মেন্যু
Allahor pothe dawat

আল্লাহর পথে দা’ওয়াত

পরিমাণ

30  50 (40% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
- ৪৯৯+ টাকার অর্ডারে একটি প্রিমিয়াম বুকমার্ক ফ্রি!

- ৬৯৯+ টাকার অর্ডারে একটি একটি আমল চেকলিস্ট ফ্রি!

- ৮৯৯+ টাকার অর্ডারে একটি বই ফ্রি!

- ১,১৯৯+ টাকার অর্ডারে একটি আতর ফ্রি!

- ১,৪৯৯+ টাকার অর্ডারে সারাদেশে ফ্রি শিপিং!

প্রসাধনী

4 রিভিউ এবং রেটিং - আল্লাহর পথে দা’ওয়াত

5.0
Based on 4 reviews
5 star
100%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
0%
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    ❀বিসমিল্লাহির রহমানির রহীম।

    ❝ আপনি আপনার প্রতিপালকের দিকে আহ্বান করুন হিকমাত বা প্রজ্ঞা দ্বারা এবং সুন্দর ওয়ায-উপদেশ দ্বারা এবং তাদের সাথে উৎকৃষ্টতর পদ্ধতিতে আলোচনা-বিতর্ক করুন। ❞
    (সূরা নাহলঃ ১২৫)

    মহান আল্লাহর মনোনীত দ্বীন হচ্ছে ইসলাম। আর এই ইসলামের রীতিনীতি অনুসরণ, ইসলামের প্রচার এবং প্রসারে নিজেকে আত্মনিয়োগ করা প্রত্যেক মুসলমানের ঈমানী দায়িত্ব। দুনিয়াতে এই ইসলামের পথে আহবান জানানোর জন্যই রাব্বুল আলামীন যুগে যুগে কালে কালে নবী-রাসূলদেরকে পাঠিয়েছেন। সুতরাং আমরা একথা জোরালো ভাবেই বলতে পারি যে একজন মুমিনের জীবনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কাজ হচ্ছে দ্বীনের দাওয়াত অর্থাৎ স্রষ্টার শাশ্বত বাণী মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া।

    ❝ আর তোমাদের মধ্যে এমন একটা দল থাকা উচিত, যারা আহ্বান জানাবে সৎকর্মের প্রতি, নির্দেশ দেবে ভালো কাজের এবং বারণ করবে অন্যায় কাজ থেকে, আর তারাই হলো সফলকাম।❞
    (সূরা আল ইমরান :১০৪)।

    মূলত বর্তমান সমাজ ব্যবস্থা ক্রমশ এক ভয়াবহ পরিণতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। ন্যায়নীতি আজ বিলুপ্তপ্রায়। জুলুম-নির্যাতন, হত্যা, লুণ্ঠন, ঘুষ-দুর্নীতি প্রভৃতি পাপাচারের বিষবাষ্পে জাতি আজ দিশেহারা। এই ভয়াবহ পরিস্থিতি থেকে সমাজ ও রাষ্ট্রকে রক্ষা করতে প্রয়োজন সঠিক উপায় আল্লাহ তাআলার বাণী তাদের কাছে পৌঁছে দেওয়া, মানে দাওয়াত দেয়া।

    ইসলামে দাওয়াতের আদি-অন্ত এবং দাওয়াতের খুঁটিনাটি সকল বিষয় যেমন- দাওয়াতের
    বিধান,গুরুত্ব,পুরুস্কার,অবহেলার শাস্তি এসব সম্পর্কে পরিচ্ছন্নভাবে জানতে আস-সুন্নাহ পাবলিকেশন্স এবং শাইখ ড. খোন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর আমাদের জন্য আয়োজন করেছেন
    ❝ আল্লাহর পথে দা’ওয়াত ❞ নামক বইটি।আমাদের আজকের আলোচনা এই বইটিকে ঘিরেই।

    ♦বইটিতে যা যা রয়েছে সংক্ষেপেঃ

    আরবীতে ‘দাওয়াত’ শব্দটি মাছদার বা ক্রিয়ামূল। যার অর্থ ডাকা বা আহবান করা।মানুষ দাওয়াতের মাধ্যমেই ইমানদার ও ধৈর্যশীল হয় এবং পরস্পর দয়া ও করুণা করতে শেখে, যা মানব সমাজে অতীব জরুরি।

