মেন্যু


আলি ইবনে আবি তালিব রা. (১ম খণ্ড)

অনুবাদ: প্রথম খণ্ড: কাজী আবুল কালাম সিদ্দীক
পৃষ্ঠাসংখ্যা: ৬৩২

আলি ইবনে আবি তালিব রা.। চতুর্থ খলিফায়ে রাশিদ। দুই খণ্ডে সমাপ্ত এই সিরিজটিতে তাঁর জন্ম থেকে শাহাদাত পর্যন্ত বিস্তারিত ঘটনাবলি আলোচনা করা হয়েছে। তাঁর পরিচয়, ইসলামগ্রহণ, রাসুলের সঙ্গে কাটানো শৈশবকাল তাঁর সঙ্গে রাসুল সা. কীভাবে আচরণ করতেন—সেগুলোও আলোচনায় এসেছে। বদর, উহুদ, খন্দক, বনু কুরাইজা, হুদায়বিয়া, খায়বার, মক্কা বিজয় এবং হুনাইনের যুদ্ধসহ বিভিন্ন যুদ্ধে তাঁর কৃতিত্ব ও ভূমিকা নিয়ে গবেষণালব্ধ আলোচনা করা হয়েছে।

আবু বকর, উমর ও উসমান রা.-এর খিলাফতকালে তাঁর ভূমিকার পাশাপাশি শুরার ব্যাপারে ভণ্ড রাফিজিদের মিথ্যাচারেরও খণ্ডন করা হয়েছে। তাঁর বায়আত, মর্যাদা, গুণাবলি ও প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনার মূলনীতিসমূহ আলোচনা করা হয়েছে। তাঁর জ্ঞান, আত্মত্যাগ, বিনয়, দানশীলতা, লজ্জাশীলতা, ইবাদত, ধৈর্য ও ইখলাস, আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা, আল্লাহর দরবারে দুআর বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। তাঁর সামাজিক জীবনের পাশাপাশি, শিষ্টের লালন ও দুষ্টের দমনে তাঁর গৃহীত পদক্ষেপ নিয়ে বিস্তারিত আলোকপাত করা হয়েছে। জঙ্গে জামাল তথা উষ্ট্রীর যুদ্ধ এবং সিফফিনের যুদ্ধের ওপর বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। গ্রন্থের শেষ দিকে রাফিজি ও খারিজিসহ বিভিন্ন ভ্রান্ত মতবাদ বিষয়ে তাত্ত্বিক বিশ্লেষণ পেশ করা হয়েছে।

এ ছাড়া তাঁর যুগে ধর্মে বাড়াবাড়ি, দীন সম্পর্কে উদাসীনতা, মুসলিম শাসকদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা, কবিরা গুনাহে লিপ্ত মুসলমানকে কাফির বলা, মুসলমানদের হত্যা ও তাঁদের সম্পদ হালাল ঘোষণা করা, নির্বিচারে গালিগালাজ করা, কতেক সাহাবিকে গালমন্দ ও নিন্দা করা এবং উসমান ও আলি রা.-কে কাফির সাব্যস্ত করা—ইত্যাদি বিষয়েও আলোচনা করা হয়েছে।

২য় খণ্ড পেতে ক্লিক করুন: আলি ইবনে আবি তালিব রা. (শেষ খণ্ড)

পরিমাণ

504  720 (30% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
প্রসাধনী
- ১৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

2 রিভিউ এবং রেটিং - আলি ইবনে আবি তালিব রা. (১ম খণ্ড)

4.0
Based on 2 reviews
5 star
50%
4 star
0%
3 star
50%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 3 out of 5

    :

