মেন্যু


আরজ আলী সমীপে

আরজ আলী মাতুব্বর। জন্মেছেন বরিশালে। প্রাতিষ্ঠানিক কোনো শিক্ষা তার ছিলনা। তবে স্বশিক্ষিত ছিলেন। লোকমুখে শুনা যায় ধর্মের প্রতি একধরনের বিতৃষ্ণা থেকে উনি কলম ধরেছিলেন। বিজ্ঞানমনস্কতার নামে আরজ আলীরা যে ভূলটা করেন তা হলো ধর্ম, বিজ্ঞান,এবং দর্শনকে একই ক্যাটাগরিতে নিয়ে আসা। অক্সিজেন এবং হাইড্রোজেনেরর কম্বিনেশনে পানি সৃষ্টি হয়- তা বিজ্ঞানের আলোচ্য বিষয়। চুরি করলে হাত কর্তন করা অথবা যিনা করলে পাথর মেরে হত্যা করা অথবা কাউকে হত্যার বিনিময়ে হত্যা করা ধর্মের আলোচ্য বিষয়। দর্শনে এ সমন্ধে কিছু বলা থাকলেও বিজ্ঞানে কিছুই নেই। এমতাবস্থায়, ভিন্ন ভিন্ন আলোচ্য বিষয়কে যদি একই বাটখারায় ওজন করাটা নিতান্ত বোকামি। হাস্যকর ব্যাপার হলো আজ্ঞেয়বাদী, নাস্তিক, স্যেকুলার’রা বিজ্ঞানমনস্কতার নামে তিনটি আলাদা টপিক কে একই বাটখারায় ওজন করে।
.
আরজ আলী সাহেব সমাজে প্রচলিত কিছু কুসংস্কার কে মূল ইসলামভেবে প্রশ্ন করেছেন। অথচ অধিকাংশ প্রচলিত কুসংস্কারের সাথে কুরআন হাদিসের কোনো সম্পর্ক নেই। আরজ আলী সাহেব কী ভুল করেছেন, উনার প্রশ্নের সোর্স কতটুকু সত্য? উনি কি আদতে সত্যের সন্ধান করেছেন? তার পুঙ্খানুপুঙ্খ উত্তর মিলবে ” আরজ আলী সমীপে’ বইটি থেকে।

পরিমাণ

175  250 (30% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
- ১৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

8 রিভিউ এবং রেটিং - আরজ আলী সমীপে

4.8
Based on 8 reviews
5 star
75%
4 star
25%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    রিভিউ-

    বই: আরজ আলী সমীপে
    লেখক: আরিফ আজাদ
    প্রকাশনী: সমকালীন প্রকাশন
    মূল্য: ২৫০/-
    পৃষ্ঠা: ১৪৯

    নাস্তিকদের দৌরাত্ম্য বিজ্ঞান ও যুক্তি পর্যন্ত। বেশিরভাগ ভাসা ভাসা। এই ভাসা ভাসা যুক্তি-নির্ভর আরজ আলী মাতুব্বর সাহেব বাঙালি নাস্তিকদের সম্পত্তি। যতটুকু জানা যায় তিনি স্বশিক্ষিত, বরিশাল লাইব্রেরি ছিল তার জ্ঞানভাষ্য। স্রষ্টাকে নিয়ে তার যত প্রশ্ন! ধর্ম নিয়ে তার কত সন্দেহ! এসবের পোস্টমর্টেম করেছেন জনপ্রিয় প্যারডক্সিক্যাল সাজিদের লেখক আরিফ আজাদ।

    বিষয়বস্তু

    বইটির ভূমিকায় আরিফ আজাদ সাহেব বলেছেন, ‘উনার (আরজ আলী মাতুব্বরের) জানা ইসলাম টা যে ইসলাম নয়, সেটাই এই বইতে তুলে ধরা হয়েছে’। অর্থাৎ, আরজ আলী মাতুব্বরের ভাসা ভাসা যুক্তি ও কথার কথা’র যুতসই যুক্তি-খণ্ডন করেন ছয়টি অধ্যায়ে, এ সময়কার লেখক। বিজ্ঞান এবং যুক্তির পাশাপাশি তথ্য ও তত্ত্বের সন্নিবেশ করেছেন।

