মেন্যু
apitaf

এপিটাফ

ধরণ: লেকচার সংকলণ পৃষ্ঠা: ১৪৪ কভার: পেপার ব্যাক উস্তাদ মুহাম্মাদ হুবলস। অস্ট্রলিয়ান দাঈ। প্রচন্ডভাবে মানুষকে অনুপ্রাণিত করতে পারেন। মানুষের অন্তরাত্মা কাঁপিয়ে দিতে পারেন। জাহিলিয়াত থেকে মানুষকে দ্বীনের পথে নিয়ে আসা, বস্তুবাদি যান্ত্রিক আটপৌরে... আরো পড়ুন
পরিমাণ

150  200 (25% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

23 রিভিউ এবং রেটিং - এপিটাফ

5.0
Based on 23 reviews
5 star
95%
4 star
4%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published.

  1. 5 out of 5

    MD.Moinuddin Chowdhury Sakib:

    “এপিটাফ”—শব্দটার সাথে আমরা অনেকেই অপরিচিত । যার অর্থ সমাধিলিপি । কবরের উপর নির্মিত স্মৃতিফলক । “কবর” নামক সেই ভবিষ্যৎ বাসগৃহের কথা বারবার স্মরণ করিয়ে দেয়া হয়েছে এই বইয়ে । বইটির কন্টেন্ট নেয়া হয়েছে অস্ট্রেলিয়ান দাঈ উস্তাদ Mohammad Hoblos এর লেকচার থেকে । লেকচারের শর্ট রিমাইন্ডারগুলোর অনুবাদ নিয়ে বইটি লিখেছেন- সাজিদ ইসলাম ।

    একদিন মৃত্যু এসে মনে করিয়ে দিবে এই পৃথিবী আসলে আমাদের নয়। আমাদের গন্তব্যস্থল আর চূড়ান্ত আবাস অন্য কোথাও। দিনশেষে শুধু পৃথিবীতে থেকে যাবে আমাদের ফেলে যাওয়া কিছু কর্ম, হঠাৎ হঠাৎ প্রিয়জনদের মজলিসে দু’লাইন আবেগঘন স্মৃতিচারণ, কিংবা কবরের পাশে একটি ধুলোমাখা ‘এপিটাফ’ ।

    এক ইমামের কাহিনী। তাকে এক মসজিদে ইমাম হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। তার বাসা থেকে মসজিদের দূরত্ব ছিল অনেক। তাই তিনি জুব্বা-পাগড়িসহ ইমামের পোশাক পরে প্রতিদিন বাসে আসা-যাওয়া করতেন। তো যথারীতি একদিন তিনি মসজিদে যাচ্ছিলেন। তিনি বাসের ভাড়া দিলেন। তাকে ভাঙতি ফেরত দেওয়া হলো। প্রথমে তিনি খেয়াল করেননি, পরে দেখলেন তাকে ২০ সেন্টস বেশি দেওয়া হয়েছে। ২০ সেন্টস এমন কিছুই না। আমাদের ২০ পয়সার মতো। কিন্তু ইমামের মাথায় তখন কথোপকথন শুরু হয়ে গেল। এই ২০ সেন্টস কি তিনি ফেরত দেবেন নাকি দেবেন না, দেবেন নাকি দেবেন না! একবার মনে হচ্ছে ফেরত দেওয়া উচিৎ। আরেকবার মনে হচ্ছে, আরে কী দরকার! ২০ সেন্টস এর জন্য কী আর এমন হবে। আর এরা এমনিতেই কুফফার। মরুক! কী আসে যায়?

