মেন্যু
  • You cannot add "সালাহউদ্দীন আইয়ুবী" to the cart because the product is out of stock.
artugrul gazi

আরতুগরুল গাজি

প্রকাশনী : পুনরায় প্রকাশন
পৃষ্ঠা : 144, কভার : পেপার ব্যাক, সংস্করণ : 1st edition 2020

সম্পাদক : নেসারুদ্দীন রুম্মান

সুগুতের ছোট্ট জায়গিরটুকু একদিন হয়ে উঠল একটি সাম্রাজ্যের বীজতলা। অনেক কষ্টেও না-মনে-পড়া বিস্মৃত বা অখ্যাত কোনো সাম্রাজ্য নয়, এর স্থায়িত্বের শেকড় পোঁতা থাকবে ছয়শ বছরেরও অধিক সময়ের গভীরে! এক বিচক্ষণ ও দরদি নেতা স্বগোত্রের যাযাবর-জীবনে—তাঁবু স্থাপন আর তাঁবু গুটিয়ে অন্য আশ্রয় খোঁজার মধ্যে—দেখলেন, একটি স্থায়ী বসতির আকাঙ্ক্ষা-বেদনায় কতটা উদগ্র ও ব্যাকুল হয়ে থাকে তারা।
কিন্তু পৃথিবী জুড়ে তখন মোঙ্গলদের ত্রাস! মধ্য-এশিয়াও উথালপাতাল করে ফেলছে ওরা। ওদের ঠেকাবে, কারও সে সাধ্য নেই। অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে, পুরো পৃথিবী থেকে মুসলিমদের নাম-নিশানা মুছে যাবে; হারিয়ে যাবে খেলাফত। তখনই তিনি এলেন আনাতোলিয়ায়। পুঁতলেন—শুধু স্বগোত্রের ঠাঁই-ই নয়, খেলাফতরক্ষাকারী নতুন খেলাফত-ব্যবস্থার বীজও…
ভাবা যায়, খেলাফত-ব্যবস্থা ধ্বংস হওয়ার আরও ছয়শ বছর আগেই বিলুপ্ত হতে পারত খেলাফত! কে রুখে দিলেন সেই অশনিসম্পাত? কে সেলজুকদের ধুঁকে-ধুঁকে-চলা সাম্রাজ্যের রাশ টেনে ধরলেন? মুসলিম সাম্রাজ্যের সীমান্তরক্ষার বরকতময় দায়িত্ব থেকে কার প্রাণনায় পত্তন হলো উসমানি সাম্রাজ্যের?
একজন বলিষ্ঠ নেতার ভূমিকায় জাতির জীবনের গতিপথ বদলে যায়। যাযাবরও বেছে নেয় রাজকীয় অভিমুখ। উসমানি সাম্রাজ্যের স্বপ্নদ্রষ্টা আরতুগরুল গাজি সেই মহান নেতা! তারই জীবনের শ্বাসরুদ্ধকর আয়োজনে বিধৃত এই বই—তাকে নিয়ে বাংলা-ভাষার প্রথম প্রকাশনা।

পরিমাণ

162  216 (25% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
- ১,৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

প্রসাধনী প্রসাধনী

2 রিভিউ এবং রেটিং - আরতুগরুল গাজি

5.0
Based on 2 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    বইয়ের নাম : উসমানি সাম্রাজ্যের স্বপ্নদ্রষ্টা : আরতুগরুল গাজি
    লেখক : আইনুল হক কাসিমী
    সম্পাদনায় : নেসারুদ্দীন রুম্মান
    প্রকাশনায় : পুনরায় প্রকাশন
    পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৪৪
    মুদ্রিত মূল্য : ২১৬ টাকা

