9. 5 out of 5

    :

    #বই_রিভিউ

    ◼এই-তো আর একটু দুর। অতঃপর মৃত্যু। যদি এই অবস্থায় আমাদের মৃত্যু হয়, তবে আমাদের গন্তব্য হবে কোথায়? গুনাহের উর্মিমালায় ভাসতে ভাসতে আমরা এক দিন জাহান্নামের সিংহদ্বারে গিয়ে পৌছাব। বুভুক্ষ জাহান্নাম আমাদের জন্য হা করে থাকবে সে দিন। আমাদের রিক্ত হস্ত দেখে আমাদের নিক্ষেপ করা হবে সেই জাহান্নামের মুখে। তখন কি হবে আমাদের?

    যারা আজ গুনাহ করতে করতে ক্লান্ত। যাদের অবসন্ন দেহ গুলো এখন আর আশায় আলো দেখছে না, আল্লাহ তাদের জন্য বলেছেন,

    قُلْ يَٰعِبَادِىَ ٱلَّذِينَ أَسْرَفُوا۟ عَلَىٰٓ أَنفُسِهِمْ لَا تَقْنَطُوا۟ مِن رَّحْمَةِ ٱللَّهِ إِنَّ ٱللَّهَ يَغْفِرُ ٱلذُّنُوبَ جَمِيعًا إِنَّهُۥ هُوَ ٱلْغَفُورُ ٱلرَّحِيمُ

    “বলুন, হে আমার বান্দাগণ যারা নিজেদের উপর যুলুম করেছ তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না। নিশ্চয় আল্লাহ সমস্ত গোনাহ মাফ করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।” [সূরাঃ আয-যুমার:৫৩]

    আল্লাহর অসীম রহমত ও দয়ার কাছে আমাদের গুনাহ কিছুই না। যদি আন্তরিক তওবাহ করে গুনাহ থেকে ফিরে আসতে চাই তবে আল্লাহ নিজে হাত ধরে সঠিক গন্তব্যে পৌছে দিবেন।

    ◼বইয়ের লেখক সম্পর্কে আমার অভিমত:

    অন্তরের চিকিৎসক ইমাম ইবনুল কায়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ ছিলেন উপমহাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ জ্ঞানী। অনুর্বর তপ্ত মরু থেকে গোটা বিশ্ববাসীর কাছে তিনি এক নামে পরিচিত। মানুষের অন্তরের আনাচে-কানচে বিচরণ করে তিনি লিখেছেন “আলজাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি” নামক কিতাব। আর এই বিখ্যাত কিতাব থেকে নেয়া হয়েছে “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” পুস্তিকাটি। এই কিতাবটি তাখরিজ করেছেন মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি। এ থেকেই বোঝা যায় বইয়ের অথেনটিক মান কেমন।

    ◼শুভ সূচি কথন:

    বইটির সূচীর দিকে তাকালে একটা জিনিস খুব স্পষ্ট হয়। সেটা হচ্ছে সম্মানিত অনুবাদক বইটিকে সিরিয়াল অনুযায়ী সব গুলো টপিক ছোট ছোট অনুচ্ছেদে সাজিয়েছেন। সূচির সার-সংক্ষেপকে আমি একটু সিরিয়াল অনুযায়ী উপস্থাপন করার চেষ্টা করছি। যাতে প্রিভিউ পাঠকরা বিষয়টা ভালো ভাবে বুঝতে সক্ষম হন। সূচির সংক্ষেপিত সিরিয়াল:-

    ◾গুনাহের কারন।
    ◾গুনাহ করা ও শয়তানের ওয়াসাওয়াসা।
    ◾অন্তরের তাকওয়া নিঃশেষ হয়ে যাওয়া।
    ◾গুনাহের শাস্তি।
    ◾গুনাহ থেকে ফিরে আসার উপায়।

    অর্থাৎ কিভাবে মানুষ গুনাহের পথে পা বাড়ায়, গুনাহের পতিত হবার পর শয়তানের চক্রান্ত, গুনাহে লিপ্ত হবার পর অন্তরের তাকওয়া কিভাবে নিঃশেষ হয়, ইহকাল ও পরকালে গুনাহের কি শাস্তি হবে এবং সর্ব শেষে হচ্ছে আশার বাণী। কিভাবে গুনাহ থেকে ফিরে আসতে হবে। এভাবে বইটি সিরিয়াল অনুযায়ী সুসজ্জিত করার কারনে বইটি সুখ পাঠ্য হবে আশা করি।

    ◼এক নজরে প্রিভিউ কথন:

    আজ আমাদের সমাজ জাহিলিয়াতের চরম অন্ধকারে নিমজ্জিত। আমাদের সমাজের মানুষ গুলো গুনাহের সমুদ্রে ডুবন্ত প্রায়। এই ডুবন্ত মানুষ গুলোকে আরেক বারের জন্য হলে ও টেনে তুলতে হবে কিনারায়। মনে করিয়ে দিতে হবে তার উদ্দেশ্য কি? এই ধারা মাথায় রেখে গুনাহ হতে ফিরে আসার জন্য দরদি ডাক হচ্ছে “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন”। আহ! বইয়ের নাম আর প্রচ্ছদই মনে শান্তির পরশ বুলিয়ে দেয়৷ মনে হয়ে কেউ আমার হাত ধরে বলছে, অনেক তো হলো, এবার তবে ফিরে আসা যাক।

    বইটি থেকে পড়া প্রথম কিছু অনুচ্ছেদ অত্যান্ত হৃদয় গ্রাহী ও চিরন্তন সত্য। বইটি সহজ ও সাবলিল ভাষায় উপস্থাপন করার কারনে যে কোন শ্রেনীর পাঠক বইটিকে হৃদয়গ্রাহী করতে পারবে। বইটির প্রথম থেকেই এত সুন্দর ভাবে বর্ণনা করা হয়েছে, না জানি পুরো বইটি কত মনিমুক্তো দিয়ে ভরা।

    ◼বইটি কেন পড়া উচিত:❓

    এই বইটিকে আত্মার ঔষুধ বলা যায়। যে ঔষুধ খেলে গুনাহ নামক রোগ থেকে মুক্তির পথ খুজে পেতে পারেন। আশা করি শুদ্ধতার অমিয় ধারা আপনার জীবনকে ও সজীব করে তুলবে।

    তাই আর কত স্যুট-বুট পড়ে মানুষের সামনে নিজেকে পরিপাটি ভাবে জাহির করা? এবার তবে রব্বের কাছে পরিচ্ছন্ন ও পরিপাটি হওয়া যাক।

    ◼প্রথম অনুচ্ছেদ গুলো থেকে প্রিয় উক্তি:

    “যখন গুনাহ ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়ে, গুনাহের সয়লাব হয় রাষ্ট্রীয় ভাবে তার বৈধতা অর্জন হয়ে যায় এবং সৎ ও নেক কাজকে দাবিয়ে রাখার চেষ্টা করা হয় তখন বুঝে নিতে হবে, সেই সমাজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে।”

    এই চিরন্তন সত্য কথাটা এখন আমাদের সামনেই ঘটছে। একটু চোখ খুললেই দেখতে পাবেন।

    ◼পরিশেষে:

    মুমিনরা কেবল দুনিয়ার এই সামান্য স্বাদ আস্বাদন করার জন্য জন্মে না। তাদের দৃষ্টি থাকে উর্ধ্বলোকের বাইরে। অসিম মহাকাশ ভেদ করে সেই রোমন্থন জাগানিয়া স্থান হচ্ছে তার আসল গন্তব্য৷ যেখানে আরশে কুরছির উপরে উপবিষ্ট আছেন সমগ্র জনহানের অধিপতি। যার কাছে রয়েছে চির শান্তির আবাসস্থল। তাই,

    “আর নয় গুনাহ ভরা ভুবন
    ” আমরা চাই পবিত্র জীবন। ”

    _____________________________________
    ◼এক নজরে বইটির পরিচয়:📚

    ✏ব‌ই: গুনাহ থেকে ফিরে আসুন
    ✏মূল লেখক: আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ।
    ✏মুল কিতাবের তাখরিজ করেছেন: মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি।
    ✏অনুবাদক: মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার
    ✏সম্পাদনা: আয়ান টিম
    ✏প্রথম প্রকাশ: জানুয়ারী ২০২১
    ✏গ্রন্থস্বত্ব: আয়ান প্রকাশন
    ✏পরিবেশনায়: মাকতাবাতুন নূর
    ✏প্রচ্ছদ ও পৃষ্ঠাসজ্জা: ফেরদাউস মিক্বদাদ
    ✏মুদ্রিত মূল্য: ২৬০টাকা মাত্র
    _____________________________________

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  10. 5 out of 5

    :

    বইয়ের নাম : গুনাহ থেকে ফিরে আসুন
    লেখক : আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহ.
    তাখরিজ : মাওলানা তাহের নাক্কাশ (পাকিস্তান)
    অনুবাদক : মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার
    প্রকাশনায় : আয়ান প্রকাশন
    পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৭৬
    মুদ্রিত মূল্য : ২৬০টাকা

    গুনাহ!
    এক ভীতিকর অন্ধকারের নাম, যা মানুষকে জাহান্নামে নিয়ে যাওয়ার জন্য যথেষ্ট। গুনাহ মানুষের খাহেশাত এবং শয়তানের ধোঁকার সম্মিলিত একটি কাজ। শুধু নবিরা ব্যতীত কেউ এর থেকে বাঁচতে পারে না। তবে সর্বোত্তম তো হলেন ওই ব্যক্তি, যিনি গুনাহ করে ফেললে আল্লাহর দরবারে তওবাহ করেন।

    গুনাহের ভয়াবহতা এবং এর থেকে বাঁচার বিভিন্ন উপায় নিয়ে আলিমরা অনেক আলোচনা এবং লেখালেখি করেন। তবে এ ব্যাপারে আমাদের সালাফদের কর্মপন্থা-ই আমাদের জন্য সবচেয়ে মঙ্গলজনক। আমাদের সালাফ ইমাম ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহ. গুনাহ থেকে মানুষকে ফিরিয়ে আনতে এর দিকনির্দেশনা মূলক একটি গ্রন্থ লিখেছেন। যা বাংলায় “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” নামে অনূদিত হচ্ছে। প্রকাশ করবে আয়ান প্রকাশন।

    বইটিতে যা আছে:
    “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” বইটিতে তিনটি বিষয় খুব গুরুত্বের সাথে আলোচনা করা হয়েছে।
    *গুনাহ্ করার কারণ।
    *গুনাহ্ এর ফলে হওয়া ক্ষতি। এবং
    *গুনাহ্ ছাড়ার উপায়

    মূলত এই তিনটি বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারলেই আমাদের পক্ষে গুনাহ থেকে ফিরে আসা সহজ হবে। ইমাম ইবনুল কাইয়্যিম রহ. এ বিষয়টা খুব ভালোভাবেই বুঝতে পেরেছিলেন। তাই তিনি বইয়ে এই তিনটি বিষয় নিয়ে কুরআন, হাদিস ও বাস্তবতার আলোকে সবিস্তারে আলোচনা করেছেন।

    বইটি পড়ার প্রয়োজনীয়তা:
    আমরা মানুষ। মানুষ মাত্রই গুনাহগার, শুধু নবিরা ছাড়া। তাই আমাদের সবার জন্যই আবশ্যক হলো গুনাহ থেকে ফিরে আসার উপায় জেনে রাখা। কারণ, তা না হলে গুনাহ আমাকে জাহান্নামের অতলে নিয়ে যাবে। শুধু কি তাই? গুনাহ এর আরো কতো অপকারী দিক রয়েছে তা বইটি পড়লেই বুঝতে পারবেন। গুনাহ থেকে ফিরে আসার সহজ এবং সঠিক দিকগুলো উক্ত বইয়ে খুব সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। বইটি পড়লে আমরা ব্যাপকভাবে উপকৃত হবো এবং গুনাহের অন্ধকার থেকে পবিত্র হয়ে সত্য ও সঠিক জীবনযাপন করতে পারবো ইনশাআল্লাহ।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  11. 5 out of 5

    :

    প্রিভিউ
    নব্য জাহেলীয়াতি জোয়ারে গা ভাসিয়ে আদম সন্তান আজ বিস্মৃত হয়েছে তার আপন স্রষ্টা সম্পর্কে এবং তার নিজ সৃষ্টির উদ্দেশ্য সম্পর্কে সে উদাসীন। দুনিয়ার বিলাসিতায় ডুবে গিয়ে ভুলে যায় পাপ পূণ্যের সীমারেখা। শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে এগিয়ে যায় পাপের স্বর্গরাজ্যে।
    রবের গোলামির পরিবর্তে নফসের গোলামির শৃঙ্খলে আবদ্ধ মানুষ আজ কুফরির দাসত্বে বন্দী। জীবনের চলার পথে বিজাতীয় অনুকরণ, তাগুতের অনুসরণ এবং অশ্লীলতার প্রতিযোগিতা এমনভাবে জাল বিস্তার করেছে যে মানুষ তার স্বাভাবিক বিবেক বিবেচনা খুইয়ে বসেছে। ঠিক-ভুল, আমল-বদ আমলের পরোয়া করেনা আজকাল।
    প্রকাশ্যে গুনাহের সমুদ্রে‌‌ ভাসতে ভাসতে অন্তর এমনভাবে কালিমালিপ্ত হয়ে গেছে যার ফলে গুনাহ করার পর অন্তরে কোন রকম অনুশোচনার উদয় হয়না। রবের নাফরমানী কোমলতা সরিয়ে হৃদয়কে করেছে শুষ্ক।‌
    গুনাহের জাঁতাকলে পড়ে আমরা হারিয়ে জাহান্নামের অতল গহ্বরে।

    গুনাহ নামক অন্তরের ব্যাধি এবং শয়তানের ধোঁকা সম্পর্কে মানুষকে অবহিত করতে মহান রাব্বুল আলামীন দুনিয়াতে পাঠিয়েছেন জীবন বিধান। মানুষকে সচেতন করতে যুগে যুগে নবী রাসূলদের আগমন ঘটেছে।
    সেই নবী রাসূলদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে সালাফায়ে রাশেদীন, আলিম ওলামারা কলম ধরেছেন গুনাহের ভয়াবহতা এবং এর থেকে মুক্তির উপায় সম্পর্কে মানুষকে অবহিত করতে।

    সালাফ ইমাম ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহ. ছিলেন অন্তরের রোগ সনাক্তকারী। গুনাহের পথ থেকে মানুষকে “সিরাতুল মুস্তাকিমে” ফিরিয়ে আনতে “আলজাওয়াবুল কাফী লিমান সা’আলা আনিদ দায়ীশ শাফী” নামে দৃষ্টান্তমূলক একটি গ্রন্থ রচনা করেন যা সাম্প্রতিক বাংলা ভাষায় অনূদিত হয়েছে “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” নামে।
    উল্লেখযোগ্য ব‌ইটি প্রকাশিত হয়েছে সুপরিচিত আয়ান প্রকাশনা থেকে।

    ⚫ব‌ইয়ের বিষয়বস্তু (শর্ট পিডিএফের আলোকে)

    পাঠকদের অবহিত করতে আয়ান প্রকাশনী একটা ছোট্ট পিডিএফ উন্মোচন করেছে। ব‌ইয়ের নামকরণ থেকে বিষয়বস্তু সম্পর্কে সম্যক ধারণা করা যায়।
    ইমাম ইবনুল কায়্যিম (রহ) এর যুগেও ছিল বর্তমান জমানার মত ফিতনা ফ্যাসাদের রাজত্ব। তাই তাঁর লেখনীতে বাস্তব চিত্রের অবলোকন ঘটেছে দারুণভাবে।

