মেন্যু
১০০০ টাকার পণ্য কিনলে সারা দেশে ডেলিভারি একদম ফ্রি।

৩১৩ বদরযুদ্ধের ঐতিহাসিক গল্পভাষ্য

প্রকাশনী : নবপ্রকাশ

পৃষ্ঠা: ২৫৬
(হার্ডকভার)

বইটি বদর যুদ্ধের গল্পভাষ্য হলেও গল্পটি শুরু হয়নি বদরের প্রান্ত থেকে কিংবা বদরের দিকে ধেয়ে আসা সেই মদিনার প্রান্ত থেকে কিংবা যে লগ্নে বদরযুদ্ধ সংঘটিত হয়, সেই ৬২৪ খ্রিষ্টাব্দের ১৩ মার্চ থেকে৷ গল্পটি শুরু হয় “আলোর ফোয়ারা” শিরোনাম দিয়ে৷ এই শিরোনামে উদ্ধৃত হয় মদিনার ছয় যুবককে ঘিরে প্রথম আকাবার ঘটনা৷ যে ঘটনাটি মক্কার, ৬২০ খ্রিষ্টাব্দের৷ যে ঘটনায় নিহিত আছে, কীভাবে নবিজী মক্কায় থেকে মদিনায় ইসলামের বীজ বপন করেন৷ এরপর ধারাবাহিক ঘটনাগুলো বিবৃত হতে থাকে “বিশ্বাসের সূর্যোদয়”, “নতুন উষা”, “আকাবার প্রতিজ্ঞা”, মধ্যরাতের গুপ্তঘাতক”, “নবীর শহরে”, “চারিদিকে শত্রু”, “শক্তি প্রদৰ্শন”, “মরুশাৰ্দূল”, “বাজিছে দামামা”, “স্বপ্নসংবাদ”, “বার্তাবাহক” ও “বদর প্রান্তরে” দিয়ে৷ এই শিরোনামগুলোতে খুবই ক্ষুদ্র পরিসরে তিনি আলোকপাত করেছেন মক্কায় মুসলিমদের অৰ্বাচীন নিৰ্মমতার বেদনা, প্রথম হিজরত, দ্বিতীয় হিজরত এবং চূড়ান্ত হিজরত; মদিনার কথা৷ কীভাবে মহানবী মদিনায় ভাতৃঘাতী ভেদাভেদ দীৰ্ণ করে সবাইকে দাড় করিয়েছেন পারস্পরিক সহোদরার মমত্ব সাড়িতে— সেটাও আলোচনা করেছেন৷ আরো আলোচনা করেছেন, বদর যুদ্ধ সংঘটিত হওয়ার পূৰ্বে মহানবি কয়টি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দল মক্কার কাফিরদের তাড়া করতে পাঠান৷ এবং এটাও আলোকপাত হয় যে, বদর যুদ্ধে মুসলিমরা যুদ্ধের জন্যই মদিনার বাহিরে আসেন, নাকি অন্য কোন রহস্য এখানে অাবৃত৷

এই বদর যুদ্ধ নিয়ে কাফেরদের মাঝে কী সংশয় দেখা দেয়, এবং শেষতক কী হয়, কী কী মোজেযা প্রকাশ পায় এই যুদ্ধে, এই যুদ্ধে কে প্রথম শহিদ হন, কাফেরদের মধ্যে কে প্রথম ভূতলে লুটায়, কাফেরদের সৈন্যদলে; তবু তাকে হত্যার নিষেধাজ্ঞা আসে, কে সে? কেন এমন নিষেধাজ্ঞা? এমন অনেক অনেক অাবৃত পাঠ পরবর্তী শিরোনাম থেকে পাঠকের কাছে স্বচ্ছ কাঁচের মতই ধরা দেবে৷

এটি গতানুগতিক গল্পের বই নয়৷ বরং হাদিস আর কোরআন এবং বিশুদ্ধ বিধৌত ইতিহাস গ্রন্থের বিক্ষিপ্ত বৰ্ণনাগুলোকে তিনি মূলত গল্পমাল্যে অচ্ছেদ্য উপায়ে আর সাড়িবদ্ধ শৃঙ্খলায় পরিয়েছেন৷ তাই বলা যায়, বইয়ের গল্পকে পর্যাপ্ত শব্দ ও নিবিড় বাক্য দিয়ে বেণী করা হয়েছে আর বিশুদ্ধ বর্ণনা ও বিমুগ্ধ ঘটনাগুলো দিয়ে গল্পটির হার নির্মাণ করা হয়েছে— ফলত ঐতিহাসিক গল্পভাষ্যটি পুষ্পময়ী গ্রন্থে রূপ নিয়েছে৷ আশাবাদী, এই ফুলের ঘ্রাণ ও সুপেয় রস তৃপ্ত করবে সকল পাঠককে৷

পরিমাণ

255.00  340.00 (25% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

1 রিভিউ এবং রেটিং - ৩১৩ বদরযুদ্ধের ঐতিহাসিক গল্পভাষ্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  1. 5 out of 5

    :

