মেন্যু
apitaf

এপিটাফ

প্রকাশনী : Bookmark Publication
ধরণ: লেকচার সংকলণ পৃষ্ঠা: ১৪৪ কভার: পেপার ব্যাক উস্তাদ মুহাম্মাদ হুবলস। অস্ট্রলিয়ান দাঈ। প্রচন্ডভাবে মানুষকে অনুপ্রাণিত করতে পারেন। মানুষের অন্তরাত্মা কাঁপিয়ে দিতে পারেন। জাহিলিয়াত থেকে মানুষকে দ্বীনের পথে নিয়ে আসা, বস্তুবাদি যান্ত্রিক আটপৌরে... আরো পড়ুন
পরিমাণ

150  200 (25% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
- ১,৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

প্রসাধনী প্রসাধনী

21 রিভিউ এবং রেটিং - এপিটাফ

5.0
Based on 21 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    দুনিয়ার লোভ লালসায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে আছি আমরা। দুনিয়া প্রীতি যেন আমাদের ছাড়ছেই না। দিনের পর দিন নিমজ্জিত হয়ে পড়ছি অমানিশার ঘোর অন্ধকারে। ভুলে গেছি আমাদের জীবনের লক্ষ্য উদ্দেশ্য আল্লাহ্ কিন্তু আলাদা কোনো কারণ কিংবা লক্ষ্য-উদ্দেশ্য ছাড়া আমাদেরকে দুনিয়াতে পাঠাননি। কোন কারণ ছাড়া আমাদের জীবন দেননি। আল্লাহ কোরআনে স্পষ্ট আয়াতে বলেছেন, “আমি জিন ও মানব জাতিকে আমার একমাত্র ইবাদত ছাড়া অন্য কোনো উদ্দেশ্যেই সৃষ্টি করেনি।” আল্লাহকে জানা,তাকে মানা, তার মহত্ব বড়ত্ব ঘোষণা করা, এবং অন্যকে আল্লাহর পথে ডেকে আনা আমাদের চাকরি। আমাদের চাকরি রসুলের সুন্নাহর অনুসরণ করা এবং অন্যদের তা অনুসরণ করতে অনুপ্রাণিত করা। কিন্তু আমরা আদৌ কি তা করতেছি? আমরা নিজেদের এটা বোঝাই যে এতসব ঝামেলার কি দরকার! কোনোমতে জান্নাতে যেতে পারলে হলো। অথচ জান্নাতে অনেক স্তর আছে। রাসুল(সঃ) থাকবেন জান্নাতের উচ্চস্তরে নবিদের সাথে। আর আপনি আমি যদি কোনোমতে জান্নাতে যেতে পারিও, আমরা থাকবে নিচু স্তরে। সে জান্নাত কি করে জান্নাত হবে, যদি সেখানে রাসুল(সঃ) কে না পাই। যেখানে আরো থাকবেন আবু বকর সিদ্দিক(রঃ), উমর ইবনে খাত্তাব(রঃ) এর মতো মহামানবেরা। আমরা আবার এমন ভাব নিয়েও চলি মুসলিম মানে তো জান্নাত একদম নিশ্চিত একসময় জান্নাতে তো যাবই; জাহান্নামের শাস্তি কোনোমতে সহ্য করে নিব। কিন্তু সবকিছু কি এত সোজা? দুনিয়াতে আগুনে পুড়ে গেলে হাসপাতাল আছে, চিকিৎসা আছে। আর জাহান্নামে? পাবেন কোনো চিকিৎসা? আর আপনি কি মনে করেন দুনিয়ার আগুন আর জাহান্নামের আগুনের উত্তাপ একি? আপনি মনে করেন দুনিয়ার এক দিবস আর জাহান্নমের এক দিবস সমান। যদি এরকম মনে করেন তাহলে আপনি চরম বিপর্যয়ে আছেন। আমাদের যখন কেউ নামাজের কথা বলে আমরা বিভিন্ন অজুহাতে নামাজ পড়ি না। কোনোমতে জুমার নামাজটা পড়তে পারলে হলো। ভাবি, আরো অনেক সময় পড়ে আছে সামনে। এখন ক্যারিয়ার নিয়ে চিন্তা করার সময়। একটু বয়স হলে দাড়ি রেখে দিব তারপর নিয়মিত সালাত আদায় করব। ওয়াল্লাহি আমরা নিজেরাই নিজেকে প্রতিনিয়ত এভাবে ধোঁকা দিচ্ছি। এরকম করতে করতে একসময় আমরা মৃত্যুর মুখোমুখি হই টের ই পাই না। আর তখন মৃত্যুর মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আমরা আল্লার কাছ থেকে আরো সময় চাই। অথচ এইতো কিছুদিন আগে আমরা দুনিয়া নিয়ে চরমভাবে মেতে ছিলাম। ভুলে গিয়েছিলাম মৃত্যুর মতো মহাসত্যকে। যখন মৃত্যু এসে আমাদের ধরা দেয় আমরা বুঝতে পারি দুনিয়ার জগতের তুচ্ছতা। বুঝতে পারি আমরা আমাদের রবকে বড় বেশি অবহেলা করে ফেলেছি। অথচ জীবনে আল্লাহ কত সুযোগ দিয়েছে প্রত্যাবর্তনের। তারপরও আমাদের আল্লাহর জন্য সময় হয় নি। এজন্য আল্লাহ্ কোরআনে বলছেন, “হে মানুষ কিসে তোমাকে তোমার রব সম্পর্কে ধোঁকা দিয়েছে?”
    আর কতদিন এভাবে চলবে? আজই হোক এখনি হোক নিজেকে পরিবর্তনের, ঘুরে দাঁড়ানোর যাত্রা।