    তিন লাইনের সারমর্ম

    আল্লাহ আছে, আল্লাহ সত্য, ধর্ম সত্য, ধর্মীয় সংস্কৃতি বাস্তব। আরজ আলীরা ভুল, যুগে যুগে উপস্থিত হওয়া মিথ। বিবর্তনবাদ বিজ্ঞানের কথার কথা। বরং ইসলামের সৃষ্টিতত্তই সঠিক।

    আরো কিছু কথা

    বইটির মাধ্যমে লেখক আরজ আলী মাতুব্বর সাহেবের ভক্ত-মুরিদদের মানসে আঘাতের চিহ্ন এঁকেছেন। যা নাস্তিকদের জন্য একটি মাইর এবং বিশ্বাসী মানুষদের জন্য পাথেয়।

    যা যা ভালো লেগেছে

    ১. ঝকঝকে প্রচ্ছদ
    ২. শার’ঈ সম্পাদকের ভূমিকা দেয়া
    ৩. কুরআন-হাদীস, বিভিন্ন তথ্য ও আরজ আলী মাতুব্বরের প্রশ্ন কোড করার ধরণ
    ৪. বইয়ের শেষে নোট করার জন্য আলাদা পৃষ্টা।

    বইটি যাদের জন্য

    তুলনামূলক ধর্মতত্ত্ব, বিজ্ঞান ও ধর্ম সম্পর্কে আগ্রহী এবং যুক্তিবাদী লোকসহ সকল দাওয়াতী কাজে জড়িত মুসলিমদের জন্য। নাস্তিক হয়ে ওঠা লোকদের জন্যও পাঠ্য হওয়ার মতো।

    লেখক সম্পর্কে:

    আরিফ আজাদ চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ‘প্যারাডক্সিক্যাল সাজিদ’ লিখে জনপ্রিয়তা ও পাঠকপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। ‘আরজ আলী সমীপে’ তাঁর দ্বিতীয় বই। যুক্তি কষ্টিপাথরে ধর্ম ও স্রষ্টার বিপক্ষের মিথগুলো যাছাই করতে বেশ অগ্রণী ভূমিকা রাখতেছেন তিনি।

    #সাদ্দাম_হোসেন।

    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    অারজ অালী মাতুব্বর। জন্ম বরিশালে। প্রতিষ্ঠানিক পড়ালেখা করেন নি। নিজে বই পড়ে জ্ঞান অর্জন করেছেন।অর্থাৎ স্বশিক্ষিত। অার ইসলামের জ্ঞান অর্জন করেছেন গ্রামের মানুষের মুখের কথা থেকে। সমস্যাটা এখানেই। গ্রামের অধিকাংশ মানুষই কুসংস্কারাচ্ছন্ন। ফলে তিনি ইসলাম অার কুসংস্কারের কনসেপ্টটা গুলিয়ে ফেলেছেন। তিনি যে বইটি লিখেছেন (সত্যের সন্ধানে) তাতে কোন কথা সরাসরি কুরআন-হাদিস থেকে নেন নি। লেখাগুলো খেয়াল করে পড়লেই দেখা যায় সবগুলো লেখাতেই বলেছেন, “কেহ কেহ বলেন/ কোন কোন ধর্মযাজক বলেন/ শোনা যায়” ইত্যাদি। তার কথা থেকে নিশ্চিন্তে বোঝা যায় কথাগুলো কুরঅান-হাদিস থকে নেয়া নয়, যা খুবই অাপত্তিকর। এগুলো প্রায়ই গ্রামের কুসংস্কার এবং হিন্দুদের প্রথা থেকে নেয়া। অথচ দেখা যায় অনেক শিক্ষিত ছেলে-মেয়েরা এগুলো পড়ে নাস্তিক হয়।

