মেন্যু
gunah mafer upay

গুনাহ মাফের উপায়

পৃষ্ঠা: ২২৪ কভার: পেপারব্যাক আচ্ছা এমন হলে কেমন হয়, এমন একটা বই থাকবে যেখানে কুরআন ও সুন্নাহ থেকে বেছে বেছে শুধু গুনাহ মাপের উপায় গুলো নিয়েই লেখা থাকবে? যারা মনে মনে এমন... আরো পড়ুন
পরিমাণ

232  322 (28% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

4 রিভিউ এবং রেটিং - গুনাহ মাফের উপায়

5.0
Based on 4 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published.

  1. 5 out of 5

    Nadira Nasrin:

    বইটিতে গুনাহ কাকে বলে,গুনাহের প্রকারভেদ,আমাদের জীবনে গুনাহের কুপ্রভাব পাশাপাশি গুনাহ করে ফেলার পর কীভাবে সেগুলো থেকে বের হয়ে আসতে হবে,গুনাহ মাফের আমল,
    কীভাবে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে তাঁর নৈকট্য লাভ করা যাবে সে বিষয়ে কুরআন- হাদিস থেকে বিস্তারিত দলিলাদি নিয়ে পূর্ণাঙ্গ আলোচনা করা হয়েছে বইটিতে।

    আশাকরি বইটি গুনাহের ভারে নিমজ্জিত মুসলিম জাতির উদ্ধার-পথের পাথেয় হবে, ইনশা আল্লাহ।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    rafiqulislamratul18:

    বই – গুনাহ মাফের উপায়
    লেখক – শাহাদাৎ হুসাইন খান ফয়সাল (রাহিমাহুল্লাহ)
    প্রকাশনী – ইয়াকিন পাবলিকেশন
    মূল্য – ৩২২ টাকা
    পৃষ্ঠা সংখ্যা – ২২৪
    বইটির বিষয়বস্তু
    গুনাহ কাকে বলে ?
    গুনাহ এর প্রকারভেদ,
    কাবিরা গুনাহ এর তালিকা্‌,
    মানবজীবনে গুনাহের কুপ্রভা্‌ব ,
    গুনাহ মাফের উপায় ,
    গুনাহ মাফের দুআ ।
    বই টি কেন পরবেন ?
    “ প্রত্যেক আদম সন্তান ই গুনাহগার । আর গুনাহগারদের মধ্যে উত্তম হচ্ছে তাওবাকারীগন ।“ ( তিরমিযি – ২৪৯৯ ) বই টি পড়ে কত প্রকার গুনাহ আছে তা সম্পর্কে জানতে পারবেন । কাবিরা গুনাহের প্রকারভেদ জানতে পারবেন । গুনাহের ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে জানতে পারবেন । গুনাহ মাফের উপায় ও আমল সম্পর্কে জানতে পারবেন । খাঁটি তাওবা ও ঈস্তিগফারের নিয়মাবলী বই টি পড়ে জানতে পারবেন । কিছু দু আ জানতে পারবেন যা গুনাহ মাফে সহায়ক হবে ।
    বই টি কাদের জন্য ?
    যারা গুনাহ করে হতাশায় ভুগছেন বই টি মুলত তাদের জন্য । এ ছাড়া সকলের ই বই টি পরে দেখা উচিত ।
    বই টি পড়ে যে সকল গুনাহ মাফের আমল সম্পর্কে জানতে পেরেছি ঃ
    উযু করা ।
    রমযানের সিয়াম পালন করা ।
    সালাতের জন্য আযান দেয়া ।
    আল্লাহর জন্য সাজদাহ প্রদান ।
    মুসাফাহা করা ।
    মৃত মানুষকে গোছল করানো ।
    সুরা মূলক তিলওয়াত করা ।
    নিজের অনুভূতি –
    আল্লাহ বলেছেন ,”মানুষের হিসেব নিকেশের সময় আসন্ন , অথচ তারা উদাসীনতায় মুখ ফিরেয়ে রেখেছে “ (সুরা আম্বিয়া -১)। পাপ কাজের জন্য মানুষকে হিসাব দিতে হবে । আল্লাহ পাপ ক্ষমা করতে ভালোবাসেন । শুধু আমাদের আল্লাহর নিকট আন্তরিকভাবে ক্ষমা চাইতে হবে । বই টি পড়ে মনে হয়েছে আল্লাহর ক্ষমার ব্যাপারে আমাদের নিরাশ হওয়া উচিত নয় । বই টি পড়ে মনে হয়েছে আল্লাহর নিকট আমাদের বারবার ক্ষমা চাওয়া দরকার ।
    শেষ কথা ;
    শাহাদাৎ হুসাইন খান ফয়সাল (রাহিমাহুল্লাহ) দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছেন , কিন্তু তাঁর বই এখন রয়ে গেছে ।
    আপনি যদি গুনাহ করতে করতে ক্লান্ত এবং হতাশ হয়ে যান ,বই টি পারে আপনাকে ক্লান্তি এবং হতাশা থেকে মুক্তি দিতে । বই টি সকলের ই পড়া উচিত।
    রেটিং ৫/৫
    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    Erin Jahan Anika:

    আমাদের আকীদা বা বিশ্বাস অনুযায়ী পৃথিবীর মানুষের মধ্যে নবী-রাসূলগন ছাড়া কেউ-ই নিষ্পাপ নয়। তাই সবারই কম বেশি গুনাহ হওয়াটা স্বাভাবিক। প্রবৃত্তির অনুসরণ, শয়তানের কুমন্ত্রণা ইত্যাদি কারণে মানুষ গুনাহে লিপ্ত হয়। গুনাহে লিপ্ত হওয়াটা মানবীয় ও স্বাভাবিক; কিন্তু গুনাহের ওপরে অটল থাকাটা শয়তানীয় ও অস্বাভাবিক। তাই একদিকে শয়তান যেমন মানুষকে গুনাহের দিকে ডাকে, অন্যদিকে আল্লাহও ক্ষমার দিকে ডাকেন। শুধু ডাকেন-ই না উপরন্তু তিনি গুনাহগারদের জন্য এমন কিছু অফারের ব্যবস্থা করে রেখেছেন যেন সহজেই মানুষ তার কৃত গুনাহ থেকে মুক্তি পেতে পারে। কিছু পদ্ধিতি, কিছু যিকির-আযকার, কিছু আমল আল্লাহ তাআলা তাঁর রাসূলের মাধ্যমে জানিয়ে দিয়েছেন যেগুলোর মাধ্যমে অতি দ্রুত গুনাহ থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব।

    বিষয়বস্তুঃ
    গুনাহ করে ফেলার পর কীভাবে সেগুলো থেকে বের হয়ে আসতে হবে, কীভাবে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে তাঁর নৈকট্য লাভ করা যাবে সে বিষয়ে কুরআন-হাদীস থেকে বিস্তারিত দলিলাাদি টেনে এই বইটি রচনা করেছিলেন লেখক শাহাদাৎ হুসাইন খান ফয়সাল (রাহিমাহুল্লাহ)।

    গুনাহের পরকালীন শাস্তির কথা আমরা সবাই জানি; কিন্তু গুনাহের ইহকালীন কুপ্রভাব সম্পর্কে জানিনা। আমাদের কৃত গুনাহগুলো প্রতিনিয়ত আমাদের জীবন থেকে এমন কিছু নিয়ে যাচ্ছে যা আর ফিরে পাওয়া যাবেনা। তাই গুনাহ মাফের উপায় বর্ননা করার আগে আমাদের জীবনে গুনাহের বেশ কিছু কুপ্রভাব নিয়ে লেখক বইটিতে আলোচনা করেছেন।

    কুরআন-হাদীসে গুনাহ মাফের জন্য ইস্তেগফার ও তাওবার পাশাপাশি বেশ কিছু আমল বর্ণিত হয়েছে-যেগুলো করলে অনেক গুনাহই মাফ হয়ে যায়; কিন্তু আমরা সে আমলগুলো কী কী – তা না জানার কারনে এবং না করার কারনে আমাদের গুনাহগুলো মাফ করাতে পারিনা। অথচ সেগুলো খুবই সহজ আমল। যেগুলো করলে আল্লাহ আমাদের ছোট বড় সব গুনাহই মাফ করে দিবেন, ইনশা-আল্লাহ। সেদিকে দৃষ্টি রেখে সব গুনাহগারের জন্য লেখক এই বইয়ে কুরআন ও গ্রহনযোগ্য সুন্নাহ সম্মত গুনাহ মাফের বেশিকিছু উপলক্ষ্য, পদ্ধতি ও আমল বর্ননা করেছেন।

    ভাল লাগার বিষয়ঃ
    আমরা সবাই প্রতিনিয়ত কবীরা ও সগীরা গুনাহ কমবেশি করে চলেছি। একবার কৃত গুনাহের জন্য তাওবা করে কিছু সময় পর আবার তা অমান্য করি। এভাবে বারবার ওয়াদা ভঙ্গ করার পর আমরা হতাশ হয়ে পরি। তখন আমাদের অনেকের মনেই প্রশ্ন জাগে,
    আমার কৃত কবীরা-সগীরা সব গুনাহ কি আল্লাহ মাফ করবেন!?
    লেখক তার বইতে এই বিষয়টি উপস্থাপন করেছেন অত্যন্ত সুন্দরভাবে। গুনাহগারদের জানিয়েছেন আশার বাণী।

    লেখক তার এই বইটিতে গুনাহ মাফের যে আমলগুলো বর্ননা করেছেন তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য তিনটি আমল রয়েছে –

    ১. রামাদানে সিয়াম পালন করা
    ২. রামাদানে কিয়ামুল লাইল আদায় করা
    ৩. লাইলাতুল কদরের সালাত আদায় করা

    এখন বরকতময় মাস রামাদান চলছে। এটি আমাদের জন্য একটি সুবর্ণ সুযোগ রবের কাছ থেকে গুনাহগুলো মাফ করিয়ে নেয়ার ইনশা-আল্লাহ।

    গুনাহের ভারে নিমজ্জিত মুসলিম জাতির উদ্ধার-পথের পাথেয় হিসেবে এই বইটি অসাধারন একটি গাইডলাইন।

    2 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    শাহীনূর:

    দরকারী একটি বই। মহান আল্লাহ আমাদেরকে অনুগ্রহ ও ক্ষমা না করলে আমরা জান্নাত বাসি হতে পারবো না। তাই তওবা ও ক্ষমা এর আমলগুলি আমাদের জন্য জানা দরকার। বইটি তে তওবা ও ক্ষমা এর আমল গুলি রয়েছে সুন্দর ভাবে।
    5 out of 5 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top