    ৩১৩ ! সংখ্যাটা খুব পরিচিত লাগছে তাই না ? ইতিহাসের গতিপথ বদলে দিয়েছিল এই সংখ্যাটি । এই সংখ্যাটির সাথেই জড়িয়ে আছে আমাদের গৌরবময় ইতিহাস, চেতনা আর অনুপ্রেরণা । এই সংখ্যাটাকেই উপজীব্য করে লেখক সালাহউদ্দীন জাহাঙ্গীর লিখেছেন, ইতিহাস আশ্রিত গল্পভাষ্য– “৩১৩ : বদরযুদ্ধের ঐতিহাসিক গল্পভাষ্য” ।

    ❒ বইয়ের আলোচ্য বিষয়—
     ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄
    বইটি ইতিহাসকে আশ্রয় করে লেখা গল্পভাষ্য । ঐতিহাসিক বদর যুদ্ধের ইতিহাসকে শব্দের অনুপম গাঁথুনি দিয়ে গল্পের আদলে উপস্থাপন করা হয়েছে । শ্বাসরুদ্ধকর সেই ইতিহাস কখনো নবিজীর হাত ধরে, কখনোবা সাহাবীদের হাত ধরে ছুটে বেড়িয়েছে বইয়ের পাতায় । কখনো হাজার হাজার বছর পূর্বের ইয়েমেন সাম্রাজ্যে, কখনো তপ্ত মরুভূমিতে, কখনোবা মক্কা থেকে ইয়াসরিবের খেজুর বাগানে আর সবশেষে পূর্ণতা পেয়েছে বদরের প্রান্তরে বিজয়ীর বেশে ।

    বইটি বদর যুদ্ধের গল্পভাষ্য হলেও শুরু হয়নি বদরের প্রান্তর থেকে । শুরুতেই লেখক আমাদেরকে নিয়ে গেছেন হাজার হাজার বছর আগে । বইটির শুরুতেই আছে বদর যুদ্ধের তিনটি পূৰ্বাভাষ ৷ পূৰ্বাভাষগুলোতে আলোচিত হয়েছে মদিনায় ইহুদিদের গোড়াপত্তন, আউস ও খাজরাজের গোড়াপত্তন এবং ইয়াসরিবের ইহুদিদের প্রভাব-প্রতিপত্তির বিলীন হওয়ার ইতিহাস ৷ ৬ যুবকের হাত ধরে মদিনায় কিভাবে ইসলামের সূচনা হলো সে ঘটনা দিয়েই শুরু হয়েছে বইয়ের মূল পর্ব ৷ বাদ যায়নি নবিজী ﷺ এর মক্কা থেকে মদিনা হিজরতের ঘটনা আর সেখান থেকে কিভাবে তিনি হয়ে উঠলেন মদিনা রাষ্ট্রের প্রাণ । এরপর ধাপে ধাপে লেখক পৌছেছেন বইয়ের মূল আলোচনায়, ১৭ রমাদানের সেই রাতটিতে । যে রাতের দুআ সপ্তাকাশ ভেদ করে যাত্রা শুরু করেছিল আল্লাহর আরশ অভিমুখে ।

    ❒ পাঠ্যানুভূতি—
     ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄ ̄
    গদ্যশৈলি আর বর্ণনাভঙ্গির অপূর্ব সংমিশ্রণের কারনে বইটিকে সুখপাঠ্য মনে হয়েছে । হাজার বছর আগের ইতিহাসের অলিতে-গলিতে ছুটে বেড়ানো এক সুদীর্ঘ জার্নি যেন এই বইটি । এই জার্নি জেরুজালেমের ইহুদি সাম্রাজ্য থেকে ইয়েমেন সাম্রাজ্যে । কখনোবা ফল, ফসল আর প্রাচুর্যে পূর্ণ ইয়াসরিবে । মনে হয়েছে, লেখক টাইম মেশিনে করে বদরের প্রান্তরে ঘুরতে নিয়ে এসেছেন আর আমি যুদ্ধের ময়দানে একপাশে দাঁড়িয়ে নীরব দর্শকের ভূমিকায় যুদ্ধক্ষেত্র অবলোকন করছি । যুদ্ধের ময়দানের কিছু কিছু দৃশ্যে চোখের পানি ধরে রাখতে পারিনি । লেখক যথাসম্ভব ইতিহাসের শুদ্ধতা বজায় রেখেছেন ৷ শুধুমাত্র পাঠকের একঘেঁয়েমী দূর করতে মূল বর্ণনাকে ঠিক রেখে ভাষাকে গল্পের মতো করে বর্ণনা করেছেন । সবকিছু ছাপিয়ে হাদিস ও সিরাতের সূত্রনির্ভর ধারাবর্ণনায় রচিত হয়েছে এই বইটি ।

    প্রিয় পাঠক, ইতিহাসের মরুবালিতে পা ডুবিয়ে, টান টান উত্তেজনা নিয়ে পড়তে পারেন এ বইটি ।
    মনোরম গল্পভাষ্যে আর বিস্তৃত প্রেক্ষাপটে বাংলাভাষায় সিরাত পাঠের এটি একটি নতুন সংযোজন ।


    বইটি প্রকাশিত হয়েছে “নবপ্রকাশ” পাবলিকেশন থেকে ।
    পৃষ্ঠা সংখ্যা— ২৫৬ ।
    প্রচ্ছদ মূল্য— ২৫৫ টাকা ।
    Was this review helpful to you?