মেন্যু
১০০০ টাকার পণ্য কিনলে সারা দেশে ডেলিভারি একদম ফ্রি।

আদর্শ পরিবার গঠনে ৪০টি উপদেশ

অনুবাদ : হাসান মাসরুর
সম্পাদনা : মুফতি তারেকুজ্জামান

 

কীভাবে স্ত্রীকে নেককার হিসাবে গড়ে তুলবে?

১. তাকে কিয়ামুল লাইল তথা তাহাজ্জুদের জন্য উৎসাহিত করবে।
২. কুরআন তিলাওয়াতের ব্যাপারে যত্ন নেওয়ার তাগিদ দেবে।
৩. প্রতিটি কাজের মাসনূন দুআ, সকাল সন্ধ্যা ও নামাযের পরের আযকারগুলো আদায়ের ব্যাপারে যত্ন নেওয়ার তাগিদ দেবে।
৪. তাকে সদাকা করার প্রতি উৎসাহিত করবে।
৫. বিভিন্ন উপকারী দীনি ও ইসলামি বই পড়ার প্রতি উদ্বুদ্ধ করবে।
৬. ঈমান ও আমলের প্রতি উৎসাহ প্রদানকারী বিভিন্ন লেকচার ও আলোচনা শুনাবে ও তা শুনার প্রতি উদ্বুদ্ধ করবে।
৭. তাকে নেককার ও উত্তম সঙ্গী নির্বাচন করে দিতে হবে, যার সাথে সে বসবে, অবসর সময়ে উত্তম উত্তম কথা বলবে এবং একসাথে হাঁটতে বের হবে।
৮. তাকে খারাপ ও অকল্যাণকর বিষয় থেকে ফিরিয়ে রাখবে এবং এগুলো আসার সকল পথ বন্ধ করে দেবে। তাকে খারাপ মানুষের সাথে মিশতে দেবে না, খারাপ জায়গায় যেতে দেবে না।
——————
আদর্শ পরিবার গঠনে এরকম আরো ৪০টি উপদেশ নিয়ে রচিত বক্ষ্যমাণ গ্রন্থটি।

পরিমাণ

122.00  175.00 (30% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

2 রিভিউ এবং রেটিং - আদর্শ পরিবার গঠনে ৪০টি উপদেশ

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5
    Rated 5 out of 5

    :

    সত্যিই বই প্রশংসার দাবিদার। আমি মনে করি প্রতি নতুন দম্পত্তির এই বই বড়া উচিত।
    Was this review helpful to you?
  2. 3 out of 5
    Rated 3 out of 5

    :

    👑 শাইখ সালেহ আল মুনাজ্জিদ (ফাক্কাল্লাহু আসরাহু)- এর ‘আরবাঊনা নাসীহাতান লি-ইসলাহিল বুয়ূত’ গ্রন্হটির বাংলা অনুবাদ, যার নাম দেওয়া হয়েছে “আদর্শ পরিবার গঠনে ৪০টি উপদেশ”।

    ✨ একজন মানুষ যত বিওবানই হোক না কেন, তার পরিবার যদি সুশৃঙ্খল ও গোছানো না হয়, ব্যক্তিগতভাবে সে প্রকৃত প্রশান্তি লাভ করতে পারে না। যখন পরিবারের সদস্যদের মাঝে সুসম্পর্ক বজায় থাকবে এবং তারা একে অপরের প্রতি সহানুভূতিশীল হবে, তখনই তো অনুভূত হবে সুখ আর প্রশান্তি। কত মানুষের অভিযোগ- ঘরে গিয়ে একটু শান্তিতে ঘুমোতে পারি না। সবার মাঝে কেমন জানি অস্থিরতা। চাওয়া- পাওয়ার অভিযোগ শুনতে শুনতেই হাঁপিয়ে ওঠার অবস্থা! কিন্তু কেন এমন হয়? আসলে আমরা অনেকটা আন্তকেন্দ্রিক চিন্তায় ডুবে থাকি। পরিবার কীভাবে সুন্দর ও সুশৃঙ্খল হবে, এ বিষয়গুলোর প্রতি তেমন লক্ষ্যই করা হয় না। এর ফলে আমাদের পারিবারিক জীবনে অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত ভোগান্তির সম্মুখীন হতে হয়। কীভাবে আমাদের পরিবার হতে পারে একটি আদর্শ পরিবার, আর আমরা লাভ করতে পারবো পারিবারিক সুখ-শান্তি, এ বইয়ে রয়েছে এমনই ৪০টি উওম উপদেশ।