    মোহাম্মদ হোবলোসের ‘এপিটাফ’ আপনাকে লজ্জা পাইয়ে দিবে। চিনতে না পারার লজ্জা অনুভব করাবে আপনাকে ক্ষণিকের জন্য হলেও আপনাকে অনুশোচনায় ডোবাবে আপনার জীবনের কৃতকর্মের জন্য। কখন যে আপনার দুচোখ অশ্রুসিক্ত হয়ে যাবে আপনি নিজেও খেয়াল করবেন না। বইটির প্রতিটা কন্টেন্ট অনুপ্রেরণা যোগাবে অন্ধকারের অতল গহ্বর থেকে উঠে দাড়াবার। সবশেষে বলতে চাই, বিশেষ করে তরুনদের জন্য একটি মাস্টারপিস হবে বইটি।

    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    ঈমানে জোশ পাচ্ছেন না? মুসলিম হিসেবে পথ হারিয়ে ফেলেছেন? মুসলিম হিসেবে আপনার দায়িত্ব টের পাচ্ছেন না? ইসলামের দিকে আবার ফেরত আসার জন্য বইটি পড়ে ফেলুন। তবে ধীরে ধীরে পড়বেন। বইটি ছোট হলেও এর উপাদান খুব ভারী। ছোট ছোট কিছু বাস্তবে ঘটে যাওয়া ঘটনা নিয়ে বইটি সাজানো হয়েছে। ঘটনাগুলি সাম্প্রতিক, তাই আপনি নিজেকে ঘটনাগুলোর সাথে খুব সহজেই মিলাতে পারবেন। এটাই এই বইয়ের সবচেয়ে শক্তিশালী দিক।
    4 out of 4 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    :

    “এপিটাফ”—শব্দটার সাথে আমরা অনেকেই অপরিচিত । যার অর্থ সমাধিলিপি । কবরের উপর নির্মিত স্মৃতিফলক । “কবর” নামক সেই ভবিষ্যৎ বাসগৃহের কথা বারবার স্মরণ করিয়ে দেয়া হয়েছে এই বইয়ে । বইটির কন্টেন্ট নেয়া হয়েছে অস্ট্রেলিয়ান দাঈ উস্তাদ Mohammad Hoblos এর লেকচার থেকে । লেকচারের শর্ট রিমাইন্ডারগুলোর অনুবাদ নিয়ে বইটি লিখেছেন- সাজিদ ইসলাম ।