    ড. খোন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর তার লেখা
    ❝ আল্লাহর পথে দা’ওয়াত ❞ বইটিকে মোট পাঁচটি অণুচ্ছেদে ভাগ করেছেন। এখানে মুসলিম উম্মাহর অন্যতম প্রধান দায়িত্ব এই দা’ওয়াত, দাওয়াতের পরিচিতি,বিষয়বস্তু, গুরুত্ব,কুরআন ও হাদিসের আলোকে দা’ওয়াত এর গুরুত্ব,দা’ওয়াতের পুরুস্কার ও দাওয়াত অবহেলার শাস্তি, দাওয়াতের শর্ত, দায়ীর
    গুণাবলি,ইলম,জ্ঞান,সুন্দর ব্যবহার ও আচরন, দাওয়াতের ক্ষেত্রে ভুলভ্রান্তি, সুন্নাতের আলোকে দাওয়াত এবং কুরআন ও হাদিসের বানীকে মনগড়াভাবে উপস্থাপন না করা। এসকল জরুরি বিষয় নিয়ে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করা হয়েছে বইটিতে। আশা করি সকল মুসলিম উম্মাহ বইটি দ্বারা উপকৃত হবেন।

    ♦আমার অনুভূতিঃ

    আলহামদুলিল্লাহ। এই অনুভূতি ব্যক্ত করা বেশ কঠিন।নিজেদের জীবনে পবিত্র কোরআন-সুন্নাহর বিধি-বিধান বাস্তবায়নের পাশাপাশি পরিবার ও পাশ্ববর্তীদেরকে আল্লাহর দ্বীনের প্রতি আহ্বান করা মুমিন বান্দার কর্তব্য।দ্বীন ইসলামের পথে দাওয়াতের ব্যাপারে বড্ড উদাসীন আমরা। এখনো অনেকেই দাওয়াত,তাবলীগের লোক দেখলে পালাই,আমি নিজেও অনেকবার পালিয়েছি তাদের সামনে থেকে।

    উম্মতে মুহম্মাদীর অন্যতম বৈশিষ্ট্য দা’ওয়াত ইলাল্লাহ। নবীজী এই দায়িত্ব আমাদের উপর দিয়ে গিয়েছেন,এর অবহেলা করলে রোজ হাশরে আমাদের জবাবদিহি করতে হবে।
    নবীজী(সঃ) বলেন,
    ❝ যে ব্যক্তি আমার সুন্নাত থেকে অন্যমনস্ক হলো বা অপছন্দ করলো তার সাথে আমার সম্পর্ক নেই। ❞

    বইটি আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দাওয়াত সম্পর্কে সবকিছু বুঝিয়ে দিবে। জানতে পারবেন- দাওয়াতে আমাদের করনীয়,বর্জনীয়,ফরয আইন,ফরযে কিফায়া,শুরুতে কাদেরকে দাওয়াত দিবেন,দাঈ অর্থাৎ যিনি দাওয়াতে দিবেন তাকে অবশ্যই বিচক্ষণ হতে হবে, নিজেকে একজন দৃষ্টান্ত হতে হবে,বন্ধুভাবাপন্ন, বিনয়ী হতে হবে। মনে রাখবেন দাওয়াতের যেই মহান কাজটি আপনি করছেন এর পুরুস্কার রোজ হাশরে মহাম রব্বুল আলামীন আপনাকে দিবেন।

    ♦বইটি পড়া কেনো জরুরিঃ

    বইটির বিষয়বস্তু এমনভাবে সাজানো হয়েছে যা দেখে যে কেউ মুগ্ধ হবেন।ইসলামে একজন মুমিনের জীবনের অন্যতম মিশন হলো মানুষের প্রতি দ্বীনের দাওয়াত দেয়া।

    বইটিতে লেখক দা’ওয়াতের আদেশ-নিষেধ,দ্বীন প্রচার,দ্বীন প্রতিষ্ঠা, দাওয়াতি কাজের গুরুত্ব,এর বিধান, পুরুস্কার ও দাওয়াত অবহেলার শাস্তি নিয়ে আলোচনা করেছেন।ইসলাম প্রচার,প্রসার ও প্রতিষ্ঠায় কর্মরত আমাদের সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষেরা দলমত নির্বিশেষে এই পুস্তকটি থেকে উপকৃত হবেন বলেন আশা করছি।

