মেন্যু
abbasi khilafah

আব্বাসি খিলাফাহ

পৃষ্ঠা : 450, কভার : হার্ড কভার, সংস্করণ : ১ম সংস্করণ

বাঁধাই: হার্ডকভার ডায়েরি বাঁধাই
কাগজ: ৮০ গ্রাম অফহোয়াইট

দীর্ঘ সময়কাল ধরে রাজত্ব করা আব্বাসি খিলাফাহর রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ইতিহাস নিয়ে কলম ধরেছেন তরুণ আলেম ইমরান রাইহান৷ ইতিহাসের জটিল আলাপ ও গভীর বিশ্লেষণ এড়িয়ে সাধারণ পাঠকের সামনে সহজ করে ইতিহাসের সামগ্রিক চিত্র তুলে ধরার প্রয়াস চালিয়েছেন লেখক৷ সরল উপস্থাপনা, সহজ বর্ণনা ও শৈল্পিক আঙ্গিকের এই ইতিহাসের বইয়ে পাঠক পাবেন মুগ্ধতার আবেশ, পাশাপাশি অবগত হতে পারবেন নির্ভেজাল ইতিহাসের এক চাঞ্চল্যকর অধ্যায় সম্পর্কে৷

পরিমাণ

440  800 (45% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

1 রিভিউ এবং রেটিং - আব্বাসি খিলাফাহ

5.0
Based on 1 review
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    খোলাফায়ে রাশেদীনের পরবর্তী ইসলামী স্বর্ণযুগের ইতিহাস সাধারণের মন থেকে অনেকটা বিস্মৃতির পথে। বর্তমান সময়ে অনলাইন এবং বইপত্রে অনেকগুলো ভাল মানের বই অনূদিত হলেও বাংলায় মৌলিক ইসলামের ইতিহাস গ্রন্হ আজও হাতে গোনা। তরুণ লেখক ইমরান রায়হানের আব্বাসি খিলাফাহ বইটি সেখানে একটি গুরুত্বপূর্ণ সংযোজন।
    ৪৫৬ পৃষ্ঠার সংক্ষিপ্ত কলেবরে দীর্ঘ ৫০০ বছরের ইতিহাস খুব সাবলীলভাবে বর্ণনা করেছেন লেখক। অনেকদিন পর এরকম একটি ইতিহাস বই এক দিনে শেষ করলাম। আব্বাসী আন্দোলন থেকে শুরু করে তাতার আক্রমণে বাগদাদের পতন পর্যন্ত সকল খলিফাদের আলাদা আলাদা বর্ণনা রয়েছে। এসকল বর্ণনার ভিতরেই তৎকালীন বিখ্যাত ও গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাগুলো সংক্ষিপ্ত পরিসরে বর্ণনা করা হয়েছে। যদিও সেই পরিসর পাঠককে তৃপ্ত করে। যেমন, ইমামদের সাথে আব্বাসীদের দ্বন্দ্ব, ইমাম আবু হানিফার সাথে জাফর মনসুর কিংবা মামুনুর রশিদের সাথে খলকে কোরআন নিয়ে ইমাম হাম্বলের ঘটনা গুলো ভালভাবে বর্ণনা করা হয়েছে। ক্রুসেডের সময় আব্বাসী খিলাফতের নিষ্ক্রিয়তা কিংবা হাজরে আসওয়াদ চুরি হলেও উদ্ধারে নিষ্ক্রিয়তা গুলো লেখক ধর্মীয় এবং সামরিক দৃষ্টিতে ব্যাখ্যা করেছেন। গুরুত্বপূর্ণ অনেক ছোট ছোট ঘটনা খলিফাদের বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য বর্ণনায় তুলে ধরা হয়েছে। সচেতন পাঠকের ঘটনাগুলোর সাথে সমসাময়িক বিষয়ের যোগসূত্র খুজে পাওয়ার মত করেই লেখেছেন লেখক। যদিও আব্বাসি খিলাফতের বাইরে খুব একটা দৃষ্টিপাত করা হয়নি বা সংক্ষিপ্ত পরিসরে সে সুযোগও ছিলনা। তবে সমসাময়িক অনান্য গুরুত্বপূর্ণ শাসকদের নাম প্রয়োজনে অনুচ্ছেদ আকারে উল্লিখিত হয়েছে।
    লেখক অধিকাংশ খলিফার শারীরিক বর্ণনা এবং তাদের বৈশিষ্ট্য আলোচনা করেছেন। ক্ষমতার মোহে কিংবা নিজ পরিবারে ক্ষমতা ধরে রাখতে নেওয়া ভুল সিদ্ধান্ত গুলোর সাবলীল বর্ণনা আছে।

