মেন্যু
১০০০ টাকার পণ্য কিনলে সারা দেশে ডেলিভারি একদম ফ্রি।

আত্মশুদ্ধি

অনুবাদক: আব্দুল্লাহ আল-মাসউদ
মোট পৃষ্ঠা : ৬৪

আত্মশুদ্ধি নিয়ে সালাফে সালেহীন বা আমাদের পূণ্যবান পূর্বসূরিগণ প্রচুর বইপত্র রচনা করেছেন। অনাগত প্রজন্মের জন্য রেখে গেছেন দিকনির্দেশনা। নিজেদের লব্ধ অভিজ্ঞতাকে কাগজের পাতায় বন্দি করেছেন। যাতে করে চারিত্রিক পরিশুদ্ধির জন্য পথনির্দেশ পেতে তাদের বেগ পেতে না হয়। এই ধরণের একটি আত্মশুদ্ধিমূলক ছোট পুস্তক হচ্ছে ‘উয়ূবুন নাফসি ওয়া মুদাওয়াতুহা ’ ‍। যার শাব্দিক তরজমা করলে অর্থ দাঁড়ায়- অন্তরের রোগ-বালা ও তার নিরাময়।

এই পুস্তিকাটি রচয়িতা হলেন পঞ্চম শতাব্দির বিখ্যাত আলেম আবূ আবদুর রহমান আস-সুলামী রাহিমাহুল্লাহ। যিনি ছিলেন মানুষের অন্তরের রোগ-বালাই ও আত্মিক সমস্যা  এবং তার প্রতিকার বিষয়ে একজন বিশেষজ্ঞ ব্যক্তি। তিনি স্বীয় জীবনের সঞ্চিত বাস্তব অভিজ্ঞতার আলোকে এটি লিপিবদ্ধ করেন। ফলে এই পুস্তকটিকে মনে করা হয় এই বিষয়ে ‘ অল্প কথায় অধিক ফলপ্রসু ’ একটি রচনা।

পরিমাণ

65.00  92.00 (29% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

2 রিভিউ এবং রেটিং - আত্মশুদ্ধি

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    যারা অন্তর পরিশুদ্ধ অবস্থায় মহামহিম আল্লাহর সাথে সাক্ষাৎ করতে চান, ‘আত্মশুদ্ধি’ বইটি বিশেষভাবে তাদেরই জন্য।

    ‘উয়ূবুন নাফসি ওয়া মুদাওয়াতুহা’ (যার শাব্দিক তরজমা করলে অর্থ দাঁড়ায় – অন্তরের রোগ-বালা ও তার নিরাময়) – আত্মিক ব্যাধি ও তার প্রতিকার সম্পর্কে ৫ম শতাব্দীর বিখ্যাত আলিম আবূ আবদুর রহমান আস-সুলামী — রাহিমাহুল্লাহু তাআলা – র একটি উল্লেখযোগ্য কিতাব। লেখক তাঁর বইতে ৭০টির মত আত্মিক ব্যাধি ও তার প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করেছেন। সেগুলোকে তিনি প্রথমে চিহ্নিত করেছেন। তারপর প্রতিকার ও নিরাময়-পদ্ধতির কথা বাতলে দিয়েছেন। সবশেষে নিজের বাতলে দেয়া তরীকাকে কুরআনের আয়াত ও নবীজী (সাঃ)-র হাদীস দ্বারা সুদৃঢ় করেছেন।
    তিনি অতিরিক্ত আলাপে না গিয়ে স্বল্প কথায় মূল সমস্যাটা চিহ্নিত করে তার প্রতিকার তুলে ধরেছেন। প্রতিকার বর্ণনার ক্ষেত্রে কুরআন-হাদীসের সরাসরি বক্তব্যকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন।
    অবাক করার মত এমন অনেক বিষয় এখানে উঠে এসেছে, যেগুলোকে আমরা আপাত দৃষ্টিতে খারাপ বলে তো মনে করিই না, বরং খুব স্বাভাবিকভাবে দেখি!

    সব শেষে লেখক মানুষের অন্তর পুরোটাকেই ব্যাধিগ্রস্থ উল্লেখ করে বলেছেন, অন্তরের দোষত্রুটি এবং ব্যাধির কোনো সীমা-পরিসীমা নেই। তবে আশা করা যায়, এই বইতে আলোচিত প্রতিকারের আলোকে অন্যান্য বিষয়েরও সমাধান আবিষ্কার করা যাবে।

    শারীরিকভাবে আমরা কিছুটা অসুস্থ হলেই দৌড়ে ডাক্তারের কাছে যাই, প্রেসক্রিপশন অনুসারে ওষুধ সেবন করি।প্রয়োজনে অপারেশন কিংবা কেমোথেরাপি পর্যন্ত নেই। শারীরিক সুস্থতার জন্য নিজের কষ্টার্জিত ধন-সম্পদ খরচ করতেও দ্বিধা বোধ করি না। দেহের সুস্থতার জন্য আমরা যতটা দৌড়ঝাঁপ করি, অন্তরের সুস্থতার জন্য করি না তার সিকিভাগও! অথচ আল্লাহ তাআলা বলেছেন, ” নিশ্চয়ই সে সফলকাম হয়েছে, যে তার আত্মাকে পরিশুদ্ধ করেছে। আর সে ব্যর্থ হয়েছে, যে তাকে কলুষিত করেছে।”

    নিঃশ্বাসের যেহেতু বিশ্বাস নাই, নিজ নিজ অন্তর পরিশুদ্ধ করণের উপায় খুঁজতে তাহলে আর দেরি করা ক্যানো?

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
  2. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    শয়তান আমাদের প্রকাশ্য ও চির শত্রু। আমাদের একটু অসাবধানতা, অতিরিক্ত আত্মতৃপ্তি কীভাবে আমাদের ক্ষতিগ্রস্ত করবে তা খুব সুন্দর করে লেখক বুঝিয়ে দিয়েছেন। অন্যদিকে, ছোট্ট বইটিতে মনের জটিল সব রোগ ও তার প্রতিকার অল্প কথায় খুব সুন্দর করে ব্যাখ্যা করা আছে। তাই, বইটি সবারই পড়া উচিৎ বলে মনে করি। আল্লাহ তা’য়ালা সবাইকে নেক আমল করার তৌফিক দান করুন,,,আমিন।
    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?