    এমন জরুরি একটি বই খুবই অল্প দামে পাওয়া যাচ্ছে।আমি বইটি পড়ার দাওয়াত সকলকে দিচ্ছি। বইয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে মহান রব্বুল আলামীন কবুল করুক,আমিন।

    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    :

    আলহামদুলিল্লাহ, কিছুদিন ধরেই আমি খুব ব্যাথিত ছিলাম, আমাদের জেনারেশন এর কিছু আচরণ নিয়ে। অধিকাংশ সময় ফেসবুক কমেন্টে কিছু মুসলিম ভাই বোনের দীন নিয়ে অমুসলিমদের সাথে খুব রূঢ় ব্যবহার চোখে পড়ে। কোনো রেফারেন্স ছাড়াই শুধু আন্দাজের উপর ভিত্তি করে কাউকে এভাবে দাওয়াত দেয়া কতটুকু ইসলামি শরীয়াহ সম্মত?? দীনের দাওয়াত তো সর্বপ্রথম আমাদের রাসূল(সাঃ) দিয়েছেন। তার সুন্দর আচরণেই মুগ্ধ হয়ে অসংখ্য মানুষ ইসলাম গ্রহণ করেছেন। তাহলে আমরা তাঁর উম্মত হয়ে কি করছি? কিভাবে দাওয়াত দিতে হবে তা তো আল্লাহ রাব্বুল আলামীন রাসূল সাঃ কে শেখানোর মাধ্যমে পুরো মানব জাতিকেই শিখিয়ে দিয়েছেন। আর এই ব্যাথিত হৃদয় নিয়েই ফেসবুকে আমি একটা আপুর রিভিউ দেখেই বই টা কিনি। আলহামদুলিল্লাহ আল্লাহ রাব্বুল আলামিন লেখকের এই যুগোপযোগী বইটা ওয়াফি লাইফের মাধ্যমে আমাকে পড়ার সুযোগ এনে দিয়েছেন। আমি দোয়া করি আপনাদের এই প্রচেষ্টা আল্লাহ সুবহানাহুওয়াতাআ’লা সাদকায়ে জারিয়াহ হিসেবে গণ্য করুন, এবং আরো বেশি বেশি ইসলামের জন্য কাজ করার তৌফিক দান করুন।
    2 out of 2 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    :

    #ওয়াফিলাইফ_পাঠকের_ভালো_লাগা_জুন_২০২০

    “উদ্দীপন প্রকাশন ইসলামি বই গ্রুপ রিভিউ প্রতিযোগিতা মে ২০২০”

    বই- আল্লাহর পথে দাওয়াত
    লেখক- ড. খোন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর( রাহিমাহুল্লাহ)
    আস- সুন্নাহ পাবলিকেশন
    মুদ্রিত মুল্য- ৫০
    ক্রয় মূল্য – ২৫
    ◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉◉

    ❀ ||বই রিভিউ|| ❀ (৩)

    আল্লাহর পথে আহবান করতেই নবী-রাসূলগণের আগমন। মমিন জীবনে অন্যতম দায়িত্ব হল দাওয়াত । কুরআন কারীমে এ দায়িত্বকে কখনো দাওয়াত, কখনো সৎকার্যে আদেশ ও অসৎকার্যে নিষেধ, কখনো প্রচার, কখনো কখনো দিন প্রচার প্রতিষ্ঠা বলে অভিহিত করেছেন। ।

    ∎ যা নিয়ে বইটিঃ-
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    বইটিতে এবাদত পালনের এক্ষেত্রে সুন্নাতে নববী এবং এ বিষয়ে কিছু ভুলভ্রান্তির কথা উল্লেখ করা আছে। যা সহীহ ও নির্ভরযোগ্য হাদিসের আলোকে। বইটি পাঁচটি পরিচ্ছেদে বিভক্ত। প্রতিটি পরিচ্ছেদ আবার বেশ কয়েকটি ভাগে বিভক্ত।