    🎇 বইটির সবুজ, কালো কালার কম্বিনেশান, ডিজাইন, প্রচ্ছদ, পৃষ্ঠার মান সবকিছুই খুবই চমৎকার। বইটিতে ৪০টি উপদেশ ক্রমান্নয়ে ১১৭ পৃষ্ঠায় সুসজ্জিতভাবে সাজানো হয়েছে।

    📕 বই রিভিউ :

    ঘর একটি নেয়ামত। আল্লাহ তাআলা বলেন—
    “আল্লাহ তোমাদের গৃহকে তোমাদের জন্য আবাসস্থল বানিয়েছেন।“

    একজন নেককার স্বামী ও নেককার স্ত্রী মিলেই গঠিত হয় একটি নেককার সুখী পরিবার। কারণ ভলো ও উওম মাটি থেকেই উৎপন্ন হয় ভালো ও উন্নতমানের উওম ফসল। আর খারাপ ও নিম্নমানের মাটি থেকে উৎপন্ন হয় নিম্ন ও অনুন্নত ফসল।

    একটি আদর্শ পরিবার গঠনের জন্য স্বামী, স্ত্রী উভয়কে একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, যত্নবান, বিশ্বাসী, একজন আরেক জনের সুখ-দুঃখের সাথী হতে হবে। রবের আদেশ-নিষেধ যে পরিবারে মেনে চলার সর্বাত্বক চেষ্টা করা হয় সে পরিবারই হয়ে ওঠে আদর্শ পরিবার।একটি পরিবারের মাঝে সুখ, দুঃখ, আনন্দ, বেদনা সবকিছু ঘিরে থাকে। দুঃখ আছে বলেই কিন্তু আমরা সুখের মর্যাদা টা খুব ভালোভাবেই টের পাই।
    একটি আদর্শ পরিবার গঠনের জন্য স্বামী স্ত্রী উভয়েরই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। স্বামী-স্ত্রী একে অপরের প্রতি বিশেষ শ্রদ্ধাশীল ও যত্নবান হতে হবে।

    চরম বিপদের সময়ে খাদিজা (রা:) যেমন নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে সান্ত্বনার বাণী শোনাতেন, সর্বাবস্থায় যেমন নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর পাশে থাকতেন। ঠিক তেমনি একজন স্ত্রীর তার স্বামীর পাশে সর্বাবস্থায় থাকা উচিত।
    অপরপক্ষে, একজন স্বামীরও উচিত আমাদের নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যেমন স্ত্রীদের ভালোবাসতেন, ঠিক সেভাবে নিজের স্ত্রীকে ভালোবাসা।

    মেয়েরা ভালোবাসার কাঙ্গাল। তারা ভালোবাসা পেলে সকল দুঃখ, কষ্ট হাসি মুখে সহ্য করতে সদা প্রস্তুত থাকে।

    🌺🦋🌸 বইটি থেকে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপদেশ উল্লেখ করছি যেন পাঠকরা বইটি পড়তে আগ্রহী হন—

    📌 উপদেশ নাম্বার ১৩- “পরিবারের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা ও পারস্পারিক মতবিনিময়ের সুযোগ করে দেওয়া”

    আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলা বলেন—
    “তাদের কার্যক্রম পরস্পরে পরামর্শের ভিওিতে পরিচালিত হয়।“
    আল-কুরআন =সূরা শূরা : ৩৮