    অত্যন্ত দক্ষতার সাথে আল কুরআন ও সুন্নাহর‌ দৃষ্টিকোণ থেকে কয়েকটি আকর্ষণীয় শিরোনামে ভিন্ন ভিন্ন পরিচ্ছেদে ব‌ইটিতে আলোচিত হয়েছে —
    *গুনাহের কারণসমূহ
    *গুনাহের আলামত
    *গুনাহের ক্ষতি এবং
    *গুনাহ থেকে মুক্তির পথ
    গুনাহের প্রধান কারণ সম্পর্কে তিনটি বিষয়কে চিহ্নিত করা হয়েছে তা হল-
    ১.নারী
    ২. ধন-দৌলত
    ৩. জায়গা-জমি

    একটি গুনাহ কিভাবে আরো কয়েকটি গুনাহের পথ উন্মুক্ত করে দেয়, গুনাহ কিভাবে রিজিককে সংকুচিত করে এবং তার ভয়াবহতা কিভাবে আখেরাত বিনষ্টকারী তার যথার্থ হৃদয়স্পর্শী বর্ণনা ফুটে উঠেছে আল-কুরআনের আলোকে।

    কেন পড়বেন?
    ———————
    আদম সন্তান মাত্র‌ই গুনাহগার, তার মধ্যে সেই উত্তম যে অধিক ত‌ওবাকারী। মানুষের শুষ্ক অন্তর‌ অনুশোচনায় বিগলিত হবে যখন তার হৃদয়ে আখেরাতের ভয় থাকবে।
    গুনাহের ভয়াবহতা দুনিয়া ও আখেরাতকে কিভাবে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেয় সে সম্পর্কে অবগত হলে রবের সম্মুখে জবাবদিহিতার ভয় জাগ্রত হবে যা মানুষকে পুনরায় ফিরিয়ে নিয়ে আসবে একনিষ্ঠ দ্বীনের প্রতি।
    নফসের অন্ধকার থেকে প্রত্যাবর্তন করবে সীরাতুল মুস্তাকিমের পথে।
    সুতরাং গুনাহ থেকে ফিরে আসার জন্য এবং ফিতনাময় দুনিয়াই ঈমানের দৃঢ়তাকে ধরে রাখতে উক্ত ব‌ইটি সেল্ফ রিমাইন্ডার হিসেবে কাজ করবে নিঃসন্দেহে।

    ⚫শেষ কথন
    ———————-
    শর্ট পিডিএফ থেকে ধারণা করা যায় ব‌ইটি সকল স্তরের মুমিনদের জন্য অপরিহার্য। ব‌ইয়ের সহজ সাবলীল অনুবাদ ও ভাষার প্রাঞ্জলতা হৃদয়কে স্পর্শ করবে সহজেই।

    📚একনজরে ব‌ই পরিচিতি
    ————————————–
    বইঃ গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    লেখকঃ আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ(রহ)
    অনুবাদঃ মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার
    প্রকাশনায়ঃ আয়ান প্রকাশন
    বাইন্ডিংঃ পেপারব্যাক
    পৃষ্টা সংখ্যাঃ ১৭৬
    মূল্যঃ ১৩০

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  12. 5 out of 5

    :

    #ইসলামিক_বই_পরিচিতি_প্রিভিউ_প্রতিযোগিতা
    ,🍂
    নব্য জাহেলীয়াতি জোয়ারে গা ভাসিয়ে আদম সন্তান আজ বিস্মৃত হয়েছে তার আপন স্রষ্টা সম্পর্কে এবং তার নিজ সৃষ্টির উদ্দেশ্য সম্পর্কে সে উদাসীন। দুনিয়ার বিলাসিতায় ডুবে গিয়ে ভুলে যায় পাপ পূণ্যের সীমারেখা। শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে এগিয়ে যায় পাপের স্বর্গরাজ্যে।
    রবের গোলামির পরিবর্তে নফসের গোলামির শৃঙ্খলে আবদ্ধ মানুষ আজ কুফরির দাসত্বে বন্দী। জীবনের চলার পথে বিজাতীয় অনুকরণ, তাগুতের অনুসরণ এবং অশ্লীলতার প্রতিযোগিতা এমনভাবে জাল বিস্তার করেছে যে মানুষ তার স্বাভাবিক বিবেক বিবেচনা খুইয়ে বসেছে। ঠিক-ভুল, আমল-বদ আমলের পরোয়া করেনা আজকাল।
    প্রকাশ্যে গুনাহের সমুদ্রে‌‌ ভাসতে ভাসতে অন্তর এমনভাবে কালিমালিপ্ত হয়ে গেছে যার ফলে গুনাহ করার পর অন্তরে কোন রকম অনুশোচনার উদয় হয়না। রবের নাফরমানী কোমলতা সরিয়ে হৃদয়কে করেছে শুষ্ক।‌
    গুনাহের জাঁতাকলে পড়ে আমরা হারিয়ে জাহান্নামের অতল গহ্বরে।

    গুনাহ নামক অন্তরের ব্যাধি এবং শয়তানের ধোঁকা সম্পর্কে মানুষকে অবহিত করতে মহান রাব্বুল আলামীন দুনিয়াতে পাঠিয়েছেন জীবন বিধান। মানুষকে সচেতন করতে যুগে যুগে নবী রাসূলদের আগমন ঘটেছে।
    সেই নবী রাসূলদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে সালাফায়ে রাশেদীন, আলিম ওলামারা কলম ধরেছেন গুনাহের ভয়াবহতা এবং এর থেকে মুক্তির উপায় সম্পর্কে মানুষকে অবহিত করতে।

    সালাফ ইমাম ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহ. ছিলেন অন্তরের রোগ সনাক্তকারী। গুনাহের পথ থেকে মানুষকে “সিরাতুল মুস্তাকিমে” ফিরিয়ে আনতে “আলজাওয়াবুল কাফী লিমান সা’আলা আনিদ দায়ীশ শাফী” নামে দৃষ্টান্তমূলক একটি গ্রন্থ রচনা করেন যা সাম্প্রতিক বাংলা ভাষায় অনূদিত হয়েছে “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” নামে।
    উল্লেখযোগ্য ব‌ইটি প্রকাশিত হয়েছে সুপরিচিত আয়ান প্রকাশনা থেকে।

    ⚫ব‌ইয়ের বিষয়বস্তু (শর্ট পিডিএফের আলোকে)

    পাঠকদের অবহিত করতে আয়ান প্রকাশনী একটা ছোট্ট পিডিএফ উন্মোচন করেছে। ব‌ইয়ের নামকরণ থেকে বিষয়বস্তু সম্পর্কে সম্যক ধারণা করা যায়।
    ইমাম ইবনুল কায়্যিম (রহ) এর যুগেও ছিল বর্তমান জমানার মত ফিতনা ফ্যাসাদের রাজত্ব। তাই তাঁর লেখনীতে বাস্তব চিত্রের অবলোকন ঘটেছে দারুণভাবে।

    অত্যন্ত দক্ষতার সাথে আল কুরআন ও সুন্নাহর‌ দৃষ্টিকোণ থেকে কয়েকটি আকর্ষণীয় শিরোনামে ভিন্ন ভিন্ন পরিচ্ছেদে ব‌ইটিতে আলোচিত হয়েছে —
    *গুনাহের কারণসমূহ
    *গুনাহের আলামত
    *গুনাহের ক্ষতি এবং
    *গুনাহ থেকে মুক্তির পথ
    গুনাহের প্রধান কারণ সম্পর্কে তিনটি বিষয়কে চিহ্নিত করা হয়েছে তা হল-
    ১.নারী
    ২. ধন-দৌলত
    ৩. জায়গা-জমি

    একটি গুনাহ কিভাবে আরো কয়েকটি গুনাহের পথ উন্মুক্ত করে দেয়, গুনাহ কিভাবে রিজিককে সংকুচিত করে এবং তার ভয়াবহতা কিভাবে আখেরাত বিনষ্টকারী তার যথার্থ হৃদয়স্পর্শী বর্ণনা ফুটে উঠেছে আল-কুরআনের আলোকে।

    কেন পড়বেন?
    ———————
    আদম সন্তান মাত্র‌ই গুনাহগার, তার মধ্যে সেই উত্তম যে অধিক ত‌ওবাকারী। মানুষের শুষ্ক অন্তর‌ অনুশোচনায় বিগলিত হবে যখন তার হৃদয়ে আখেরাতের ভয় থাকবে।
    গুনাহের ভয়াবহতা দুনিয়া ও আখেরাতকে কিভাবে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেয় সে সম্পর্কে অবগত হলে রবের সম্মুখে জবাবদিহিতার ভয় জাগ্রত হবে যা মানুষকে পুনরায় ফিরিয়ে নিয়ে আসবে একনিষ্ঠ দ্বীনের প্রতি।
    নফসের অন্ধকার থেকে প্রত্যাবর্তন করবে সীরাতুল মুস্তাকিমের পথে।
    সুতরাং গুনাহ থেকে ফিরে আসার জন্য এবং ফিতনাময় দুনিয়াই ঈমানের দৃঢ়তাকে ধরে রাখতে উক্ত ব‌ইটি সেল্ফ রিমাইন্ডার হিসেবে কাজ করবে নিঃসন্দেহে।

    ⚫শেষ কথন
    ———————-
    শর্ট পিডিএফ থেকে ধারণা করা যায় ব‌ইটি সকল স্তরের মুমিনদের জন্য অপরিহার্য। ব‌ইয়ের সহজ সাবলীল অনুবাদ ও ভাষার প্রাঞ্জলতা হৃদয়কে স্পর্শ করবে সহজেই।

    📚একনজরে ব‌ই পরিচিতি
    ————————————–
    বইঃ গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    লেখকঃ আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ(রহ)
    অনুবাদঃ মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার
    প্রকাশনায়ঃ আয়ান প্রকাশন
    বাইন্ডিংঃ পেপারব্যাক
    পৃষ্টা সংখ্যাঃ ১৭৬
    মূল্যঃ ১৩০

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  13. 5 out of 5

    :