    দাওয়াতের দায়িত্ব পালনের জন্য প্রথম শর্ত হলো ন্যায়-অন্যায় সেগুলোর পর্যায় এবং সেগুলোর প্রতিবাদ প্রতিকার ইসলামিক পদ্ধতি সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান। আমি যে কাজ করার বা বর্জন করার দাওয়াত দিচ্ছি তা সত্যিই ইসলামের নির্দেশ কিনা তা জানতে হবে। ভালো-মন্দ অনেকক্ষেত্রে সকল মানুষের বিবেক ও জ্ঞান দিয়ে বুঝতে হবে।
    দাওয়াতের ক্ষেত্রে স্পষ্ট জ্ঞানের অত্যাবশ্যক বিষয়ে আল্লাহ বলেন,
    “বল এটিই আমার পথ। স্পষ্ট জ্ঞানের ভিত্তিতে আল্লাহর দিকে আহবান করি আমি এবং আমার যারা অনুসারী।” (সূরা ইউসুফ ১০৮ আয়াত)

    আদেশ-নিষেধ নসিহত প্রচার বা আল্লাহর পথে আহবান করা ক্ষেত্রে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বিষয় হল যাকে আদেশ করছি নিষেধ করছি তার প্রতি ভালোবাসা ও আন্তরিক মঙ্গল কামনা। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি সাল্লামের পবিত্র জীবনে ভালোবাসা ও প্রেমের অনেক উদাহরণ আমরা দেখতে পাই যে কাফিরগণ তার দেহকে রক্তরঞ্জিত করেছে তাদের জন্য তিনি আল্লাহর দরবারে ক্ষমা ও করুণা প্রার্থনা করেছেন তিনি বলেছেন,
    ” হে আমার পালনকর্তা আমার জাতিকে আপনি ক্ষমা করে দিন কারণ তারা জানে না”

    দাওয়াতের ক্ষেত্রে অন্যতম মৌলিক শর্ত হলো ভিন্নতাও বন্ধুভাবাপন্নতা । কারণ মহান আল্লাহ সুরা ইমরানের ১৫৯ নং আয়াতে বলেছেন,
    “আল্লাহুর দেয়ার অন্যতম প্রকাশ যে আপনি তাদের প্রতি বিনম্র কোমল হৃদয়ের ছিলেন যদি আপনি বিরক্ত হতেন তাহলে তারা আপনার আশেপাশে কে সরে পড়তো।”

    আমাদের উত্তম ব্যবহার করতে হবে এবং মন্দ ব্যবহারগুলো পরিহার করতে হবে। এবং আমাদের ধৈর্যশীল হতে হবে । সূরা লুকমানের ১৭ নম্বর আয়াতে বলা আছে,
    “সালাত কায়েম কর। সৎকাজে আদেশ ও অসৎকাজে নিষেধ করো এবং তোমরা ওপর যাপিত হয় তাতে ধৈর্য্যধারণ কর। নিশ্চয়ই এগুলো দৃঢ় সংকল্পের কাজ।”

    ∎ বইটি যাদের জন্যঃ-
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    আশা করি, সর্বস্তরের সকল আলেম ও দ্বীনদার মুসলিম বইটি পাঠ করবেন এবং উপকৃত হবেন। বিশেষত ইসলাম প্রচার প্রসার ও প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আমাদের সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ। এটা দল-মত-নির্বিশেষে প্রযুক্তি থেকে উপকৃত হবেন বলে আশা করা যায়।

    ∎ বেষ্ট পার্টঃ-
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    লেখক ইসলামি দাওয়াতের সব গুলো দিক এত সুন্দর করে কোরআন ও হাদিসের আলোকে বুঝিয়েছেন যে তা আমার কাছে সব থেকে বেশি ভালো লেগেছে। প্রতিটা পয়েট ই মূল্যবান।

    ∎ মন্তব্যঃ-
    ▔▔▔▔▔▔▔▔▔▔
    বই এর প্রচ্ছদ আর পেপার কোয়ালিটি আলহামদুলিল্লাহ! এত কম দামে এত ভালো বই সাধারণ কম দেখেছি। খব ভালো লেগেছে বইটি। অনেক কিছু জেনেছি আলহামদুলিল্লাহ।

    Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    :

    ভূমিকা:
    মানুষকে সহজেই যেকোনো কিছু বুঝাতে পারার এক অসাধারণ যোগ্যতা ছিলো শাইখ আব্দুল্লাহ্ জাহাঙ্গীর রাহিমাহুল্লাহর। তাঁর রচিত “আল্লাহর পথে দাওয়াত” বইটি সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অসাধারণ এক প্রয়াস। প্রত্যেক দা’ঈর জন্য এতে প্রচুর রসদ রয়েছে।