    ❖ বইয়ের বিষয়বস্তু—
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    বইটি আত্ন-উপলব্ধিমূলক বই । বইয়ে উঠে এসেছে দ্বীনভোলা কিছু ভাই-বোনের প্রত্যাবর্তনের ঘটনা । আছে কিভাবে দুনিয়াকে আস্তাকুঁড়ে ছুঁড়ে ফেলে দিতে হয়, কিভাবে সাহাবীদের মতো করে জীবন সাজাতে হয়- সেসব কথা । বইটিতে মানুষকে জাহিলিয়াত থেকে দ্বীনের পথে আহবান করা হয়েছে । জান্নাতের পথে চলার সীমাহীন শক্তি যোগানোর উপায়গুলো দেখিয়ে দেয়া হয়েছে । সর্বোপরি মৃত্যু, দুনিয়া, আখিরাত এবং জীবনের লক্ষ্য-উদ্দেশ্যের আলোচনাই বইয়ের মূল বিষয়বস্তু । যেন অন্তরাত্মা কাঁপিয়ে তোলার মতো কথামালায় উজ্জ্বল পদরেখা অঙ্কিত হয়েছে ।

    ❖ বইটি কেন পড়বেন ?
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    অন্তরকে বিগলিত করতে, মনকে আখিরাতমুখী করতে, ঈমানে দৃঢ়তা বজায় রাখতে, আমলে স্পৃহা বাড়াতে এবং হৃদয়গ্রাহীসব আলোচনার মাঝে ডুব দিতে বইটি পড়তে হবে ।

    ❖ বইটি কাদের জন্য—
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    নয়টা থেকে পাঁচটা একটা যান্ত্রিক জীবনের চাকায় যারা ঘুরপাক খাচ্ছে বইটা তাদের জন্য । দ্বীনকে ভুলে,আখিরাতকে ভুলে যারা দুনিয়াকে প্রাধান্য দিচ্ছে, জীবনের আসল উদ্দেশ্য ছেড়ে মরীচিকার পেছনে ছুটছে এই বইটা তাদের জন্য ।

    ❖ খারাপ লাগা—
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    প্রচুর ভুল বানান । টাইপিং মিস্টেক । বলতে গেলে প্রতিটা পৃষ্ঠাতেই ভুল আছে । এই ব্যাপারটি অনেক জায়গায় আমার মনোযোগের ব্যাঘাত ঘটিয়েছে এবং বিরক্তির কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে । এতো ভাল একটা বই থেকে এমনটা আশা করিনি । সীরাত পাবলিকেশনের বইয়ে সাজিদ ভাইয়ের যত্নশীলতার ছাপ পেলেও এই বইটাতে তার ব্যতিক্রম দেখেছি । পরবর্তী সংস্করনে একজন দক্ষ প্রুফ রিডার দিয়ে যাচাই করা আবশ্যক । তাছাড়া বিষয়বস্তু অনুযায়ী সূচিটাও এলোমেলো লেগেছে ।

    ❖ শেষ কথা—
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    চোখ ধাঁধানো এই আলোর শহরে উদ্দেশ্যহীন আমাদের এই আটপৌরে জীবনগুলোতে সম্বিৎ ফিরে পেতে মাঝে মধ্যে কিছু ঝাঁকুনির দরকার । আশা করি এই বইটি সেই ঝাঁকুনি হিসেবে কাজ করবে । প্রচন্ডভাবে দ্বীনভোলা মানুষকে ফিরে আসতে অনুপ্রাণিত করবে ।

    বইটির পৃষ্ঠা সংখ্যা–১৪৪ ।
    প্রচ্ছদ মূল্য–২০০ টাকা ।
    প্রকাশক– বুকমার্ক পাবলিকেশন ।
    5 out of 5 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    :