    ★বইয়ের প্রি রিভিউ*★***************************
    নামঃ গুনাহ থেকে ফিরে আসুন, মূল লেখকঃ ইমাম ইবনুল জাওযিয়্যাহ রহ,অনুবাদকঃ মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার, প্রকাশনীঃ আয়ান প্রকাশন,ধরনঃ ইসলামি বই,প্রকাশকালঃ জানুয়ারি ২০২১,কভারঃ পেপারব্যাক, পৃষ্ঠাঃ ১৬০,মূল্যঃ ২৬০ টাকা************************
    👉মূল আলোচনাঃ বইটির শর্ট পিডিএফ পড়ে যা জানতে ও বুঝতে পারলাম তা থেকে বইটির প্রি রিভিউ তুলে ধরছি (আলোচনা করছি) :-প্রথমেই বলি বইটির শর্ট পিডিএফ পড়ে যা জানতে-বুঝতে পারলাম যে গুনাহ থেকে বেঁচে থাকতে বইটির তুলনাই চলে না।এক হলো বইটির লেখক যার কথা না বলা মানে কিছুই বলা হয় নি আর হলো বইটির ভিতরের স্বর্ণখচিত লেখাগুলো যা পুরোপুরি বর্তমান সময়কে কেন্দ্র করে লেখা যদিও লেখক বইটি লিখেছিলেন অনেক আগে।এ দুটি কারণেই বইটি পড়ে তা জীবনে বাস্তবায়নের জন্য যথেষ্ট। আমাকে বলা হলে আমি বলব যে বইটি পড়লে আপনি জীবনেও ঠকবেন না বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।এমনকি বইটি জীবনের মোড়ও ঘুরিয়ে দিতে সক্ষম হবে।➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖👉সূচিপত্র বিশ্লেষণঃগুনাহ থেকে বেঁচে থাকুন বইটি বইটিতে প্রায় 58 টি পাঠ এবং 17 টি বৈশিষ্ট্যের মাধ্যমে সাজানো হয়েছে ।সূচিপত্রে এমন কোন বিষয় নেই যা একটার চেয়ে অন্যটি কম গুরুত্বপূর্ণ । তবুও 📙আমার কাছে যেগুলো গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে তা হল:
    🔸মানুষের গুনাহ করার তিন কারণ, 🔸গুনাহ করে খুন কচুয়া দেওয়া, 🔸গুনাহে লিপ্ত হওয়ার কারণসমূহ, 🔸গুনাহের আলামত, 🔸লোক দেখানো আমল, 🔸পাঁচটি খারাপ অভ্যাস ধারণকারীদের আলামত, 🔸শেষ জামানায় গুনাহের অবস্থা, 🔸গুনাহের ক্ষতিসমূহ ।এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচনা করা হয়েছে গুনাহ করার কারণ,গুনাহের আলামত, গুনাহের ক্ষতিসমূহ এবং গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার উপায় ।এছাড়া পরিশিষ্টে সুনির্দিষ্টভাবে গুনাহে পতিত হওয়ার কারণ আর সর্বশেষ গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার উপায় তুলে ধরা হয়েছে।যে বিষয়গুলো মুখ্যভাবে তুলে ধরা হয়েছে বইটিতে সে বিষয়গুলো সম্পর্কে জানলে বইটি সম্পর্কে আরেকটু ভালো ধারণা পাওয়া যাবে।📒গুনাহে পতিত হওয়ার কারণসমূহের মধ্যে রয়েছে-
    🔹প্রবৃত্তির অনুসরণ, 🔹মুর্খতা,🔹শয়তান,🔹অসৎ সঙ্গ, 🔹খারাপ বন্ধুবান্ধব ও সহপাঠী, 🔹উদাসীনতা, 🔹দীর্ঘ আশা করা,🔹নযর বা দৃষ্টি, 🔹অবসরতা এবং 🔹জিহ্বা।📙আবার গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার উপায়ের মধ্যে রয়েছে-🔸আল্লাহর ধ্যান-খেয়াল,🔸নফসের মুহাসাবা বা হিসাব-নিকাশ,🔸আল্লাহর স্মরণ বা যিকির করা,🔸সালাত প্রতিষ্ঠা,🔸ইখলাস, 🔸যেসব কারণে গুনাহ সংঘটিত হয় তার বিপরীতে চলা।➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖👉বইটির ইতিহাসঃ বইটি শাইখুল ইসলাম সানি, ইমাম ইবনুল জাওযিয়্যাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি এর “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাত্তালা আনিদ দায়িশ শাফি” বইটি থেকে অনুবাদকৃত। শায়েখ অন্তরের ব্যাধির প্রতি দৃষ্টিপাতকারী, অন্তরের রোগ শনাক্তকারী ছিলেন । বর্তমান সমাজের মতো গুনাহের মহামারী দমনে তার সময়ের তার প্রচেষ্টায় এই বইটি লিখিত।বইটি তাখরীজ করেছেন মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি। বইটি বাংলায় বের করেছে আয়ান প্রকাশন আর অনুবাদক হলেন মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার । দুষ্প্রাপ্য ও উপদেশ ভান্ডার বইটি বাংলায় বের করা অবশ্যই সময়োপযোগী ও যৌক্তিক➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖👉বইটির ভিতরের লেখা বিশ্লেষণঃবইটির কিছু বিষয় তুলে ধরলে বইটি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। 📒বইটিতে গুনাহের প্রবেশদ্বার হিসেবে বলা হয়েছে যে, যখন মুসলমানরা কুরআন ও সুন্নাহকে বাদ দিয়ে অন্যদিকে মুখ ঘুরিয়ে নেয় তখনই তারা প্রবেশ করে চরম চরম অন্ধকারে।বর্তমানে যেমন আমরা চরম অন্ধকারে আছি এ বিষয়টিকে গ্রহন করে।(সংক্ষিপ্ত)
    📒গুনাহের সজ্ঞা হিসেবে মহানবি সা এর হাদিস তুলে ধরা হয়েছে। মহানবি সা কে যখন গুনাহের সম্পর্কে সাহাবিগণ জানতে চান তখন মহানবি বলেন, “নেকি উত্তম চরিত্রের নাম আর গুনাহ হলো তা যা তোমার বক্ষের মাঝে প্রভাব বিস্তার করে এবং লোকেরা সেটি জানুক তা তুমি অপছন্দ করো না।”(সহিহ মুসলিম, কিতাবুল বিল ওয়াস সিলাহ,হাদিস নং ২৫৫৩)📒সমাজ ধ্বংসের আলামত বোঝা যাবে যখন গুনাহ ব্যাপক আকারে সয়লাব হয় ও ছড়িয়ে যায়,রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি লাভ করে,সৎ নেককারদের দমিয়ে রাখা হয়।
    📒গুনাহের প্রদি ধাবিতকারী ৩ টি জিনিস (নারী, ধন-দৌলত, জায়গা-জমি)📒কুরআনে সূরা আলে ইমরান এর ১৪ নং আয়াতে আল্লাহকে ভুলে গিয়ে মানুষ যেসব কারনে গুনাহের দিকে পা বাড়ায় সেগুলো:🔹নারী, 🔹সন্তান-সন্ততি,🔹সোনারূপার স্তূপ (ব্যাংক-ব্যালেন্স), 🔹চিহ্নিত ঘোড়া (নতুন নতুন মূল্যবান গাড়ি),
    🔹গবাদি পশুরাজি(বিভিন্ন পশুর খামার) এবং 🔹ক্ষেত-ক্ষামার➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖👉মূল আলোচনাঃ বইটির শর্ট পিডিএফ পড়ে যা জানতে ও বুঝতে পারলাম তা থেকে বইটির প্রি রিভিউ তুলে ধরছি (আলোচনা করছি) :-প্রথমেই বলি বইটির শর্ট পিডিএফ পড়ে যা জানতে-বুঝতে পারলাম যে গুনাহ থেকে বেঁচে থাকতে বইটির তুলনাই চলে না।এক হলো বইটির লেখক যার কথা না বলা মানে কিছুই বলা হয় নি আর হলো বইটির ভিতরের স্বর্ণখচিত লেখাগুলো যা পুরোপুরি বর্তমান সময়কে কেন্দ্র করে লেখা যদিও লেখক বইটি লিখেছিলেন অনেক আগে।এ দুটি কারণেই বইটি পড়ে তা জীবনে বাস্তবায়নের জন্য যথেষ্ট। আমাকে বলা হলে আমি বলব যে বইটি পড়লে আপনি জীবনেও ঠকবেন না বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।এমনকি বইটি জীবনের মোড়ও ঘুরিয়ে দিতে সক্ষম হবে➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖👉সূচিপত্র বিশ্লেষণঃগুনাহ থেকে বেঁচে থাকুন বইটি বইটিতে প্রায় 58 টি পাঠ এবং 17 টি বৈশিষ্ট্যের মাধ্যমে সাজানো হয়েছে ।সূচিপত্রে এমন কোন বিষয় নেই যা একটার চেয়ে অন্যটি কম গুরুত্বপূর্ণ । তবুও 📙আমার কাছে যেগুলো গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে তা হল: 🔸মানুষের গুনাহ করার তিন কারণ, 🔸গুনাহ করে খুন কচুয়া দেওয়া, 🔸গুনাহে লিপ্ত হওয়ার কারণসমূহ, 🔸গুনাহের আলামত, 🔸লোক দেখানো আমল, 🔸পাঁচটি খারাপ অভ্যাস ধারণকারীদের আলামত, 🔸শেষ জামানায় গুনাহের অবস্থা, 🔸গুনাহের ক্ষতিসমূহ ।এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচনা করা হয়েছে গুনাহ করার কারণ,গুনাহের আলামত, গুনাহের ক্ষতিসমূহ এবং গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার উপায় ।এছাড়া পরিশিষ্টে সুনির্দিষ্টভাবে গুনাহে পতিত হওয়ার কারণ আর সর্বশেষ গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার উপায় তুলে ধরা হয়েছে।যে বিষয়গুলো মুখ্যভাবে তুলে ধরা হয়েছে বইটিতে সে বিষয়গুলো সম্পর্কে জানলে বইটি সম্পর্কে আরেকটু ভালো ধারণা পাওয়া যাবে।📒গুনাহে পতিত হওয়ার কারণসমূহের মধ্যে রয়েছে-🔹প্রবৃত্তির অনুসরণ, 🔹মুর্খতা,🔹শয়তান,🔹অসৎ সঙ্গ, 🔹খারাপ বন্ধুবান্ধব ও সহপাঠী, 🔹উদাসীনতা, 🔹দীর্ঘ আশা করা,🔹নযর বা দৃষ্টি, 🔹অবসরতা এবং 🔹জিহ্বা।📙আবার গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার উপায়ের মধ্যে রয়েছে-🔸আল্লাহর ধ্যান-খেয়াল,🔸নফসের মুহাসাবা বা হিসাব-নিকাশ,🔸আল্লাহর স্মরণ বা যিকির করা,🔸সালাত প্রতিষ্ঠা,🔸ইখলাস, 🔸যেসব কারণে গুনাহ সংঘটিত হয় তার বিপরীতে চলা➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖👉বইটির ইতিহাসঃ বইটি শাইখুল ইসলাম সানি, ইমাম ইবনুল জাওযিয়্যাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি এর “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাত্তালা আনিদ দায়িশ শাফি” বইটি থেকে অনুবাদকৃত। শায়েখ অন্তরের ব্যাধির প্রতি দৃষ্টিপাতকারী, অন্তরের রোগ শনাক্তকারী ছিলেন । বর্তমান সমাজের মতো গুনাহের মহামারী দমনে তার সময়ের তার প্রচেষ্টায় এই বইটি লিখিত।বইটি তাখরীজ করেছেন মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি। বইটি বাংলায় বের করেছে আয়ান প্রকাশন আর অনুবাদক হলেন মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার । দুষ্প্রাপ্য ও উপদেশ ভান্ডার বইটি বাংলায় বের করা অবশ্যই সময়োপযোগী ও যৌক্তিক।➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖👉বইটির ভিতরের লেখা বিশ্লেষণঃবইটির কিছু বিষয় তুলে ধরলে বইটি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। 📒বইটিতে গুনাহের প্রবেশদ্বার হিসেবে বলা হয়েছে যে, যখন মুসলমানরা কুরআন ও সুন্নাহকে বাদ দিয়ে অন্যদিকে মুখ ঘুরিয়ে নেয় তখনই তারা প্রবেশ করে চরম চরম অন্ধকারে।বর্তমানে যেমন আমরা চরম অন্ধকারে আছি এ বিষয়টিকে গ্রহন করে।(সংক্ষিপ্ত)
    📒গুনাহের সজ্ঞা হিসেবে মহানবি সা এর হাদিস তুলে ধরা হয়েছে। মহানবি সা কে যখন গুনাহের সম্পর্কে সাহাবিগণ জানতে চান তখন মহানবি বলেন, “নেকি উত্তম চরিত্রের নাম আর গুনাহ হলো তা যা তোমার বক্ষের মাঝে প্রভাব বিস্তার করে এবং লোকেরা সেটি জানুক তা তুমি অপছন্দ করো না।”(সহিহ মুসলিম, কিতাবুল বিল ওয়াস সিলাহ,হাদিস নং ২৫৫৩)
    📒সমাজ ধ্বংসের আলামত বোঝা যাবে যখন গুনাহ ব্যাপক আকারে সয়লাব হয় ও ছড়িয়ে যায়,রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি লাভ করে,সৎ নেককারদের দমিয়ে রাখা হয়।
    📒গুনাহের প্রদি ধাবিতকারী ৩ টি জিনিস (নারী, ধন-দৌলত, জায়গা-জমি)📒কুরআনে সূরা আলে ইমরান এর ১৪ নং আয়াতে আল্লাহকে ভুলে গিয়ে মানুষ যেসব কারনে গুনাহের দিকে পা বাড়ায় সেগুলো:🔹নারী, 🔹সন্তান-সন্ততি,🔹সোনারূপার স্তূপ (ব্যাংক-ব্যালেন্স), 🔹চিহ্নিত ঘোড়া (নতুন নতুন মূল্যবান গাড়ি),🔹গবাদি পশুরাজি(বিভিন্ন পশুর খামার) এবং 🔹ক্ষেত-ক্ষামার।👉শিক্ষাঃ📙বইটির শিক্ষা বলতে গেলে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে একই কথা বলা হবে তবুও বলি বইটি পড়লে গুনাহের ক্ষেত্রে আমাদের বর্তমান আবস্থা কি,কি হওয়া উচিত ছিল, কীভাবে সে অবস্থায় যাওয়া যায় তা তুলে ধরা হয়েছে। যা জেনে আমাদের তা থেকে শিক্ষা নিতে হবে।এক কথায় যদি বলি বইটিতে যা আছে তা মেনে জীবনে প্রয়োগ করলেই প্রকৃত শিক্ষা পাওয়া ও বোঝা যাবে।
    ➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖👉আমার মন্তব্যঃ 📘বইটির শর্ট পিডিএফ পড়েই আমি আমার জীবনের কিছু ভুল ও করণীয় অনুধাবন করতে পেরেছি, যা মোটেও বাড়িয়ে বলা হয়নি।যা থেকে বুঝতে পারছি সম্পূর্ণ বইটি আমাদের কতটুকু প্রয়োজন।তাই আমি সকলকে কুরাআন ও সুন্নাহর পাশাপাশি বইটি পড়ে জীবন সুন্দর করার জন্য অনুরোধ করব এবং সুযোগ হলে আমিও কিনব।আল্লাহ আমাদের কবুল করুক, আমিন।
    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  14. 5 out of 5

    :

    বই পরিচিতি:-
    বই:গুনাহ্ থেকে ফিরে আসুন
    লেখক:ইমাম ইবনুল কায়্যিম আল জাওযিয়্যাহ(রহিমাহুল্লাহ)
    কিতাবটি তাখরিজ করেছেন :মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি
    অনুবাদ:মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার
    প্রকাশনায় :আয়ান প্রকাশন
    সম্পদনা:আয়ান টিম
    মূল্যঃ ২৬০৳

    শর্ট পিডিএফ পড়ার পর আমি আমার মতামত ব্যক্ত করলাম……..
    এই গ্রন্থটি লিখা হয়েছে গুনাহর ভয়াবহতা, অপকার ও ক্ষতি নিয়ে।গুনাহে লিপ্ত হওয়ার পিছনে যে কারণ গুলো রেয়েছে সেই কারণ গুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে এবং গুনাহ থেকে ফিরে আসার পথ ও বাতলে দিয়েছেন।
    এই গ্রন্থটি নেওয়া হয়েছে আলেমে রব্বানি শাইখুল ইসলাম ছানি,ইমাম ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ এর “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি”নামক অত্যন্ত মূল্যবান কিতাব থেকে।

    শয়তান আমাদের কে পাপের শিকল দিয়ে এমন ভাবে বন্ধি করেছে যে আমরা দিনের পর দিন গুনাহ করেই যাচ্ছি। পাপের পাহাড় গড়ে তুলেছি তবুও আমাদের মনে একটাবারের জন্যও কৃতকর্মের জন্য অনুশোচন হয়না।আল্লাহর আনুগত্য ছেড়ে শয়তানের আনুগত্যে লিপ্ত হয়েছি।দুনিয়াতে আমাদের নির্ধারিত সময় ফুরিয়ে যাচ্ছে কিন্তু আমরা সীমালঙ্ঘন করেই যাচ্ছি। দুনিয়াতে অন্তকাল বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখি কিন্তু প্রতিদিনই আমাদের চোখের সামনে কতশত মানুষ দুনিয়াকে চিরবিদায় জানাচ্ছে। তবুও আমরা এ থেকে শিক্ষা গ্রহন করিনা।নফসের গোলামিতে মত্ত রয়েছি।আমরা এমন ভাবে গাফেল হয়েছি যে মৃত্যুর ধ্বনি আমাদের কান অবধি পৌচ্ছে না।দুনিয়ার মোহ আমাদের কে অন্ধ করে দিয়েছে।মানুষ প্রকাশ্যে লোকচক্ষুর সামনে গুনাহ করছে।গুনাহ লিপ্ত হওয়ার পর সামান্য অনুতাপ অনুশোচনাও হয় না।এই গুনাহ্ গুলো গর্বে সহিত ছড়িয়ে দেওয়ার আয়োজন করে যাচ্ছে। পাপীর অন্তর গুনাহ করতে করতে কালো ও কঠিন হয়ে যায়। আল্লাহ তাআলা বলেন:
    وَجَعَلْنَا قُلُوبَهُمْ قَاسِيَةً
    (আল মায়িদাহ – ১৩)
    “এবং তাদের অন্তরসমূহ কে কঠিন করে দিয়েছি”
    গুনাহ করতে করতে অন্তরে কালো দাগ পড়ে যায়।সেই অসুস্থ অন্তর ভালো কিছু প্রত্যক্ষ করেনা। যুগে যুগে উম্মতের এই দায়ীগন গুনাহর ভয়াবহতা আর ফিতনার ব্যাপারে উম্মত কে সতর্ক করে গেছেন।তাদের মূল্যবান নসীহা গুলে উম্মতের রুগ্ন অন্তরে প্রেসক্রিপশন। এই কিতাবটি তারই একটি প্রতিচ্ছবি।
    উম্মতের এই ভয়বহ সময়ে কিতাবটি গুনাহর ভয়াবহতা, কারণ ও এর প্রতিকারের মহা ঔষধ হিশেবে কাজ করবে।পাঠকের অবশ্যই বইটা পড়া উচিত।সাবলীল অনুবাদ পাঠকের উপকারী জ্ঞান অর্জনে সহায়ক হবে ইনশাআল্লাহ।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  15. 5 out of 5

    :

    #ইসলামিক_বই_পরিচিতি_প্রিভিউ_প্রতিযোগতা
    🌿আসসালামু_আলাইকুম 🌿
    💞💞 ||প্রিভিউ||💞💞
    “প্রত্যেক আদম সন্তান পাপী, আর পাপীদের মধ্যে উত্তম হলো যিনি তাওবা করেন।
    পাপ করতে করতে আমরা আমাদের অন্তরকে কলুষিত করেছি এখন আর পাপ কাজ করতে দ্বিধা করি না।
    🏵️গুনাহের কারণ:
    ১. নারীদের সম্পর্কে নবীজি বলেছেন সবচেয়ে বড় ফিতনা হলো নারী। তাহলে বোঝা যায় একজন নারী শয়তানের বড় ফাঁদ। নারী সৌন্দর্য দিয়ে একজন পুরুষকে গুণাহের দিকে নিয়ে যাওয়া নারীর পক্ষে সম্ভব।
    আবার সে তার স্বামীর জন্য ও ভয়ানক তার উচ্চাভিলাস স্বামীকে অন্যায় পথ বেচে নিতে বধ্য করে।
    🌺লোভলালসা:
    আদম সন্তানের পাওয়ার আকাঙ্খা ততক্ষণ শেষ হবেনা যতক্ষণ না তাকে সাড়ে তিন হাত মাটি গ্রাস করে।।
    🌻সঙ্গী:
    একজন মানুষ গুণাহে জড়িয়ে পড়ার জন্য তার সঙ্গী প্রভাব ফেলে।
    সে গুণাহ করতে না চাইলেও তার সঙ্গীর কারণে তাকে গুণাহ করতে হয়।।
    🌼দূর্বল ঈমান:
    ঈমানের লেভেল ওঠানম করে কখনো এর জন্য দায়ী হয় আমাদের পরিবেশ অথবা আমরা নিজেই যেকারণে সহজেই গুণাহ করে বসি।
    #পাঠ্যানুভুতি:
    শর্ট পিডিএফ পড়ে মনে হলো বইটিতে মূলত আমারা কেনো গুণাহ করি আমাদের কাছে শয়তান কখন জয়ী হয়, আমরা কীভাবে গুণাহ থেকে ফিরতে পারবো এসব বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে ইনশাআল্লাহ।
    আমার মনে হয় আমাদের সকলের উচিত বইটি পড়া।।
    সর্বোপরি,
    আমার পক্ষ থেকে ইসলামিক বই পরিচিতি গ্রুপের সকলের জন্য দোয়া এবং এডমিন প্যানেলের সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা।।
    আমার জন্য দোয়ার দরখাস্ত রেখে এখানেই শেষ করছি।।

