মেন্যু


দাজ্জাল

প্রকাশনী : আযান প্রকাশনী

সম্পাদনাঃ রাজিব হাসান
শর’য়ী সম্পাদনাঃ শাইখ মনীরুল ইসলাম ইবনু জাকির
প্রচ্ছদঃ পেপারব্যাক
সর্বমোট পৃষ্ঠাঃ ১২৮

এই উম্মতের মাঝে ফিতনাসরূপ এসেছে বেশ কিছু প্রভাবশালী মানুষ। তারা এই উম্মতকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলত। তন্মধ্যে মুসাইলামাহ, আল মুখতার, আব্দুল্লাহ ইবনে মায়মূন, জাসমিন, সাজাহ, মীর্যা গোলাম আহমদ, রশিদ খলিফা, ডঃ ইয়োর্ক, নস্ট্রাডমাস, সামার ভিয়েন মার্শাল প্রমূখ উল্লেখযোগ্য। এদের ফিতনা ছিল ভয়াবহ। এরা সবাই নিজেদেরকে নবী দাবী করত। শেষ নবী মুহম্মদ (সাঃ) – এর উম্মতকে ফিতনায় ফেলার জন্য জনমনে সন্দেহ সৃষ্টি করত। মুমিন বান্দাদের ঈমান হরণ করত। ইতিহাস এদেরকে ঘৃণাভরে স্মরণ রাখবে।

এরকম অনেক ফিতনা গত হয়ে গেছে, অনেক ফিতনা অপেক্ষা করছে। ক্বিয়ামতের আগ পর্যন্ত এই উম্মত ফিতনার সম্মুখীন হতে থাকবে। মানবজাতির ইতিহাসে সবচাইতে ভয়াবহ ফিতনা এখনও আসেনি। কেননা, বাকী সবাই নিজেকে নবী দাবী করলেও, কেউ একজন নিজেকে ‘প্রভু’ দাবী করবে। সে একজন মিথ্যুক, প্রতারক এবং ধোঁকাবাজ। যার ব্যাপারে প্রত্যেক নবী রাসূল (আঃ) তার উম্মতদেরকে সতর্ক করে গেছেন। তার ফিতনা থেকে বেঁচে থাকার ব্যাপারে তাকিদ দিয়েছেন। সে একজন রক্তে মাংসে গড়া মানুষ। একজন তাগড়া যুবক। তার চোখ দুটি ত্রুটিযুক্ত। তার প্রশস্থ ললাটে আরবীতে “কাফির’ লেখা থাকবে। তার থাকবে পেশিবহুল দানবীয় শরীর। বেঁটে প্রকৃতির। ঘাড়টা খানিক কুঁজো। সামনের দিকে ঝুঁকে হেঁটে চলবে। গায়ের রং লালচে। মাথার চুল কোঁকড়ানো থাকবে, দেখে মনে হবে তা যেন কতগুলো গাছের ডাল। ভয়ংকর এই ফিতনার নাম মাসীহ-আদ-দাজ্জাল।

উম্মতের প্রয়োজনে, সময়ের প্রয়োজনে, উম্মতকে সতর্ক করতে, উম্মতের কাছে সত্য ও সঠিক বার্তা পৌঁছে দিতে, এই ভয়াবহ ফিতনা মোকাবেলায় উম্মতের করণীয় কী তা ব্যক্ত করতে – আমাদের এবারের আয়োজন বই, “দাজ্জাল।“ ওয়ামা তৌফিকি ইল্লা বিল্লাহ।

এই বইটিতে গতানুগতিক ধারার বাইরে গিয়ে দাজ্জালের বর্ণনা তুলে ধরা হয়েছে। দাজ্জাল সম্পর্কিত হাদীসের বর্ণনাগুলো বর্তমান যুগের সাথে মিলিয়ে উপস্থাপনার চেষ্টা করা হয়েছে। দাজ্জাল সম্পর্কে ভাসা ভাসা বিশ্বাস, ভ্রান্ত বিশ্বাস, রূপক বিশ্বাস এবং দাজ্জাল অস্বীকারকারীদেরকে রদ্দ করা হয়েছে।

আমাদের বিশ্বাস এই বইটি অধ্যয়ন করলে উম্মত দাজ্জাল সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা পাবে। যাবতীয় অস্পষ্টতা, ঘোলাটে বিশ্বাস, রূপক বিশ্বাস, না-বিশ্বাস দূরীভূত হয়ে যাবে ইন শা আল্লাহ্‌!