    এই প্রকাশনী থেকে কিনবেন না, এনারা ‘শিয়া আকীদা’ এর ওপর বিস্তারিত আলোচনার অংশটুকু বাদ দিয়েছে। মাকতাবাতুল ফুরকান থেকে প্রকাশিত ৩ নং খন্ডে এটা নিয়ে ৩৫০ পৃষ্ঠা আলোচনা রয়েছে, ঐটিয় কিনুন।
    0 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    #কালান্তর_ওয়াফিলাইফ_রিভিউ_প্রতিযোগিতা
    ভূমিকা :
    আলি ইবনু আবি তালিব (রাঃ)। তাঁর নাম শুনতেই আমাদের সামনে ভেসে উঠে এক বীর যোদ্ধা,জ্ঞানের এক মহাসমুদ্র একই সাথে একজন বিচক্ষন শাসক।এই মহান সাহাবিকে নিয়েই আরব বিশ্বের প্রখ্যাত ঐতিহাসিক ড.আলি মুহাম্মাদ সাল্লাবি রচনা করেছেন তার বিখ্যাত এই কিতাব ।
    বইটির বিশেষত্ত্ব :
    আলি(রা) এর জীবনী নিয়ে গ্রন্থের অভাব নেই কিন্তু ড. সাল্লাবির বইটি অন্যসকল বই থেকে এই বইটি অনন্য বেশ কিছু কারণে।সর্বপ্রধান কারণ হলো শায়খ আলি(রা) এর জীবনের ঘটনাসমূহ হতে এই উম্মাহর জন্য অত্যন্ত মূল্যবান শিক্ষা বের করেছেন। একই সাথে ইসলাম এর বিভিন্ন সময়ে আলি(রা) যে খেদমত আঞ্জাম দিয়েছেন তা চমৎকারভাবে আলোচনা করা হয়েছে।এই গ্রন্থে শুধু আলি(রা) এর ধারাবাহিক আলোচনা করেই লেখক ক্ষান্ত হননি বরং তাঁর জীবনের মূল্যবান অনেক ঘটনার শিক্ষা বইয়ে সংযোজন করেছেন ।
    বইটিতে আলোচ্য বিষয়সমূহ :
    ১। আলি(রা) এর জন্ম তারপর রাসুল (ﷺ) এর কাছে প্রতিপালন,বেড়ে উঠা এবং ইসলাম গ্রহণের ঘটনা বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করেছেন।
    ২। হিজরত এর সময় রাসুল (ﷺ) কর্তৃক প্রদত্ত দায়িত্ব পালন অতঃপর নিজের হিজরত এর কাহিনী বর্ণিত হয়েছে।
    ৩। মাদানি জীবনে আলি(রা) এর গুরুত্বপূর্ণ নানা কর্মকাণ্ড এবং বদর,উহুদ সহ বিভিন্ন জিহাদে তাঁর অবদান বিশেষত খায়বার যুদ্ধে তাঁর অপরিসীম বীরত্বের কথা আলোচনার পর শাইখ অনেক গুলো তাৎপর্যপূর্ণ শিক্ষা আলোচনা করছেন।
    ৪।রাসুল (ﷺ) এর প্রতি তাঁর অপরিসীম ভালোবাসা ও রাসুল (ﷺ) কে দেয়া নানা পরামর্শ সুন্দরভাবে আলোচিত হয়েছে।
    ৫।রাসুল (ﷺ) এর অতি আদরের কন্যা ফাতিমা (রা) এর সাথে তাঁর শুভ বিবাহের পুরো ঘটনা ও তাঁদের বৈবাহিক জীবন অত্যন্ত চমৎকারভাবে ফুটিয়ে তুলা হয়েছে।
    ৬। তাঁর পুত্র ও রাসুল (ﷺ) এর কলিজার টুকরা নাতি হাসান (রা) ও হুসাইন (রা) এর জন্ম ও তাঁদের বেড়ে উঠার কাহিনী বর্ণিত হয়েছে।
    ৭।রাসুল(ﷺ) এর ওফাত এর সময় তাঁর অবস্থা ও আবু বকর (রা),উমর(রা),উসমান(রা) এর খেলাফতকালে আলি (রা) এর অবদান ও তাঁর দেয়া নানা মূল্যবান পরামর্শের কথা আলোচিত হয়েছে।
    ৮।উসমান (রা) এর শাহাদাত ও ফিতনা চলাকালীন সময়ে আলি (রা) এর কর্মকাণ্ড বিশদভাবে আলোচনা করা হয়েছে।
    ৯। এরপর সকলের সম্মতিতে আলি (রা)এর খলিফা নির্বাচিত হওয়া এবং আলি (রা) এর বায়আত এর আলোচনায় লেখক খেলাফতের দায়িত্বের জন্য আলি (রা) যে সবচেয়ে যোগ্য ছিলেন তা ব্যাখ্যার পর বায়আত এর সময় আলি (রা) কর্তৃক প্রদত্ত শর্তাবলি তুলে ধরেন।
    ১০। একজন শাসক হিসেবে জনগনের প্রতি আলি(রা) যেসকল দায়িত্ব পালন করেছেন তা শায়খের আলোচনায় ফুটিয়ে তোলা হয়েছে যা থেকে সকল মুসলিমের শাসকের জন্য মূল্যবান শিক্ষা রয়েছে।