    বই :গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    মূল :আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহ.
    মুল কিতাবের তাখরিজ করেছেন- মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি
    অনুবাদ : মুহিবুল্লাহ খন্দকার
    প্রচ্ছদ : ফেরদাউস মিক্বদাদ
    বাইন্ডিং : পেপারব্যাক
    পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৭৬
    মুদ্রিত মূল্য : ২৬০/-
    মূল্য : ১৩০ টাকা।
    প্রকাশনায় : আয়ান প্রকাশন – Ayan Prokashan

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  16. 5 out of 5

    :

    আমাদের জীবনে নানান বিষয়ের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে গুনাহ।আজকে মুসলমানদের সব ধরনের সমস্যার সম্মুখীন এই গুনাহের প্রভাবে।স্বভাবতই গুনাহ,এর হাকিকত,এর বৈশিষ্ট্য,এর সর্বনাশা ছোবল,এর মুক্তিপথ ইত্যাদি নিয়ে জানা প্রত্যেকেরই দায়িত্ব।এর জন্য আলহামদুলিল্লাহ আরবিতে চমৎকার কিতাবাদী থাকলেও বাংলায় এরকম একটি কাজের অনেক প্রয়োজন ছিলো।আলহামদুলিল্লাহ ইমাম ইবনুল কাইয়্যিম রহিমাহুল্লাহ বইটির দ্বারা সেই চাহিদা অনেকাংশে পূর্ণ হবে।

    ২৫ পৃষ্ঠার শর্ট পিডিএফ পড়ার পর কিছু বিষয় তুলে ধরতে চাচ্ছি-
    ১]বইটি এমন একজন জগদ্বিখ্যাত আলিমের লেখা যাকে শাইখুল ইসলাম ইমাম ইবনে তাইমিয়া রহিমাহুল্লাহর অন্যতম বিখ্যাত ছাত্র হিসেবে অভিহিত করা হয়।যার ব্যাপারে আল্লামা ইবনে কাসির,ইমাম ইবনু রজব হাম্বলী রহিমাহুল্লাহর মতো প্রমুখ বড় বড় আলিমরা ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।

    ২]বইটি ইমাম ইবনুল কাইয়্যিম রহিমাহুল্লাহর “আল জাওয়াবুল কাফি” নামক অত্যন্ত সমাদৃত কিতাবের অংশ।সাধারণ মানুষ না জানলেও তালিবে ইলম ও আলেমদের কাছে এর গুরুত্ব অবর্ণনীয়।

    ৩]ইমাম ইবনুল কাইয়্যিম রহিমাহুল্লাহ গুনাহের প্রায় সবদিক দিবালোকের ন্যায় স্পষ্ট করে তুলে ধরেছেন।মনে হচ্ছে যেন,গুনাহ ব্যাপারটিতে পোস্টমর্টেম করে একদম সব বিষয় তুলে এনেছেন এবং এটাতেই ক্ষান্ত নয়,বরং কুরআন সুন্নাহর আলোকে চমৎকার সমাধানও দিয়ে দিয়েছেন।

    ৪]পাকিস্তানের লাহোরের বিশিষ্ট সাংবাদিক আলেম মাওলানা তাহের নাক্কাশ উনার দক্ষহাতে তাখরিজের কাজটি করেছেন।

    ৫]অনুবাদ সাবলীল লেগেছে।

    শর্ট পিডিএফ পড়ে এর বেশি তুলে আনা সম্ভব নয়।তবে আপনি একটু বুঝবান হলেই, এই স্বল্প কথাগুলোতেই আপনার কাছে বইটির গুরুত্ব দিবালোকের ন্যায় স্পষ্ট হয়ে যাওয়ার কথা।গুনাহের বেড়াজাল ছিন্নভিন্ন করে বেরিয়েই এসে দেখুন,আল্লাহু সুবহানাহু ওয়াতাআ’লার রহমতে আপনার জীবনটা কিভাবে সুরভিত হয়ে যায়।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  17. 5 out of 5

    :

    ‘মুমিন ব্যক্তি যখন কোনো গুনাহ করে, তখন তার হৃদয়ে একটা কালো দাগ পড়ে যায়। অতঃপর যদি সে তওবা করে এবং উক্ত কাজ ছেড়ে দেয় আর মাগফিরাত কামনা করে, তাহলে তার কলব পরিষ্কার করে দেওয়া হয়। আর যদি সে আরও গুনাহ করে,তাহলে সেই কালো দাগ বেড়ে যায় (এমনকি সমগ্র অন্তর কালো দাগে ছেয়ে যায়)।
    [সুনানে ইবনে মাজাহ, ৪২৪৪]
    ★ভূমিকা–
    ––––––––
    প্রখ্যাত লেখক ইমাম ইবনে কায়্যিম জাওযিয়াহ রাহিমাহুল্লাহ-এর হৃদয়গ্রাহী বর্ননামূলক কিতাব ‘আল ফাওয়ায়িদ’ গ্রন্থের বাংলা অনুবাদ করে তা পাঠকের জন্য পাঠ উপযোগী করেছেন ‘ আয়ান প্রকাশন’। এর বাংলা অনুবাদ নামকরণ করা হয়েছে ‘গুনাহ থেকে ফিরে আসুন’ নামে। মহামূল্যবান এই গ্রন্থে গুনাহের আলামত, ক্ষতি এবং মুক্তির পথ দেখানো হয়েছে।

    ★শর্ট পিডিএফ আলোচনা–
    ––––––––––––––––––
    ‘গুনাহ থেকে ফিরে আসুন’ বইটি নিঃসন্দেহে প্রতিটি মুসলিম উম্মাহর জন্য এক চমৎকার গ্রন্থ। এই গ্রন্থ আপনাকে মুক্তির পথ দেখাবে। এর সূচীপত্র পাঠ করে যা অনুধাবন করলাম–
    ১.গুনাহের কারন,
    ২. কুরআনের ভাষায় অন্যায় ও খারাপ কাজে লিপ্ত হওয়ার কিছু কারন,
    ৩. গুনাহের আলামত,
    ৪.পরকালে গুনাহের পরিণাম এবং
    ৫.ইহকালে গুনাহের ক্ষতি।
    আল্লাহ তাআলার অবাধ্যতা ও নফরমানি অন্তরের মহব্বতকে খতম করে দিয়ে তার মাঝে ঘৃণা দিয়ে ভরপুর করে দিয়েছে। আর তার কারনেই বড় বড় জাতির ওপর আল্লাহর আজাব পতিত হয়েছে। এই জিনিসকে গুনাহ বলা হয়। রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন—’ নেকি উত্তম চরিত্রের নাম এবং গুনাহ হলো তা যা তোমার বক্ষের মাঝে প্রভাব বিস্তার করে এবং লোকেরা সেটা জানুক তা তুমি অপছন্দ করো। [সহিহ মুসলিমঃ ২৫৫৩]
    বর্তমান সমাজের অবস্থা বহুগুণ খারাপ হয়ে গিয়েছে। মানুষজন প্রকাশ্যে লোকচক্ষুর সামনেই গুনাহ করে বেড়ায়। এমনকি অবস্থা এতটাই সঙ্গীন হয়ে গেছে, কোনো ব্যক্তি সৎপথে চলতে চাইলে তাকে মৌলবী, দাকিয়ানুস, একঘেয়েমি, ঘরকুনো, সন্ত্রাসবাদীর মতো উপাদীতে ভূষিত করা হয়।
    গুনাহের মূল কারন তিনটি। যথা-
    ১.নারী
    ২.ধন-দৌলত উপার্জন
    ৩.লোভ-লালসা।
    আল্লাহ তাআলা বলেন, “মানবকূলকে মোহগ্রস্ত করেছে নারী, সন্তান-সন্ততি, রাশিকৃত সর্ণ-রৌপ্য, চিহ্নিত অশ্ব, গবাদি পশু রাজি এবং ক্ষেত খামারের মতো আকর্ষণীয় বস্তুসামগ্রী। এসবই হচ্ছে পার্থিব জীবনের ভোগ্য বস্তু। আল্লাহর নিকটই হলো উত্তম আশ্রয়। ”

    ★পাঠ প্রতিক্রিয়া–
    বইটির শর্ট পিডিএফ পড়ে অনুধাবন করেছি,তা মুসলিম উম্মাহর জন্য কতটা ফলপ্রসূ। এখানে যে শুধু গুনাহ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে তা নয়। বরং এই ক্ষতিকর পথ থেকে উত্তরণের উপায়ও বলে দেওয়া হয়েছে। গুনাহ কাকে বলে, কেন আমরা গুনাহে লিপ্ত হই, কীভাবে এর ভয়াবহতা থেকে মুক্তি পাবেন, ইহকালে এর শাস্তি এবং পরকালে এর ক্ষতিকর দিক নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। গ্রন্থটি আপনাকে নিজেকে নিয়ে, নিজের করা পাপগুলোর বিষয়ে আরো একবার ভাবাবে।

    ★বইটির ভালো দিক —
    এই গ্রন্থের সবচেয়ে ভালো দিক হচ্ছে এর ভাষা সহজ ও সাবলীল। আল্লাহর সমস্ত বানী ও রাসূলের প্রতিটি হাদীসের যথাযথ রেফেরেন্স দিয়ে বইটিকে আরো সহীহ করেছে আয়ান প্রকাশন। এটি সকল স্তরের পাঠকের জন্য পাঠ উপযোগী।

    ★পাঠক কেন বইটি পাঠ করবে–
    নিজেকে নিয়ে ভাবতে, আপনার করা ছোট- বড় সকল গুনাহ সম্পর্কে ধারনা অর্জন করতে, আপনি যখন গুনাহ করেন তখন আপনার মনে হবে এটি মোটেও খারাপ কাজ না; এমন সব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় জানতে বইটি পাঠের আহ্বান। আপনার হৃদয়ে সৃষ্টি হবে আল্লাহ ভীতি, মন খুঁজতে থাকবে গুনাহ থেকে মুক্তির পথ যখনই আপনি বইটি পাঠ করবেন। গুনাহ সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান অর্জনের জন্য বইটি খুবই দরকারী। এমন একটি বই সব পাঠকের পড়া উচিত। আমরা প্রতিনিয়ত সজ্ঞানে বা অজ্ঞানে গুনাহের সাগরে নিমজ্জিত হয়ে থাকি। তা আমরা অনুধাবন করতে পারি না। বইটি আপনাকে শেখাবে গুনাহ কি, করণীয় কী, এর ক্ষতি এবং আলামত ইত্যাদি সকল বিষয়ে। যদি আল্লাহ চান তবে বইটি পাঠ করে আপনার জীবনে ঈমানি পরিবর্তন আসবে।

    বই :গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    মূল :আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহ.
    অনুবাদ : মুহিবুল্লাহ খন্দকার
    প্রচ্ছদ : ফেরদাউস মিক্বদাদ
    পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৭৬
    মুদ্রিত মূল্য : ২৬০/-
    প্রকাশনায় : আয়ান প্রকাশন

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  18. 5 out of 5

    :

    বই পরিচিতিঃ
    ____________
    বইঃ গুনাহ থেকে ফিরে আসুন

    মূল লেখকঃ ইমাম ইবনুল কায়্যিম আল জাওযিয়াহ (রাহিমাহুল্লাহ)

    মূল বইয়ের তাখরিজ করেছেনঃ মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানী

    অনুবাদকঃ মহিব্বুল্লাহ খন্দকার

    সম্পাদনাঃ আয়ান টিম

    প্রথম প্রকাশঃ জানুয়ারি ২০২১

    মুদ্রিত মূল্যঃ ২৬০ টাকা

    প্রকাশনায়ঃ আয়ান প্রকাশন – Ayan Prokashan

    বইটির ২৫ পৃষ্ঠার শর্ট পিডিএফ পড়লাম। চমৎকার একটা কাজ মনে হয়েছে। এ বইয়ের যে বিষয়গুলো সত্যিই নজর কেড়েছে –

    [১] প্রথমত, লেখকের উপস্থাপনার সহজবোধ্যতা আমাকে অবাক করেছে। বইটি ইমাম ইবনুল কায়্যিম আল জাওযিয়াহ (রাহিমাহুল্লাহ) এর মতো ব্যক্তিত্বের লেখা যিনি ছিলেন অন্তরের ব্যাধির প্রতি দৃষ্টিপাতকারী ও অন্তরের রোগ সনাক্তকারী।

    [২] দ্বিতীয়ত, মুগ্ধ হয়েছি বইটির অনুবাদের সাবলীলতায়। যথেষ্ট সাবলীল ভাবে বইটিকে অনুবাদ করেছেন শ্রদ্ধেয় অনুবাদক মহিব্বুল্লাহ খন্দকার সাহেব।

    [৩] বইটিতে মূলত –
    🍁গুনাহের কারণ,
    🍁গুনাহের ক্ষতি,
    🍁গুনাহের আলামত,
    🍁গুনাহের শাস্তি,
    🍁গুনাহ থেকে বেঁচে থাকা এবং
    আরো অন্যান্য বিষয়ে বিস্তর আলোচনা করা হয়েছে।

    [৪] বইটি ভালো লাগার অন্যতম কারণ হলো, বইটিতে তথ্যাবলি সমৃদ্ধ রেফারেন্সসহ তুলে ধরা হয়েছে।

    এ কিতাবটি ইমাম ইবনুল কায়্যিম আল জাওযিয়াহ (রাহিমাহুল্লাহ) এর “আলজাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি” নামক অত্যন্ত মূল্যবান কিতাব থেকে নেওয়া হয়েছে। কিতাবটি মূলত দুষ্প্রাপ্য এবং অনন্য উপদেশভান্ডারের জন্য সর্বোৎকৃষ্ট নমুনা।

    বড়ই সুসংবাদ হলো এই অসাধারণ কিতাবটিকে বাংলায় রূপান্তর করেছেন #আয়ান_প্রকাশন ।
    ইন শা আল্লাহ, এই কিতাব পড়ার মাধ্যমে পাঠকগণ অন্তরের কঠোরতাকে দূর করে দিয়ে নিজেদেরকে সিরাতে মুসতাকিম তথা সঠিক পথে পরিচালিত করতে পারবেন বলে মনে করি।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  19. 5 out of 5

    :