    এমনভাবে চলতে চলতে গন্তব্য চলে এলো। তিনি নেমে যাচ্ছেন, নামতে নামতে মাথার মধ্যে ওই কথোপকথন চলছে। হঠাৎ তার কী হলো, তিনি ফিরে বাস ড্রাইভারকে বললেন, তুমি আমাকে ভুলে ২০ সেন্টস বেশি দিয়েছ। সে বলল, না। আমি ইচ্ছা করেই দিয়েছি। আপনাকে অনেক দিন ধরে দেখছি। আপনাকে দেখে বুঝতে পারছি আপনি কোনো মুসলিম ইমাম। আমি ঠিক করেছিলাম আপনি যদি এই ২০ সেন্টস ফিরিয়ে দেন, তাহলে আমি ইসলাম গ্রহণ করব। আর যদি ফিরিয়ে না দিতেন তাহলে বুঝতাম আপনারাও অন্য সবার মতোই মিথ্যুক। এ ঘটনা বলে সেই ইমাম কাঁদতে শুরু করলেন। তাকে জিজ্ঞেস করা হলো, কাঁদছেন কেন? সে ইসলাম গ্রহণ করেছে, এজন্য? তিনি বললেন, না। আমি কাঁদছি এ জন্য যে, আমি ২০ সেন্টসের বিনিময়ে আল্লাহর দ্বীনকে প্রায় বিক্রি করে ফেলেছিলাম।

    ব্যক্তিগত মতামত : আমি ‘এপিটাফ’ বইটি পড়ার আগ পর্যন্ত Mohammad Hoblos সম্পর্কে তেমন কিছুই জানতাম না তবে এই বইটি পড়ার পর থেকে উনার লেকচারের প্রতি এতটাই প্রভাবিত হয়েছি যে ইন্টারনেট থেকে উনার লেকচার দেখছি। উনার সবগুলো কথাই মনকে আকৃষ্ট করে ও চিন্তার দেয়ালে ধাক্কা দেয়।
    এপিটাফ বইটি প্রচন্ডভাবে আপনাকে ধাক্কা দিবে আমি বইটির প্রতিটি পৃষ্ঠায় একটি করে ধাক্কা খেয়েছি এবং নিজের অবস্থান সম্পকেৃ নতুন করে চিন্তা করেছি।
    বিশেষ করে ‘এপিটাফ’ বইটির:
    এপিটাফ
    বাটার ফ্লাই বয়
    MAN VS MALE
    বিলি-দ্যা ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ন
    এমন জান্নাত- যার তলদেশ দিয়ে নহরসমূহ প্রবাহিত
    পুরষেরা যেদিন ‘পৌরুষ’ হারিয়েছে নারীরা সেদিন ‘হায়া’ হারিয়ে
    কেন দুআ ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসে
    যে মৃত্যু মদিনাতেই লেখা ছিল
    কবরের তিন শত্রু, তিন বন্ধু
    লেখাগুলো আমার চিন্তা-ভাবনায় এক চরম ধাক্কা দিয়েছে। আপনারা বিশ্বাস করবেন না ‘এপিটাফ’ বইটি পড়ে আমার মনে হয়েছে কুরআন মাজিদের এই আয়াত গুলো আমি আগে শুনি নাই আর রাসূল (সা:) এর এই হাদিস সম্পর্কে আমি জানতামই না। এই আয়াতগুলো নিয়ে আমি কখনো চিন্তাই করিনি। ধন্যবাদ সাজিদ ভাই আমার এই চিন্তার দেয়ালে একটি ধাক্কা দেয়ার জন্য আল্লাহ আপনাকে উত্তম প্রতিদান দান করুক। বিশেষ করে আলি বানাতের লেখাটি পড়ে আমি কিছু সময়ের জন্য সম্বিৎ হারিয়ে ফেলেছিলাম। আর বাসিত এর EB (Epidermolysis Bullosa) রোগটির পূর্ণাঙ্গ, বর্ণনা ও পরিনতি শুনে মনের ভেতর এটাই মনে হলো যে, আমি কি ঠিকমতো আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করছি যে আল্লাহ আমাকে এত নিয়ামত দ্বারা পরিপূর্ণ করে রেখেছে।
    তবে MAN VS MALE শিরোনামের লেখাটি আমাকে সবচেয়ে বেশী নাড়া দিয়েছে আসলে আমি কি রিজাল নাকি যাকার?