পরিমাণ

117  180 (35% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

3 রিভিউ এবং রেটিং - দাজ্জাল

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    “মানুষ যখন দাজ্জাল সম্পর্কে ভুলে যাবে তখন দাজ্জালের আগমন ঘটবে ৷ দাজ্জাল ততক্ষণ পর্যন্ত আত্মপ্রকাশ করবে না, এমনকি ঈমামগণ মিম্বারে তার আলোচনা পরিত্যাগ করবে ৷ ”

    ================================================

    ⏹️বইটির বিষয়বস্তুঃ
    কিয়ামতের আগ পর্যন্ত আমরা অনেক ফিতনার সম্মুখীন হতে থাকবো এবং প্রতিনিয়ত হচ্ছি ৷ কিন্তু মানব ইতিহাসের সবচে ভয়াবহ ফিতনার সম্মুখীন আমরা এখনও হই নি ৷ সেই ভয়াবহ ফিতনার নাম মাসীহ-আদ-দাজ্জাল ৷ তার ফিতনার মত ভয়াবহ ফিতনা আর কখনই দৃষ্টিগোচর হবে না পৃথিবীতে ৷ তাই উম্মতের প্রয়োজনে, উম্মতকে সতর্ক করতে এই বইটি ঢালস্বরূপ কাজ করবে ৷ লেখক বইটিতে আলোচনা করেছেন দাজ্জালের জন্ম , দাজ্জালের ফিতনার ভয়াবহতা, দাজ্জাল দেখতে কেমন হবে,নাকি মদিনার সেই রহস্যময় বালকই দাজ্জাল, কারা হবে দাজ্জালের অনুসারী, দাজ্জালের বর্তমান অবস্থান কোথায়, দাজ্জাল কোথায় প্রবেশ করতে পারবে না, দাজ্জাল পৃথিবীতে কতদিন থাকবে, দাজ্জালের ফিতনা থেকে বাঁচার উপায় , দাজ্জালের শেষ পরিমতি কী হবে এবং দাজ্জাল সম্পর্কে রূপক বিশ্বাস সম্পর্কিত সুষ্পষ্ট ধারণা দিয়ে লেখক গতানুগতিক ধারার বাইরে গিয়ে দাজ্জাল সম্পর্কিত হাদীসের বর্ণনাগুলো বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটের সাথে মিলিয়ে উপস্থাপন করেছেন খুব সহজ ও সাবলীল ভাষায় ৷
    ================================
    ================

    ⏹️কেন পড়বেন বইটিঃ
    আমরা জানি, দাজ্জাল আসবে ৷ হয়তো কোনো এক সকালে ৷ নয়তো কোনো এক বিকেলে ৷ কিংবা হুট করেই ঘটবে তার আগমন ৷ কিন্তু সে কীভাবে আসবে, কখন আসবে, তার বর্তমান অবস্থান কোথায় এসকল বিষয় ছাড়াও দাজ্জাল সম্পর্কিত অনেক বিষয়ই আমাদের অজানা ৷ এই বইটি দাজ্জাল সম্পর্কিত সেই সকল সুপষ্ট ধারণা দিবে ইন-শা-আল্লাহ ৷

    ================================================
    ⏹️ভালোলাগাঃ
    বইটি ভালোলাগার একটি বিশেষ কারণ হলো বইটি ছবি সংবলিত যা পাঠক মানসে বইটি পড়ার চূড়ান্ত আগ্রহ সৃষ্টি করবে ইন-শা-আল্লাহ ৷

    ================================

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    হযরত আদম (আ.)এর সৃষ্টি থেকে কিয়ামত পর্যন্ত
    মানব জাতির জন্য দাজ্জালের চেয়ে বড় ফিতনা
    আর নেই। সে এমন অলৌকিক বিষয় দেখাবে যা দেখে মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়বে। দাজ্জাল নিজেকে প্রভু ও আল্লাহ হিসেবে দাবি করবে।দুর্বল ঈমানের মানুষগুলো প্রতারণায় পড়ে তার একত্ববাদ মেনে নিয়ে ঈমানহারা হবে।নবী (সা)বলেন:
    “সকল নবীই তাদের উম্মাতকে দাজ্জালের ভয় দেখিয়েছেন।কিন্তু আমি তোমাদের কাছে দাজ্জালের একটি পরিচয়ের কথা বলব যা কোন নবীই তাঁর উম্মাতকে বলেন নাই।তা হলো কপালে কাফের (ﻛﺎﻓﺮ ) লেখা থাকবে,বৃহৎকার দেহাকৃতির হবে,সে হবে অন্ধ,আর আমাদের মহান আল্লাহ অন্ধ নন।
    .
    সব নবীই তাদের উম্মতের দাজ্জাল ফেতনার কথা বলেগেলেও,সার্বিক বর্ণনা দেন নাই।কিন্তু আমাদের নবী সা সেই দাজ্জাল সম্পর্কে খুটিনাটি সব বিষয়ই জানিয়েছেন।তার ফেতনা হতে বাঁচার উপায়ও বলে গেছেন।কিন্তু আজ মুসলমানদের অনেকেই দাজ্জাল সম্পর্কে কিছুই জানেনা।
    .
    অনেকে অন্য ধর্মের চিন্তা চেতনা,নিজের বানানো কেচ্ছা,কাহিনী দিয়ে দাজ্জালকে বর্ননা করেছে।তাদের মতে রাসুল সা যে দাজ্জালের কথা বলেছেন তা রুপক অর্থে।বর্তমান ইহুদি খ্রিস্টানরাই নাকি দাজ্জাল।ইউটিউবে এটার একটা ভিডিও ক্লিপও আছে।কিন্তু সবই সেই বিকৃত উদ্ভট
    কল্পকথা নির্ভর।অথচ যাদের কাছে আছে সেই চরম
    সত্য,সঠিক অবিকৃত জ্ঞান,যা মানুষকে এই মহাবিপদ থেকে বাঁচাতে আল্লাহ্ রাসুলের মাধ্যমে হাদিসে বিশাদভাবেে আমাদের জানিয়ে দিয়েছেন আমরা সেই মহা মূল্যবান জ্ঞান নিয়ে ঘুমিয়ে আছি।