    আল্লাহ তা’য়ালা যাকে ইচ্ছা সরল- সঠিক পথের সন্ধান দেন, তাকে ভ্রষ্ট পথে কেউ নিতে পারে না। যদিও শয়তান সর্বদিক দিয়ে কূমন্ত্রণা দিয়ে পাপের পথকে সুপ্রশস্ত করে দেয়। পাপ হলো শিকলের মত, যা পাপকারীকে আটকে রাখে, যেন সে তাওহীদের বিশাল বাগানে বিচরণ করতে এবং সেখানকার ফল সৎকর্ম সমূহকে সংগ্রহ করতে না পারে। ফলশ্রুতিতে সে জ্ঞান,বুদ্ধি ও বিবেকের পরিবর্তে আত্ম প্রবৃত্তিকে প্রাধান্য দেয়।
    কোন জাতি তাদের কর্মের দ্বারা মান-সম্মানের উচ্চ আসনে আসীন হলেও আল্লাহর হুকুম অমান্য করার কারণে অতল গহবরে নিক্ষিপ্ত হয়। যার উদাহরণ অতীতের বড় বড় জাতিগুলোর আযাবের মধ্যে নিপতিত হওয়া।
    বর্তমানে আমরা সভ্য সমাজে বাস করছি। সভ্যতা, সংস্কৃতি এবং বিজ্ঞানের সুফল ভোগও করছি। আল্লাহর বিধানকে ভুলে শয়তানের পদাংক অনুসরণ করাকে”গর্বের কারণ” বলে মনে করছি। এমনকি পাশ্চাত্য অশ্লীল সংস্কৃতির স্রোতে গা ভাসিয়ে দিচ্ছি। অথচ এগুলোকে গুনাহ বলে ভাবছি না। আর আমাদের গুনাহের কাজকে তরাণ্বিত করতে সাহায্য করে ৩টি জিনিস।
    [১]নারী
    [২]ধন-দৌলত
    [৩]জায়গা-জমি।
    এগুলো পার্থিব জিনিস অজনের জন্য আমরা জীবনের প্রায় সবটুকু সময়-সামর্থ ব্যয় করি। অনেক ক্ষেত্রে বৈধতার পাশাপাশি অবৈধ পন্থাও অবলম্বন করি।। আল্লাহ তায়ালা মানব জাতির জীবনকে সৌন্দর্য্যমন্ডিত করার জন্য ৬ টি জিনিস( সুরা আলে ইমরান-১৪) প্রদান করেছেন। কিন্তু মানবজাতি এসবের মোহ পড়ে আল্লাহর হুকুম লংঘন করে গুনাহে লিপ্ত হয়।
    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  20. 4 out of 5

    :

    বই: গুনাহ থেকে ফিরে আসুন
    লেখক: আল্লামা হাফিজ ইবনুল কায়্যিম আল জাওযী
    প্রকাশন: আয়ান প্রকাশন
    মূল্য: ১৫৬৳
    বিষয়: মৌলিক ইসলাম

    মাশাআল্লাহ! “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” বইটির প্রিভিউ পড়ে মনে হলো বইটিতে গুনাহের অত্যন্ত উপকারী বর্ণনাসমূহ আলোচনা করা হয়েছে। গুনাহ সম্পর্কে আমাদের ভাসাভাসা জ্ঞানকে কুরআন-হাদিসের নির্ভরযোগ্য দলিল দ্বারা বিশ্লেষণ করা হয়েছে। গুনাহ থেকে বেঁচে থাকতে বইটি একটি রিমাইন্ডার হিসেবে কাজ করবে আশা করি।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  21. 5 out of 5

    :

    #ইসলামিক_বই_পরিচিতি_প্রিভিউ_প্রতিযোগতা

    ❀ ||প্রিভিউ|| ❀

    ‘গুনাহ্’! যার সাথে মানব জাতি উতপ্রোতভাবে জড়িত। অথচ আমরা সেই গুনাহ্ সম্পর্কে উদাসীন। বইটির শিরোনাম ও সূচি পড়লে স্পষ্ট আঁচ করা যায় বইটির বিষয়বস্তু সম্পর্কে।

    পাঠপ্রতিক্রিয়াঃ-
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    সর্ট পিডিএফ পড়ে মন চাচ্ছে একনাগাড়ে পুরোটা পড়ার জন্য। বইয়ের বিষয়বস্তু অনুযায়ী বইটিকে খুবই সুবিন্যস্তভাবে সাজানো হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই আমরা নানাপ্রকার ছোট-বড় বিভিন্ন ধরণের গুনাহের মধ্যে ডুবে আছি- স্বেচ্ছায় অথবা অনিচ্ছায়। বইটি আমাদের গুনাহ্ সম্পর্কে সচেতন করে তুলতে সক্ষম হবে বলেই আমার বিশ্বাস। বর্তমানের এই ফেত্নার যুগে বইটি গুনাহর ভয়াবহতা, কারণ ও এর প্রতিকারের মহা ঔষধ হিশেবে কাজ করবে। বইটি আমাদের চলমান ফিতনার যুগে তরুণ প্রজন্মের কাছে স্বীয় রবের নিকট প্রত্যাবর্তনের মাধ্যম হবে এবং নিজ রূহকে মহান রবের অশেষ রহমতের জন্যে শোকর জ্ঞাপনে উৎসাহিত করবে ইনশা আল্লাহ। প্রতিটা পাঠকের অবশ্যই বইটা পড়া উচিত।

    বই পরিচিতিঃ-
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    ছোট-বড় বেশ কয়েকটি শিরোনামে সাজানো চমৎকার একটি বই। আল্লামা ইবনুল কাইয়িম আল জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহর গুরুত্বপূর্ণ কিতাব
    الجواب الكافي لمن سأل عن الدواء الشافي “আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দাওয়ায়িশ শাফী” অথবা الداء والدواء
    “আদ দাউ ওয়াদ দাওয়াউ”। রহিমাহুল্লাহ কিতাবটি অনুবাদ করে আমাদের মুহিবুল্লাহ খন্দকার ভাই।অনুবাদ বেশ সাবলীল।

    সর্টপিডিএফ থেকে যা জানতে পারিঃ-
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    ◉গুনাহের প্রবেশদ্বার
    ◉মানুষ গুনাহ কেন করে?
    ◉গুনাহের সাধারণ তিনটি উদ্রেককারী বস্তু
    যা আমাদের গুনাহের কাজকে তরাণ্বিত করতে সাহায্য করে তা হলোঃ
    ১.নারী
    ২. ধন-দৌলত
    ৩. জায়গা-জমি

    এছাড়াও বইটিতে যা আছেঃ-
    দুনিয়ার ধন সম্পদের আসল হাকিকত নিয়ে, নিজের গুনাহের ব্যাপারে সাফাই দেওয়ার জন্য কমজোর ও ঠুনকো দলিল, লজ্জা সরম না থাকা, খারাপ সঙ্গ, গুনাহের মুল, গুনাহের আলামত, গুনাগারের জন্য জাহান্নামের ভয়াবহতা, সুদ ও যেনার মতো গুনাহ, অন্তরের ভেতরে গুনাহের আলামত, গুনাহের ক্ষতি, গুনাহ প্রতিত হওয়ার কারণ সমূহ, প্রবৃত্তির অনুসরণ, মূর্খতা, শয়তান, উদাসীনতা, দীর্ঘ আশা করা ইত্যাদি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা।

    শিক্ষাঃ
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    ১. আমরা জানতে পারি কীভাবে আমরা ধীরে ধীরে গুনাহে লিপ্ত হচ্ছি।
    ২. প্রতিনিয়ত গুনাহ কিভাবে আমাদের আত্মাকে কলুষিত করছে।
    ৩. গুনাহের স্তর কি কি।
    ৪. অন্যকে কিভাবে গুনাহ থেকে বাঁচাতে পারবো।
    ৪. গুনাহের কারণে মানুষের কি কি ক্ষতি হয়।
    ৪. সর্বজনীন গুনাহ থেকে পরিত্রাণের উপায়।

    বইটি কেন সকলের পড়া উচিতঃ-
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    বইটি গুনাহর পরিনতি, কারন , ভয়াবহতা এবং এ থেকে ফিরে আসার জন্য শক্তিশালী রিমাইন্ডার হিসেবে কাজ করবে ইনশা আল্লাহ। এছাড়াও আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে বইটিতে যা পড়লে আমাদের আল্লাহ ভীতি বাড়বে, গুনাহের আজাব থেকে বাঁচার ইচ্ছে জাগবে। যার কারনে গুনাহ থেকে ফিরে আসা আরো সহজ হবে ইনশা আল্লাহ। তাই বইটি সকলের একবার হলেও পাঠ করা উচিত।

    ভালোলাগাঃ-
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    বইয়ের নামকরণের সাথে প্রচ্ছদ টা খুব মানিয়েছে যা আমার খুব ভালো লেগেছে। এবং বিষয়বস্তু অত্যন্ত চমৎকার। অনুবাদকের অনুবাদনশৈলি, ভাষার মেলবন্ধন, ভাবের গাম্ভীর্যতা বইটিকে এক অনন্য মাত্রা দান করেছে।

    মন্তব্যঃ-
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    সর্বোপরি লেখক, অনুবাদক, প্রকাশক সহ সকলের জন্য অন্তরের অন্তস্থল থেকে দো’য়া ও ভালোবাসা। আল্লাহ যেন সকলকে তার রাস্তায় কবুল করে নেন। বইটিকে তাদের জান্নাতের উসিলা বানিয়ে দিন। আর ইসলামিক বই পরিচিতি গ্রুপের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি এই প্রিভিউ প্রতিযোগিতা আয়োজনের জন্য। জাজাকাল্লাহ খাইরান। মহান আল্লাহ আমাদের সকল ধরনের গুনাহ্ থেকে বেঁচে থাকার তাওফিক দান করুন। আমীন।
    ◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉

    বই :গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    মূল :আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহ.
    মুল কিতাবের তাখরিজ করেছেন- মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি
    অনুবাদ : মুহিবুল্লাহ খন্দকার
    প্রচ্ছদ : ফেরদাউস মিক্বদাদ
    বাইন্ডিং : পেপারব্যাক
    পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৭৬
    মুদ্রিত মূল্য : ২৬০/-
    মূল্য : ১৩০ টাকা।
    প্রকাশনায় : আয়ান প্রকাশন

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  22. 5 out of 5

    :

    “হে মানব সমাজ! তোমরা তোমাদের পালনকর্তাকে ভয় কর, যিনি তোমাদেরকে একজন মানুষ থেকে সৃষ্টি করেছেন এবং তার থেকে তার সঙ্গিনীকে সৃষ্টি করেছেন; আর বিস্তার করেছেন তাদের দু,জন থেকে অগণিত পুরুষ ও নারী। আর আল্লাহকে ভয় কর, যাঁর নামে তোমরা একে অপরের নিকট যাচঞা করে থাক এবং আত্মীয় জ্ঞাতিদের ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন কর। নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের ব্যাপারে সচেতন রয়েছেন। – সূরা আন নিসা (১)

    #পাঠ_উপলব্ধিঃ
    মহান আল্লাহ তায়ালা মানুষকে সর্বোত্তম আকৃতি দিয়ে সৃষ্টি করেছেন তার ইবাদতের জন্য। তার তাওহিদের স্বীকারোক্তির জন্য। কিন্তু আমরা আল্লাহ তায়ালার ইবাদত করা ভুলে গুনাহ করে বসি। শয়তানের ধোঁকায় পড়ে তার আনুগত্য অস্বীকার করি। আল্লাহর অবাধ্যতা করি। যার ফলে অন্তরে গুনাহের কালো দাগ পড়ে যায়।
    সমাজে পাপাচার আর গুনাহের চর্চা এত বেড়ে গেছে যে, কোনটা গুনাহ আর কোনটা পুন্য সেটা নিয়ে কারো খেয়ালই নেই। কোনটা পাপ কোনটা পুন্য সে হিসাবও কারো নেই। কিন্তু কিয়ামতের দিন আল্লাহর সামনে আমাদের সকলকে এই গুনাহের হিসাব অবশ্যই দিতে হবে।
    গুনাহের ব্যাপারে উম্মতের আলেমগণ সতর্ক করেছেন যুগে যুগে। বয়ান ও বক্তৃতায় উম্মতকে সতর্ক করেছেন গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার ব্যাপারে। তেমনি একজন মহান ব্যাক্তি হলেন আল্লাম ইবনুল কাইয়িম আল জাওযিয়্যাহ রহিমাতুল্লাহ। উম্মতের ব্যাপারে বড়ই চিন্তিত ছিলেন। তাই তো তার কিতাবের মধ্যে উম্মতদের নুশান মিলে। উম্মতের অভ্যন্তরীণ রোগ তথা অন্তরের রোগ ও তার প্রতিকার বর্ণনা করে দিয়েছেন। ইবনুল কায়্যিম রহিমাতুল্লাহ তার যুগে লিপিবদ্ধ করে গিয়েছেন কিতাবখানা সেই সময়কার অসহায় প্রেক্ষাপটে। কিন্তু সেটি আজকের দিনেও যেন নির্দেশ করছে। কেমন যেন তিনি বর্তমানের জন্যই বলেছেন। কথাগুলো যেন আমাদের সময়ে আমাদেরকে খেতাব করে বলা হয়েছে।

    #সংক্ষিপ্ত_পিডিএফ_পড়ে_যা_জানলামঃ
    বইটির পিডিএফ পড়া মাত্রই বিভিন্ন গুনাহের পরিচয়, গুনাহের কারণসমূহ, গুনাহ পরিত্যাক করতে ইচ্ছুককে শয়তান যেভাবে ওয়াসোয়াসা দেয়, শয়তান কিভাবে মানুষকে গুনাহপূর্ণ জীবনকে সুন্দর ও সুশোভিত করে দেখায়, গুনাহের কারণে হওয়া ক্ষতি সমূহ, গুনাহের আলামত, গুনাহের সাজা, গুনাহের মূল, গুনাহগারের জন্য জাহান্নামের ভয়াবহতা, গুনাহের অপরাধের নির্মম শাস্তি এছাড়া আদমসন্তানের গুনাহ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা সম্পর্কে জানা যাবে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ যা জানা যায় তা হলো- গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার উপায়। গুনাহ্র কারণে বান্দা রবের কাছে নগন্য ও তুচ্ছ হয়ে যায়। গুনাহ করতে করতে একসময় বান্দার দৃষ্টিতে গুনাহ করার ছোট ও মামুলি ব্যাপার হয়ে যায়। গুনাহের খারাবি ও অনিষ্টতার কারণে সাধারণ মানুষ ও প্রানীদের কষ্ট হয়।

    এই বইটি পড়লে গুনাহের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে জানা যাবে। এছাড়াও গুনাহ করার ফলে মানুষের কি কি ক্ষতি হতে পারে তা সম্পর্কে জানা যাবে। বইটি আমাদের গুনাহ্ সম্পর্কে সচেতন করে তুলতে পারবে বলেই আমার বিশ্বাস।

    #বইটিতে_যা_যা_রয়েছেঃ
    সর্বোপরি বইটি পড়ে গুনাহের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দিক সমন্ধে ধারণা লাভ করা যায়। কেন গুনাহের দিকে মানুষ ধাবিত হয়, কিভাবে ধাবিত হয়, কিভাবে গুনাহ থেকে বেঁচে থাকা সম্ভব- এ সকল প্রশ্নের উত্তর আল্লাহ তায়ালা কুরআনে এবং রাসুলুল্লাহ (সাঃ) হাদিসে ইরশাদ করেছেন। আর বইয়ের লেখক ইমাম ইবনুল কায়্যিম আল জাওযিয়্যাহ (রাঃ) সে অনুযায়ী স্বীয় মানবজাতিকে অভিজ্ঞতার আলোকে গুনাহ থেকে পরিত্রান পাওয়ার উপায় সম্পর্কে উপদেশ দিয়েছেন। আমাদের মতো গুনাহ-গারদের কথা মাথায় রেখে এসকল কুরআন হাদিসে বর্ণিত বানী গুলোকে একত্র করে এক বইয়ের মধ্যে আনার চেষ্টা করেছেন অন্তরের চিকিৎসক আল্লামা ইবনুল কায়্যিম রাহিঃ।
    শর্ট পিডিএফ পড়ে এর বেশি কিছু বিষয় তুলে আনা সম্ভব নয়। তবে একটু খেয়াল করে দেখলেই, এই স্বল্প কথাগুলোতেই খুব সুস্পষ্টভাবে বইটির ভাবার্থ আপনার আয়ত্তে চলে আসবে।
    মূল কথা এটি একটি আত্নশুদ্ধিমূলক বই। যারা এই বইটি সত্যিকার অর্থে গুনাহ থেকে ফিরে আসার জন্য পড়তে চাইবে, তাদের জন্য বইটি বাস্তবজীবনে ব্যাপক কাজে আসবে।