    সুযোগ হলে পরিবারের সকল সদস্য একএে বসবে এবং পরিবারের ভেতরের ও বাইরের বিষয় নিয়ে আলোচনা করবে। নিঃসন্দেহে এটা পরিবারের একজনের সাথে অপরজনের মজবুত সম্পর্ক ও সুদৃঢ় বন্ধনের বহিঃপ্রকাশ। আল্লাহ তাআলা পরিবারের দায়িত্ব পুরুষকেই দিয়েছেন এবং সিদ্ধান্ত দেওয়ার অধিকারও তারই। কিন্তু সবার সাথে পরামর্শ করে কাজ করা অন্যকে (ভবিষ্যতে) দায়িত্ব বহন করার শিক্ষা দেয়। সাথে সাথে এর মাধ্যমে অন্যরাও খুশি হয় যে, বাড়ির কাজে তারও মতামত নেওয়া হচ্ছে এবং ঘরে তার মতামতেরও একটা মূল্য আছে।
    পরামর্শগুলো হবে পরিবার ও পরিবারের সাথে সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে; যেমন হজ-উমরায় যাওয়া, আত্নীয়-স্বজনদের বাড়ি যাওয়া, ভ্রমণে যাওয়া, এক বাসা ছেড়ে অন্য বাসায় যাওয়া ইত্যাদি। কিংবা পরিবারের কোনো অনুষ্ঠানের বিষয় নিয়ে; যেমন কারও বিবাহ, ওলীমা, আকীকা ইত্যাদি। অথবা জনকল্যাণমূলক কাজের ক্ষেএে; যেমন এলাকার দরিদ্র মানুষদের লিস্ট করা, তাদের নিকট খাবার বা সাহায্য পৌঁছানো ইত্যাদি। এ ছাড়াও পরামর্শ হতে পারে পরিবারের বিভিন্ন পরিস্থিতি নিয়ে, আত্নীয়-স্বজনদের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে এবং তা থেকে উওরণের পথ ও পদ্ধতি নিয়ে।

    এখানে আরোও একটি বিষয়ের প্রতিও ইঙ্গিত করা যুক্তিযুক্ত মনে করছি সেটাকেও সমষ্টিগত বিষয়ই বলা যায়। যেমন বাবা-ছেলের একান্তে বসা।
    সবালক ও যুবক ছেলেরা এমন কিছু সমস্যার সম্মুখীন হয়, একান্তে বসা এবং বিষয়টি নিয়ে আলোচনা নিয়ে আলোচনা করা ব্যতীত তা থেকে মুক্ত হওয়া কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। সুতরাং এর থেকে সমাধানের জন্য বাবা-ছেলে একান্তে বসবে এবং বাবা সন্তানের সাথে যুবক বয়সের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আলোচনা করবে। তার বয়স এবং বালেগ বয়সের বিভিন্ন মাসআলা-মাসায়েল নিয়ে আলোচনা করবে।

    অনুরূপভাবে মা মেয়েকে নিয়ে বসবে এবং প্রয়োজনীয় শরয়ী হুকুম-আহকাম নিয়ে তার সাথে আলোচনা করবে। মেয়েরা এই বয়সে যে সকল সমস্যার সম্মুখীন হয়, তা থেকে সমাধানের ক্ষেএে তাকে সাহায্য করবে। বাবা-মা সন্তানদের সাথে কথা বলার সময় খুবই স্বাভাবিক ও সহজভাবে কথা বলবে। যেমন আমি যখন তোমার মতো এই বয়সে ছিলাম, তখন আমিও এ ধরণের পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছিলাম। এভাবে কথা বললে অনেক প্রভাব ফেলে এবং মানুষ তা দ্রুত গ্রহণ করে নেয়। তাদের সাথে এ সকল বিষয় নিয়ে একান্তে কথা না বললে তারা এ বিষয়গুলো তাদের কোনো খরাপ বন্ধু বা বান্ধবীদের বলবে, তখন এর ফলাফল হবে অনেক ভয়াবহ।

    💒➡️ পরিশেষে বলতে চাই,

    🌸 বইটি পড়ে আপনি ঘরে ঈমানি পরিবেশ তৈরী করার পদ্ধতি,
    🌸 ঘর ও পরিবার সংশ্লিষ্ট সুন্নাত ও মাসনূন দুআ পড়া এবং তা যথাযথ আদায় করার পদ্ধতি,
    🌸 বাড়িতে ইসলামি বইয়ের লাইব্রেরী তৈরী করণ,
    🌸 ঘরে শিশুদের যত্ন নেওয়ার পদ্ধতি,
    ঘরে কোমলতার চরিএ কিভাবে তৈরী করণ,
    🌸 বাড়ি নির্বাচনের আগে প্রতিবেশী নির্বাচনের গুরুত্ব,
    🌸 ঘরের কিছু নিকৃষ্ট ও পরিত্যাজ্য বিষয়াবলী সহ
    আরোও অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

    বর্তমানে যে পরিমাণ ডিভোর্সের হার বেড়েছে তার বেড়াজাল ভেঙ্গে, আমাদের পরিবার গুলো হোক এক একটা আদর্শ পরিবার।

    আমাদের রব, আমাদের সকলকে পরিবারের গুরুত্ব বুঝে আদর্শ পরিবার গঠন করার তোওফিক নসিব করুন।
    আমিন।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?