মেন্যু
rahe belayet

রাহে বেলায়াত

পৃষ্ঠা : 656, কভার : হার্ড কভার, সংস্করণ : New Edition
আইএসবিএন : 9789849005315
আল্লাহ কুরআনে বলেন, "তোমরা আমার যিকির কর। আমি তোমাদের যিকির করব"। [বাকারাঃ ১৫২] আল্লাহর এই যিকির বিশ্বাসীদের জীবনের অন্যতম সম্পদ। আল্লাহর সন্তুষ্টি ও সাওয়াব অর্জনের অন্যতম পথ। মহাশত্রু শয়তানের কুমন্ত্রণা থেকে... আরো পড়ুন
পরিমাণ

330  550 (40% ছাড়ে)

পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন
পছন্দের তালিকায় যুক্ত করুন

28 রিভিউ এবং রেটিং - রাহে বেলায়াত

4.9
Based on 28 reviews
5 star
96%
4 star
0%
3 star
0%
2 star
0%
1 star
3%
Showing 27 of 28 reviews (5 star). See all 28 reviews
 আপনার রিভিউটি লিখুন

Your email address will not be published.

  1. 5 out of 5

    bappy1200:

    আলহামদু লিল্লাহ অনেক ভাল লেগেছে। অনেক দিন ধরে কিনব কিন ভাব ছিলাম এবং কিনেই ফেললাম।
    13 out of 15 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  2. 5 out of 5

    সালিমা সুলতানা আফরা:

    জীবনের কোনো এক ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ দিনে মরীচিকা-ঘেরা এই দুনিয়ার পিছে ছুটতে থাকা আপনি হঠাৎ বুঝতে পারলেন আপনার মন জুড়ে বিরাজ করছে কেবলই শূন্যতা! দুনিয়ায় একজন মানুষের যা-যা চাওয়ার থাকে তার সব পেয়েও আপনার মনে হচ্ছে আপনার কী যেন নেই! সীমাহীন দুশ্চিন্তা আর পেরেশানিতে আপনি হয়ে পড়েছেন পানি ছাড়া মাছের মতোই অসহায়। এভাবেই আপনি উপলব্ধি করলেন আপনি আপনার রব্ব থেকে বহু দূরে চলে এসেছেন.. সেই রব্ব থেকে যাঁর উদারতা আর ভালোবাসার কাছে জগতের সব কিছু নিতান্তই তুচ্ছ। তখনই আপনার মনে হলো, ‘আমি যদি এতশত জাগতিকভার মুক্ত হয়ে আমার রব্বের কাছে ফিরে যেতে পারতাম! যদি তাঁর নিকটে পৌঁছুতে পারতাম! ততটা নিকটে, যতটা নৈকট্য পেলে তাকে বন্ধুত্ব বলা যায়! যদি আমি আমার স্নেহময় রব্ব, আল ওয়াদুদের ওলী হতে পারতাম! যে পথ ধরে চললে পরে তাঁর নৈকট্যে পৌঁছা যায়, যদি আমি সেই পথটির সন্ধান পেয়ে যেতাম!!’