    #বইয়ের_মধ্যে_আমার_যে_বিষয়গুলো_ভালো_লেগেছেঃ
    বইটিতে সর্বোপরি গুনাহের বিভিন্ন দিক এবং গুনাহ থেকে হতে পারে এমন ক্ষতিকর দিকগুলো ও গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার উপায় সম্পর্কে উপদেশ দেওয়া হয়েছে, আর এটাই হলো বর্তমানে একজন ব্যাক্তির জীবনে সবথেকে আলোচিত বিষয়গুলো মধ্যে একটি। বইটি সম্পূর্ণ পড়লে ইনশাআল্লাহ গুনাহের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করা যাবে যা আমাদের ব্যাক্তিগত জীবনে অনেক কাজে দিবে। যা থেকে আমরা গুনাহমুক্ত জীবন যাপন করতে সক্ষম হবো।
    এছাড়াও রচনাটির অনুবাদ সাবলীল ও সহজবোধ্য হিসেবে আমার মনে হয়েছে। এবং সাধারণ মানুষের বইটি অনেক উপকারে আসবে বলেই আমার বিশ্বাস।

    #ব্যক্তিগত_মতামতঃ
    আজ আমাদের চোখের সামনে ঘটে যাওয়া সীমাহিন পাপাচার দেখে মনে হয়- মানুষ এখন এসব নিয়ে কোনো চিন্তায় করে না! কোনটা পাপ কোনটা পূণ্য সেটা নিয়ে কারো কোনো মাথা ব্যাথাই নেই! কিন্তু এখন আমাদের গুনাহ নিয়ে কোনো হিসাব নিকাশ না থাকলেও কিয়ামতের দিন আল্লাহর কাছে সকল পাপের হিসাব দিতে হবে। সুতরাং আমাদের উচিত গুনাহ থেকে ফিরে এসে নৈতিকতার সাথে জীবন পরিচালনা করা। ‘জীবন অনেক সুন্দর’- এই বিষয়টি আপনি তখনই উপলব্ধি করতে পারবেন যখন আপনি পাপমুক্ত জীবন পরিচালনা করতে সক্ষম হবেন। তাই আমাদের উচিত গুনাহ থেকে ফিরে আসা এবং আল্লাহর কাছে সকল গুনাহের ক্ষমা চেয়ে সত্যের পথে চলা, আল্লাহ ও রাসূল আমাদের যে পথ দেখিয়েছেন সে পথে চলা।

    পরিশেষে আমি সকলের উদ্দেশ্য একটা কথায় বলতে চাই, তা হলো আমরা নিজ নিজ জীবন নিয়ে সবাই ব্যাস্ত, সবাই নিজ নিজ আমোদফুর্তিতে মেতে আছি। কিন্তু দিনশেষে আমরা আল্লাহর কথা কতবার স্মরণ করছি?? কতবার নিজের আত্মার খোরাকের কথা চিন্তা করছি?? অন্তত এই বইটির মাধ্যমে আমরা এই সকল বিষয়ে জ্ঞান লাভ করব ইনশাআল্লাহ। বইয়ের নামলিপিটা খুব ভালো লেগেছে। বিষয়বস্তু অত্যন্ত চমৎকার মনে হয়েছে। অনুবাদ সাবলীল এবং যথাসম্ভব নির্ভুল মনে হয়েছে আমার কাছে।
    সর্বোপরি লেখক, অনুবাদক, প্রকাশক, সকলের জন্য আন্তরিক দোয়া ও শুভেচ্ছা। এবং #ইসলামিক_বই_পরিচিতি গ্রুপের এডমিন প্যানেলদের জানায় কৃতজ্ঞতা, এত সুন্দর প্রিভিউ প্রতিযোগিতা আয়োজনের জন্য। আল্লাহ আপনাদের কাজে বারাকাহ দান করুক। জাজাকুমুল্লাহ খাইরান ইয়া উখতি 🖤

    এক নজরে বইটি সম্পর্কে-
    নাম:গুনাহ থেকে ফিরে আসুন(গুনাহের আলামত,তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    লেখক:আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহিমাহুল্লাহ
    তাখরিজ করেছেন:মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি
    অনুবাদ:মুহিবুল্লাহ খন্দকার
    পৃষ্ঠা সংখ্যা:১৭৬
    বাইন্ডিং:পেপারব্যাক
    মূল্য:১৩০ টাকা
    প্রকাশনা:আয়ান প্রকাশনী

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  23. 5 out of 5

    :

    ফিতনাময় এই দুনিয়ায় প্রতিনিয়ত আমরা গুনাহের সমুদ্রে ডুবে যাচ্ছি। জেনে কিংবা না জেনেই গুনাহে জর্জরিত হচ্ছি প্রায়শই। অথচ আমাদের কোনো ভ্রুক্ষেপই নেই এই গুনাহ নিয়ে। শয়তানের খুব সূক্ষ্ম ফাঁদে পড়ে আমরা একেকজন একেকরকম গুনাহে লিপ্ত হচ্ছি। দিনশেষে আমরা তবুও নিজেকে মুসলিম হিসেবে দাবী করে একটা জান্নাতের আশায় স্বপ্ন বাঁধি। আল্লাহর প্রতি অবাধ্যতা একসময় বান্দার অন্তরকে ঘৃণায় পরিপূর্ণ করে আর ভালবাসাহীন করে ফেলে।

    পূর্ববর্তী যুগের মানুষ আর আমাদের মাঝের তফাত অনেক। তারা গুনাহ করে অনুতপ্ত হতেন। আর আমরা হারহামেশা গুনাহ করে তা নির্লজ্জতার সাথে প্রকাশ এবং প্রসার করি। হতেও পারে কঠিন এক গুনাহ করে ইসলামের গন্ডি থেকে বের হওয়ার উপক্রম আমাদের, তবুও বেখেয়ালি আমরা। অনেক হয়েছে গুনাহের ব্যাপারে বেখেয়ালিপনা- সময় এসেছে গুনাহের ব্যাপারে সচেতন হওয়ার। আর ঠিক আমাদের এই কাজ কে সহজ করতে আয়ান প্রকাশন নিয়ে আসছে চমৎকার একটি বই “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন”। বইটি আলেমে রাব্বানী শাইখুল ইসলাম ছানি, ইমাম ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রাহিমাহুল্লাহ এর ” আল জাওয়াবুল কাফী লিমান সাআলা আনিদ দায়িশ শাফি” কিতাব থেকে নেওয়া হয়েছে।

    শর্ট পিডিএফে গুনাহের প্রবেশদ্বার, গুনাহের কারণ এবং গুনাহের উদ্রেককারী বস্তুর আলোচনা স্থান পেয়েছে। অন্যায়,অবাধ্যতার মাঝে বান্দা কিভাবে গুনাহের পথে অগ্রসর হচ্ছে, কিভাবে নিজের ধ্যান-ধ্যারণা আর যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে আল্লাহর বিধানকে অগ্রাহ্য করে শয়তানের পথ অনুসরণ করছে সেটার ধারণা দিয়েছে এই বই। অন্তরে যখন সিলমোহর মেরে দেন আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা, ঠিক তখন বান্দার অন্ধকারে যাত্রা থেকেই শুরু হয় প্রবেশ। কিন্তু এই গুনাহ মানুষ কেন করে? এই যে নারী,
    ধনদৌলত, জায়গা-জমির মোহে পড়ে বান্দা ফিতনায় জড়িয়ে যাচ্ছে – সেটুকু সম্পর্কে না জানলে তো নিজের অজান্তেই এসব প্রতিপত্তি হাসিল করতে গুনাহ করে যাব অনবরত। গুনাহের ব্যাপারে উদাসীন বান্দার কি গুনাহ মুছে জীবন অতিবাহিত করার সময় আসেনি? একজন গুনাহগার বান্দা হিসেবেই আমাদের প্রত্যাবর্তন হবে নাকি একজন মুমিন হিসেবে? অজান্তেই কি জান্নাতের সুবাস থেকে বঞ্চিত হব আমরা?

    না, একজন মুসলিম হিসেবে আমরা আল্লাহর অবাধ্য বান্দা হয়ে মৃত্যুর দিকে যাত্রা করতে করতে চাইনা অবশ্যই। রব্ব আর আমাদের মাঝে বন্ধন ভেঙে যাক তা আমরা চাইনা। আর ঠিক এইজন্যই আমরা পূর্বের গুনাহ থেকে ফিরে আসব। আর এই বইটি তাই আমাদের প্রত্যেকের জন্যেই জরুরী ভূমিকা রাখতে সহায়ক হবে।

    এই বই কোনো নির্দিষ্ট ব্যক্তির জন্য নয়। কারণ আমি, আপনি সবার জীবনেই গুনাহ রয়েছে– তফাত হলো পরিমাণে। গুনাহগারের জীবনে এর বিরুপ প্রভাব কী কী তা জানতে এই বই পড়তে হবে। গুনাহগারের দুনিয়াবী শাস্তি আর পরকালের শাস্তি কেমন তা না জানলে এর ভয়াবহতা জেনে দূরত্ব সৃষ্টি করব কীভাবে? গুনাহে পতিত হওয়ার কারণ জেনে সর্বাবস্থায় যতটুকু সম্ভব গুনাহমুক্ত থাকার প্রয়াসে পড়ুন এই বই।

    অনুবাদকের সুন্দর-সাবলীল অনুবাদ বইটি পড়তে সহজ করে দিয়েছে। বইটির শর্ট পিডিএফ এবং সূচিপত্রের চমৎকার সব টাইটেল কিছুটা পড়ে আশা করছি আমরা চমৎকার একটি বই পেতে যাচ্ছি ইন শা আল্লাহ। সংগ্রহ করার নিয়ত আছে ইন শা আল্লাহ। আপনারাও তালিকায় এই বইটি রাখতে পারেন ইন শা আল্লাহ।

    বই- গুনাহ থেকে ফিরে আসুন
    মূল- আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ রহ.
    অনুবাদ- মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার
    তাখরিজ- মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি
    পৃষ্ঠা সংখ্যা- ১৬০
    মুদ্রিত মূল্য- ২৬০৳
    প্রকাশনী- আয়ান প্রকাশন

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  24. 5 out of 5

    :

    বইটির মূল উদ্দেশ্য হলো গুনাহ্ এর অপকার ও ক্ষতি এবং এর ভয়াবহতা সম্পর্কে সতর্ক করা। আপনি যদি সুচিপত্রটি খুব খেয়াল করে দেখেন তাহলেই বই এর মূলভাবটা খুব সহজেই বুঝতে পারবেন। পুরো বই জুড়ে আপনি গুনাহ্ করার কারণ, গুনাহ্ এর ফলে হওয়া ক্ষতি, গুনাহ্ ছাড়ার উপায় এই বিষয়গুলোর সুন্দর বিবরণ পাবেন যা আপনাকে গুনাহ্ এর সংজ্ঞা জেনে প্রতিরোধের উপায় শেখাবে।

    •গুনাহ্ করার কারণ:
    গুনাহ্ করার আগে চিন্তাভাবনা না করা গুনাহ্ এর সবথেকে ভয়ানক কারণ। এছাড়াও তিনটি কারণে মানুষ গুনাহ্ এর দিকে ধাবিত হয়:

    ১)নারী: নারীকে নিজের করে পাওয়ার জন্য বিভিন্ন ধরনের পাপ কাজে নিয়োজিত হয় মানুষ। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পুরুষদের জন্য নারীদেরকে ফিতনাস্বরূপ বলে আশঙ্কা করে গিয়েছেন।

    ২)ধন-দৌলত: মানুষের ধর্মই হলো যা আছে তা নিয়ে সন্তুষ্ট না থাকা। মানুষের এই স্বভাবের কারণেই অনেক পাপকার্য সম্পন্ন হয়। বেশি পাওয়ার লোভ মানুষকে অন্যের হক মারতে উৎসাহিত করে। এছাড়াও জন্ম হয় সুদ, ঘুষ, চুরি, ডাকাতির মত পাপ কাজের।

    ৩)জায়গা-জমি: নিজেকে প্রভাবশালী করে দুনিয়ার সামনে দেখানোর লালসা মানুষকে জমিজমার প্রতি আকৃষ্ট করে। এই লোভ এত ভয়াবহ যে তা হত্যার মত নিকৃষ্ট পাপে পরিণতি পায়।

    •গুনাহ্ এর ক্ষতি:
    গুনাহ্ এর ফলে মানুষ ইলম থেকে বঞ্চিত হয়, রিযিক থেকে বঞ্চিত হয়, আল্লাহর সাথে সম্পর্ক নষ্ট হয়, ইমানদারদের সাথে সম্পর্ক থাকে না, অন্তর অন্ধকারে ছেয়ে যায়, আল্লাহর দৃষ্টিতে তুচ্ছ ও নগণ্য হয়ে যাওয়াসহ অসংখ্য ক্ষতি হয়। এছাড়াও সবথেকে ভয়াবহ যে ক্ষতি তা হলো জাহান্নামী হওয়া!

    •গুনাহ্ থেকে ফিরে আসার উপায়:
    গুনাহ্ থেকে বেঁচে থাকার অন্যতম প্রধান উপায়গুলো হলো:
    ১)আল্লাহর জিকিরে মশগুল থাকা
    ২)নফসের হিসাবনিকাশ নেওয়া
    ৩)সালাত এর প্রতি ভালোবাসা তৈরি করা
    ৪)ইখলাস এর প্রতিষ্ঠা
    ৫)যেসব কারণ গুনাহ্ এর দিকে পরিচালিত করে তা থেকে দূরে থাকা

    উপরিউক্ত সকল বিষয় এর বিস্তর বিবরণ বইটিতে রয়েছে। আমরা সবাই গুনাহগার। কারো গুনাহ্ এর পরিমাণ বেশি তো কারো কম। উম্মতের প্রত্যেক গুনাহগার বান্দার জন্য নিঃসন্দেহে এটি একটি উত্তম বই। গুনাহ্ থেকে ফিরে আসার জন্য এবং নিজের অন্তরে গুনাহ্ থেকে মুক্তি পাওয়ার তাগিদ তৈরির জন্য গুনাহ্ এর কারণ ও ক্ষতিকর দিক জানা জরুরি। আর এসবকিছুই আপনি এই বইটিতে পাবেন। তাই যদি নিজেকে গুনাহগার মনে করে থাকেন আর গুনাহ্ থেকে পরিত্রাণ এর পথ খুঁজে থাকেন অবশ্যই আপনার জন্যই এই বইটি।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  25. 5 out of 5

    :

    বইঃ গুনাহ থেকে ফিরে আসুন

    দুনিয়ার চাকচিক্যের মোহে পড়ে, কিংবা শয়তানের ধোকায় পড়ে আমরা বিভিন্ন সময়,বিভিন্নভাবে, বিভিন্ন রকম গুনাহ করে ফেলি। নবী রাসুল ছড়া আমরা সবাই কম বেশি গুনাহে লিপ্ত।কেউ কেউ গুনাহ করে আল্লাহর নিকট তওবা করে;আাবার কেউ কেউ গুনাহ করে তার উপর অটল থাকে।

    আমাদের কাপড়ে যদি ময়লা হয়,আমরা কিন্তু তা ফেলে দিইনা।বরং তা ধুয়ে পরিস্কার করি, কিন্তু গুনাহ করে ফেললে আমরা মনে করি, এর থেকে আর রেহাই নেই।

    কিন্তু নবী করীম (:স)বলেন:کل بنی ادم خطاء و خیر الخطا ءین التوابون
    (প্রত্যেক আদম সন্তান গুনাহগার।আর এদের মধ্যে সবচেয়ে উত্তম হচ্ছে তাওবাকারীগন—(সুনানে ইবনে মাজাহ:৪২৫১)

    যাই হউক, প্রিয় পাঠাক এই ছোট্ট ভূমিকা টানলাম সদ্য প্রকাশিত হতে যাওয়া একটি বই সম্পর্কে কিছু ধারনা দেওয়ার জন্য। বইটির প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান বইয়ের কিয়দাংশ উন্মুক্ত করেছে। যা পড়ে আমি আপনাদের সামনে বইয়ের প্রিভিউ তুলে ধরতে কিবোর্ড টিপা শুরু করলাম। চলুন তবে বই সম্পর্কে কিছু আলোচনা করা যাক।
    .
    .