    বইয়ের সারসংক্ষেপ:
    পাঁচটি পরিচ্ছেদে, মাত্র ৬৪ পৃষ্ঠায় তিনি দাওয়াতের যাবতীয় বিষয়কে মলাটবদ্ধ করেছেন এতে। বইটি তিনি বিশেষত কুরআন সুন্নাহর দলিল ও মনঃস্তাত্ত্বিক বিশ্লেষণের আলোকে সাজিয়েছেন। এ দুটোই দাওয়াতের ময়দানে অপরিহার্য বিষয়।

    প্রথম ও দ্বিতীয় পরিচ্ছেদে ওয়ায-নসিহত, দাওয়াত ও তাবলিগের পরিচিতি, এর গুরুত্ব, দাওয়াতের বিষয়বস্তু, এর ফযিলত ও অবহেলার শাস্তি সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।

    বইয়ের তৃতীয় ও চতুর্থ পরিচ্ছেদ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দাওয়াতের শর্ত, দাঈর গুণাবলী ও দাওয়াতের ক্ষেত্রে দা’ঈর সচরাচর যেসব ভুল হয়, সেগুলো সুন্দরভাবে একটি একটি করে তুলে ধরা হয়েছে। যেমন: দাওয়াতের অযুহাতে নিজ আমলে ত্রুটি করা, ফলাফল লাভে তাড়াহুড়ো করা, গিবত ও ছিদ্রান্বেষণে লিপ্ত হওয়া ইত্যাদি।

    পঞ্চম পরিচ্ছেদে দাওয়াতের সুন্নাহসম্মত পদ্ধতি এবং দাওয়াতের ময়দানে মাসনুন উপকরণের নিষিদ্ধ ব্যবহার নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করা হয়েছে। যেমন: গল্পনির্ভর ওয়ায, ওয়াযে ঝগড়া করা, অনুমাননির্ভর ফতোয়া দেওয়া ইত্যাদি। শেষে দাওয়াতের আধুনিক উপকরণ যেমন: মিডিয়া, মিছিল, হরতাল, অবরোধ ইত্যাদি সম্পর্কে শরিয়াহর দৃষ্টিভঙ্গি আলোকপাত করা হয়েছে।

    বইটি কেন পড়া উচিত?
    • পুরো বইটি কুরআন সুন্নাহর দলিল দিয়ে এমনভাবে সাজানো হয়েছে, যেন একটি মুক্তোর মালা।
    • দা’ঈ ব্যক্তিরা এই বই পড়ে ব্যাপকভাবে উপকৃত হতে পারবেন ইনশাআল্লাহ্। কারণ এতে দা’ঈদের কমন ভুলগুলো নিয়ে চমৎকার আলোচনা রয়েছে, যেগুলোর কারণে তাদের অধিকাংশ দাওয়াত ফলপ্রসু হয় না।
    • ফেইসুকে যারা কুরআন-সুন্নাহর কথা লিখেন, তাদের উচিত অন্তত একবার পুরো বইটি পড়ে শেষ করা।

    অনুভূতি:
    পাঠক হিসেবে অনুভূতি অসাধারণ। আমি এই ছোট্ট কিতাবটি পড়ে জাস্ট মুগ্ধ হয়েছি। শায়খের জ্ঞান ও প্রজ্ঞা সম্পর্কে আরো জানা হয়েছে। এত সুন্দর করে ভেঙে ভেঙে বিশ্লেষণ করেছেন, যেন সামনে বসিয়ে বক্তব্য দিচ্ছেন। আমি এই বই পড়ে দাওয়াতি ময়দান সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ অনেক মূলনীতি জানতে পেরেছি।

    বইটির নেতিবাচক দিক:
    বইটির প্রচ্ছদ এবং কাগজের মান খুবই সাধারণ (অবশ্য বইটি নতুনভাবে আবার মুদ্রিত হয়েছে। এতে কাগজ ও প্রচ্ছদ আগের চেয়ে বেটার হয়েছে। বর্তমানে নতুন সংস্করণটি বাজারে অ্যাভেইলেবল)। এছাড়া শাইখ তাঁর মানহাজ অনুযায়ী দু-এক স্থানে জিহাদের ব্যাপারে এমন কিছু কথা বলেছেন, যেগুলো যুগ যুগ ধরে চলে আসা ইসলামি তুরাসের সাথে যায় না। যাহোক, এটুকু বাদ দিলে ৫-এ ৫ দেওয়ার মত বই এটি।

    1 out of 1 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No