    বইটি আমার চিন্তার ক্ষেত্রে এক নতুন দিক সৃষ্টি করেছে। ভাল মন্দের যে বিশ্লেষন আমরা জানি তার ভিতর সূখ্য ভাবে বিচার বিবেচনা নির্দেশনা আছে। প্রতিটা অনুচ্ছেদ এক একটা বিশ্লেষণ ধর্মি বিষয়। আমার কাছে ” তার একদিন একত্রিত হবে। খুব ভাল লেগেছে। প্রত্যেক আধুনিক সভ্য মুসলিম নর ও নারী বইটি পড়া উচিৎ ।
    আল্লাহ আমাদের সঠিক বুঝ দান করুন।
    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 5 out of 5

    :

    উস্তাদ Mohammad Hoblos একজন অস্ট্রেলিয়ান দায়ী। মানুষকে ইসলামের দিকে ডাকেন। মৃত্যু, দুনিয়া, আখিরাত, জীবনের লক্ষ্য- উদ্দেশ্য, এসব তার আলোচনার মূল বিষয়। ‘এপিটাফ’ বইয়ের কন্টেন্ট নেয়া হয়েছে তার দেয়া লেকচারগুলো থেকেই। লেকচারের কথাগুলো খুবই প্রাঞ্জল ভাষায় উপস্থাপন করেছেন সাজিদ ইসলাম। উস্তাদের লেকচারগুলো বাংলাভাষী মানুষের কাছে পৌছে দিয়েছেন তিনি।

    জীবনে সবচেয়ে নিশ্চিত বিষয় হল মৃত্যু। এই পৃথিবী ঘিরে আমাদের কত স্বপ্ন, কত না পাওয়ার গল্প, অথচ একদিন মৃত্যু এসে মনে করিয়ে দিবে এই পৃথিবী আসলে আমাদের নয়। আমাদের চূড়ান্ত আবাস অন্য কোথাও। অথচ, আমরা কি প্রস্তুত করেছি সেই জীবনের জন্য? এক্সপায়ারি ডেট লাগানো এক স্বপ্নের পেছনে ছুটে চলেছি আমরা। অথচ, আমাদের উচিত আখিরাতের জন্য প্রস্তুতি নেয়া।

    এই বইতে আলি বানাতের কথা আছে, আরও আছে বাসিত, বিলি, জাইরা ওয়াসিমের কথা। জাহিলিয়াতের জীবন থেকে দ্বীনের উপর ফিরে আসা এই মানুষগুলোর গল্প শুনলে চকচকে দুনিয়ার মোহ থেকে বেরিয়ে আসা কিছুটা হলেও সহজ হয়। Man Vs Male -এই লেখাটা প্রত্যেক পুরুষের একবার হলেও পড়া উচিত। ‘নবীজি যেখানে প্রতিবেশী’- এই লেখাটা আমাকে লজ্জা দিয়েছে। চরম লজ্জা। ‘এমন জান্নাত- যার তলদেশ দিয়ে নহরসমূহ প্রবাহিত’- এই লেখাটা আমার অন্তর সবচেয়ে বেশি ছুঁয়ে গেছে। জান্নাতে যাওয়ার জন্য আমার অন্তরকে ব্যাকুল করে তুলেছে। আমার ধারণা, এই লেখাটা পড়ার পর বেশিরভাগ মানুষই আর স্থির থাকতে পারবে না।

    বইটির প্রচ্ছদ অন্যরকম সুন্দর। প্রচ্ছদটাই এমন – যে দেখলে বইটা বিষয়বস্তু কি সেটা নিয়ে মনের মধ্যে কৌতুহল জাগে। বইয়ের নামটাও একটু অদ্ভুত। বইয়ের বাইন্ডিং, পেজ মেকাপ উন্নতমানের।

    উস্তাদ Mohammad Hoblos এবং সাজিদ ইসলাম এবং এই বইয়ের সাথে জড়িত সবাইকে আল্লাহ উত্তম প্রতিদান দিন।

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top