    #বইয়ের_বিষয়বস্তুঃ
    সময়ের তরুন লেখক ও দাঈ (যিনি অাল্লাহর পথে দাওয়াত দেন) অারিফ অাজাদ। লেখক খুব অল্প পরিসরে অারজ অালীর প্রশ্নগুলোর উত্তর দিয়েছেন এবং অসারতা তুলে ধরেছেন। অাসলে বইটা পড়লে বুঝা যাবে অারজ অালী মাতুব্বর যে ইসলামের কথা বলেছেন সেটি অাল্লাহ ও তার রাসুলের দেখানো ইসলাম না। এর মধ্যে অনেক তফাৎ অাছে। তবু্ও অামরা না জানার কারনে সংশয়ে ভুগি।

    #আমার_ভাবনাঃ
    বইটা অামাদের প্রত্যেক তরুনদের পড়া উচিত সংশয় কাটানোর জন্য। যাদের সংশয় নেই তাদেরও পড়া উচিত সঠিক ইসলামকে অারো ভালোভাবে জানার জন্য এবং কুসংস্কার ও ইসলামের পার্থক্য জানার জন্য

    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    :

    অারজ অালী মাতুব্বর। জন্ম বরিশালে। প্রতিষ্ঠানিক পড়ালেখা করেন নেই । নিজে বই পড়ে জ্ঞান অর্জন করেছেন।অর্থাৎ স্বশিক্ষিত। অার ইসলামের জ্ঞান অর্জন করেছেন গ্রামের মানুষের মুখের কথা থেকে। সমস্যাটা এখানেই। গ্রামের অধিকাংশ মানুষই কুসংস্কারাচ্ছন্ন। ফলে তিনি ইসলাম অার কুসংস্কারের কনসেপ্টটা গুলিয়ে ফেলেছেন। তিনি যে বইটি লিখেছেন (সত্যের সন্ধানে) তাতে কোন কথা সরাসরি কুরআন-হাদিস থেকে নেন নি। লেখাগুলো খেয়াল করে পড়লেই দেখা যায় সবগুলো লেখাতেই বলেছেন, “কেহ কেহ বলেন/ কোন কোন ধর্মযাজক বলেন/ শোনা যায়” ইত্যাদি। তার কথা থেকে নিশ্চিন্তে বোঝা যায় কথাগুলো কুরঅান-হাদিস থকে নেয়া নয়, যা খুবই অাপত্তিকর। এগুলো প্রায়ই গ্রামের কুসংস্কার এবং হিন্দুদের প্রথা থেকে নেয়া। অথচ দেখা যায় অনেক শিক্ষিত ছেলে-মেয়েরা এগুলো পড়ে নাস্তিক হয়।

    #বইয়ের_বিষয়বস্তুঃ
    সময়ের তরুন লেখক ও দাঈ (যিনি অাল্লাহর পথে দাওয়াত দেন) অারিফ অাজাদ। লেখক খুব অল্প পরিসরে অারজ অালীর প্রশ্নগুলোর উত্তর দিয়েছেন এবং অসারতা তুলে ধরেছেন। অাসলে বইটা পড়লে বুঝা যাবে অারজ অালী মাতুব্বর যে ইসলামের কথা বলেছেন সেটি অাল্লাহ ও তার রাসুলের দেখানো ইসলাম না। এর মধ্যে অনেক তফাৎ অাছে। তবু্ও অামরা না জানার কারনে সংশয়ে ভুগি।

    #আমার_ভাবনাঃ
    বইটা অামাদের প্রত্যেক তরুনদের পড়া উচিত সংশয় কাটানোর জন্য। যাদের সংশয় নেই তাদেরও পড়া উচিত সঠিক ইসলামকে অারো ভালোভাবে জানার জন্য এবং কুসংস্কার ও ইসলামের পার্থক্য জানার জন্য

    4 out of 4 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No