    ♦️ বইটির বিষয়বস্তু —

    প্রিয় পাঠক, শর্ট পিডিএফ পড়ে মনে হয়েছে,
    বইটির লেখক ইমাম ইবনুল কায়্যিম (রহ) এর যুগেও ছিল বর্তমান জমানার মত ফিতনা ফ্যাসাদের রাজত্ব। তাই তাঁর লেখনীতে বাস্তব চিত্রের অবলোকন ঘটেছে দারুণভাবে।

    আর বইটিতে থাকছে ৫৮ টি পরিচ্ছদ এর বিস্তর আলোচনা ।
    বইটি পড়লে আমরা গুনাহের কারণ ও ক্ষতি এবং তার ভয়াবহতার ব্যাপারে জানতে পারবো ইন শা আল্লাহ ।
    আমাদের সমাজে একটি অন্যতম বড় ফিতনা হলো জাস্ট, গুড, বেস্ট ফ্রেন্ড,হাতাহাতি, নামক ফিতনা।

    ইসলামে ছেলেমেয়েদের মধ্যে বন্ধুত্ব কে নিষিদ্ধ করেছে। কেননা, এক পর্যায়ে এই বন্ধুত্ব নামক সম্পর্ক থেকেই ধীরে ধীরে সেটি বেহায়াপনা এমনকি ব্যাভিচার ও যিনার কারণ হয়ে দাড়ায়।
    যেখানে নারী পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রে তাদের মাহরাম ব্যতীত অন্য লোকদের সাথে দেখা সাক্ষাৎ নিষিদ্ধ ,সেখানে ছেলেমেয়েদের মধ্যে (নন মাহরাম) বন্ধুত্ব অসম্ভব।

    সমাজের এসব বেহায়াপনা,গুনাহ নামক অন্তরের ব্যাধি এবং শয়তানের ধোঁকা সম্পর্কে মানুষকে অবহিত করতে বইটি সবার জন্য অপরিহার্য,বলতে গেলে সেল্ফ রিমাইন্ডার হিসেবে কাজ করবে।

    এছাড়া সূচিপত্র থেকে বুঝা যায় লেখক বইটিতে যে সকল বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন তা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। যে সকল টপিকে বইটি লেখা হয়েছে তা হলো —
    ➡️ গুনাহের কারণসমূহ
    ➡️গুনাহের আলামত
    ➡️গুনাহের ক্ষতি এবং
    ➡️গুনাহ থেকে মুক্তির পথ

    গুনাহের প্রধান কারণ সম্পর্কে তিনটি বিষয়কে চিহ্নিত করা হয়েছে তা হল-
    ☑️নারী
    ☑️ ধন-দৌলত
    ☑️জায়গা-জমি

    গুনাহ কিভাবে মানুষকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়,গুনাহ কিভাবে মানুষকে হতাশ করে,গুনাহ কিভাবে রিজিককে সংকুচিত করে এবং তার ভয়াবহতা কিভাবে আখেরাত বিনষ্টকারী তার যথার্থ হৃদয়স্পর্শী বর্ণনা ফুটে উঠেছে কোরআন ও হাদীসের আলোকে।
    .
    .

    ♦️ বইটি কি আপনার জন্য ?

    আদম সন্তান মাত্র‌ই গুনাহগার, তার মধ্যে সেই উত্তম যে অধিক ত‌ওবাকারী।
    মানুষের শুষ্ক অন্তর‌ অনুশোচনায় বিগলিত হবে যখন তার হৃদয়ে আখেরাতের ভয় থাকবে।
    গুনাহের ভয়াবহতা দুনিয়া ও আখেরাতকে কিভাবে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেয় সে সম্পর্কে অবগত হলে রবের সম্মুখে জবাবদিহিতার ভয় জাগ্রত হবে যা মানুষকে পুনরায় ফিরিয়ে নিয়ে আসবে একনিষ্ঠ দ্বীনের প্রতি।
    নফসের অন্ধকার থেকে প্রত্যাবর্তন করবে সীরাতুল মুস্তাকিমে।
    .

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  26. 5 out of 5

    :

    বই:গুনাহ থেকে ফিরে আসুন।
    লেখক: আল্লামা ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহ।
    প্রকাশনী: আয়ান প্রকাশন

    মহান আল্লাহর ইবাদত ঠিক মত না করে দিন দিন জেনে না জেনে নানা গুনাহে আমরা জড়িয়ে পড়ছি। গুনাহকেও গুনাহ না মনে করেই আমরা গুনাহ করে যাচ্ছি। কতটা অবুঝ বান্দা আমরা। গুন্নাহের আলামত, তার ক্ষতি ও মুক্তির পথ নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে গুনাহ থেকে ফিরে আসার আহবান সহ সুন্দর একটি পথপ্রদর্শক মূলক বই এটি আলহামদুলিল্লাহ্ । সকলের পড়া উচিত বলে মনে করি।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  27. 5 out of 5

    :

    #রিভিউ
    বই – গুনাহ থেকে ফিরে আসুন।
    লেখক- ইমাম ইবনুল ক্যায়িম আল জাওযিয়্যাহ্।
    প্রাকশনায়- আয়ান প্রকাশনি

    বইটির শিরোনাম দেখলেয় বোঝা যায় বইটি “গুনাহ থেকে ফিরে আসা” সম্পর্কে।
    গুনাহ্
    আর যার সাথে মানব সমজা বর্তমানে আস্টে পিস্টে জড়িয়ে রয়েছে।
    দিন থেকে রাত,রাত থেকে দিন প্রতিটি মূহুর্ত জেনে, না জেনে বুঝে না বুঝে গোনাহ্ করে চলেছি।
    আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা আমাদের কি এই পৃথিবী তে গোনাহ্ করতে পাঠিয়েছেন?
    তার নাফারমানি করতে পাঠিয়েছেন??
    না পাঠায় নি,
    আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা আমাদের পাঠিয়েছেন তার এবাদত করার জন্য আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লার আদেশ মানা এবং রাসূল (সাঃ) এর দেখানো পথে চলার জন্য।
    কিন্তু আমরা আজ তা করছি নাহ্ শয়তানের কবলে পড়ে প্রতি নিয়ত গোনাহ্ তে লিপ্ত হয়ে যাচ্ছি।
    আমাদের যে ফিরে আসতে হবে, নীড়ে বেলা ফুরাবার আগে, সেই বিষয়ে ভাবছি না এটা কি ঠিক হচ্ছে?
    না হচ্ছে না, কারন এই দুনিয়া তো দুই দিন এর আপনি এখানে গোনাহ্ করে বেঁচে যাচ্ছেন মাত্র কয় বছর কিন্তু অনন্ত্য একটি জীবন রয়েছে।
    সেই বিষয়ে কি চিন্তা ভাবনা করা লাগবে না??
    গুনাহ তে জড়িয়ে পরার আর একটি বিষয় না জানা।
    ইসলাম সম্পর্কে জ্ঞান না থাকা।
    ইলম অর্জন করুন বিভ্রান্তি থেকে বাঁচুন

    “তিনি যথাযথ ভাবে আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবী সৃষ্টি করিয়াছেন। তিনি রাত্রি দ্বারা দিবসকে আচ্ছাদিত করেন এবং রাত্রিকে আচ্ছাদিত করেন দিবস দ্বারা। সূর্য ও চন্দ্রকে তিনি করিয়াছেন নিয়মাধীন। প্রত্যেকেই পরিক্রমণ করে এক নির্দিষ্ট কাল পর্যন্ত। জানিয়া রাখ, তিনি পরাক্রমশালী, ক্ষমাশীল।”

    (সূরা আল-যুমার : ০৫)
    আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ’লা ক্ষমাশীল দয়াবান তার দয়ার শেষ নেই।
    আমাদের তার কাছে চাওয়ার মত চাইতে হবে।
    আর আয়ান প্রকাশনির প্রকাশিতব্য বই “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন”
    যার মাধ্যমে গোনাহ থেকে ফিরে আসার উপকারী মাধ্যম গুলো প্রকাশ করা হয়েছে ইনশা আল্লাহ।
    ইনশা আল্লাহ যুব সমাজ সহ সকল বয়সের জন্য উপকারী একটি বই গোনাহ থেকে ফিরে আসুন।
    বেশি বেশি ইসলামিক বই পরুন দ্বীনি জ্ঞান বৃদ্ধি করুন, ইলম অর্জন করুন বিভ্রান্তি থেকে বাঁচুন।
    জাযাকাল্লাহু খাইরান।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  28. 5 out of 5

    :

    অসাধারণ একটি বই৷ সমসাময়িক এই সময়ে যুবকদের জন্য যুগোপযোগী একটি বই৷ আল্লাহ সব্বাইকে দ্বীনের পথে ফিরে আসার তৌফিক দান করুক আমিন৷ জাযাকাল্লাহ খাইরান
    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  29. 5 out of 5

    :

    #বুক_রিভিউ#
    ” সেই ব্যক্তিই অভিশপ্ত যে মরে যায় অথচ তার খারাপ কাজগুলো পৃথিবীতে রয়ে যায়”🥀
    📎 আবু বকর(রা)📎
    অন্তরের ব্যাধির মধ্যে একটি হলো ‘গুনাহ’।যা দ্বারা প্রতিনিয়ত হাবুডুবু খাচ্ছি আমরা। ক্ষণস্থায়ী দুনিয়ায় শারীরিক রোগের চিকিৎসা মনমতো না করলে মানুষ যেমন সুস্থ হয় না,একইভাবে রাসূলদের আনীত পদ্ধতিতে অন্তর পরিশুদ্ধ না করলে অন্তর সুস্থ হবে না।চলার পথে আমরা অনেকেই জেনে না জেনে গুনাহ করে থাকি। পরে এই গুনাহের সাগরেই ভাসতে ভাসতে একদিন মৃত্যু এসে হাতছানি দিয়ে ডাকবে। তখন কি হবে আমাদের? কিন্তু এরপরেও আমরা চাইলেই আল্লাহ তা’আলার কাছ থেকে ক্ষমা প্রার্থনা করে মাফ পেতে পারি।
    👉”অন্তরসমূহ যদি পরিশুদ্ধ হয় তাহলে আল্লাহর গ্রন্থ কুরআনুল কারীমে তাদের তৃষ্ণা কখনো সম্পূর্ণ মিটবে না।”👈
    _________<<<__________<<<________

    ⭕বইয়ের লেখক নিয়ে কিছু অভিমতঃ
    ইবনুল কায়্যিম (রহিমাহুল্লাহ) ছিলেন একজন উপমহাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ জ্ঞানী। ওনার একটি বিখ্যাত কিতাব থেকে "গুনাহ থেকে ফিরে আসুন" পুস্তটিকা নেওয়া হয়েছে। কিতাবটি তাখরিজ করেছেন মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি। অনুবাদক হলেনঃ মুহিবুল্লাহ খন্দকার।
    __________<<<________<<<________

    ⭕বইটির শিরোনাম ও সূচিপত্রঃ
    বইটির শিরোনাম ও সূচি পড়লে স্পষ্টত বুঝা যায় বিষয়বস্তু সম্পর্কে। 'গুনাহ'। যার সাথে হরহামেশায় জড়িত আমরা। নিম্নে সূচির সংক্ষেপিত সিরিয়াল👇
    ★মানুষ ধীরে ধীরে কিভাবে গুনাহের জগতে প্রবেশ করে;
    ★গুনাহ করার ফলের পরিণতি(শাস্তি);
    ★ছোট এক গুনাহ থেকে কিভাবে বড় গুনাহের পথ উন্মোচিত হয়;
    ★আর মানুষ কেনই বা গুনাহ করে?
    ★কিভাবে শয়তানের ধোকায় পড়ে গুনাহের জগত বেচেঁ নেওয়া হয় এবং গুনাহের ফলে অন্তরকে কলুষিত করা হয়;
    ★ গুনাহের বিভিন্ন স্তর।
    ★সর্বশেষ কিভাবে গুনাহের জগত থেকে ফিরে আসা ও তার মুক্তির পথ খোজে পাওয়ার উপায়।
    ____<<<__________<<<_________

    ⭕সর্টপিডিএফ থেকে বইটির প্রিভিউঃ
    কি কারণে মানুষ গুনাহ করে বা তা থেকে বেঁচে থাকা যায়? শয়তান কিভাবে মানুষকে ধোঁকায় ফেলে গুনাহকে সুসজ্জিতভাবে পেশ করে? বর্তমান সমাজের অবস্থা আগেরকার সময় থেকে বহুগুণ বেশি খারাপ হয়ে গেছে। মানুষজন প্রকাশ্যেই লোকচক্ষুর সামনেই গুনাহ করে বেড়ায়।কিন্তু আল্লাহ বলেছেন—-
    ♻️" বান্দার লুকিয়ে গুনাহগুলো তিনি ক্ষমা করে দিবেন; এজন্য নিজেদের গুনাহের কথা কখনো প্রকাশ করা উচিত হয়"।♻️
    👉 কয়েকটি প্রধান কারণে গুনাহের জন্ম হয়ঃ যথা-
    ▪️নারী
    ▪️ধন-দৌলত
    ▪️জায়গা-জমি

    👉উপরিক্ত আলোচনা ছাড়াও বইটিতে যা আছেঃ
    নিজের গুনাহের ব্যাপারে ঠুনকো দলিল,বেহায়াপনা জীবন-যাপন, লজ্জা-সরম না থাকা,দুনিয়ার ব্যাপারে অতিমাত্রায় লোভ-লালসা,দৃষ্টির হেফাজত না করা,গীবত ও মিথ্যাচারের পরিমাণ বেশি হওয়া, সুদ ও ঘোষের কারণে গুনাহ,গুনাহকারীদের জন্য জাহান্নামের ভয়াবহ শাস্তি, বলা যায়– "প্রতিটি পাপ আরো অনেক পাপের জন্ম দেয়, একটি পাপ আরেকটি পাপের দিকে নিয়ে যেতে থাকে যতক্ষণ না পর্যন্ত সেই পাপরাশি মানুষটিকে এমনভাবে কাবু করে ফেলে যে কৃত পাপগুলোর জন্য তওবা করাকে তার কাছে কঠিন বলে মনে না হয়।"📎
    এমনকি দীর্ঘআশা,মূর্খতা,শয়তান ইত্যাদি গোনাহের সব কিছু নিয়েই বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে।
    ____<<<________<<<____________