    .
    ★এইসব কল্পনাকে দূরে সরিয়ে দাজ্জাল সম্পর্কে সঠিক তথ্য এই সময়েই উপস্থাপন করাটাই বেশ জরুরী।এর মতো বড় ফেতনার পরিচয়টা তুলে না
    ধরলে মুসলমানরা তীরে এসেও দাজ্জাল সম্পর্কে ভ্রান্ত কেচ্ছা নিয়ে ঘুরে বেড়াবে।তাই এবার এই কাজটির জন্য আরেকবার কলম ধরলেন সুপরিচিত লেখক “রাজিব হাসান”।যিনি এর আগে “ইয়াজুজ মাজুজ”বইটি লিখেছিলেন।বইটি প্রকাশ করেছে সুপ্রিয় আযান প্রকাশনী।

    .
    ★অন্যদের লেখকের থেকে রাজিব হাসানের লেখা একটু ভিন্ন ধাচের হয়।তিনি খুব অল্পভাষা ও সহজিকতাকে ব্যবহার করে কোন বিষয়ে সামগ্রিক তথ্য তুলে আনতে চান।তাই হয়তো তার বইগুলো সবার কাছে এতো বুঝোক্ষম হয়।

    .
    ★লেখক এই বইটিতে গতানুগতিক ধারার বাইরে গিয়ে
    দাজ্জালের বর্ণনা তুলে ধরেছেন। দাজ্জাল
    সম্পর্কিত হাদীসের বর্ণনাগুলো বর্তমান যুগের সাথে মিলিয়ে উপস্থাপনার চেষ্টা করা করেছেন।মোটামোটি দাজ্জাল সম্পর্কিত রাসুলের প্রায় হাদিসই লিপিত করেছেন।দাজ্জালের পরিচয়,জন্ম কোথায় কখন আসবে,কেমন হবে এমন সব প্রশ্ন তিনি প্রশ্নাকারেই বিস্তর বর্ননা করেছেন।এমনকি বিভিন্ন স্থানের চিত্র/মানচিত্রও চিত্রিত করে বুঝিয়ে দেন।দাজ্জাল সম্পর্কীয় অন্যান্য বই থেকে এটিই আমার কাছে বেস্ট মনে হয়েছে।

    .
    ★এতো সুন্দর একটা বইয়ের পরেও “তবে” কথা একটু এসে যায়।আযান প্রকাশনের গত বইগুলোর মতোই এ বইটিকে প্রচ্ছদ, বাঁধাই,প্রিন্ট সব মানসম্মত রাখা হয়েছে।তবে বইটি 128 পৃষ্ঠায় সমাপ্ত হয়েছে।যদি দাজ্জালের সব হাদিসগুলোই অন্তর্ভুক্ত করা যেত তবে আরেকটু মিষ্টি হতো।

    আমার বিশ্বাস এইবইটি অধ্যয়ন করলে দাজ্জাল সম্পর্কে
    সুস্পষ্ট ধারণা পাওয়া যাবে।

    তাক্ববাল্লাহু মিনকুম।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    :

    #দাজ্জাল: আল্লাহর এক চোখ অন্ধ নন,তিনি পরিপূর্ণ। কিন্তু দাজ্জাল এর এক চোখ অন্ধ পরিপূর্ণ নন।এটাই দাজ্জাল কে চিনার মূল উপায়। আসলেই বই টা সবার পড়া উচিৎ। নবী রাসূল গণ এত মজবুত ঈমান হওয়ার শর্তে ও আল্লাহর কাছে নিজের এবং তার উম্মত এর হেফাজতের দোয়া করেছেন। সেখানে আমাদের ঠুংক ঈমান তো তার ক্ষমতা দেখে নষ্ট হয়ে যাবে।দাজ্জাল সম্পর্কে না জানলে তো কেউ বোঝবেন ই না তার কাছে কোনটি জান্নাত কোনটি জাহান্নাম,এবং তার ফেতনার ভয়াবহতা কেমন হবে।আসলে বইটি পড়ার সময় এমন মনে হয় এ ছিল সব কিছু আমার সামনেই ঘটছে ।আসলে সবার ই পড়ার উচিত ।
    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No