    ১১। একজন আদর্শ খলিফা হিসেবে আলি (রা) এর নানা গুণাবলি যেমন : ইলম,পরহেজগারিতা,বিনয়, নম্রতা,দানশীলতা,বদান্যতা, লজ্জাশীলতা,ধৈর্য বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করেছেন।
    ১২। একজন সমাজ সংস্কারক হিসেবে আলি (রা) এর নানা সংস্কারমূলক কর্মকান্ডের বিশদ আলোচনা করা হয়েছে।
    ১৩। আলি (রা) এর শাসনামলের অর্থ ও বিচারব্যবস্থার চিত্র শাইখ সুন্দরভাবে তুলে ধরেছেন।
    ১৪। লেখক আলি (রা) এর আমলের নানা রাজ্য যেমন মক্কা,মদিনা,ইয়েমেন,সিরিয়া,মিসর,বসরা,কুফা ইত্যাদির তৎকালীন অবস্থা চমৎকারভাবে তুলে ধরেছেন।
    ১৫। আলি (রা) এর গভর্নর নিয়োগের পদ্ধতি,তাদের উপর নজরদারি,নির্দেশনা ও গভর্নরদের পরিচিতি তুলে ধরেছেন।
    ১৬।আলি (রা) এর আমলে সৃষ্ট নানা ফিতনা ও সেগুলোর কারণ লেখক গবেষণার মাধ্যমে উৎঘাতন করেছেন।
    ১৭। শাইখ জঙ্গে জামাল বা উটের যুদ্ধের কারন,সাহাবিদের মতবিরোধ,যুদ্ধের অবস্থা,তালহা ও জুবায়ের (রা) এর শাহাদাতের ঘটনা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন।
    ১৮। এরপর সৃষ্ট সিফফিন যুদ্ধের প্রেক্ষাপট,কারণ,মুআবিয়া (রা) কর্তৃক যুদ্ধ সূচনা,আলি (রা) এর রওয়ানা, সাহাবিদের অবস্থান ব্যাখ্যার পর যুদ্ধের বিশদ বর্ণনা দিয়েছেন। শেষে নান অতিরঞ্জিত ও ভ্রান্তমত এবং নানা সাহাবিদের উপর সৃষ্ট অপবাদ যুক্তি দিয়ে খণ্ডন করেছেন একেসাথে এই ঐতিহাসিক যুদ্ধ থেকে উম্মাহর জন্য একতার বাস্তব শিক্ষা আলোচনা করেছেন যা এই মুহূর্তে আত্মকলহে লিপ্ত মুসলিম জাতির জানা সবচেয়ে বেশি দরকার।
    ১৯। শিয়া মতবাদ নামক ভ্রান্ত মতবাদ নিয়ে লেখক অনেক যুক্তি তুলে ধরেছেন এবং তাদের মতবাদের নানা আপত্তি ব্যাখ্যা করছেন।
    ২০।বইটিতে প্রাচ্যবিদদের দ্বারা ইসলামের ইতিহাস বিকৃতের প্রমাণ তুলে ধরার পর সেগুলো দক্ষতার সাথে খণ্ডন করা হয়েছে।
    ২১।খারেজিদের উৎপত্তি,পরিচয়,তাদের বিকৃত চিন্তা-দর্শন ও তাদের নিয়ে উলামায়ে কেরামের মত লেখক অত্যন্ত সুন্দরভাবে তুলে ধরেছেন।
    ২২।পরিশেষে আলি (রা) এর শাহাদাত ও দাফন নিয়ে আলোচনা করেছেন।
    বইটি যে কারনে পড়বেন :
    জীবনীগ্রন্থটি আলি (রা) এর জীবন নিয়ে পাঠকের তৃষ্ণা মেতাবে বলে আমি মনে করি। কারণ শাইখ যেভাবে সাজিয়ে-গুছিয়ে বিস্তারিতভাবে ঘটনাগুলো উপস্থাপন করেছেন তা খুবই কম বইয়ে পাওয়া যাবে।আল্লাহ লেখককে উত্তম প্রতিদান দান করুন।
    কালান্তর প্রকাশনীকে ধন্যবাদ বইটির এত সুন্দর প্রচ্ছদের জন্য।সত্যিই প্রচ্ছদটি আলি(রা) এর মতো বীর যোদ্ধা এর সাথে যথার্থ হয়েছে।আল্লাহ কালান্তর প্রকাশনীকে এত সুন্দর একটি বই উপহার দেওয়ার জন্য উত্তম প্রতিদান দান করুন এবং এ মেলার সাথে সংশ্লিষ্ট ওয়াফি লাইফকেও এগিয়ে যাওয়ার তৌফিক দান করুন।আমিন।
    বই পরিচিতি :
    নাম : আলি ইবনু আবি তালিব(রাঃ)।
    লেখক : ড.আলি মুহাম্মদ সাল্লাবি।
    পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১১৬৮
    দাম:৳ ৯৯০
    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top