    আমার সকল দ্বীনি ভাই ও বোনের কাছে অনুরোধ থাকবে যে আপনারা অবশ্যই ‘এপিটাফ’ বইটি কিনবেন ও পড়বেন ইন শা আল্লাহ সবাই একটি ধাক্কা খাবেন, নিজের অস্থান সম্পর্কে ও কী করণীয় তা বুঝতে পারবেন।


    ❖ বইয়ের বিষয়বস্তু—
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    বইটি আত্ন-উপলব্ধিমূলক বই । বইয়ে উঠে এসেছে দ্বীনভোলা কিছু ভাই-বোনের প্রত্যাবর্তনের ঘটনা । আছে কিভাবে দুনিয়াকে আস্তাকুঁড়ে ছুঁড়ে ফেলে দিতে হয়, কিভাবে সাহাবীদের মতো করে জীবন সাজাতে হয়- সেসব কথা । বইটিতে মানুষকে জাহিলিয়াত থেকে দ্বীনের পথে আহবান করা হয়েছে । জান্নাতের পথে চলার সীমাহীন শক্তি যোগানোর উপায়গুলো দেখিয়ে দেয়া হয়েছে । সর্বোপরি মৃত্যু, দুনিয়া, আখিরাত এবং জীবনের লক্ষ্য-উদ্দেশ্যের আলোচনাই বইয়ের মূল বিষয়বস্তু । যেন অন্তরাত্মা কাঁপিয়ে তোলার মতো কথামালায় উজ্জ্বল পদরেখা অঙ্কিত হয়েছে ।

    ❖ বইটি কেন পড়বেন ?

    অন্তরকে বিগলিত করতে, মনকে আখিরাতমুখী করতে, ঈমানে দৃঢ়তা বজায় রাখতে, আমলে স্পৃহা বাড়াতে এবং হৃদয়গ্রাহীসব আলোচনার মাঝে ডুব দিতে বইটি পড়তে হবে ।

    নয়টা থেকে পাঁচটা একটা যান্ত্রিক জীবনের চাকায় যারা ঘুরপাক খাচ্ছে বইটা তাদের জন্য । দ্বীনকে ভুলে,আখিরাতকে ভুলে যারা দুনিয়াকে প্রাধান্য দিচ্ছে, জীবনের আসল উদ্দেশ্য ছেড়ে মরীচিকার পেছনে ছুটছে এই বইটা তাদের জন্য ।

    পৃষ্ঠাসজ্জা,পৃষ্ঠামান সবকিছুই প্রশংসনীয়।


    ❖ শেষ কথা—

    চোখ ধাঁধানো এই আলোর শহরে উদ্দেশ্যহীন আমাদের এই আটপৌরে জীবনগুলোতে সম্বিৎ ফিরে পেতে মাঝে মধ্যে কিছু ঝাঁকুনির দরকার । আশা করি এই বইটি সেই ঝাঁকুনি হিসেবে কাজ করবে । প্রচন্ডভাবে দ্বীনভোলা মানুষকে ফিরে আসতে অনুপ্রাণিত করবে ।
    রেটিং-৯.৫/১০

    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    Mohamed musab:

    ইকরা। পড়ার পরেও অনুভূতি অসম্ভব ভালো, যা কিনা বলার ভাষা আমার নেই। ইসলামিক চেতনায় শিক্ষামূলক তো বটেই, এই চেতনাকে নিয়েই যেন আমরা অনুভূত, হতে পারি আমাদের বাকি জীবনের আমল এবং সং কর্মগুলো। পাশাপাশি সবাইকে উদ্বুদ্ধ করা উচিত কুরআনের আলোকে মানুষের জীবনের আলোকে নবী করীম সুন্নাতের আলোকে, সবাই আলোকিত হোক। আমার ইচ্ছা করছে আপনাদের একজন হয়ে যাওয়ার,। আপনারা যে প্রচার পাবলিশার্স ইরশাদ করছেন আল্লাহ যেন আপনাদেরকে সফল এবং মঙ্গল করুন এই কামনা করি অন্তস্থল থেকে, আল্লাহর কাছে দোয়া করি সবাই যেন ওয়াফি লাইফ এর, বই পড়ে জ্ঞান অর্জন করে এবং সেটা মানুষের মাঝে বিলি করে। সবশেষে এপিটাফ সাজিদ ইসলাম লেখার জন্য অনেক ধন্যবাদ। Wafi lifeমেম্বার হতে পেরে,আমি নিজেও গর্বিত। এপিটাফ অত্যন্ত একটা ভালো বই ও শিক্ষামূলক। সবশেষে গ্রন্থস্বত্ব সাজিদ ইসলাম কে অশেষ ধন্যবাদ। ওয়াফি লাইফ শুভ কামনা করি।
    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    তামান্না জাহান:

    প্রতিদিন কত মানুষ মারা যাচ্ছে। কত মানুষ তার আপনজনকে হারাচ্ছে। নশ্বর এই পৃথিবীতে আপনি আমি কেউই চিরকাল থাকব না। শেষ ঠিকানা কবরেই একদিন যেতে হবে। বস্তুবাদ যান্ত্রিক এই পৃথিবীতে আমরা শুধু নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার চিন্তায় মরিয়া হয়ে থাকি। অথচ শেষ গন্তব্যস্থলের খবর নেই। আজ সময় নেই, কাল করব…….কে জানে কাল আসার আগেই হয়তো মৃত্যু এসে আমাদের বিদায়ের ঘন্টা বাজিয়ে দিল। এই মৃত্যু, কবর, আখিরাত, দৈনন্দিন জীবনের ফিতনা, মৃত্যুশয্যায় ব্যক্তির ও তার আপনজনদের বিভিন্ন আবেগঘন অনুভূতি ফুটিয়ে তুলেছেন লেখক সাজিদ ইসলাম তার এপিটাফ বইটিতে।

    মুখবন্ধঃ
    বইয়ের নাম ‘এপিটাফ ‘ – সমাধিলিপি। কবরের উপরের স্মৃতিফলকের মতো কিছু। লেখক জীবনে প্রথমবার এপিটাফ দেখে তার অন্যরকম এক অনভূতি হয়েছিল। যেন কবরের মানুষটা তার এপিটাফ টাঙিয়ে বলতে চাচ্ছে, আমার সিরিয়াল চলে এসেছে, একদিন তোমাদেরও আসবে। লেখক এই বইটির কন্টেন্ট নিয়েছেন উস্তাদ Mohammad Hoblos এর লেকচার থেকে। তিনি একজন অস্ট্রেলিয়ান দাঈ।

    বই আলাপনঃ
    বইয়ের নাম এপিটাফ দিয়েই এর প্রথম অধ্যায় শুরু হয়েছে। আলী বানাত নামক একজন অস্ট্রেলিয়ান নাগরিকের বিলাসবহুল জীবনে কীভাবে ক্যান্সার ধরা পরার পর পরই তার আমূল পাল্টে যাওয়ার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে এখানে। আছে বাটারফ্লাই বয় নামক এক রোগাক্রান্ত যুবকের কষ্টের অনুভূতি। আসল পুরুষ বলতে কী বোঝেন- Man না Male? আমার কাজের জন্য আমি দায়ী- চাই এমন সরল স্বীকারোক্তি। রয়েছে বিভিন্ন ঘটনাচক্রে নবীজী (সাঃ), মূসা (আঃ), ঈসা (আঃ) ও সাহাবাদের গুরুত্বপূর্ণ জীবনঘনিষ্ঠ শিক্ষা। ছোট্ট এই বইটিতে রয়েছে এরকম ছোট ছোট ৩০ টির মতো অধ্যায় আর শেষে ২ টি কবিতা যা যে কোন পাঠকের মনে একটা ধাক্কা দিয়ে যাবে।

    বইটি কেন পড়বেনঃ
    প্রতিদিন একটু একটু করে পাপ করে যে পাপের পাহাড় গড়ছি যাতে নেই আমাদের এতটুকু অনুশোচনা। লেখক চেয়েছেন এই বইটা আমাদের লজ্জা পাইয়ে দিক। তিনি মনে করেন, চোখ ধাঁধানো এই আলোর শহরে উদ্দেশ্যেহীন আমাদের এই জীবনগুলোতে সম্বিৎ ফিরে পাওয়ার জন্য মাঝে মাঝে কিছু ঝাঁকুনি, কিছু ধাক্কার দরকার পরে। এই বইটি সেই ধাক্কা হিসেবে কাজ করবে। নিজেকে ফিতনার জাল থেকে মুক্ত করার পরিশোধক হিসেবে কাজ করবে।