    ঠিক এমনই কোনো মুহূর্তে আপনি এমনই এক বাতিঘরের সন্ধান পেলেন, যা আপনাকে দেখিয়ে দিচ্ছে আল ওয়াদুদের নৈকট্যের পথটি! বলুন তো, আপনি তখন কী করবেন? কতটা ভালোলাগায় আপনার মন ভরে যাবে?! কতটা কৃতজ্ঞতায় আল ওয়াদুদের স্মরণেই ঝরে পড়বে ক’ফোটা উষ্ণ অশ্রু!?
    ‘রাহে বেলায়াত’, ড. খোন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর (রাহিমাহুল্লাহ) রচিত এমনই একটি গ্রন্থ, যা আমাদেরকে আল্লাহর বেলায়াতের পথটিকেই চিনিয়ে দেয়! বইটির নামটিই ‘রাহে বেলায়াত’ তথা বেলায়াতের পথে! এটা সেই রব্বের বেলায়াতের পথ দেখায় যে রব্বের বেলায়াত পেলে আপনার সব সুখ পাওয়া হয়ে যায়! যে প্রেমময়ের প্রেম পেলে আপনার সব দুঃখ-কষ্ট নিমিষেই বিলীন হয়ে যায়! জাগতিক চাপে ভারাক্রান্ত আপনার এই হৃদয়টিই অনিঃশেষ মুক্ত বাতাসের সন্ধান পেয়ে যায়…! আপনার একসময়ের ঘুণেধরা জীবনটিই এই ভালোবাসার ছোঁয়ায় চিরদিনের মতো সফল হয়ে যায়!!!
    .
    #বইটিতে_যা_আছে:
    এ বইটি মূলতই আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করে তাঁর খুব কাছের একজন বান্দা হওয়ার উপায় নিয়ে কথা বলে। তা হলো আল্লাহর প্রতি ইমান এনে তাঁর হারামকৃত কাজগুলো থেকে দূরে থেকে তাঁর ফরজকৃত ইবাদাতগুলি পালন করার পাশাপাশি সুন্নাহসম্মত নফল ইবাদাতগুলি বেশি বেশি করা।
    .
    অনেকেই বলেন ‘রাহে বেলায়াত’ সুন্নাহসম্মত যিকরসমূহের একটি নির্ভরযোগ্য সংকলন; সেটা সত্যি, তবে যিকর বলতে আমরা যেভাবে সংকীর্ণ অর্থে বিভিন্ন তাসবীহ পাঠ করাকে বুঝে থাকি, এখানে তেমনভাবে না বুঝিয়ে যিকর এর বিস্তীর্ণ পরিধিকেই তুলে ধরা হয়েছে। এটি পড়লে আপনি বুঝবেন দুয়া, নামাজ, কুরআন তিলাওয়াতসহ অন্যান্য অনেক ইবাদাতই কীভাবে যিকরের অন্তর্ভুক্ত। তার মানে বুঝা গেল এ বইটিতে এই সবকিছু নিয়েই আলোচনা আছে!
    আলোচনা আছে ইসলামের মৌলিক সব বিষয় নিয়েই; যেমন: ইমান, শিরক, কুফর, হারাম উপার্জন, বান্দাহর অধিকার, কবিরা গুনাহ, ফরজ ইবাদাত, ওয়াজিব ও সুন্নাহ ইবাদাত নিয়ে। পাশাপাশি অনেক বিস্তারিতভাবে তুলে ধরা হয়েছে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ নফল ইবাদাত, জীবনঘনিষ্ঠ প্রচুর প্রয়োজনীয় দুয়া! এই সব বিষয়গুলোকে এমন সহজ-সাবলীল কিন্তু মোহনীয় ঢঙে সাজানো হয়েছে যে এই বইটি হাতে নিলেই আপনার মনে হবে ‘আমার মতো এত অধম মানুষ্টিও মনে হয় খুব সহজেই আল্লাহর একজন প্রিয় বান্দা হওয়ার চেষ্টা করতে পারি!’ এ বইটি আপনার দৈনন্দিন জীবনকে প্রিয় নবীজীর (সা.) বারাকাহপূর্ণ সুন্নাহ দিয়ে রাঙিয়ে দিতে চেষ্টা করে! এই বইটিকে সিলেবাস হিসেবে নিয়ে একটু একটু করেই আপনি আপনার দৈনন্দিন জীবনকে বিভিন্ন মাসনুন আমল দিয়ে সাজিয়ে নিতে পারবেন। আর যদি আপনি এটা নিয়মিত করেন একটা সময় সত্যিই আপনার মনে হবে আপনার জীবনের সেই ব্যথাতুর ভারাক্রান্ত দিনগুলো কোথায় যেন হারিয়ে গেছে! নাবীজীর (সা.) দেখিয়ে যাওয়া বারাকাহপূর্ণ আমলগুলোর অল্প কিছু করেই একসময় আপনি নিজেকে আবিষ্কার করে ফেলবেন সবচে সুখী মানুষদের ভীড়ে! অনেক কিছু না থেকেও আপনার মনে হবে আপনার তো আসলে অনেক কিছুই আছে, সেসব দিয়েই তো আপনার খুব সুন্দর চলে যাচ্ছে…অর্থাৎ আপনি মন থেকেই আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতার অনুভূতি প্রকাশ করতে পারবেন!
    .