    আরতুগরুল গাজি।
    ইতিহাসের এক অব্যাক্ত অধ্যায়ের নাম। সামান্য একটি যাযাবর গোত্রকে সাম্রাজ্যে পরিণত করার স্বপ্নদ্রষ্টা তিনি। তাঁর ছেলে উসমান যে বিশাল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠা করেন এবং তাঁর বংশধরেরা যার ব্যাপ্তি ছড়িয়ে দেন তিন মহাদেশব্যাপি, সে উসমানি সাম্রাজ্যের ভিত্তি নির্মাণ করেন এই আরতুগরুল গাজি।

    কিন্তু আফসোসের কথা হলো ইতিহাসের এই মহানায়ক সম্পর্কে ইতিহাস পনেরো পৃষ্ঠার বেশি লিখেনি!
    আরো আফসোসের কথা হলো পনেরো পৃষ্ঠার সেই ইতিহাসকেও বিকৃত করে তুর্কি এক সিনেমা নির্মাতা তৈরি করেছেন বিশাল এক সিরিয়াল। যাতে শুধু ইতিহাস বিকৃতিই নয়, বিভিন্ন শিরকি-বিদআতি কাজ, অশ্লীলতা-ব্যভিচারেরও ছড়াছড়ি দেখা যায়। অথচ তরুণ সমাজ এর প্রতিই আকৃষ্ট হচ্ছে এবং একে সত্য বলে মনে করছে।
    উম্মাহর এই বাজে অবস্থা দেখেই মুফতি আইনুল হক কাসিমী রচনা করেছেন “আরতুগরুল গাজি”।

    বইয়ে যা আছে :
    আরতুগরুল গাজি বইটি শুধু আরতুগরুল গাজিকে নিয়ে লেখা হয়েছে এমনটি নয়। বরং সাতটি অধ্যায়ে বিন্যস্ত বইটিতে তুর্কিদের অপর শক্তিশালী সাম্রাজ্য সেলজুক সাম্রাজ্য, আব্বাসি খিলাফতের বিভিন্ন বিষয়াদি এবং দীর্ঘমেয়াদি এই খিলাফতের পতনের কারণ, মোঙ্গলদের পরিচয়, উসমানি সাম্রাজ্যের হাতে বিজিত বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্য, এবং উসমানি খিলাফতের সংক্ষিপ্ত ইতিহাসও তুলে ধরা হয়েছে।
    পাঠক মহানায়ক আরতুগরুল গাজির পাশাপাশি সেলজুক সাম্রাজ্য, আব্বাসি খিলাফত, মোঙ্গল সাম্রাজ্য, বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্য এবং উসমানি খিলাফত সম্পর্কেও সংক্ষিপ্তভাবে জেনে যাবেন ইনশাআল্লাহ।

    পূর্বেই বলেছি আরতুগরুল গাজি সম্পর্কে ইতিহাসে তেমন তথ্য জানা যায়না। বিজ্ঞ লেখক আরতুগরুল গাজির বর্ণনা দিতে গিয়ে বারবার তথ্যের অপ্রতুলতার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন। সঠিক এবং বিস্তারিত ইতিহাস পাঠকের সামনে উপস্থাপন করার জন্য লেখক মুসলিম লেখকদের পাশাপাশি অমুসলিম লেখকদেরও উদ্ধৃতি তুলে ধরেছেন এবং নিরপেক্ষ পর্যালোচনা করেছেন। তিনি পাঠকের মনোবাঞ্ছা পূরণের জন্য চেষ্টার কমতি করেননি। আশা করি পাঠক বইটি পড়ে সত্য, সঠিক এবং প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে বিস্তারিত ইতিহাস জানতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