    পাঠ্যানুভূতিঃ
    বইটির কাভারের গোলক ধাঁধাঁর মানুষটি যেভাবে ঘুরছে তা আমাদেরই বর্তমান চিত্র। এপিটাফ নামটি অন্যতম আকর্ষণ বইটি পড়ার প্রতি। বইটির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত এটাই উপলব্ধি করেছি লেখক আমার সাথে কথপোকথন করছে আর প্রতিবার একটা করে ঝাঁকুনি দিয়ে যাচ্ছে, আমার রুহকে কাঁপিয়ে দিয়ে যাচ্ছে যা এই মূহুর্তে আমার খুব প্রয়োজন ছিল।

    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    খলিলুর রহমান:

    আলহামদুলিল্লাহ, এপিটাফ বইটি পড়ে খুব ভাল লেগেছে, বিষয় গুলোর মাঝে জীবন সম্পর্কে নতুন ভাবে চিন্তা করার মতো উপাদান রয়েছে।
    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 5 out of 5

    Nusrat Lubna:

    ” দিনগুলো বড্ড বদলে গেছে আসমানের রঙের মতো মোবাইলের ইনকামিং কলগুলোও ৷
    খেয়াল করে দেখলাম পেশাগত কারণ , নয়তো নিজের প্রয়োজন এছাড়া কেউ খবর রাখে না ৷ কিন্তুু তারপরও ছুটে চলেছি এর পিছনেই যা আমাদের সুন্দর হৃদয়গুলো বিবর্ণ করে ছেড়েছে ••••••••••••

    ____________________________________

    [বিষয়বস্তু ও রিভিউঃ ]
    আমরা চাই ভালোমতো পড়াশোনা করব, ভালো চাকরি করব, আমার স্বামী/বউ তারা হবে আর্দশ মুসলিম, সেই সাথে আমিও হঠাৎই হয়ে যাবো আর্দশ মুসলিম ৷ ঠিক সাজানো রূপকথার গল্পের মতো হবে আমার এমনটাই জাহির করার চেষ্টা করে থাকি আমরা ৷ কিন্তু আপনাকে আমাকে নিয়ে আল্লাহর পরিকল্পনা তো ভিন্ন ৷ আর সেই ভিন্ন পরিকল্পনার মুখোমুখি যখন আমরা হই তখনই আমরা বলে উঠি হায় ! আল্লাহ কেন আমার সাথেই এমনটা হয় বারবার ! আমরা মূহুর্তেই অধৈর্য হয়ে পড়ি ভুলে যাই আল্লাহর দেয়া সকল নিয়ামত ৷ কিন্তু কারো কারো ক্ষেত্রে সেই ভিন্ন পরিকল্পনা ,বালা-মুসিবত, রোগ,জান-মালের ক্ষয় হয়ে দাড়াঁয় নিয়ামত হিসেবে ৷ যার উত্তম উদাহরণ আলি বানাত, ওয়াল্ড চ্যাম্পিয়ন বিলি,জাইরা ওয়াসিম যাদের জীবনযাত্রা আমাদের স্বপ্নের মতো, বহু আকাঙ্ক্ষিত ৷ যার পিছনে ছুটে চলছি আমরা, আর গায়ে লাগিয়েছি মুমিন নামক তকমা ৷ যদি কেউ আমাদেরকে জিঞ্জেস করে আমরা কাকে বেশি ভালোবাসি আল্লাহকে নাকি দুনিয়াকে ? আমরা বলবো আল্লাহকে কিন্তু আদতে কি তা শুধু বলার জন্যই বলা নাকি করার জন্য বলা ? প্রশ্নটা কিন্তু রয়েই গেলো ৷ আমরা যদি আল্লাহকে এতোটাই ভালোবাসি তাহলে কেনো আমরা স্রষ্টাকে ভুলে স্রষ্টার সৃষ্টির পিছনে দৌড়াতে শুরু করেছি ? আমরা ভাবি আমাদের উম্মাহর নারীরা বিপথে যাচ্ছে, পর্দা ছেড়ে দিচ্ছে ,নারীরা তাদের ‘হায়া’ হারাচ্ছে ! আর উম্মাহর পরুষেরা হারিয়েছে তাদের ‘পৌরুষ ‘ ৷ এর জন্য দায়ী ঠিক কে পুরুষেরা নাকি নারীরা ? এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের উপায় কি? জানতে হলে বইটি আপনাকে পড়তে হবে ৷

