মেন্যু
ব্যালেন্সিং স্ক্রু

ব্যালেন্সিং স্ক্রু

পৃষ্ঠা : 144, কভার : পেপার ব্যাক
সম্পাদনায়: সাঈদ আবরার হক বাতিলের দ্বন্দ্ব চিরন্তন। ইসলাম আবির্ভাবের শুরুলগ্ন থেকেই চলছে বাতিল অপশক্তির দৌরাত্ম্য। সময়ের পরিক্রমায় যুগের পালাবদলে নানারঙা বাতির মতো পরিবর্তন হয় বাতিল শক্তির ষড়যন্ত্রের মুখোশ। হাল যামানায় ইসলামবিদ্বেষীদের... আরো পড়ুন
পরিমাণ

146  200 (27% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
- ১,৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

প্রসাধনী প্রসাধনী প্রসাধনী

2 রিভিউ এবং রেটিং - ব্যালেন্সিং স্ক্রু

5.0
Based on 2 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    মুসলিমদের বিরুদ্ধে পশ্চিমাদের গভীর চক্রান্ত তিনি তার লেখনীর মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলেছেন।যারা পশ্চিমাদের অন্ধ অনুকরণ করে, তাদের করা প্রশ্নের শক্ত জবাব দিয়েছেন।
    তাদের করা প্রশ্নগুলো যে কতটা যুক্তিহীন তা তিনি খুব সুন্দরভাবে তুলে ধরেছেন।
    বইয়ের ১ম ও ৩য় গল্পটি আমার কাছে খুব অসাধারণ লেগেছে।
    1 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    সারা পৃথিবী জুড়েই যখন ইসলামোফোবিয়া ছড়িয়ে পড়েছে তখন ইসলামের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস টিকিয়ে রাখতে, কালিমাবাহী পতাকাকে সোজা রাখতে পাশাপাশি নাস্তিকদের বিবেচনাহীন প্রশ্নের দাঁতভাঙা জবাব দিতে মুসলিম উম্মাহকে একসাথে লড়ে যেতে হবে। পশ্চিমা মিডিয়াগুলো যখন ইসলাম ও মুসলমানদের নিয়ে অপপ্রচার চালায় তখন মুসলিম জাতির উচিত সমষ্টিগতভাবে তাদের মোকাবেলা করা। অন্যান্য দেশের মতো এখন শতকরা ৯০% মুসলমানদের দেশ বাংলাদেশেও ইসলামোফোবিয়া ব্যাপক প্রসার লাভ করেছে। মূলত, তথাকথিত স্যেকুলার জনগোষ্ঠী, পশ্চিমা কৃষ্টিকালচার এবং নাস্তিকদের শয়তানী মস্তিষ্কপ্রসূত বিভিন্ন প্রশ্ন যা বিজ্ঞান এবং ধর্মের মধ্যে বিভেদ তৈরি করে দেয়, এমন কিছু কূটনৈতিক পরিকল্পনার ফাঁদে পড়ে এদেশের মুসলিম উম্মাহ ইসলাম ও আল-কুরআনকে নিয়ে বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতিতে অবস্থান করছে। বাংলা ভাষায় নাস্তিক্যবাদ বিরোধী লেখাজোঁকা সম্ভবত আরিফ আজাদ ভাইয়ের হাত ধরেই(আমি যতদূর জানি)। তিনি তার ‘প্যারাডক্সিক্যাল সাজিদ’ বইয়ের মাধ্যমে নাস্তিক্যবাদের বিপক্ষে চরম জবাব উপস্থাপন করেছেন। বইটির সিকুয়েলও আছে। যাক সে কথা। ব্যালেন্সিং স্ক্রু বইটিও নাস্তিক্যবাদের বিপক্ষে রচিত বই। বইটিতে ইসলাম বিদ্বেষীদের একগুঁয়েমিপূর্ণ প্রশ্নের বিজ্ঞানসম্মত উত্তর দেওয়া হয়েছে। ছোট কলেবরের বইখানাতে দেখানো হয়েছে যে বিজ্ঞান ও আল-কুরআন কখনোই সাংঘর্ষিক নয়। প্রতিটি প্রশ্নের উত্তরে বিজ্ঞানের উদাহরণ ও পবিত্র আল-কুরআনের বিভিন্ন আয়াতের উদ্ধৃতি টেনে প্রতুত্তর দেওয়া হয়েছে। আধুনিক বিজ্ঞানের মাধ্যমেই প্রমাণ করা হয়েছে যে পৃথিবীর সবচেয়ে বিশুদ্ধতম গ্রন্থই হলো আল-কুরআন, যা সমগ্র মানবজাতির জন্যে হেদায়াতের মূল উৎস।

    নাস্তিকদের প্রশ্নের জবাবে লেখকের বর্ণনাভঙ্গি ও শব্দের ব্যবহার বেশ সাবলীল। তবে বইয়ে অতিরিক্ত ইংরেজি শব্দের ব্যবহার আমাকে খানিকটা বিব্রত করেছে। আশা করছি পরবর্তী বইগুলোতে এর প্রভাব কমে যাবে ইনশাআল্লাহ। তথ্যের নির্ভূলতা এবং গল্পে গল্পে ইসলামবিদ্বেষীরা কীভাবে মুসলিম জাতির উপর কর্তৃত্ব স্থাপন করে তাকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে তা পাঠককে মুগ্ধ করবে বলেই আমি আশাবাদী। বইয়ের প্রথম গল্পটিই আপনাকে উপলব্ধি করাবে যে, কীভাবে স্বার্থান্বেষী মহল তাদের স্বার্থসিদ্ধির জন্যে ভয়ংকর পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

    “তর্ক যদি করা হয় একে অপরকে আক্রমণ করার জন্যে, তাহলে তাতে কোনো উপকার নেই। কিন্তু তর্কের উদ্দেশ্য যদি সত্য উদঘাটন হয়, তাহলে মীমাংসায় পৌঁছা সম্ভব।

    ♦রেটিংঃ ৮.৫/১০

    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No