    খলিফাদের জীবনী অংশের পর সামগ্রিকভাবে আব্বাসী সমাজব্যবস্থা, শিক্ষাব্যবস্থা, যুদ্ধ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থা, সাহিত্য, জ্ঞান- বিজ্ঞান ইত্যাদি বিষয় নিয়ে আলাদা আলাদা অধ্যায়ে আলোচনা করা হয়েছে। পোশাক কিংবা খাবারের মতো ছোট বিষয়গুলোকেও লেখক বাদ দেন নি। আব্বাসি খিলাফতের পতনের কারণ সমূহ আলোচনায় লেখক স্বরণ করিয়ে দিয়েছেন, ধর্মীয় দৃষ্টিকোন থেকে আলোচনা ছাড়া ইসলামের ইতিহাস পূর্ণতা পায়না।

    বইটির বাচনভঙ্গি সাবলীল হলেও অনুসন্ধানী পাঠক কিংবা গবেষকদের জন্য রয়েছে প্রতি পাতায় পাদটীকা। যার সংখ্যা ৫৫৮ টি, তমধ্যে সর্ব্বোচ্চ পাদটীকা আল বিদায়া ওয়ান নিহায়া গ্রন্হের।। এছাড়াও গ্রন্থপঞ্জিতে ১২৭ টি গুরুত্বপূর্ণ পুস্তকের রেফারেন্স দেওয়া আছে।
    আব্বাসী যুগে অনেক ভ্রান্ত আকিদা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, অনেকগুলো মারাত্বক ভ্রান্ত আকিদা আব্বাসী খলফাগণ স্বয়ং মদদ দিয়েছিল। এই সব দল-মতের নাম (যেমন জিন্দিক, কারামেকাত প্রভৃত বিভিন্ন স্থানে উল্লেখ থাকলেও ইনডেক্সে তাদের কোন বর্ণনা না পেয়ে হতাশ হয়েছি। আরেকটি জিনিস আশা করছিলাম, সেটা হল আব্বাসী খিলাফাহ এর সীমানা সম্বলিত ম্যাপ। গুরত্বপূর্ণ সময়ের মানচিত্র শুধু বইয়ের জৌলুস বৃদ্ধির জন্য নয়, পাঠকের অনুধাবনে প্রচুর সহায়ক। আমার মতে ইতিহাস বইয়ে এটা আবশ্যক।

    আমি মনে করি অনলাইন বুক রিভিউ বইয়ের বিষয়ের সাথে বস্তুর সংমিশ্রণ না ঘটলে অসম্পূর্ণই থেকে যায়। তাই বইটি সম্পর্কে বলি। ৮০গ্রাম অফ হোয়াইট অফসেটে ছাপানো বইটির ছাপ চমৎকার। প্রুফ রিডিং ও ভাল হয়েছে। ডায়েরি হার্ড বাধাই করা হয়েছে। বাধাই কোয়ালিটি সর্বোচ্চ মানের। সংক্ষিপ্ত এবং বিস্তারিত সূচিপত্র দেওয়া হয়েছে। বইয়ের মলাটে প্লাস্টিক প্রিন্টে খোদাই করা। সেই সাথে প্রচ্ছদের সাথে মিলিয়ে নীল বুকমার্ক। শাহ ইফতিখার তারিকের প্রচ্ছদ সাধারণের ভিতরে ইসলামের চিরায়ত ঐতিহ্য ঢাল তলোয়ার শোভা পাচ্ছে। বইয়ের শেষে পাঠকের নোট করার জায়গাও আছে।

    পরিশেষে ইতিহাস পাঠে প্রয়োজনীয়তা অসীম, ইতিহাস অজানাকে জানায়। অতীতে কি ছিল, বর্তমানের সাথে তার সম্পর্ক কি? কিংবা অতীতের ভুলগুলো আবার করলে কি পরিণত হতে পারে? ইতিহাস আমাদের শিক্ষা দেয়। ইসলামের স্বর্ণযুগ যেমন বলা যায় আব্বাসী আমলের প্রথম দিককে, তেমনি নানাবিধ ফিতনা ও মতানৈক্য ধীরে ধীরে দূর্বল করেছিল খিলাফাতের ভিতকে। সেই সাথে খলিফারা সরে যাচ্ছিলেন ইসলামের সুমহান আদর্শ থেকে। সর্বশেষ শিয়া আমিরের পরামর্শে সৈন্য সংখ্যা কমিয়ে পতনকে আরো ত্বরান্বিত করেছিল। বাইতুল মোকাদ্দাস আক্রমণে আব্বাসী খলিফা যেমনি নীরবতা অবলম্বন করেছিলেন, তেমনি তাতার আক্রমণের সময় নীরব হয়ে গিয়েছিল বাগদাদ নগরী। ৫০০ বছরের সাম্রাজ্য গুঁড়িয়ে ফোরাতের জলে ভেসে গিয়েছিল ইসলামের আদর্শ থেকে দূরে সরে যাওয়ার কারণে। বইটা সকল পাঠককে নাড়া দিবে। তাই সবাইকে বইটি পড়ার অনুরোধ করছি।

    3 out of 3 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No