    পাঠ-প্রতিক্রিয়া :
    দিরিলিস নামক সিরিয়াল প্রথম বের হওয়ার পর অন্যদের মতো আমিও তাতে আসক্ত হয়ে পড়েছিলাম। কিছুদিন পর থেকেই মনে হতে থাকে এগুলো ভুল, কিন্তু সন্দেহে ছিলাম। একদিন ফেসবুকে একটি পোস্ট দেখলাম এই সিরিয়ালটার পচাঁশি ভাগই বানোয়াট। এরপর থেকেই অনাগ্রহ সৃষ্টি হতে থাকে। একসময় দেখা বন্ধ করে দেই। কিন্তু মহানায়ক আরতুগরুল গাজি সম্পর্কে জানার তৃষ্ণা রয়েই গিয়েছিল। বরং অন্য সময়ের তুলনায় আরো বেড়ে গিয়েছিল। একসময় “আরতুগরুল গাজি” বইটি বের হওয়ার খবর পাই। আগ্রহ নিয়ে বসে ছিলাম কিনবো বলে। কিন্তু যখন প্রি-অর্ডার শুরু হয়, তখন হাতে টাকা না থাকায় আর সংগ্রহ করতে পারিনি। একসময় আল্লাহ তাআ’লা ব্যবস্থা করে দেন। আলহামদুলিল্লাহ অসাধারণ এই বইটি পড়লাম। তৃষ্ণা মিটলেও এতো কম তথ্যে কি আর পেট ভরে? কিন্তু ইতিহাস যদি কথা না বলে, লেখক কি বানিয়ে ইতিহাস লিখবেন? তাই অল্পতে তৃপ্ত হওয়া ছাড়া উপায়ই নেই।

    অল্পর মধ্যেও লেখকের বর্ণনাভঙ্গি, তথ্যসমূহের নিরপেক্ষ পর্যালোচনা এবং তথ্যের অনিচ্ছাকৃত স্বল্পতার জন্য পাঠকের কাছে বারবার ক্ষমাপ্রার্থনা করা সত্যিই অভিভূত করে দিয়েছে। লেখকের “উসমানি খিলাফতের স্বর্ণকণিকা” পড়ে উনার লেখার ধরণ এবং পুঙ্খানুপুঙ্খ তথ্যানুসন্ধান সম্পর্কে জানতে পেরেছিলাম। “আরতুগরুল গাজি” পড়েও অভিভূত হলাম।

    আল্লাহর কাছে দুআ করি লেখকের লেখার মধ্যে আল্লাহ তাআ’লা বরকত দান করুন এবং “আরতুগরুল গাজি” সকল ইতিহাস প্রেমীর হাতে হাতে পৌঁছে দিন। আমিন।

    4 out of 4 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    আরতুগরুল গাজি৷ তিন তিনটি মহাদেশে (এশিয়া, ইউরোপ, আফ্রিকা) দীর্ঘ ছয়শত বছরের অধিককাল শাসনের ছড়ি ঘুরিয়েছে যে প্রতাপশালী উসমানী সালতানাত, তার স্বপ্নদ্রষ্টা ছিলেন এই আরতুগরুল৷ কিন্তু তার ব্যাপারে ইতিহাসে খুব একটা পাওয়া যায় না, তাছাড়া উসমানীদের উত্থানের সময়কালে বিশ্বের অবস্থা কী ছিল তা জানার প্রয়োজন মনে করি সকলেরই! নইলে উসমানীয়দের অবদান, তাদের গুরুত্ব বুঝতেই পারবো না৷ অন্য দশটি রাজবংশের সাথে তাদের পার্থক্য তুলে ধরতে অবশ্যই তৎকালিন বিশ্বের পরিস্থিতির সাথে পরিচিত হওয়া দরকার! তবে মূল ফোকাস যেহেতু আরতুগরুল গাজি, তাই তার নামেই বইয়ের নামকরণ করা হয়েছে, এই নাম নিয়ে বোদ্ধা কারও আপত্তি থাকলে তার বোধবুদ্ধি নিয়ে আমার সন্দেহ!

    লেখক, সম্পাদক ও প্রকাশককে অশেষ ধন্যবাদ৷ বইটি সত্যান্বেষী পাঠকের হাতে হাতে পৌঁছে যাক এই কামনাই করি৷

    5 out of 5 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top