    গ্রন্থটির একটি উল্লেখযোগ্য অংশজুড়ে রয়েছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়ের সংক্্ষিপ্ত কিন্তু তথ্যবহুল অসাধারণ আলোচনা! তা হলো ‘রোগ-ব্যাধি ও ঝাড়ফুঁক’। এতে জাগতিক কিছু রোগব্যাধির ক্ষেত্রে করণীয় সুন্নাহ ছাড়াও বদ-নজর, জিন-যাদুর মতো অতিপ্রাকৃতিক সমস্যার মাসনুন চিকিৎসা ও প্রতিরোধব্যবস্থা তুলে ধরা হয়েছে। আসলে এ পুরো গ্রন্থটিই তো রোগ নিরাময় নিয়েই আলোচনা করে! আধ্যাত্মিক রোগ, মানসিক বা অন্তরের রোগ ও তো জাগতিক রোগ-ব্যাধি থেকে কম চিন্তার বিষয় নয়! আল্লাহ থেকে দূরে সরে যাওয়াটাই তো মানবজীবনের সবচে বড় ব্যাধি! আর আল্লাহর কাছে আসার উপায় দেখিয়ে দেওয়ার মাধ্যমে এ বইটি তো সেই ব্যাধিই নিরাময় করতে সচেষ্ট! লেখকের ভাষায় ‘যেন ধন্য হয় নগণ্য সৃষ্টি তাঁর মহান প্রভুর প্রেমের পরশে!’
    .
    #উল্লেখযোগ্য_একটি_অংশ_হুবহু_তুলে_দিলাম:
    “আমাদের মন কখনোই চুপ থাকে না। কোনো না কোনো কিছু নিয়ে মন (সর্বদাই) ব্যস্ত থাকে। সাধারণত ব্যক্তিগত, সামাজিক, জাতীয় বা আন্তর্জাতিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আমরা অবসর সময়ে, কখনো কখনো ঘণ্টার পর ঘণ্টা অলস চিন্তা করে থাকি। আমরা একটু ভেবে দেখি না যে, আমাদের এ অলস চিন্তা বা অর্থহীন আলোচনা, বিতর্ক আমাদের ব্যক্তিগত, সামাজিক বা জাতীয় জীবনে কোনো উপকারেই লাগছে না। বরং এগুলো আমাদের প্রভূত ক্ষতি করে। সবচেয়ে বড় ক্ষতি অপ্রয়োজনীয় চিন্তা, ব্যথা, ক্রোধ, জিদ, হিংসা ইত্যাদি আমাদের মনকে ভারাক্রান্ত ও কলুষিত করে। সাথে সাথে আমরা আল্লাহর যিকর করে অগণিত সাওয়াব ও আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হই।…অনেকসময় মন বেখেয়ালে বিভিন্ন অপ্রয়োজনীয় বিষয়ে অলস চিন্তায় মেতে উঠে। যখনই খেয়াল হবে তখনই সেগুলোকে মন থেকে বের করে আল্লাহর যিকরে মুখ ও মনকে অথবা শুধু মনকে নিয়োজিত করুন।যেমন, আপনি সকালে সংবাদ পড়েছেন বা শুনেছেন- অমুক স্থানে বোমাবর্ষণ হয়েছে বা অমুক ব্যক্তির মৃত্যু, শাস্তি, পদোন্নতি বা পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে আপনার চিন্তা বা আলোচনা উক্ত বিষয়ে কোনো পরিবর্তন আনবে না।…কাউকে নিয়ে উৎকণ্ঠা, দুশ্চিন্তা, অমঙ্গল চিন্তা কি তার বা তার অসুস্থ আপনজনের কোনো উপকারে লাগবে? কখনোই না!…একটু অভ্যাস করলে আমরা এ সকল মূল্যবান সময় আল্লাহর যিকরে ব্যয় করে জাগতিক, মানসিক ও পারলৌকিকভাবে অশেষ লাভবান হতে পারি। আল্লাহ তাওফিক প্রদান করুন, আমীন।”
    .
    #লেখক_সম্পর্কে_দু_কলম:
    ড. খোন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর (রাহিমাহুল্লাহ):
    তাঁর কথা কী আর বলব! এমনই এক বিদগ্ধ আ’লিমে দ্বীন যাকে কখনো কারো নামে মন্দ বলতে শুনি নি! মন্দ কী বলবেন, উনি তো নিয়োজিতই ছিলেন শতধা বিভক্ত মুসলিম উম্মাহকে কুরআন-সুন্নাহর ছায়াতলে এক করার মিশন নিয়ে! তিনি নেই, কিন্তু তাঁর হৃদয়গ্রাহী বক্তব্য আর অসাধারণ অনেক লেখা আজও আমাদের মাঝে রয়ে গেছে… আল্লাহ তাঁর কবরকে শীতল রাখুন, আমীন!
    25 out of 27 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  3. 5 out of 5

    Omar:

    Alhamdulillah! Very Good.
    9 out of 12 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  4. 5 out of 5

    Md.Manzure Kudrate Khoda:

    স্যারের প্রতিটি বই দলীল নির্ভর ও তথ্যবহুল, ইনশাআল্লাহ পর্যায়ক্রমে স্যারের সব বইগুলি কিনব।
    12 out of 13 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
  5. 5 out of 5

    আবু বকর সিদ্দিক:

    খুবই প্রয়োজনীয় একটি বই। আমি নিবো ইনশাআল্লাহ
    10 out of 10 people found this helpful. Was this review helpful to you?
    Yes
    No
Top