    আমাদের চোখ থাকা সত্ত্বেও আমরা চলি অন্ধের মতো আর চলতে চলতে নিমজ্জিত হই অন্ধকারের অতল গহ্বরে, তখন আমাদের সম্বিৎ ফিরে ৷ আর তখন আমরা অামাদের উম্মাহর অবস্থা নিয়ে প্রায়ই উদ্বেগ প্রকাশ করি হায় কি হবে আমাদের উম্মাহর ! বাস্তবিক অর্থে এরপর আমরা আর মুখোমুখি হই না বা হওয়ার সাহস পাই না ৷ সেই সাহস হিসেবে কাজ করবে উস্তাদ ‘MOHAMMAD HOBOLS’ এর আলোচনা ৷ যা আপনাকে প্রচন্ডভাবে অনুপ্রাণিত করবে ৷ বইটির কন্টেন্ট উনার আলোচনা থেকে নেয়া হলেও, উপস্থাপনা সাজিদ ইসলামের (লেখক) ৷ এই বইটি আমাদের অন্ধকারের অতল গহ্বর থেকে ফিরে পরিবর্তের ধাক্কা হিসেবে কাজ করবে ৷
    __________________

    [ বইটি কাদের জন্য ]
    ১৷ এক ধরনের মানুষ আছে যারা মনের ভিতর প্রচন্ড অহংকার নিয়ে জমিনে দাপিয়ে বেড়ায় ৷ বইটি তারা অবশ্যই পড়বেন ৷

    ২ ৷ সদ্য দ্বীনে ফেরা তরুণ-তরুণীদের জন্য ,যাদের বিশ্বাস ‘ আমি খুব বড় কিছু একটা ‘ ৷ যার দরুণ তারা তুচ্ছঞ্জান করে অন্যদের ৷

    ৩ ৷একদল লোক আছে যারা “আদা পছন্দ করে না কিন্তু আদার রস ঠিকই পছন্দ করে ” অর্থাৎ আল্লাহর দেয়া নিয়ামত গুলো পেলে খুশি কিন্তু বালা-মসিবতের সময়ই অধৈর্য হয়ে পড়েন ৷

    ____________________________________

    [ ভালোলাগা—মন্দলাগা]
    বইটির প্রচ্ছদ এমনভাবে সাজানো হয়েছে যা দেখলেই পাঠক মনে কৌতুহল সৃষ্টি করে ৷ হাতে ছিলো পনের-ষোলটা বই ঠিক কোনটা পড়বো মনোস্থির করতে পারছিলাম না প্রচ্ছদ দেখে কৌতুহল বসত এই বইটিই পড়েছিলাম ৷ বইটির নামকরণের ক্ষেত্রে বলতে গেলে অদ্ভূত একটি নাম ৷

    বইয়ে কিছু হাদিসের রেফারেন্স দেয়া থাকলেও, বেশ কিছু হাদিসের রেফারেন্স দেয়া নেই ৷ যদিও তা মুখ্য বিষয় নয় ৷
    কারণ বইটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পাঠকের কৌতূহল ধরে রাখতে সক্ষম ৷
    __________________

    বইঃ এপিটাফ
    লেখক : সাজিদ ইসলাম
    প্রকাশনী : Bookmark Publication
    জনরা: ইবাদত, আত্মশুদ্ধি ও অনুপ্রেরণা
    মুদ্রিত মূল্য: ২০০
    পৃষ্ঠা: ১৪৪

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No