    ⭕বইটি কেন সকলে পড়া উচিতঃ
    গুনাহের পরিণতি(আলামত) প্রতিকার ও মুক্তির পথ খোঁজে পাওয়ার মতো উত্তম একটি বই।মাশাআল্লাহ♻️
    কালেমা পড়েই মুসলিম হওয়া যায় না আরো তা থেকে নতুন ভবিষ্য দিক উন্মোচিত হয়। তার জন্য অবশ্যই প্রত্যেক মুসলিম ও মুমিন ব্যক্তিকে গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার পথ অবলম্বন করতে হবে। আর যা "গুনাহ থেকে ফিরে আসুন"গ্রন্থটি সুন্দর সরল পথ দেখাবে।ইনশাআল্লাহ।
    👉" যেদিন ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি কোন কাজে আসবে না; সে দিন উপকৃত হবে শুধু সে,যে আল্লাহর কাছে আসবে বিশুদ্ধ অন্ত:করণ নিয়ে।"(কুরআন ২৬ঃ৮৮-৮৯)👈
    _______<<<________<<<_________

    ⭕ভালোলাগার কারণঃ
    বইয়ের নামকরণ দেখেই হৃদয় স্পর্শ হয়ে যায়। মন তখন বলে উঠলো এইতো সেই বই যার জন্য আমরা অপেক্ষায় আছি। আবার বইটির কাভার নামকরণের সাথে খুব সুন্দর মানিয়েছে। মাশাআল্লাহ♻️। আলহামদুলিল্লাহ এটিও আমার খুব ভালো লেগেছে।বইটিতে মহান আল্লাহর প্রশংসাসহ আল্লাহর বাণী সুন্দরভাবে উল্লেখ আছে। অনুবাদক সহজ ও সাবলীল ভাষায় মুগ্ধ করার মত উপস্থাপন করেছেন আলহামদুলিল্লাহ ♻️।

    ⭕পছন্দের উক্তি বা শিক্ষাঃ
    ★দ্বীনের মধ্যে নতুন নতুন বিষয় অন্তর্ভুক্ত করাকেই বিদআত বলে। প্রত্যেক বিদআত হলো ভ্রষ্টতা এবং ভ্রষ্টতার ফলস্বরুপ ব্যক্তিকে জাহান্নামে নিয়ে যাবে।
    ★ তোমাদের ওপর যেসব বিপদ-আপদ পতিত হয়, তা তোমাদের কর্মেরই ফল এবং তিনি তেমাদেরকে অনেক গুনাহ ক্ষমা করে দেন।
    ______<<<_________<<<_______

    ⭕সর্বশেষঃলেখক,প্রকাশনী ও অনুবাদক সবার প্রতি দোয়া রইলো। আল্লাহ উত্তম জাযা দান করুক এবং দ্বীনি কলমি শক্তিতে বরকত দান করুক।অসাধারণ একটি বই।মাশাআল্লাহ। জীবনে একবার হলেও প্রত্যেকের বইটি পড়া উচিত বলে মনে করছি। মোটকথা🍂

    " আল্লাহর সামনে দাঁড়ানোর ভয়ে
    যে গোনাহ থেকে ফিরে
    সেদিন তাকেও হাসতে দেখা যাবে
    জান্নাতীদের ভিড়ে"

    👀একনজরে বইটিঃ👀
    ▪️বইঃগুনাহ থেকে ফিরে আসুন
    🖋️লেখকঃ ইমাম ইবনুল কায়্যিম আল জাওযিয়্যাহ(রহিমাহুল্লাহ)
    ▪️কিতাবটি তাখরিজ করেছেনঃ মাওলানা তাহের নাক্কাশ পাকিস্তানি
    ▪️অনুবাদঃ মুহিবুল্লাহ খন্দকার
    ▪️প্রকাশনায়ঃ আয়ান প্রকাশন – Ayan Prokashan
    ▪️সম্পাদনাঃআয়ান টিম
    ▪️ধরণঃ পেপারব্যাক
    ▪️মুদ্রিত মূল্যঃ ২৬০৳

    ✍️Ak Afsana Akter

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  30. 5 out of 5

    :

    মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন তাঁর ইবাদতের জন্য। এই মানবজাতিকেই করেছেন সকল সৃষ্টির সেরা। দুনিয়াকে পাপ-পুণ্যের সংমিশ্রনে আমাদের জন্য পরিক্ষা স্বরূপ করে দিয়েছেন। কিন্তু প্রাত্যহিক জীবনে চলতি পথে আমরা পুণ্যের কাজ ফেলে রেখে গুনাহের দিকেই ধাবিত হয়ে চলেছি। কখনো বা গুনাহগুলো করে ফেলছি নিজের ইচ্ছায়, আবার কখনো বা অনিচ্ছা-অজান্তেই! কিন্তু এখন যে দুনিয়ার মোহে পড়ে যত গুনাহ করছি এর পরিণাম কি হবে সেটা ভেবে দেখার প্রয়োজনও বোধ করি না; আর না তো চেষ্টা করি সেই গুনাহ থেকে ফিরে এসে ভালো কিছু করার। এই স্বল্প-দৈর্ঘ্য জীবন যাত্রায় আমরা গুনাহ থেকে সঠিক দিকে কিভাবে ফিরে আসতে পারি সেই আলোচনা নিয়েই ‘আয়ান প্রকাশন’ এর এবারের আয়োজন “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন” বইটি। যে বইটি গুনাহের অপকারীতা, এবং এর ভয়াবহতা সম্পর্কে আমাদেরকে সতর্ক করবে।

    ইমাম ইবনুল কায়্যিম (রহ) যিনি অন্তরের রোগ সনাক্তকারী ছিলেন, তাঁর রচিত কিতাব “আলজাওয়াবুল কাফী লিমান সা’আলা আনিদ দায়ীশ শাফী” বইয়ের অনুদিত রুপই হলো “গুনাহ থেকে ফিরে আসুন”। অনুবাদ করেছেন ‘মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার’।

    সরবরাহকৃত শর্ট পিডিএফ থেকে বইটি সম্পর্কে অল্প-বিস্তর ধারনা লাভ করা সুযোগ হয়েছে। বইটির সূচিপত্র দেখেই বোঝা যাচ্ছে কতটা সুন্দর আর বর্তমানের তরুন প্রজন্মের জন্য কতোটা কার্যকরী হবে! বইটিতে এমন কিছু বিষয় ফুটে উঠেছে যেগুলো আমাদেরকে গুনাহ বিমুখ করে দিবে ইনশাআল্লাহ।

    শর্ট পিডিএফ অংশে বর্নিত হয়েছে, যে তিনটি কারনে মানুষ সাধারণত গুনাহে লিপ্ত হয়! সেগুলো হলো…….
    ১. নারী
    ২. ধন-দৌলত
    ৩. জায়গা-জমি
    এই বিষয়গুলোর বিস্তর বর্ননা আমরা দেখতে পায়। পাশাপাশি কুরআনের ভাষায় অন্যায় কাজে লিপ্ত হওয়ার কিছু কারনের কথাও ফুটে উঠেছে।

    ইমাম ইবনুল কায়্যিম (রহ) যদিও বইটি লিখেছিলেন তাঁর সময়ের সমাজের প্রেক্ষাপটের উপরে। কিন্তু তা সত্ত্বেও বইটিতে বর্নিত বিষয়াদিগুলো আমাদের বর্তমান সমাজের সাথে সম্পুর্ন মিলে যায়। সেই সময় সমাজে গুনাহ আর ফিতনার ব্যাপকতা এতো বেশি ছিল যে, যার ভয়ে অন্তর সবসময়ই আতংকিত থাকত। বর্তমান সময়েও আমরা ঠিক সেই সমাজব্যবস্থাটাই দেখতে পাচ্ছি।

    বইটির সরবরাহকৃত এই অল্প অংশটুকু পড়ে শুধু মনে হচ্ছিল,প্রতিটা কথাই যেন আমার নিজের জন্য লেখা। সূচিপত্র থেকে শিরনামগুলো দেখে পুরো বইটা পড়ার জন্য অস্থিরতা কাজ করছে। বইয়ের সাবলীল ভাষাগুলো বইটাকে আরো বেশি হৃদয়গ্রাহী করে তুলেছে। আশা করছি বইটা আমাদের সকলের জন্য অনেক বেশি কার্যকরী হবে ইনশাআল্লাহ।

    বইঃ গুনাহ থেকে ফিরে আসুন (গুনাহের আলামত, তার ক্ষতি এবং মুক্তির পথ)
    লেখকঃ আল্লামা ইবনুল কাইয়্যিম আল জাওযিয়্যাহ(রহ)
    অনুবাদঃ মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার
    বাইন্ডিংঃ পেপারব্যাক
    পৃষ্টা সংখ্যাঃ ১৭৬
    মূল্যঃ ১৩০

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  31. 5 out of 5

    :

    বই: গুনাহ্ থেকে ফিরে আসুন
    লেখক: ইমাম ইবনুল কায়্যিম আল জাওযিয়্যাহ
    _____________________________________©

    ♣♣
    “সাধারণত গুনাহের প্রতি ধাবিতকারী
    জিনিস তিনটি—যথা, (১) নারী, (২) ধন-
    দৌলত, (৩) জায়গা-জমি।”

    বইটির শিরোনাম ও সূচি পড়লে স্পষ্টত আঁচ করা যায় বিষয়বস্তু সম্পর্কে। ‘গুনাহ্’। যার সাথে সমস্ত মানব জাতি উতপ্রোতভাবে জড়িত। যার সতত কারণ ও প্রতিকার তথা ফিরে আসা সম্পর্কে উক্ত বইটি লিখেছেন শাইখুল হাদিস ইবনে তাইমিয়ার রহিমাহুল্লাহর ছাত্র ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যা। এ থেকে বুঝা যায় বইটির অথেনটিক মান কত। জাজাকাল্লাহ।

    🔘 পাতায় পাতায় যেসব বুলি:

    প্রকাশিত Short PDF এর সূচিপত্র পড়লেই বইটির বুলিগুলো হাজির হয়ে যায় হাজেরান মজলিশের সামনে। গুনাহের রকমারি ফিরিস্তির কারণসমূহ-সহ তার থেকে ফিরে আসার এজমালি দলিল নিয়ে হাজির হয়েছেন লেখক। ছোট-বড় বেশ কয়েকটি আর্টিকেলে সাজানো চমৎকার বই হতে যাচ্ছে।

    🔘 আশায় আশায় দু’ কলম:

    Short PDF পড়েছি। এবার উদ্ধার করা যেতে পারে আশার যেসব খুশির বাণী, কেমন হতে পারে বক্ষ্যমাণ গ্রন্থটি—

    (১) শর্ট PDF পড়ে মনে হচ্ছে বক্ষ্যমাণ বইটি গুনাহের কারণ ও ফিরে আসার প্যারাডাইম নিয়ে অথেনটিক বই হতে যাচ্ছে।

    (২) অল্প পড়ে মনে হলো বইটির পরতে পরতে কুরআন, হাদিস ও মুজতাহিদ আলেমগণের মত সুনিপুণভাবে বয়ান করা হয়েছে গুনাহ্ বিষয়ে। আশা করছি সংগ্রহ করার মতো হচ্ছে।

    (৩) অনুবাদ বেশ সাবলীল। Short PDF পড়ে মন চাচ্ছে একনাগাড়ে পুরোটা পড়ার জন্য। আয়ান প্রকাশন হিসেবে আশা করতে পারি পুরো বইটি Short PDF যেরকম সেরকমই হতে যাচ্ছে। ইন শা আল্লাহ। প্রচ্ছদও মনকাড়া।

    🔘 যাদের জন্য বইটি:

    সকলে পড়ার মতো। আমাদের বর্তমান সময়ে গুনাহের যে বিস্তর আঞ্জাম তার থেকে ফিরে আসতে বইটি ভূমিকা রাখবে বলে মনে করি। তাই সকলের পড়া উচিত। আশা করছি, প্রকাশের পর প্রত্যেকে সংগ্রহ করবেন। আমিও অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি।

    🔘 একনজরে বইটিঃ
    বই: গুনাহ্ থেকে ফিরে আসুন
    লেখক: ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ
    অনুবাদক: মুহিব্বুল্লাহ খন্দকার
    প্রকাশন: আয়ান প্রকাশন
    মুদ্রিত মূল্য: ২৬০/-

    সর্বোপরি, লেখক, অনুবাদক, প্রকাশক সকলের জন্য অন্তরের অন্তস্থল থেকে দো’য়া ও ভালোবাসা। আর ইসলামিক বই পরিচিতি গ্রুপের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও দো’য়া সুন্দর এই প্রিভিউ প্রতিযোগিতা আয়োজনের জন্য। জাজাকাল্লাহ খাইরান।

    ____________________________________©
    সাদ্দাম হোসেন।
    চকরিয়া, কক্সবাজার।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  32. 5 out of 5

    :

    হে দুনিয়ার মোহে মোহগ্রস্ত বনী আদম, হে জ্ঞান, বিবেকের থেকে নফসকে অধিক প্রাধান্য দেওয়া বনী আদম,কবর তোমার অপেক্ষায়। খুব শীঘ্রই যমিন তোমার ছাদ হবে।এখনো কী রবের দিকে ফিরে আসার,গুনাহ, পাপাচার ত্যাগ করার সময় হয় নি?

    ইমাম ইবনুল কায়্যিম রহিমাহুল্লাহ হৃদয়ের ব্যাধি আর আত্মশুদ্ধি বিষয়ে বহু গ্রন্থ লিখেছেন,শক্ত,পাথর হয়ে যাওয়া হৃদয়কে নরম, কোমল,আল্লাহর প্রতি অনুরক্ত করতে যেগুলোর জুড়ি নেই।ফিতনার এই দিনে, অন্তরের ব্যাধির মহামারীর এই সময়ে উনার বইগুলো পড়লে মনে হয় আমাদের কথা ভেবেই যেনো লিখেছিলেন।

    আলোচ্য বইটির ‘গুনাহ থেকে ফিরে আসুন’ শর্ট পিডিএফ টি পড়লাম।
    হায়!!কিয়ামতের দিন আসমান সমান গুনাহ নিয়ে কীভাবে হাঁটবো,কেমন করে?

    বইটিতে আদম সন্তানের গুনাহ করার কারণ,গুনাহের প্রভাব,গুনাহের শাস্তি, গুনাহের প্রতিকার,বেঁচে থাকার উপায় সবই আলোচিত হয়েছে বড়ই দরদমাখা কথামালায়।
    অনুবাদ ও যথেষ্ট সাবলীল,তাখরীজ ও হয়েছে চমৎকার। শব্দচয়ন ও ভাষাশৈলী যথেষ্টই সাবলীল।পড়া যাচ্ছে ক্লান্ত না হয়েই।

    উপদেশ গ্রহণের মতো বহু উপদেশের এক অনন্য সংকলন হতে যাচ্ছে বইটি।
    কালামুল্লাহ, হাদিসে নববী আর সালাফের কওলে কওলে এগিয়ে চলা বইটির কথামালা ভিতরে আলোড়ন তুলতে যথেষ্ট।
    দুনিয়ার মোহগ্রস্ত, পাপাচারী ক্বলবের জন্য এই বই শিফার কাজ করবে।
    কেন পড়বেন বইটি?

    ডিটারজেন্ট ব্যবহার করে কাপড়ের দাগ তো তুলেন,নিজের ক্বলবের দাগ কী তুলবেন না?

    গুনাহের দাগে আলকাতরার থেকে ও কালো হয়ে যাওয়া এই ক্বলব কে পরিস্কার করবেন না?

    আসুন অবগাহন করি বইটিতে, ফিরে আসি নিজের গাফিলতি থেকে।প্রত্যাবর্তনের সুন্দর সুন্দর গল্প রচনা করি।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top